সরকারী স্বীকৃতি দেওবন্দের উসুলের বিরুধী : মাওলানা শফিকুল হক আমকুনী

প্রকাশিত: ১১:৪৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৩০, ২০১৬

সরকারী স্বীকৃতি দেওবন্দের উসুলের বিরুধী : মাওলানা শফিকুল হক আমকুনী

সিলেট রিপোর্ট: মাওলানা শফিকুল হক আমকুনী সিলেটের র্শীর্ষতম আলেমদের অন্যতম। নগরীর জামিয়া মাহমুদিয়া সুবহানীঘাটের প্রতিষ্ঠাতাকালীন সময় থেকে এযাবত মুহতামিমের দায়িত্বে আছেন। একসময়ে জমিয়তের সক্রিয় রাজনীতিতে তাঁর সরব ভুমিকা থাকলেও নারী নেতৃত্বের প্রশ্নে এখন তিনি রাজনীতি থেকে মুক্ত। তবে বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের ব্যাপনারে তাকে মাঝে মধ্যে রাজপথে দেখা যায়। বাংলাদেশ কওমী মাদরাসা সংরক্ষণ কমিটির প্রতিষ্ঠাতা সদস্য সচিব। প্রতিষ্ঠানিক ও শারীরিক কারণে এখন আর অনেকটাই নিষ্কিয় হলেও চিন্তা-চেতনার দিকনিয়ে তিনি পুরোপুরি একজন সচেতন নাগরিক। সিলেটের সর্ববৃহত কওমী শিক্ষা বোর্ড আজাদ দ্বীনী এদারা বোর্ডের তিনি শুরার সদস্য। সম্প্রতি দেশের সার্বিক প্রেক্ষাপট নিয়ে র্দীঘ কথা হয় তার সাথে। বিশেষ করে কওমী সনদের স্বীকৃতি প্রসঙ্গে অনেক কথা বলেন সিলেট রিপোর্ট ডটকম এর প্রতিনিধির সাথে। এদারা ও বেফাক নিয়ে কথা হয় অনেক। স্থান পায় মাওলানা ফরিদ উদ্দীন মাসউদ, মাওলানা আনোয়ার শাহ,হেফাজতে ইসলাম প্রসঙ্গে।  স্বীকৃতির প্রশ্নে বেফাক সহসভাপতি মাওলানা আনোয়ার শাহ সহ আরো অনেকের নীতি ও মতের সাথে ভিন্ন মত পোষণ করেন।  বাদ দেননি মরহুম মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ও মাওলানা শামসুদ্দীন কাসেমী (র) এর দরাজদীল মেহমাননেওয়াজীর প্রসঙ্গ। এক প্রশ্নের জবাবে সিলেটের প্রবীনতম এই আলেম । কওমী সনদের স্বীকৃতি চরম বিরুধী তিনি। প্রসঙ্গে মাওলানা আমকুনী পাল্টা প্রশ্ন করে বলেন ”আমাদের শিক্ষিত বলে স্বীকৃত দেয়ার তারা কারা?
সরকার কেনো আমাদের স্বীকৃতি দিবে?  আর আমরাইবা কেনো সরকারের নিকট থেকে স্বীকৃতি আনবো?  
