পরীক্ষা আসন্ন, শৃঙ্খলা বজায় রেখে পড়াশোনায় মনোনিবেশ করুন : ছাত্রদের উদ্দেশ্যে শায়খুল হাদীস উবায়দুল্লাহ ফারুক

প্রকাশিত: ১:২৭ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ২৮, ২০২১

পরীক্ষা আসন্ন, শৃঙ্খলা বজায় রেখে পড়াশোনায় মনোনিবেশ করুন : ছাত্রদের উদ্দেশ্যে শায়খুল হাদীস উবায়দুল্লাহ  ফারুক

সিলেট রিপার্ট:
শায়খুল হাদীস আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক বলেছেন, আল্লাহ তাআলার ইচ্ছা ও মানশা বড়ই বিস্ময়কর। কখনো কখনো এমন কিছু ঘটে, যাতে সাময়িকভাবে বান্দা পেরেশান হয়ে পড়েন। কিন্তু অল্প কিছু দিন পর দেখা যায় সেই ঘটনার মধ্য দিয়ে বড় কল্যাণকর একটা কাজের উদ্ভব ঘটেছে। এভাবেই নানা পট পরিবর্তন ও ঘটনার মধ্য দিয়ে দুনিয়াবী শৃঙ্খলার ভারসাম্য রক্ষা ও ঘাটতি পুরণ হয়। সুতরাং যে কোন পরিস্থিতিতে বান্দার দায়িত্ব স্বাভাবিক শৃঙ্খলা বিধানে ব্যাঘাত সৃষ্টি হয় এমন কিছু না করা এবং আল্লাহ যা কিছুই করেন, নিশ্চয় বান্দার কল্যাণের জন্যই করেন; এই নিয়্যাত দৃঢ়ভাবে পোষণ করে স্বাভাবিক গতিতে চলা।

(২৭ জানুয়ারী) বুধবার বাদ ইশা রাহবারে মিল্লাত আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী (রাহ.) প্রতিষ্ঠিত রাজধানী ঢাকার অন্যতম বিখ্যাত দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জামিয়া মাদানিয়া বারিধারা জামে মসজিদে ছাত্রদের উদ্দেশ্যে প্রতিষ্ঠানটির শায়খুল হাদীস আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক এসব কথা বলেন।

উপস্থিত ছিলেন পরিচালনা পরিষদের সদস্য ও প্রধান মুফতি মাওলানা ইকবাল হোসাইন, মুহাদ্দিস মাওলানা হিদায়াতুল্লাহ, সিনিয়র শিক্ষক মাওলানা আবু সালেহ, উম্মাহ সম্পাদক মাওলানা মুনির আহমদ প্রমুখ। এসময় সুবিশাল মসজিদ ও মসজিদ চত্বর জুড়ে জামিয়ার শিক্ষার্থীদের উপস্থিতিতে কানায় কানায় পরিপূর্ণ ছিল।

বয়ানে আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক বলেন, আল্লাহর নেজাম অনুযায়ী দুনিয়ার সবকিছু বর্ধনশীল। দিন দিন মানুষ বাড়ছে, জনবসতি বাড়ছে। এভাবে বর্ধিত জনবসতিতে অনেক কিছুর প্রয়োজন তৈরি হচ্ছে। যেমন- দোকানপাট, কলকারখানা, স্কুল-কলেজ, মাদ্রাসা, মহিলা মাদ্রাসা, কোর্ট-কাছারি ইত্যাদি অনেক জরুরত তৈরি হচ্ছে। এসব জরুরত পুরণ ও পরিচালনার জন্য যোগ্য মানুষের দরকার। আর যোগ্য মানুষরা যে যে জায়গায় প্রতিষ্ঠিত আছেন, তাঁদের পরস্পরের মধ্যে ভালবাসা তৈরি হয়ে যাওয়াতে কেউ সরতে চান না। দেখা যায়, এসব জরুরত পুরণে যোগ্য মানুষদেরকে ঘাটতিপূর্ণ জায়গায় পাঠাতে আল্লাহর নেজাম অনুযায়ী বিভিন্ন পরিস্থিতি ও ঘটনার মধ্য দিয়ে একটা অংশকে সে সব জায়গায় স্থানান্তর করান। এতে সাময়িক পেরেশানী আসলেও দেখা যায়, এর মধ্যে অনেক কল্যাণ নিহিত থাকে।

