শায়খুল হাদীস আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী (র) এর চলে যাওয়ার একবছর

প্রকাশিত: ১১:০৮ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৫, ২০২১

শায়খুল হাদীস আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী (র) এর চলে যাওয়ার একবছর

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরীঃ দু’হাজার বিশ সাল ছিল সত্যিই এক বিষাদময় বছর। কেবল এক বছরেই আমরা হারিয়েছি অসংখ্য বর্ষিয়ান আলেমদের। জাতি হয়েছে অভিভাবকহীন। কাওমি অঙ্গন হয়ে পড়েছে মুরুব্বিবিহীন। নক্ষত্রের কক্ষচ্যুতির এই ধারার শুরুটা হয়েছিল, শাইখুল হাদিস আল্লামা হাফেজ তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী( র) এর বিদায়ের মধ্য দিয়ে। বিদায়ী বছরের আজকের দিনে লাখো ভক্তকুলকে কাঁদিয়ে তিনি চলে যান আপন প্রভুর সান্নিধ্যে।
আজ ০৫ জানুয়ারী দেশের শীর্ষস্থানীয় আলেম, বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়ার সহসভাপতি,জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সিনিয়র সহ-সভাপতি, জামেয়া আরাবিয়া উমেদনগর টাইটেল মাদ্রাসা হবিগঞ্জের প্রিন্সিপাল ও শায়খুল হাদীস আল্লামা হাফেজ তাফাজ্জুল হক মুহাদ্দিসে হবিগঞ্জী (র) এর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী। ২০২০ সালের এই দিনে তিনি আমাদের ছেড়ে চলে যান। ইন্না-লিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজিউন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিলো প্রায় ৮৫ বছর। মৃত্যৃকালে ৫ ছেলে,৪ মেয়েসহ হাজার হাজার ছাত্র, ভক্ত মুরিদান রেখে যান। তিনি খলিফায়ে মাদানী হযরত বদরুল আলম শায়খে রেঙ্গার খলিফা ছিলেন।
দেশ বরেণ্য এই আলেমকে জামেয়া তাওয়াক্কুলিয়া রেঙ্গার শতবর্ষ সম্মেলনে জীবনের শেষ দেখা। এর আগে গত ১৯ ডিসেম্বর ২০১৯ তিনি জামেয়া রেঙ্গায় সর্বশেষ বুখারি শরিফের দারস দিয়েছেন। সেদিন সকালে আমাদের(যুব জমিয়তের প্রতিনিধিদল) হুজুরের দরসে শরিক হওয়ার জন্য ভেবেছিলাম কিন্তু কাফেলায় বেশ কয়েকজন হওয়ার কারনে দরসে বসা হয়নি,কারন দরসের ধ্যানমগ্ধতায় ব্যঘাত হবে বলে। রেঙ্গার শতবর্ষ দস্তারবন্দী সম্মেলনের বয়ানই তার জীবনের শেষ বয়ান। তিনি সে দিন তিনি সংক্ষিপ্ত হলেও গুরুত্বপূর্ণ বয়ান পেশ করেন।

সংক্ষিপ্ত পরিচয়ঃ শায়খুল হাদীস হবিগঞ্জী রাহ. ১৩৫৯ হিজরি মুতাবেক ১৯৩৮ সালে হবিগঞ্জের কাঠাখালি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা শায়খ আব্দুন নুর রাহ. (মৃত্যু ১ আগস্ট ১৯৯৯ সাল), মাতার নাম শামসুন নেসা। তাঁর নানা হজরত মাওলানা আসাদুল্লাহ রাহ. ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে প্রথম সারির এক মুজাহিদ ছিলেন। শুধু সিলেট বিভাগ নয় তিনি দেশের শীর্ষ আলেম ও উপমহাদেশের অন্যতম হাদীস বিশারদ ও মুফাসসীর ছিলেন।