স্বীকৃতিকে তিনি দারুল উলুম দেওবন্দের আর্দশ পরিপন্থী বলে তার লিখিত বক্তব্য তুলে ধরেন। পাঠকদের সামনে তা তুলে ধরাহলো:

বাংলাদেশের ক্বওমী মাদ্রাসাগুলো দারুল উলূম দেওবন্দের অনুসরণ ও অনুকরণে প্রতিষ্ঠিত ও পরিচালিত। দারুল উলূম দেওবন্দ উসূলে হাশতেগানা বা অষ্টনীতির উপর ভিত্তি করে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ও পরিচালিত হয়ে আসছে। এ অষ্টনীতির সার সংক্ষেপ হচ্ছে পাঁচটি কথা:
এক. ইলমে দ্বীনের উদ্দেশ্য হল, ঈমান ও আমলের প্রেরণা লাভ করে আল্লাহর হুকুম ও নবীর ত্বরীক্বা মত চলার উঠে নিজে শিক্ষা করা ও অপরকে শিক্ষা দেয়া। যাতে করে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা আল্লাহর সাথে আন্তরিক সম্পর্ক গড়ে উঠে এবং তার হুকুম ও মহানবীর সুন্নত বা ত্বরীক্বা মতহ জীবন যাপন করতে পারে।
দুই. ইলমে দ্বীনের শিক্ষা দিতে ও শিক্ষা গ্রহণ করতে যে অর্থ ব্যয় হবে তা সংগ্রহ করতে স্থায়ী কোন মাধ্যম গ্রহণ না করে স¤পূর্ণভাবে আল্লাহর উপর ভরসা রেখে চলতে হবে।
তিন. মাদ্রাসার মুহতামিম ও উস্তাদবৃন্দ বেতন-কোরাকী ইত্যাদির জন্য অধিক পরিমাণ দাতা কালেকশনে আন্তরিকভাবে সচেষ্ট থাকতে হবে।
চার. দুনিয়াদার প্রভাবশালী কোন ব্যক্তি, সংস্থা ও সরকারের মাদ্রাসার উপর প্রভাব বিস্তার করার সুযোগ দেয়া চলবে না।
পাঁচ. সর্বক্ষেত্রে আল্লাহর উপর ভরসা রেখে চলতে হবে।
পবিত্র কুরআন মজীদে ইলমে দ্বীনের ফযীলত ও গুরুত্ব সম্পর্কীয় যেসব আয়াত রয়েছে এবং হাদীসের কিতাবগুলোর কিতাবুল ইলমে এ সম্পর্কীয় যেসব হাদীস আনা হয়েছে, এগুলোকে সামনে রাখলে প্রতীয়মান হয় যে, (ক) ইলমে দ্বীনের উদ্দেশ্য হল, দ্বীন সম্পর্কে জেনে এর উপর আমল করার উপযোগী হওয়া। (খ) ইলমে দ্বীনের তা’লীম তাআল্লুম আল্লাহকে সন্তুষ্ট করার জন্য হওয়া, দুনিয়া হাসিল হওয়ার জন্য নয়। (গ) আলিমগণের দায়িত্ব হল, সমাজের সাধারণ সদস্য, যারা পার্থিব ও সাংসারিক কাজে ব্যস্ত থাকার কারণে আলিম হতে পারছে না, তাদেরকে দ্বীন সম্পর্কে অবগত করানো। (ঘ) মুসলিম সাধারণের কর্তব্য হল, ইলমে দ্বীনের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীগণকে আর্থিক সাহায্য প্রদান করা। (ঙ) ইলমে দ্বীনের ধারক ও বাহক আলিমগণ হুব্বেজাহ ও হুব্বেমাল তথা- সম্মান ও অর্থের মোহ থেকে নিজেদেরকে হেফাজত করা। (চ) আলিমগণ দুনিয়াদার রাজা-বাদশা, আমীর-উমারার সংশ্রব হতে নিজেদেরকে দূরে রাখা।
বলাবাহুল্য যে, মহানবী হযরত মুহাম্মদ সা. এর সময় হতে ‘কুরুনে মাশহুদ লাহা বিল খাইর’, তথা; সাহাবা, তাবিঈন ও তাবঈ তাবিঈনের যুগগুলোতে ইলমে দ্বীন আপন লক্ষ্য-উদ্দেশ্য, নীতি-বৈশিষ্ট, স্বাতন্ত্র-স্বকীয়তা বজায় রেখে পরিচালিত হয়ে আসছিল। এ যুগগুলোর পরহতে বিভিন্নমুখী ফিৎনার কারণে ইলমে দ্বীনের ধারক-বাহক উলামায়ে উম্মত দ্বীনদার ও দুনিয়াদারম দু’ভাবে বিভক্ত হয়ে পড়েন। দুনিয়ার উলামা সমাজ পার্থিব স্বার্থ সম্মান ও অর্থের মোহে পড়ে দুনিয়াদার রাজা-বাদশাগণের খেয়াল-খুশিমত ইলমে দ্বীনকে পরিচালিত করতে থাকেন।
