কোনো মুসলমানের প্রকৃত অবস্থা না জেনে নাস্তিক,মুরতাদ বলা চরম নিন্দনীয় কাজ

প্রকাশিত: ৮:৩৫ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১১, ২০২১

কোনো মুসলমানের প্রকৃত অবস্থা না জেনে নাস্তিক,মুরতাদ বলা চরম নিন্দনীয় কাজ

মাজহারুল ইসলাম জয়নাল :

বাংলাদেশের শীর্ষ জনপ্রিয় ব্যক্তি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী!মিডিয়ায় যার কিছু কথাকে কেন্দ্র করে আমরা তাকে নাস্তিক বানাতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছিলাম। আলহামদুলিল্লাহ,একজন ড. আব্বাসীর দরদমাখা কথা তার অন্তরে ইসলামের আলো জালিয়ে দিয়েছে।সেই টকশোতে গলাবাজ কোনো মৌলভী থাকলে হয়তো তাকে নাস্তিক বলতে- বলতে ঝগড়া আর কথা-কাটাকাটি মধ্যে দিয়েই টকশোর সমাপ্তি হতো।এতে জাফরুল্লাহ স্যার ধর্ম সম্পর্কে আরো নেগেটিভ হতেন নিশ্চয়।কারণ, ধর্ম সম্পর্কে সাময়িক ভূল ধারণাকারী কাউকে অন্তরে আঘাত করে ইসলামের পথে অগ্রসর করা কখনো সম্ভব নয় ;বরং প্রেম-ভালোবাসা,দরদ দিয়ে ইসলামের পথে মানুষকে অগ্রসর করতে হবে।
ডা. জাফরুল্লাহ স্যার, আজকে ক্লাস শেষ করে আল্লাহর কাছে দু’হাত তুলে দোয়া করতেছেন।স্যারের সামনে কায়দা খোলা। আহ! কত চমৎকার দৃশ্য। আল্লাহ তায়ালা তাকে ইসলামের পথে কবুল করুক।তাকে এ যুগের উমর বানিয়ে দিন, আমিন।

এবার আসি মূল কথায়–
কারো প্রকৃত অবস্থা না জেনে নাস্তিক,মুরতাদ বলা চরম নিন্দনীয় কাজ–

ইসলাম শান্তির ধর্ম।মানবতার ধর্ম।আমাদের দেশে নামধারী কিছু গলাবাজ ওয়াইজ রয়েছে, যারা কথায় কথায় অমুক নাস্তিক,তমুক মুরতাদ ইত্যাদি সহজ স্লোগান দিয়ে মানুষকে ধর্ম থেকে খারিজ করার সহজ ব্যবসায় নেমেছেন। নাউজুবিল্লাহ। অথচ একজন মুসলমান নামধারী লোককে নাস্তিক বলার আগে আমাদের উচিৎ হচ্ছে, তার নিকট গিয়ে ইমান-ইসলামের সঠিক দাওয়াত প্রদান করা।আমরা ইসলামিস্ট দাবীদাররা বরাবরই এই জায়গায় ভূল করে থাকি।

যদি কোন ব্যক্তি ইসলামের জরূরী বিষয়কে মান্য করে,আবার কিছু বিষয়কে অমান্য করে (না-জেনে)।তাই বলে উক্ত গোনাহের কারণে লোকটিকে কাফের বলা জায়েজ নয় ; হারাম।কুরআন ও হাদীসে এ ব্যাপারে কড়া ধমকী এসেছে।
১.হে ঈমানদারগণ! তোমরা যখন আল্লাহর পথে সফর কর,তখন যাচাই করে নিও এবং যে,তোমাদেরকে সালাম করে তাকে বলো না যে, তুমি মুসলমান নও। তোমরা পার্থিব জীবনের সম্পদ অন্বেষণ কর,বস্তুতঃ আল্লাহর কাছে অনেক সম্পদ রয়েছে। তোমরা ও তো এমনি ছিলে ইতিপূর্বে; অতঃপর আল্লাহ তোমাদের প্রতি অনুগ্রহ করেছেন। অতএব, এখন অনুসন্ধান করে নিও। নিশ্চয় আল্লাহ তোমাদের কাজ কর্মের খবর রাখেন। {সূরা নিসা-৯৪}

যে ব্যক্তি কাফের না তাকে কাফের বললে,সেই কুফরী নিজের দিকে প্রত্যাবর্তন করে মর্মে কঠোর হুশিয়ারী উচ্চারণ করেছেন প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম –
২.হযরত আবু জর রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসুল সাঃ বলেছেন যে, তোমাদের কেউ যদি কাউকে ফাসেক বলে, কিংবা কাফের বলে অথচ লোকটি এমন নয়,তাহলে তা যিনি বলেছেন তার দিকে ফিরে আসবে। {সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৫৬৯৮}
কত মারাত্মক হুশিয়ারী, তাই কাউকে কাফের, মুশরিক, নাস্তিক বলার ক্ষেত্রে কঠোর সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত।
৩.আল্লামা মোল্লা আলী কারী রহঃ শরহে ফিক্বহুল আকবারে বলেন-
কুফরী সম্পর্কিত বিষয়ে, যখন কোন বিষয়ে ৯৯ ভাগ সম্ভাবনা থাকে কুফরীর, আর এক ভাগ সম্ভাবনা থাকে, কুফরী না হওয়ার। তাহলে মুফতী ও বিচারকের জন্য উচিত হল কুফরী না হওয়ার উপর আমল করা।কেননা ভুলের কারণে এক হাজার কাফের বেচে থাকার চেয়ে ভুলে একজন মুসলমান ধ্বংস হওয়া জঘন্য। {শরহু ফিক্বহুল আকবার-১৯৯}

সুতরাং কারো কোন কাজে সন্দেহ হলেই তাকে কাফের, মুরতাদ, নাস্তিক ইত্যাদি বলে, অপপ্রচার করা জায়েজ নয়।প্রথমে উক্ত বিষয়টি সরাসরি উক্ত ব্যক্তির শরণাপন্ন হয়ে যাচাই -বাছাই করে সত্যাসত্যি জেনে তারপর ফাতওয়া দিতে হবে।
প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম একজন খোদাদ্রোহী মানুষকে কিভাবে মুসলমান বানানো যায় সেই কাজে ব্যস্ত ছিলেন সবসময়। আর আমাদের দেশের নামধারী কিছু গলাবাজ হুজুররা কিভাবে একজন মুসলমানকে নাস্তিক -মুরতাদ গালি দিয়ে ওয়াজের মাঠ গরম করা যায়, সেই ধান্দা আর নেশায় ফতোয়াবাজী করে থাকি।
আসুন,সমাজের উচ্চবিত্ত ব্যক্তিবর্গের নিকট ইসলামের প্রকৃত আদর্শকে তুলে ধরার ব্যবস্থা গ্রহণ করি।আর কথায় কথায় কোনো মুসলমানকে নাস্তিক -মুরতাদ বানানোর জঘন্য ফ্যাক্টরিকে বন্ধ করি।

এই সংবাদটি 449 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com