পিতা-মাতার কাছেই শায়খুল হাদীস হবিগঞ্জী রাহ.’র পড়াশোনার হাতেখড়ি। প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণ করেন তাঁর পিতার কাছে, কাটাখালী মাদরাসায়। এটি তাঁর পিতার প্রতিষ্ঠিত মাদরাসা। এরপর তিনি হবিগঞ্জের অদূরে রায়ধর গ্রামে ‘জামেয়া সাদিয়ায়’ ভর্তি হন। সেখানে তিনি তাঁর মামা হজরত মাওলানা মুখলিসুর রাহমান রাহ.’র কাছে আরবিব্যাকরণ ও আরবিভাষা রপ্ত করেন। তাঁর মামা ছিলেন শায়খুল ইসলাম সায়্যিদ হুসাইন আহমদ মাদানী রাহ.’র ছাত্র। প্রাথমিক স্তরের পড়াশোনা শেষ করে তিনি উপমহাদেশের বিখ্যাত দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জামিয়া আহলিয়া মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারীতে চলে যান। সেখানে তিনি ফিক্হ, উসুলে ফিক্হ, তাফসির, উসুলে তাফসির, হাদিস, উসুলে হাদিস, মানতিক-ফালসাফাসহ ইসলামের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ শাখার জ্ঞান অর্জন করেন। এখানে তিনি মুফতি ফায়জুল্লাহ রাহ.’র বিশেষ সান্নিধ্য লাভে ধন্য হন। তিনি হাটহাজারী মাদরাসা থেকে ১৯৬০-৬১ সালে ‘দাওরায়ে হাদীস’ সম্পন্ন করেন।
দাওরায়ে হাদিস শেষ করে তিনি পাড়ি জমিয়েছিলেন পশ্চিম পাকিস্তানে। সেখানে ‘জামেয়া আশরাফিয়া লাহোর’ এ দ্বিতীয়বার দাওরায়ে হাদীসে ভর্তি হন। ১৯৬২ সালে তিনি কানপুর চলে যান। সেখানে হাফিজুল হাদীস আল্লামা আব্দুল্লাহ দরখাস্তির কাছে তাফসিরের বিশেষ পাঠ গ্রহণ করেন। এরপর ‘জামিয়াতুল উলুমিল ইসলামিয়া করাচি’ মাদরাসায় শায়খুল হাদীস ইউসুফ বান্নুরী রাহ.’র সান্নিধ্যে যান। সেখানে তাঁর কাছে তিনি তিনটি কিতাবের বিশেষ দারস গ্রহণ করেন। সেগুলো হচ্ছে, সাহিহুল বুখারি, হুজ্জাতুল্লাহিল বালিগা ও তাফসিরুল কুরআন।
পাকিস্তান থেকে তিনি ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দে পাড়ি জমান। দেওবন্দে যাবার পথে তিনি তাবলিগ জামাতের বড় মুরববি ও দাঈ হজরত ইউসুফ ইবনে ইলিয়াস কান্ধলভি রাহ.’র সান্নিধ্য লাভ করেন। প্রথম সাক্ষাতেই তাঁর সাথে হজরতের হৃদ্যতাপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে ওঠে। পথেই হজরতজি রাহ. তাঁর লেখা ‘হায়াতে সাহাবা’র পান্ড-ুলিপি দেখার জন্য শায়খুল হাদীস হবিগঞ্জী রাহ. কে দেন। শায়খুল হাদিস হজরত হবিগঞ্জী রাহ.’র আবেদনে হজরত মাওলানা ইউসুফ কান্ধলভি রাহ. তাঁকে সাহারানপুরে শায়খুল হাদীস জাকারিয়া রাহ.’র সোহবতে পাঠিয়ে দেন। তিনি শায়খুল হাদীস রাহ.’