পক্ষান্তরে দ্বীনদার উলামায়ে কিরাম পার্থিব স্বার্থকে বিসর্জন দিয়ে নিজেদেরকে রাজা-বাদশাগণ থেকে রেখে ইলমে দ্বীনকে তার সঠিক পথে পরিচালিত করেন। উলামায়ে উম্মতের এ বিভক্তি বর্তমানকাল পর্যন্ত চলে আসছে। বিভিন্নমুখী ফিৎনার এ যুগে সৌদি আরব, আরব আমিরাত, ইরাক, আফগানিস্তান, পাকিস্তান, বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, আফ্রিকা, রাশিয়া, চীন, বৃটেন, আমেরিকা ইত্যাদি মুসলিম ও অমুসলিম দেশগুলোতে হাজার হাজার উলামা-মাখায়েখ এমন রয়েছেন। যারা রাজনীতি, জেহাদ, সামাজিক আন্দোলন সর্বোপরি সরকারের সংশ্রব, রাষ্ট্র পরিচালনায় সরকারের অংশীদারিত্ব ইত্যাদি থেকে নিজেদেরকে নিরাপদ দূরত্বে রেখে, ইলমে দ্বীনের শিক্ষা-দীক্ষা, দাওয়াত-তাবলীগ, তাসাউফ-আত্মশুদ্ধী, আমর বিল মা’রুফ নাহী আনিল মুনকারের কাজে সর্বোতভাবে নিয়োজিত আছেন। কোন ধরণের চিত্তাকর্ষক লিখনী বক্তৃতা, পত্রিকার বিবৃতি, আন্দোলন, মিছিল-মিটিং, যুদ্ধ-বিগ্রহ ইত্যাদি তাদেরকে আম্বিয়া-সাহাবা ও সালাফে সালিহীনদের অনুসৃত নীতি-পদ্ধতি থেকে তিল পরিমাণ নড়াতে সক্ষম নয়।

এবার মূল আলোচনায় আসা যাক। ক্বওমী মাদ্রাসাগুলোতে প্রতিষ্ঠানভিত্তিক ও বোর্ড ভিত্তিক যে সদন প্রদান করা হয়, তা পার্থিব কোন চাকুরী বা আয়-রোজগারের ব্যবস্থা অবলম্বন করতে যোগ্যতার দলিল দেয়া হয় না। বরং অন্যের কাছে দ্বীন তথা তাফসীর, হাদীস ও ফেক্বাহ বর্ণনা করার ও এ সম্পর্কীয় কিতাবাদি পড়ানোর যোগ্যতার দলিল হিসেবে তা প্রদান করা হয়ে থাকে। এ সদনে সদরে এদারা, নাযিমে এদারা, নাযিমে ইমতেহান, মুহতামিমে মাদ্রাসা, নাযিমে মাদ্রাসা ও মাদ্রাসার সিনিয়র আসতিযায়ে দস্তখত থাকে। এ সদন রেওয়াতে দ্বীনের দলিল হওয়ার সাথে সাথে বরকত ও ফযীলতের বাহক হিসেবে গণ্য।
ক্বওমী সদন ও স্কুল সদনের মধ্যকার পার্থক্য:
ক্বওমী মাদ্রাসার সদন ও বর্তমান স্কুল কলেজের সার্টিফিক লক্ষ-উদ্দেশ্যের দিক দিয়ে এক নয়। বরং উভয়টির মধ্যে রাত-দিন তফাৎ বিদ্যমান। প্রথমটির উদ্দেশ্য হল দ্বীন ও আখিরাত এবং দ্বিতীয়টির উদ্দেশ্য হল দুনিয়া। ক্বওমী মাদ্রাসার সনদের সরকারী স্বীকৃতির কোন প্রয়োজনীয়তা ও যৌক্তিকতা নেই। কারণ ইলমে দ্বীনের প্রচার-প্রসার, এর উপর আমল সরকার নির্ভর হওয়ার কোন প্রশ্নই উঠে না।
সম্প্রতি বিশেষ মহল থেকে ক্বওমী মাদ্রাসা সনদের সরকারী স্বীকৃতি আদায় আন্দোলন শুরু হয়েছে উলামায়ে দওবন্দের একাংশ স্বীকৃতি আদায়ের পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। অপর অংশ স্বীকৃতি আদায়ের বিপক্ষে। স্বীকৃতি পক্ষের অংশ কয়েকটি যুক্তি উপস্থাপন করেছেন। নিম্নে এগুলোর কয়েকটি উল্লেখপূর্বক এগুলোর খন্ডনের চেষ্টা করছি-