তিনি উদাহরণ দিতে গিয়ে বলেন, হাটহাজারী মাদ্রাসা ছিল সর্বপ্রথম বড় মাদ্রাসা। ইতিহাসে দেখা যায়, সেখানে সময়ে সময়ে এমন এক সাময়িক পরিস্থিতি তৈরি হল, যাতে শায়খুল হিন্দ (রাহ.)এর শাগরেদ মাওলানা সাঈদ আহমদ সন্দ্বীপী (রাহ.) বের হয়ে গেলেন। পরবর্তীতে অল্প সময়ের মধ্যে তাঁর মাধ্যমে আরো উত্তরে চারিয়া মাদ্রাসা নামে এক বড় দ্বীনি মারকাজ প্রতিষ্ঠিত হল। এভাবে বিভিন্ন ঘটনা ও পটপরিবর্তনের মধ্য দিয়ে চট্টগ্রামে ও দেশের সর্বত্র নতুন নতুন মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠিত হল এবং দ্বীনি শিক্ষার আলো ছড়িয়ে পড়লো।

তিনি বলেন, দারুল উলূম দেওবন্দের দিকে নজর দিলেও আমরা এমন অনেক ঘটনা ও পটপরিবর্তন দেখতে পাই, যাতে করে হিন্দুস্তানে অনেক বড় বড় ইলমি মার্কাজ গড়ে ওঠেছে। সমগ্র গুজরাট ও বোম্বে অঞ্চলের ইলমি মার্কাজ ডাবিলের ইতিহাস ঘাঁটলেও এমন কল্যাণময়ী পটপরিবর্তন খুঁজে পাওয়া যায়।

তিনি বলেন, ঢাকা শহরের পরিধি দিন দিন বাড়ছে। এক দুই মাদরাসায়তো আর হবে না। তো আল্লাহ তা’য়ালার ইচ্ছা মাদরাসার সংখ্যাও বৃদ্ধি হোক। কিন্তু যেই সেই লোকের দ্বারা তো মাদরাসা প্রতিষ্ঠা সম্ভব না, যোগ্য লোকের দরকার। সব যোগ্য লোক এক জায়গায় জমা, দীর্ঘ দিন এক সাথে থাকার কারণে পারস্পরিক মিল মুহাব্বত ঘাঢ় হওয়ার ফলে কেউ মাদরাসা থেকে সরতে চায় না। তো আল্লাহ তা’য়ালার এক তাকবীনী নেজাম যে, এখান থেকে কাউকে বের করবেন। তখন কোন একটা উপলক্ষ্য তৈরি করান।

স্মৃতিচারণ করে আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক বলেন, ফরিদাবাদ মাদরাসায় আমরা এক ফ্যামিলির মতো ছিলাম। তখন মালিবাগ এলাকায় জনবসতি বেড়েছে, কোন দ্বীনি মার্কাজ এই এলাকায় ছিল না। আল্লাহ ইচ্ছা করলেন মালিবাগ একটা মাদরাসা হওয়া দরকার। তো আল্লাহ তা’য়ালা এক উপলক্ষ তৈরি করে দিলেন। ফরিদাবাদ থেকে আমরা এক সাথে ৭/৮ জন আলাদা হয়ে মালিবাগ আসলাম। এক বছরেই মালিবাগে দাওরায়ে হাদীস মাদ্রাসা হয়ে গেল। বর্তমানে দেশ বাছাই ও আলোচিত যেসব আলেম বুদ্ধিজীবী, লেখক, সাহিত্যিক, সাংবাদিক ও বক্তা সামনের সারিতে আছেন, তাদের বড় অংশই এই মালিবাগ মাদ্রাসা থেকে গড়ে ওঠেছেন।

তিনি বলেন, এরপর আস্তে আস্তে শহরের জনবসতি বাড়তে থাকল এবং প্রয়োজনও তৈরি হতে থাকল। তখন আল্লাহর ইচ্ছা হলো, বারিধারায় একটি মাদরাসা করবেন। কিন্তু যোগ্য লোক ছাড়া তো মাদরাসা আবাদ হবে না। এদিকে মালিবাগ আবাদ হয়ে গেছে। ওখানে অনেক যোগ্য লোক আছেন। তো আল্লাহ তা’য়ালা এক উপলক্ষ তৈরি করে দিলেন, যাতে মালিবাগ থেকে আল্লামা কাসেমি (রাহ.)এর সাথে আমরা কিছু মানুষ বারিধারায় চলে আসলাম। বারিধারা এমনভাবে আবাদ হয়ে গেল যে, আজ বারিধারা মাদ্রাসার সুনাম ও খ্যাতি শুধু ঢাকা ও সারা দেশে নয়, বরং সারা বিশ্বময় ছড়িয়ে পড়েছে। আমাদের আকাবির ও দারুল উলূম দেওবন্দের এই দেশে নমূনা প্রতিষ্ঠান হিসেবে বারিধারা মর্যাদাজনক অবস্থানে স্থান করে নিয়েছে।