র সুহবতে দশদিনের মত অবস্থান করেন। এখানে অবস্থানকালে তিনি শায়খের সহিহুল বুখারির দারসে উপস্থিত হয়ে তাঁর কাছ থেকে ইজাজত লাভ করেন। এরপর শায়খুল হাদিস হজরত হবিগঞ্জী রাহ. কে হজরতজি ইউসুফ কান্ধলভি রাহ. দারুল উলুম দেওবন্দে নিয়ে যান। দেওবন্দে তিনি ফেদায়ে মিল্লাত সায়্যিদ আসআ’দ মাদানী রাহ.’র মেহমান হন। এখানে তিনি ঐতিহাসিক ‘মাদানি মানজিলে’ মেহমান হিসেবে অবস্থান করেন।
ভারত-পাকিস্তান ভাগের জেরে দারুল উলুম দেওবন্দে তখন পাকিস্তানি ছাত্র ভর্তি বন্ধ ছিলো। শায়খুল হাদীস হবিগঞ্জী রাহ. দেওবন্দে যখন পৌঁছেছেন, তখন ভর্তির সময়ও শেষ। এই দুই কারণে তিনি নিয়মিত ছাত্র হিসেবে ভর্তি হতে পারেননি। তবে তৎকালীন মুহতামিম কারি তায়্যিব রাহ.’র অনুমতিতে দারুল উলুম দেওবন্দে ‘খুসুসি দারস’ (বিশেষ পাঠ্য) গ্রহণ করেন। ওইসময় তিনি জামে তিরমিযি পড়েন শায়খ ইবরাহিম বলিয়াভি রাহ.’র কাছে। তাফসিরে বায়যাবি পড়েন হজরত মাওলানা ফখরুল হাসান রাহ.’র কাছে। হজরত মাওলানা কারি তায়্যিব রাহ.’র কাছ থেকে নেন হুজ্জাতুল্লাহিল বালিগার খুসুসি দারসও।
সহিহ বুখারির সাথে শায়খুল হাদীস হবিগঞ্জী রাহ.’র এক নিবিড় সর্ম্পক গড়ে উঠে। তিনি এ কিতাবটি পাঁচজন শায়খুল হাদীসের কাছে পড়েছেন। তাঁদের কাছ থেকে বুখারির দারস প্রদানের অনুমতিও পেয়েছেন। প্রথমবার পূর্ণরূপে পড়েছেন হাটহাজারী মাদরাসায় শায়খ আব্দুল কাইয়ুম রাহ.’র কাছে। দ্বিতীয়বার পড়েছেন মুফতিয়ে আজম শায়খ ফায়জুল্লাহ রাহ.’র বাড়িতে। তৃতীয়বার পড়েছেন লাহোরে শায়খ ইদরিস কান্ধলভি রাহ.’র কাছে। চতুর্থবার পড়েছেন শায়খ ইউসুফ বানুরি রাহ.’র কাছে। পঞ্চমবার পড়েছেন দারুল উলুম দেওবন্দে শায়খ ফখরুদ্দিন আহমদ মুরাদাবাদি রাহ.’র কাছে। সাহারানপুরে শায়খুল হাদিস জাকারিয়া রাহ.’র কাছেও বুখারির একাংশ পড়েছেন। এভাবে ‘খুসুসি দারস’ শেষে ১৯৬৩ সালে তিনি দেশে ফিরে আসেন।
১৯৬৪ সালে কুমিল্লার দারুল উলুম বরুড়া মাদরাসায় শিক্ষকতার মধ্য দিয়ে কর্মজীবনের শুরু। ৬৪ সাল থেকে ৬৬ সাল পর্যন্ত তিন বছর এ মাদরাসায় হাদিস, তাফসিরসহ বিভিন্ন কিতাবের দারস দেন। ১৯৬৬ সালের শেষ দিকে দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারীর মুহতামিম হজরত মাওলানা আব্দুল ওয়াহাব রাহ.’র নির্দেশে ময়মনসিংহের আশরাফুল উলুম বালিয়া মাদরাসায় শায়খুল হাদীস হিসেবে যোগ দেন। ১৯৬৯ সাল পর্যন্ত তিন বছর বালিয়া মাদরাসায় হাদীসের খেদমতে নিয়োজিত ছিলেন। ১৯৬৯-৭১ সালের ১৬ ডিসম্বরের পূর্ব পর্যন্ত ময়মনসিংহের জামিয়া ইসলামিয়ায় দারসে হাদীসের খেদমত করেন।