প্রথম য্ুিক্ত ও এর খন্ডন ঃ ক্বওমী মাদ্রাসা সনদের সরকারী স্বীকৃতি আদায়ের উদ্যোক্তাগণ আলিয়া মাদ্রাসা সার্টিফিকেটের সরকারী স্বীকৃতির উদাহারণ পেশ করে থাকেন। এরা বেমালুম ভুলে যান যে, ক্বওমী মাদ্রাসা ও আলিয়া মাদ্রাসার মধ্যে লক্ষ্য-উদ্দেশ্য, নেসাব-সিলেবাস, আদর্শ-ঐতিহ্যগত দিক দিয়ে আসমান-জমিন তফাৎ বিদ্যমান।
আলিয়া মাদ্রাসাগুলোতে সরকার কর্তৃক দেয়া সুযোগ-সুবিধা ভবন তৈরী, বেতন-ভাতা, বৃত্তি-উপবৃত্তি, পরীক্ষা পরিচালনা, সরকারী সার্টিফিকেট, সরকারী চাকুরী ইত্যাদি সবগুলো বা আংশিক দেয়া হয় কয়েকটি শর্তের উপর ভিত্তি করে। (১) সরকার কর্তৃক প্রণিত সিলেবাসের বাস্তবায়ন। (২) সরকার কর্তৃক অনুমোদিত শিক্ষা পদ্ধতির অনুস্মরণ। (৩) ধর্মীয় ব্যাপারে সরকার কর্তৃক গৃহীত সিদ্ধান্তগুলোতে সম্মতি প্রদান। (৪) শিক্ষা বিষয়ক ব্যাপর সমূহ ছাড়া কোন ব্যাপারে সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন, সমালোচনা, প্রতিবাদ ইত্যাদি থেকে বিরত থাক।
পক্ষান্তরে ক্বওমী মাদ্রাসার পরিচালনা, সিলেবাস প্রণয়ন, আর্থিক ব্যয় নির্বাহ ইত্যাদিক সরকারী প্রভাবমুক্ত ও স্বাধীন থাকার কারণে ধর্ম বিরোধী যেকোনো সিদ্ধান্তের প্রতিবাদম সকল ব্যাপারে ‘আমরা বিল মারফ-নাহী আনিল মুনকার’ অবাধে সম্ভব হয়। সনদের স্বীকৃতি প্রদানের ক্ষেত্রে সরকার কর্তৃক ক্বওমী মাদারিসের উপর উপরোক্ত শর্তগুলোর ক্ষেত্রে পরিলক্ষিত হচ্ছে।
দ্বিতীয় যুক্তি ও এর খন্ডন ঃ সম্প্রতি সরকারী স্বীকৃতির প্রয়োজনীয়তা দেখাতে গিয়ে আজগুবী একটি কারণ উপস্থাপন করতে দেখা যাচ্ছে। তা হল, বিধর্মী দেশগুলোর চাপে পড়ে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক ক্বওমী মাদ্রাসা বন্ধ করে দেয়ার সম্ভাবনা।
এ প্রসঙ্গে প্রথম কথা হল, এ জাতীয় সম্ভাবনা প্রকাশ ঈমানী দুর্বলতার পরিচায়ক। ঈমান-আমল যখন দুর্বল হয়, কুফরী শক্তি ভয় ও আতংক তখন অন্তরে এসে বাসা বাঁধে। ক্বওমী মাদারিসের নিষ্ঠাবান উলামা-মাশায়েখ এ জাতীয় কথায় কান দিবেন বলে আমি বিশ্বাস করিনা।
দ্বিতীয়ত; বর্তমান প্রচলিত ক্বওমী মাদারিসের সূচনা হয়েছে ইসলাম ও মুসলমানদের চিরশত্রু বৃটিশের শাসনামলে, দারুল হরব বলে ঘোষিত ভারত উপমহাদেশ। তখন থেকে এখন পর্যন্ত ক্বওমী মাদারিসের উপর খৃষ্টান, হিন্দু বা অন্য জাতীয় কোন সরকারের পক্ষ হতে বাধা-নিষেধ আরোপ করা হয়নি। বর্তমান প্রেক্ষাপটে লক্ষণীয় যে, ৩/৪টি দেশ ব্যতিত বিশ্বের মুসলিম-অমুসলিম সবকটি দেশ বর্তমানে অভিজ্ঞ মুফতিয়ানে কিরামের ফতওয়া অনুযায়ী দারূল আমান বলে স্বীকৃত। আমেরিকা, রাশিয়া, বৃটেন, আফ্রিকা, চীন, জাপান, স্পেন, ভারত ইত্যাদি দেশে ইসলাম ও মুসলিম দেশ সমূহের জন্য হুমকী হিসেবে খ্যাত দেশগুলোতে অগণিত ক্বওমী মাদ্রাসা স্বাধীনভাবে ইলমে দ্বীনের শিক্ষা-দীক্ষার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।