তিনি বলেন, এভাবে শহর বাড়তে বাড়তে তুরাগ পর্যন্ত চলে গেছে। আল্লাহ চাইলেন ওখানে একটা মারকাযি প্রতিষ্ঠান হওয়া দরকার। তো আরেক উপলক্ষ তৈরি হওয়ার মধ্য দিয়ে জামেয়া সুবহানিয়া নামে আরেক মারকাজি প্রতিষ্ঠান অল্প দিনেই গড়ে ওঠল। লালবাগ, বড় কাটারা, রহমানিয়া ও বেড়িবাঁধ এলাকার মাদ্রাসাসমূহ প্রতিষ্ঠার ইতিহাস পর্যালোচনা করলেও দেখা যাবে, কোন একটা উপলক্ষ্যের মধ্য দিয়েই কিছু যোগ্য আলেম স্থানান্তরিত হওয়ায় এসব প্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠেছে।

তিনি বলেন, প্রত্যাশিত বৃষ্টির জন্য যখন মেঘ আসে, মেঘের সাথে বাতাসও আসে এবং সেই বাতাসে এদিক সেদিক কিছু ডালপালাও ভাঙ্গে। সন্তান জন্ম দেওয়ার আগে মায়েদেরও প্রসব বেদনা হয়, সাময়িক কষ্ট ভোগ করেন। কিন্তু পরক্ষণেই সন্তানের মুখ দেখে খুশিতে মন ভরে যায়। মুমিনের কাজ যে কোন কিছুতে হতাশ হওয়া নয়, বরং তাতে আল্লাহর তরফ থেকে কল্যাণকর কিছুর অন্বেষন করা। কোন প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠান থেকে কেউ চলে গেলে তাতে সেখানকার বড় কোন ক্ষতি হয় না, বরং যোগ্য যে যায় তার মাধ্যমে অন্যত্র একটা প্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠে অথবা আরো কল্যাণকর কিছু হয়। এভাবেই জ্ঞান-বিজ্ঞান, গবেষণা ও শিক্ষার বিস্তার ঘটে চলেছে।

আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক বলেন, রাজধানী ঢাকার উত্তরাএলাকা এখন অনেক সমৃদ্ধ অঞ্চল। বিত্তবান ও শিক্ষিত মানুষের বসবাস সে এলাকায়। উত্তরাতে বহু মাদরাসা আছে। কিন্তু দেওবন্দি ফিকরের একটি মারকাযি মাদরাসার খুব জরুরত। মারকাযি প্রতিষ্ঠান-এর জন্য একজন ভালো যোগ্য মানুষের দরকার। তো আল্লাহর ইচ্ছায় এখানে একটা উপলক্ষ্য তৈরি হয়েছে। হয়তো আল্লাহর মর্জি হয়েছে, হাফেজ মাওলানা নাজমুল হাসান সাহেবকে দিয়েউত্তরায় আমাদের ফিকরের-ই একটি মারকাযি প্রতিষ্ঠান খুলবেন। বর্তমান পরিস্থিতে আমি এমন কল্যাণকর কিছুর স্পষ্ট ইঙ্গিত অনুমান করছি।

তিনি বলেন, এই যে উপলক্ষ্য তৈরি হয়, তার রেশ খুবই সাময়িক সময়ের জন্য থাকে। অল্পদিনেই স্বভাবজাত সবকিছু ঠ্কি হয়ে যায়। এতে কারোর জন্যই দোষনীয় কিছু নয়, বরং কল্যাণ খোঁজা দরকার। মাওলানা নাজমুল হাসান একজন যোগ্য মানুষ। আল্লাহ তা’য়ালা নিশ্চয়ই তাঁর দ্বারা উত্তরাতে কোন মারকাযী প্রতিষ্ঠান গড়ার ইরাদা করছেন। সুতরাং তাঁর বারিধারা থেকে চলে যাওয়াতে নেতিবাচক কোন মন্তব্যের অবকাশ নেই। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সকলকে সতর্ক থাকা চাই। কারো এমন কিছু ভাবনার সুযোগ নেই, যাতে প্রতিষ্ঠানের স্বাভাবিক কর্মকাণ্ডে কোন ব্যাঘাত ঘটে। প্রতিষ্ঠান আপনা গতিতেই চলবে। আপনাদের সকলের দায়িত্ব প্রতিষ্ঠানের স্বাভাবিকতা অটূট রাখতে পূর্ণ সহযোগিতা বজায় রেখে চলা।