এর পর’ ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর হবিগঞ্জে আসেন। এলাকাবাসির অনুরোধে ও স্বীয় পীর,খলিফায়ে মাদানী হজরত মাওলানা বদরুল আলম শায়খে রেঙ্গা রাহ.’র নির্দেশে হবিগঞ্জের জামিয়া আরাবিয়া উমেদনগর মাদরাসায় যোগদান করেন। মৃত্যু অবধি এ মাদরাসাতেই মুহতামিম ও শায়খুল হাদীসের দায়িত্ব আঞ্জাম দিয়ে যান। মাওলানা শাহাবুদ্দীন সাহেবের ইন্তেকালের পরে জামেয়া তাওয়াক্কুলিয়া রেঙ্গার শায়খুল হাদীস হিসেবে নিয়োগ পান। ১৮ জুলাই ২০১৯ বৃহস্পতিবার তিনি জামেয়া রেঙ্গায় প্রথম দারস প্রদান করেন।
ময়মনসিংহ আশরাফুল উলুম বালিয়া মাদরাসা থেকে শুরু করে সুদীর্ঘ অর্ধশতাব্দী কালেরো অধিক সময় বুখারির দারস দিয়ে গেছেন।

মেয়েদের জন্য পৃথক কোনো প্রতিষ্ঠান তৈরি হবে কি-না, এই নিয়ে যখন অনেকে সংশয়ে, তখনই বিপুল অর্থ ব্যয়ে হবিগঞ্জে উচ্চতর মহিলা মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করে পথপ্রদর্শকের ভূমিকা রেখেছেন তিনি। তেতৈয়ায় বিশাল এলাকাজুড়ে প্রতিষ্ঠিত সেই জামিয়া শারইয়্যাহ মহিলা মাদরাসা দেশের এক বৃহৎ প্রতিষ্ঠান হিসেবে পরিগণিত। শায়খুল হাদীস হবিগঞ্জী রাহ. জীবনের দীর্ঘ সময় বিভিন্ন মনীষার সান্নিধ্যে থেকে আধ্যাত্মিক সাধনায় নিজেকে উচ্চতর আসনে উন্নীত করেন। আধ্যাত্মিক সাধনায় প্রথমে তিনি মুফতিয়ে আজম শায়খ ফায়জুল্লাহ রাহ.-’র কাছে বায়আত হন। তাঁর ইনতিকালের পর শায়খুল ইসলাম মাদানী রাহ.’র কয়েকজন খলিফার সাথে পরামর্শ, ইস্তেখারা ও দিলের রুজহানের কারণে হজরত শায়খে রেঙ্গা রাহ.’র কাছে বাইয়াত হন। শায়খুল হাদীস হবিগঞ্জী রাহ. তাসাউফের উপর দীর্ঘদিন রিয়াজত ও মুজাহাদা করেন। এরপর এক সময় হজরত শায়খে রেঙ্গা রাহ. তাঁকে ইজাজত প্রদান করেন।
শুধু দারস তাদরিস ও তাজকিয়ায়ে নাফসের ময়দানেই নয়, তিনি আল্লাহর জমিনে আল্লাহর দ্বীন কায়েমের জন্য ইসলামী রাজনীতির ময়দানেও সমান অবদান রেখেগেছেন।
এক্ষেত্রে তিনি আকাবির আসলাফের ঐতিহ্যবাহী সংগঠন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সিনিয়র সহসভাপতি ও হবিগঞ্জ জেলার সভাপতির দায়িত্বে নিযুক্ত ছিলেন। অরাজনৈতিক দ্বীনি সংগঠন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ ও কওমি মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়ার কেন্দ্রীয় সহসভাপতি ছিলেন।
ইসলাম ও দেশ বিরুধী সকল প্রকার অপশক্তির বিরুদ্ধে তিনি সোচ্চার ছিলেন সবসময়।