সুতরাং বাংলাদেশের মত মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশের সরকার কর্তৃক বড় কোন বিধর্মী শক্তির চাপে দেশের ক্বওমী মাদ্রাসাগুলোকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করার প্রশ্নই উঠে না। কারণ বাংলাদেশের সংবিধানে ধর্মীয় স্বাধীনতান নিশ্চয়তা বিধানের ধারা গুরুত্ব সহকারে সংযোজিত আছে।
তৃতীয়ত; ক্বওমী মাদারিসের সাথে সংশ্লিষ্ট উলামা-মাশায়েখের ঈমান আমলের দুর্বলতা, অত্যধিক ভোগ-বিলাস, আরাম-আয়েশ প্রিয়তা তথা সীমাহীন দুনিয়ামুখিতার কারণে খোদায়ী গযব স্বরূপ যদি কোন পরাশক্তিকে ক্বওমী মাদারিসকে ধ্বংস করার জন্য মুসল্লত করা হয়, তবে কোন স্বীকৃতি-বিকৃতি তা রোধ করতে সক্ষম হবে না। বুখারা-সমরখন্দ, বাগদাদ, স্পেনের মুসলিম সমাজ, উলামায়ে উম্মত ও মাদারিসে দ্বীনিয়ার ইতিহাস খ্যাত পরিণতির মূলে ছিল, খোদায়ী গযব নেমে আসার উপরোক্ত কারণ সমূহই। সরকারী স্বীকৃতি হীনতা, জেহাদ বিমুখতা বা অন্য কিছু নয়।
তৃতীয় যুক্তি ও এর খন্ডন ঃ কেউ কেউ সরকারী আদায়ের বেলায় পাকিস্তান ক্বওমী মাদারিস বোর্ড ‘বেফাকের’ সরকারী স্বীকৃতি আদায় প্রস্তাব মেনে নেওয়াকে দলিল হিসেবে পেশ করে থাকেন। এসব ভাইদের অবগতির জন্য বলতে হয় যে, উলামা সংখ্যাগরিষ্ট, যারা মূল থেকে সরকারের সাথে ইশতেরাকে আমালের পক্ষপাতি। ইশতেরাকে আমলের বিরোধী উলামা হলে সংখ্যালগিষ্ট। প্রথম গ্রুপ সরকারী স্বীকৃতির পক্ষে এবং দ্বিতীয় গ্রুপ এর বিপক্ষে রয়েছেন।
পক্ষান্তরে বাংলাদেশী উলামা-মাশায়েখের অংশ কুতবে আলম হযরত মাওলানা সায়্যিদ হুসাইন আহমদ মাদানী রহ. এর শিষ্য-শাগরিদও তার আদর্শে অনুপ্রাণিত হওয়ার কারণে দুনিয়াদার সরকারের সাথে ইশতেরাকে আমলের পক্ষপানি নন। এজন্য পাকিস্তানী আলেমদের মধ্যে দুনিয়ামুখিতা প্রবল বরে পরিলক্ষিত হয়। বাংলাদেশী ইলামায়ে দেওবন্দের সংখ্যাগরিষ্ট অংশের মধ্যে পরিলক্ষিত হয় না।
চতুর্থ যুক্তি ও এর খন্ডন ঃ অনেকে বলে থাকেন- ক্বওমী মাদ্রাসা সনদের সরকারী স্বীকৃতি না থাকঅয় ক্বওমী উলামাকে শিক্ষিতের তালিকায় স্থান দেয়া হচ্ছে না। তাদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই, ক্বওমী মাদ্রাসার উদ্দেশ্য হল দ্বীনি শিক্ষা-দীক্ষা, দাওয়াত ও তাবলীগের মাধ্যমে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন। তালীম-তাআল্লুম, দাওয়াত তাবলীগের ইত্যাদির জন্য শিক্ষিতদের সরকারী তালিকায় স্থান পাওয়ার কি প্রয়োজন; তা আমাদের বুঝে আসছে না। এ ধরনের চিন্তাধারা হুব্বেজাহ ও হুব্বে মাল থেকে এসেছে। যা অবশ্যই বর্জনীয়।