তিনি বলেন, মাওলানা নাজমুল হাসান সাহেবের এখান থেকে চলে যাওয়াতে প্রতিষ্ঠানের স্বাভাবিক কর্মকাণ্ডেও যেমন কোন ব্যাঘাত তৈরি হবে না, তেমনি তাঁরও কোন ক্ষতি হবে না। বরং আমি স্পষ্ট আশাবাদি, মাওলানা নাজমুল হাসানের মাধ্যমে আল্লাহর ইচ্ছায় বড় কোন ইলমি মার্কাজ গড়ে ওঠবে। এই নিয়ে আমার জেহেন এখন পরিষ্কার, কোনরূপ সংশয় ও দ্বিধা আর নেই।

এ পার্যায়ে আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক ছাত্রদের উদ্দেশ্যে বলেন, এখন আপনাদের দায়িত্ব দুইটা। এক. প্রতিষ্ঠানের সকল আইন-কানুন পরিপূর্ণ রূপে মেনে চলা ও প্রতিষ্ঠানের শৃঙ্খলা বাজায় রাখতে সর্বদা যত্নবান থাকা। দুই. পড়াশোনায় গভীর মনোনিবেশ করা। কারণ, বার্ষিক পরীক্ষার সময় একদম সন্নিকটে। দরসী প্রায় সকল কিতাবের নেসাব শেষ পর্যায়ে। সকলে দরসে মনোযোগী হবেন এবং দরসী সবক শেষে অতিরিক্ত সময়ে আসন্ন বার্ষিক পরীক্ষার প্রস্তুতিতে পূর্ণ মনোযোগী হবেন। হাইয়্যাতুল উলইয়া ও বেফাক পরীক্ষায় যাতে মেধা তালিকায় স্থান করে নিতে পারেন, সেই নিয়্যাত দৃঢ় করে এখন থেকেই প্রস্তুতি শুরু করুন। বোর্ডের বাইরে অন্যান্য জামাতের অভ্যন্তরীন পরীক্ষাতেও যাতে ভাল ফলাফল আসে, সেই চেষ্টা করে যেতে হবে। মনে রাখবেন, পরীক্ষার ফলাফল জীবনের একটা রেকর্ড। পরীক্ষার ফলাফল ভাল না হলে যে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া মনে তৈরি হয়, সেটা সারা জীবন বহন করে চলতে হয় এবং এর খারাপ প্রভাব কর্মজীবনেও পড়ে।

আলোচনার শেষ পর্যায়েআল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক বলেন, ব্যক্তি নয় সব সময় প্রতিষ্ঠানকে বড় করে দেখবেন। যোগ্য ব্যক্তিরা সহজেই নিজেদের জায়গা তৈরি করে নিতে পারেন। কিন্তু প্রতিষ্ঠানের ক্ষতি হয় এমন কিছু করলে এর খারাপ প্রতিক্রিয়া সুদূর প্রসারী। সুতরাং সবসময় প্রতিষ্ঠানের শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে সচেষ্ট থাকবেন। প্রতিষ্ঠানের নিয়ম-কানুনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকবেন। শৃঙ্খলায় ব্যাঘাত হয় এমন কিছু থেকে নিজেও দূরে থাকবেন এবং অন্য কেউ ভুল করতে চাইলে তাকেও বাধা দিবেন। প্রতিষ্ঠানের প্রতি মুহাব্বত তৈরি না হলে প্রকৃত কল্যাণকর ইলম অর্জিত হবে না এবং জীবনকে সাফল্যমণ্ডিত করা যাবে না।

তিনি বলেন, জামিয়া মাদানিয়া বারিধারা রাহবারে মিল্লাত আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী (রাহ.)এর হাতে গড়া প্রতিষ্ঠান। তিনি এই প্রতিষ্ঠানকে আকাবির-আসলাফ ও দারুল উলূম দেওবন্দের নীতি-আদর্শের নমুনা রূপে গড়ে তুলেছেন। এই প্রতিষ্ঠানের খ্যাতি বিশ্বময়। ইনশাআল্লাহ, আমরা সকলে এই নীতি-দর্শন থেকে একচুল পরিমাণও বিচ্যুত হব না। প্রতিষ্ঠানের আসাতেজায়ে কেরাম যারা আছি, আমরা সকলে আপনাদের রূহানী পিতা এবং আপনারা সকলে আমাদের রূহানী সন্তান। আমাদের পরস্পরের সম্পর্ক শাসক-শাসিতের নয়, বরং পিতা-সন্তানের এবং পরস্পর সহযোগির।

আল্লাহ তাআলা আমাদের সকলকে সীরাতে মুস্তাক্বিমের উপর চলার তাওফীক দান করুন। আমীন।

এই সংবাদটি 127 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com