ইসলাম ও মুসলিম জাতির স্বার্থে তাঁর নেতৃস্থানীয় ভূমিকা সুবিদিত। জীবন সায়াহ্নে এসেও
ইসলামি যেকোন ইস্যুতে প্রয়োজনে রাজপথে নেমে আসেন। শান্তিপূর্ণ মিছিলে অংশগ্রহণ করেন। শারীরিক অসুস্থতা এতে বাধা হতে পারে না। প্রয়োজনে হুইল চেয়ারে বসেও মিছিলের সামনে থেকে তিনি জনগণের নেতৃত্ব প্রদান করে ঈমানী দায়িত্ব পালন করে যান।
শায়খুল হাদীস হবিগঞ্জী রাহ. ময়মনসিংহের বিখ্যাত বুজুর্গ ফাযিলে দেওবন্দ মাওলানা আরিফ রব্বানী রাহ. ’র ৪র্থ কন্যা আইনুন নাহার লুৎফার সাথে ১৯৬৭ সালে পরিণয়সূত্রে আবদ্ধ হন। তারা
ব্যক্তিগত জীবনে ৬ ছেলে ও ৪ মেয়ের জনক। এক ছেলে শৈশবেই ইনতিকাল করেন।
বর্নাট্য জীবনের অধিকারী মহান এই হাদীস বিশারদ
মৃত্যুর এক বছর আগ থেকেই তিনি শারিরীক ভাবে দুর্বল হয়ে যান। (২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯) দক্ষিণ সুরমার ঐতিহ্যবাহী জামেয়া তোয়াক্কুলিয়া রেঙ্গায় সারাদিন বুখারী শরীফের র্দস দেন। রাতে হঠাৎ করে শরীর অসুস্থতা বোধ করলে রাত পৌনে ২টার দিকে রেঙ্গা মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা মুহিউল ইসলাম বুরহান হুজুরকে নিয়ে মাউন্ট এডোরা হাসপাতালে ভর্তি করেন। প্রথমে হুজুরের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় আইসিইউতে ভর্তি করা হয়। পরে তাঁর অবস্থার কিছুটা উন্নতি হলে সিসিইউতে স্থানান্তরিত করা হয়। হুজুরের শারীরিক অবস্থা আরো অবনতি হওয়ায় চিকিৎসা বোর্ডের ডা. শাহাব উদ্দিন শনিবার রাতে তাকে ঢাকায় প্রেরণের সিদ্ধান্ত নেন।
২৯ সেপ্টেম্বর দুপুর সোয়া ২টায় সিলেট আলিয়া মাদ্রাসা থেকে এয়ার এম্বুলেন্স যোগে ঢাকায় প্রেরণ করা হয়। তখন রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে হুজুরকে ভর্তি করা হয়। সেখানে প্রায় দুই সপ্তাহ চিকিৎসাধীন ছিলেন। এর আগে ২০১৭ সালের ১৯ জুলাই অসুস্থ হয়ে লন্ডনের ইউলিয়াম হার্ভে হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। পরে সেখানেও তার হার্টের এনজিওগ্রাম করা হয়।
হুজুর আমাকে অত্যন্ত মহব্বত করতেন। অনেক স্মৃতি রয়েছে বরেণ্য এই আলেমেদ্বীনের সহবতে। হযরতের মৃত্যুতে দেশ-জাতি হারালো ইলমে হাদিস ও তাফসিরের বিশাল এক ভাণ্ডার। যে শূন্যতা যুগযুগ ধরে অনুভূত হবে তীব্রভাবে।
মহান রবের কাছে প্রার্থনা, জাতিকে এর নি’মাল বদল আর হযরতকে জান্নাতের উঁচু থেকে উঁচু মাকাম দান করুন। তাঁর মাক্ববারাহ হয়ে ওঠুক একখণ্ড জান্নাতুল ফিরদাউস,আমীন।

এই সংবাদটি 80 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com