পঞ্চম যুক্তি ও এর খন্ডন ঃ অনেকের উক্তি হল, বর্তমানে সর্ব মহলে ইসলাম প্রচার করার জন্য সব বিভাগে নিজস্ব লোক নিয়োগ দেয়ার প্রয়োজন রয়েছে এবং তা সম্ভব হবে সনদের সরকারী স্বীকৃতি থাকলে।
এদের উত্তরে বলতে হয়, এদের উপর দুনিয়াবী কোন মতবাদ প্রভাব বিস্তার করেছে! প্রায় দু’যুগ আগ থেকে ক্বওমী মাদারিসের বিরুদ্ধে এ অপপ্রচার চলছিল যে, ক্বওমী মাদারিসে পড়–য়া উলামা-মাশায়েখ সমাজের জন্য বোধা স্বরূপ। ক্বওমী মাদ্রাসা সিলেবাস যুগ চাহিদা পূরণে সম্পূর্ণ অক্ষম। ক্বওমী মাদ্রাসাসমূহ বেকার সৃষ্টির কারখানা ইত্যাদি। এসব অপপ্রচারের বিভ্রান্ত থেকে রক্ষা করার জন্য সমাজের কাছে ইলমে দ্বীনের লক্ষ উদ্দেশ্য, উলামায়ে কিরামের উপর অর্পিত দায়িত্ব ও কর্তব্য, দ্বীনি শিক্ষা ও জাগতিক শিক্ষার পার্থক্য তুলে ধরা যথেষ্ট ছিল। কিন্তু ক্বওমী মাদারিসের স্থুলদর্শী কল্যাণকামীগণ তা না করে এহেন অপপ্রচারে ভীত ও প্রভাবিত হয়ে যাওয়ার ফলে অপপ্রচার বন্ধ করার জন্য এ মতবাদের প্রবক্তাদের গৃহীত কর্মসূচি সমূহকে খালিস ইলমে দ্বীনের কেন্দ্র ক্বওমী মাদারিস টেনে আনার ব্যর্থ প্রয়াস চালাতে শুরু করেছেন। এসব ভাইদের খেদমতে তবে সবিনয় নিবেদন রাখতে চাই, যদি ক্বওমী মাদারিসের সাথে সংশ্লিষ্ট থেকে ব্যাপক ভিত্তিক কর্মসূচী বাস্তবায়ন করার ইচ্ছে রাখেন, তবে সামর্থ থাকলে জাগায় জাগায় জামেয়া ইসলামিয়া মডেল স্কুল প্রতিষ্ঠা করুন। সীমিত সামর্থের ক্বওমী মাদারিসে সব কিছু টেনে এনে খালিস দ্বীনি শিক্ষার শেষ আশ্রয়স্থল ক্বওমী মাদ্রাসাগুলোকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দেবেন না। আমাদের বিশ্বাস মতে সব বিভাগে ইসলাম প্রচার করার তাবলীগী সাথীরাই যথেষ্ট। কারণ তাবলীগী সাথীদের  মধ্যে উলামায়ে হক্কানী ভক্ত জেনারেল শিক্ষিত, বিভিন্নমুখি যোগ্যতার অধিকারী যথেষ্ট লোক রয়েছেন। যারা বিজ্ঞ উলামার পৃষ্ঠপোষকতা ও রাহবারিতে রাষ্ট্রের বিভিন্ন বিভাগ চালাতে সক্ষম।
ষষ্ঠ যুক্তি ও এর খন্ডন ঃ কোন মহল থেকে এ কথাও হচ্ছে যে, সনদের সরকারী স্বীকৃতি না থাকলে স্বীকৃতি না পাওয়া টাইটেল মাদ্রাসাগুলোতে ছাত্র পাওয়া যাবে না। আমাদের জরিপ মতে এটি একটি অলিক ধারণা। কারণ যারা স্কুল, কলেজ, আলিয়া মাদ্রাসাতে না গিয়ে ক্বওমী মাদ্রাসার আসে, তারা আল্লাহর সন্তুষ্টি ও দ্বীনি খেদমতের বাসনা নিয়েই আসে। ১২/১৪ বছর আসতিযায়ে কেরামের সহবতে থাকার পর দুনিয়াবী স্বার্থ-স্বীকৃতির লোভে অন্যত্র চলে যাওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম।
দ্বীনি শিক্ষা-দীক্ষার সাথে উপযুক্ত তরবিয়ত দিয়ে ছাত্রদেরকে গড়ে তুলার মধ্যে দুনিয়ামুখিতা আসার কথা নয়। অবশ্য অল্প সংখ্যক ছাত্রের বেলায় এর ব্যতিক্রম হতে পারে। অল্প সংখ্যক ছাত্রর বাসনা পূর্ণ করতে গোটা ক্বওমী মাদারিসের রূপরেখাকে বদলে দেয়ার চিন্তা-ভাবনা মোটেই যুক্তিসঙ্গত নয়।
