বুধবার, ৩০ নভে ২০১৬ ১০:১১ ঘণ্টা

সিলেট জেলা ছাত্র জমিয়তের দু’ দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ বৃহস্পতিবার শুরু

Share Button

সিলেট জেলা ছাত্র জমিয়তের দু’ দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ বৃহস্পতিবার শুরু

ফয়েজ উদ্দীন,সিলেট রিপোর্ট: প্রত্যেক আদর্শিক আন্দোলনের কর্মীদের সুনির্দিষ্ট মিশন থাকে। ভিশন থাকে। আন্দোলনের মিশন ও ভিশনই তাদের জীবনের মিশন এবং ভিশন। অব্যাহত প্রচেষ্টার মাধ্যমে কেবল সে লক্ষ্যে পৌঁছা সম্ভব। যারা জগতের সকল চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে বদ্ধপরিকর, যারা সাগরের উত্তাল তরঙ্গমালার বিপরীতে সামনে এগিয়ে চলে, প্রচন্ড ঝড়োহাওয়াকে পরোয়া করে না, যারা পাহাড়ের পাদদেশে লুকিয়ে থাকা ভয়ঙ্কর শত্রুর ব্যূহ ভেদ করে বিজয় ছিনিয়ে আনে, তারাই আদর্শিক কর্মী। তাদের হাতেই পৃথিবী পরাস্ত হয়। বিজয় ধরা দেয় হাতের মুঠোয়। এক কথায় বলতে গেলে আদর্শের ওপর দাঁড়িয়ে যে কোন পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে যারা প্রস্তুত থাকে, তারাই আদর্শবাদী কর্মী।
পক্ষান্তরে আদর্শবাদী আন্দোলনের দাবিদারদের মিশন-ভিশন যতই সুন্দর, যুগোপযোগী বা বাস্তবধর্মী হোক না কেন সে আদর্শে কর্মীরা যদি দৃঢ় আত্মপ্রত্যয়ী কঠিন পরিশ্রমপ্রিয় ও আদর্শের জন্য যে কোন পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে প্রস্তুত না থাকে, তাহলে সেই মিশন ও ভিশন দিয়ে পৃথিবী, দেশ, গোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠিত স্রোত পরিবর্তন নেহাত শ্লোগানের ফ্রেমে বন্দি থেকে যায়। এমন দুর্বলচিত্তের কর্মীরা স্বপ্ন দেখে না, চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে পারে না, এরা মৃত্যুর পূর্বে বহুবার মরে এবং ববাঁচে। এরা অন্তঃসার শূন্য।
ইসলামী আদর্শের কর্মীরা সর্বকালে সকল প্রতিকূলতা মাড়িয়ে যেমন ছিল তেমনই থাকতে হবে। এটাই তাদের চির সাফল্যের পথ। এ আন্দোলনের কর্মীদের কাছে দুনিয়ার জাহেলিয়াত মোকাবেলা করে সামনে এগিয়ে যাওয়া ছাড়া ভিন্ন কোন বিকল্প নেই। দুনিয়াকে যারা নিজেদের মত করে গড়ে তুলতে চায় তারা যদি চলমান পৃথিবীর মানুষের চাইতে তাদের জীবন মান অনেক উন্নত করতে পারে কেবল এরাই দুনিয়ার মানুষের কাছে সম্মান, শ্রদ্ধা ও প্রিয় মানুষে রূপান্তরিত হতে পারে। এভাবেই অসৎ ও কুচরিত্রের ব্যক্তিদের রাহুর কবল থেকে মানুষ রক্ষা পেয়ে ইসলামী আদর্শকে গ্রহণ ও সমর্থন জানিয়ে সমাজ ও রাষ্ট্রের দায়িত্ব তাদের হাতে ন্যস্ত করবে। ইসলামী ছাত্র আন্দোলনে দেয়া সময় ইসলামী আন্দোলনের কর্মীদের নিজেদের সৎ, যোগ্য ও দক্ষ হিসেবে গড়ে তোলার সময়। এ সময় কালটি একজন তরুণ ও যুবকের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সময়। বিশেষ করে এ সময়টি একজন কর্মী তার জ্ঞানগত দক্ষতা, আমলিয়াতের সৌন্দর্য ও ময়দানে আন্দোলনের কাজে দক্ষতার সাথে পরিচালনার শিক্ষণের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সময়। এগুলোতে সিদ্ধহস্ত হতে প্রশিক্ষণের বিকল্প নেই। এই সেই প্রয়োজনীয়তা গভীরভাবে অনুভব করেই ছাত্রজমিয়ত বাংলাদেশ, সিলেট জেলা আয়োজন করেছে দু’ দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালার। শুরু হবে (১লা ডিসেম্বর) বৃহস্পতিবার বাদ মাগরিব থেকে এবং চলবে শুক্রবার সকাল ১১ ঘটিকা পর্যন্ত। প্রশিক্ষক হিসেবে উপস্থিত থাকবেন, কেন্দ্রীয় এবং স্থানীয় প্রশিক্ষকবৃন্দের মধ্য থেকে :
মাও. তফজ্জুল হক আজিজ সাহেব।
মাও. আব্দুল মালিক কাসিমি সাহেব।
মাও. মুফতি খন্দকার হারুনুর রশীদ সাহেব।
মাও. শাহীনুর পাশা চৌধুরি সাহেব এডভোকেট।
মাও. ফয়যুল হাসান খাদিমানি সাহেব।
হা. মাও. ফখরুযযামান সাহেব।
মাও. আতাউর রহমান কোম্পানিগঞ্জি সাহেব।
মাও. জফির উদ্দিন সাহেব।
মাও. তাফহিমুল হক সাহেব।
(নামগুলো সময়সূচির সম্ভাব্য ধারাবাহিকতা অনুযায়ী।)
প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণ করবেন প্রত্যেক উপজেলা, থানা, পৌরসভা, ইউনিয়নের নির্ধারিত দায়িত্বশীল। শহর এবং শহরতলির নির্বাচিত মাদরাসা থেকে বাছাইকৃত ৫জন প্রতিনিধির অংশগ্রহণেরও সুযোগ রয়েছে।
তারবিয়াতি আলোচনা হবে ২পর্বে। ১ম পর্ব বাদ এশা ও ২য় পর্ব বাদ তাহাজ্জুদ।
বি. দ্র.:- আলোচনা শেষে মেধা জাচাই হবে এবং নির্বাচিতদের থেকে সেরা তিন জনকে বাছাই করে সেরা পুরস্কারে পুরস্কৃত করা হবে। এছাড়াও প্রশিক্ষণার্থী সবাইকে বিশেষভাবে পুরস্কৃত করা হবে- ইনশাআল্লাহ! কাজেই মুহতারাম, প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণের সাংবিধানিক সুযোগ থাকলে এ সুযোগ হাতছাড়া করবেন না আশা করি। সবার মেহনতকে আল্লাহ কবুল করুন। আমিন।

এই সংবাদটি 1,089 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com