সরকারী স্বীকৃতির ক্ষতি সমূহের সংক্ষিপ্ত তালিকা:
এক. বাংলাদেশে ছোট বড় ক্বওমী মাদ্রাসার সংখ্যা আনুমানিক ১৩ হাজার ৯০২টি (২০১৫ সালের হিসেব মতে) এবং প্রায় ১৩ লাখ শিক্ষার্থী
এগুলোতে অধ্যায়নরত ।  আবার দেশের জনসংখ্যা কমবেশী ১৪ কোটি। আলিয়া মাদ্রসার শতকতরা পাঁচভাগ ফারিগ নিষ্ঠার সাথে ইলমে দ্বীনের খেদমতে নিয়োজিত হয়। বাকীরা মিশ্রিত সিলেবাসের প্রভাবে হয়তোবা কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে দুনিয়াবী কর্মকান্ডে নিজেদেরকে জড়িয়ে ফেলে, নতুবা কামিল উত্তীর্ণ হয়ে স্কুল-কলেজ, সরকারী অফিস-আদালত ইত্যাদিতে কর্মরত হয়ে যায়।
অন্যদিকে ক্বওমী মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের থেকে শতকরা পাঁচ ভাগ আলিয়া মাদ্রাসার বিভিন্ন সেকশনে পরীক্ষা দিয়ে আলিয়ার ৯৫ ভাগের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যায়।
আলিয়ার ৫ ভাগ ও ক্বওমী মাদ্রাসায় পড়–য়া বাকী ৯৫ ভাগ বিভিন্নমুখি ফিৎনার এ যুগে মুসলিম সংখ্যা গরিষ্ঠদের হিদায়তের জন্য যেখানে যথেষ্ট নয়, সেখানে যদি সনদের স্বীকৃতির দ্বার উন্মুক্ত করা হয়, তবে মুসলমানদের ছেলে-মেয়েদের শিক্ষা-দীক্ষা, ইমামত-আযান, ফতওয়া-মাসাইল, ওয়াজ-নসীহত, ইসলামী সাহিত্য তৈরী ইত্যাদির জন্য কতজন নিষ্ঠাবান আলেম অবশিষ্ট থাকবে? বাকী থাকা অংশের পরিমাণ হবে অপর্যাপ্ত। ক্বহতুর রিজালের ১. এ যনানায় ইলমে দ্বীনের পরিনাম অত্যন্ত হতাশাব্যাঞ্জক হয়ে যাবে।
দুই. ক্বওমী মাদারিসের লক্ষ-উদ্দেশ্যে, নীতি বৈশিষ্ট, আদর্শ-স্বকীয়তা ধ্বংস হয়ে যাবে।
তিন. ক্বওমী মাদারিস ও আলিয়া মাদারিসের মধ্যে কোন ভেদাবেদ থাকবে না।
চার. রাষ্ট্রীয় ব্যাপার সমূহে আমরা বিল মারুল, নাহী আনিল মুনকারে সীমাবদ্ধতা এসে যাবে।
পাঁচ. কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হওয়ার কারণে ছাত্ররা মাদ্রাসার মুআল্লিম, মসজিদের ইমাম, মুফতী, মুফাসসিরে ওয়াইজ হওয়াকে তুচ্ছ ভেবে জেনারেল ডিগ্রি হাসিল করে দুনিয়ার বিভাগ সমূহকে কর্মসংস্থান বেছে নেবে। ফলে উল্লেখিত দ্বীতি পদবীধারী উলামার অস্থিত্ব দু®প্রাপ্য হয়ে যাবে।
ছয়. ভবিষ্যতে ক্বওমী মাদারিসের অস্থিত্বই বিলীন হয়ে যাবে।
যারা ক্বওমী মাদ্রাসা সনদের সরকারী স্বীকৃতি, নেসাবে তালীমে জাগতিক বিষয়াদির অন্তর্ভুক্তি, সব বিভাগের ক্বওমী উলামার নিয়োগ প্রতিযোগিতা, অবাধ রাজনীতি চর্চা ইত্যাদির দাবী উত্থাপন করে এরা স্কুল-কলেজ ও আলিয়া মাদ্রাসা ওয়ালামের সাথে উঠা-বসা, তাদের বই-পুস্তক পড়া, তাদের জাগতিক উন্নয়ন প্রত্যক্ষ করার কারণে ক্বওমী মাদারিসের লক্ষ-উদ্দেশ্য, নীতি বৈশিষ্টের ব্যাপারে উদাসীন হয়ে গেছেন বলে অনুভূত হয়।
এরা মিশরের আল আযহার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, ভারতের আলীগড় বিশ্ববিদ্যালয়, নদওয়াতুল উলামা ভারতকে মডেল হিসাবে গ্রহণ করতে চান। অথচ আকাবিরে দেওবন্দের উক্তি অনুযায়ী এগুলো হল দুনিয়াদার মুতাজাদ্দিদীর তৈরির কারখানা।

ক্বওমী মাদারিসের পরিচালকবৃন্দ ও বিভিন্ন বোর্ড কর্তৃপক্ষ সমীপে আমাদের আবেদন
ক্বওমী মাদ্রাসাগুলোর জন্য যে সব বোর্ড বানানো হয়েছে এগুলোর উদ্দেশ্য হল পরীক্ষা গ্রহণ, পরিদর্শন ইত্যাদির মাধ্যমে দ্বীনি শিক্ষার মান উন্নত করা এবং দুনিয়াদারদের পার্থিব হস্তক্ষেপ থেকে মাদ্রাসাগুলোকে হেফাজত করারর সম্মিলিত প্রয়াস চালানো। পার্থিব কোন স্বার্থ সিদ্ধির ব্যবস্থা করে দেয়া নয়।
‘আযাদ দ্বীনি শিক্ষা বোর্ড দেশের সর্ব প্রাচীন বোর্ড। বেফাকুল মাদারিস ও ক্বওমী মাদ্রাসা ভিত্তিক অন্যান্য বোর্ডগুলো এ বোর্ডের অনেক পরে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এ বোর্ডটি কুতবে আলম হযরত মাওলানা সায়্যিদ হুসাইন আহমদ মদনী রহ. এর শিষ্য-শাগরিদ, ভক্ত-অনুরুক্ত কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত হয়ে তাদের ও তাদের শাগরিদগণের মাধ্যমে পরিচালিত হয়ে আসছে।
আদারার মজলিসে শুরা ও মজলিসে আমেলার বুযুর্গানে দ্বীন প্রথম দিকে সনদের সরকারী স্বীকৃতি আদায় আন্দোলনের ঘোর বিরোধী ছিলেন। স্বীকৃতি আদায়ের প্রয়োজনীয়তার কোন যুক্তিই তাদের কাছে গ্রাহ্য ছিল না।
ইদানীং দেখা যাচ্ছে, একটি মজবূরী তাদেরকে স্বীকৃতি দাওরা মাদ্রাসাগুলোতে ছাত্র পাওয়া যাবে না। স্বীকৃতির লোভে তারা বেফাকভুক্ত দাওরা মাদ্রাসা, আলিয়া মাদ্রাসা ও স্কুল-কলেজগামী হয়ে যাবে। এটি একটি খোঁড়া যুক্তি। যার বাস্তবতার সম্ভাবনা নেই। কুরআন হাদীসের ভবিষ্যত বাণী ও অতীত ইতিহাস এ জাতীয় ধারণার সম্পূর্ণ বিরোধী। পূর্বের আলোচনায় এ সম্পর্কে আলোকপাত করা হয়েছে। বিভিন্ন বোডৃ কর্তৃপক্ষ যদিও স্বীকৃতি আদায় প্রস্তাবকে মেনে নিয়েছে , কিন্তু দেশের বিপুল সংভ্যক আলেম উলামা ব্যক্তিগত ভাবে স্বীকৃতি প্রস্তাবকে কঠোর ভাবে প্রত্যাখ্যান করেছেন।
আমাদের উপরোক্ত আলোচনা দ্বারা প্রমাণিত হল যে, ক্বওমী মাদ্রাসা সনদে সরকারী স্বীকৃতি আদায়, কুরআন, হাদীস দেওবন্দ উসূলে হাশতেগানা ও সালাফে সালিহীনের আদর্শের আলোকে অযৌক্তিক ও ক্বওমী মাদারিস ও ইলমে দ্বীনের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।
আমরা ক্বওমী মাদারিসের পরিচালকবৃন্দ, বিভিন্ন বোর্ড কর্তৃপক্ষ সমীপে সবিনয় আরজ রাখতে চাই, স্বীকৃতি আদায় প্রস্তাবকে কঠোরভাবে প্রত্যাখ্যান করে দ্বীনি শিক্ষার শেষ আশ্রয়স্থাল ক্বওমী মাদারিসকে ধ্বংসের কবল থেকে রক্ষা করবেন।

আরজ গোজার :
বাংলাদেশ কওমী মাদরাসা সংরক্ষণ কমিটির পক্ষে মাওলানা শায়খ শফিকুল হক আমকুনী
তারিখ ২৬.১১.২০১৬

এই সংবাদটি 17 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com