শায়খুল হাদীস মাওলানা মকবুল হুসাইন আসগরী আর নেই

প্রকাশিত: ১০:৪৫ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ২৩, ২০২১

শায়খুল হাদীস মাওলানা মকবুল হুসাইন আসগরী আর নেই

রুহুল আমীন নগরী,সিলেট রিপোর্ট: জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের প্রবীণ মুরুব্বী,সিলেট বিভাগের শীর্ষ আলেম শাইখুত তাফসির ওয়াল হাদিস মাওলানা মকবুল হুসাইন আসগরী সাহেব আর নেই। তিনি আজ (২৩ মার্চ) মঙ্গলবার ভোর রাত ৪:৩০ মিনিটে ইন্তেকাল করেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিঊন।
তিনি বাংলাদেশে ইমামুত তাফসির আল্লামা আহমদ আলী লাহোরী রাহ’র সর্বশেষ শাগরিদ ছিলেন।
তিনি হাফিজুল হাদীস আব্দুল্লাহ দরখাস্তী, আল্লামা গোলাম রাসূল খান, আল্লামা ইদরীস কান্ধলবী, মুফতী জামীল আহমদ থানবী প্রমুখেরও শাগরিদ ছিলেন।
নিভৃতচারী এই প্রবীণ আলেমে দ্বীন নীরবে চলে গেলেন। শায়খ রাহ. ওইসব বিরল বুজুর্গদের একজন ছিলেন, যারা সুযোগ থাকা সত্ত্বেও জাগতিক প্রসিদ্ধি, চাকচিক্যময় জীবনকে পরিহার করে নীরবে আজীবন হাদিস ও তাফসিরের খিদমাত আঞ্জাম দিয়ে পরকালে পাড়ি দিয়েছেন। মরহুম মকবুল হোসাইন আসগরী প্রায় অর্ধ শত বছর ধরে জামেয়া ইমদাদীয়া কিশোরগঞ্জ, জামেয়া দারুল উলুম মৌলভীবাজার, জামেয়া দারুসসালাম সিলেট, দারুল হাদীস খেলাফত বিল্ডিং সিলেট, কাসিমুল উলুম বাহুবল সর্বশেষ শাহপরান দরগাহ মাদ্রাসায় বুখারী শরীফের দরস তাদরীসের মাধ্যমে ইলমে হাদীসের খেদমত করে যান।
সুরায়ে ফাতেহা থেকে সুরায়ে নাস পর্যন্ত সুদীর্ঘ প্রায় ৩৫ বছর ধারাবাহিক কোরআনের তাফসীর পেশ করে নজির স্থাপন করেছেন।

কিছু দিন আগে আমরা কয়েকজন (জমিয়তের প্রতিনিধিদল) শাহপরান মাদরাসায় হযরতের সাথে সাক্ষাতে যাই। তিনি দীর্ঘ কর্ম ও সিয়াসি জীবনের স্মৃতি চারণ করেন। হযরত আব্দুল মোমিন শায়খে ইমামবাড়ী (র) এবং তাফাজ্জুল হক হবিগন্জী (র)এর ইন্তেকালের পরে উনাকে জমিয়তের ছদর হিসেবে দায়িত্ব নিতে বলা হলে,তিনি শারিরীক অক্ষমতা জনিত কারনে অপারগতা প্রকাশ করেন। তিনি সে দিন জমিয়তের সদস্যপদ নবায়ন করে সিলেটে শায়খুল ইসলাম মাদানী (র) এর দ্বীনি খেদমতের বিশাল অবদানের কথা আমাদের কাছে তুলে ধরেন।

১৯২৮ সালে হবিগন্জ জেলার বাহুবল থানাধীন ওলওয়া গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পটিবারে জন্মগ্রহণ করেন। পিতার নাম মরহুম আসগর হোসাইন। নিজ বাড়ীর মক্তবে প্রাথমিক লেখাপড়ার সূচনা। পরবর্তীতে হাটহাজারী মাদরাসায় আলিয়া চুওম পর্যন্ত লেখাপড়া করেন।১৯৬০ সালে পাকিস্তানের লাহোরে চলে যান। জামিয়া আশরাফিয়া থেকে ১৯৬২ সালে দাওরায়ে হাদীস পাশ করেন।
কর্মজীবনে জামেয়া ইমদাদীয়া কিশোরগঞ্জ, জামেয়া দারুল উলুম মৌলভীবাজার, জামেয়া দারুসসালাম সিলেট, দারুল হাদীস খেলাফত বিল্ডিং সিলেট, জামিয়া উমেদ নগর, কাসিমুল উলুম বাহুবল সর্বশেষ শাহপরান দরগাহ মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করেন।
১৯৬৬ সালে দেশে ফিরেন।
১৯৮৪ সাল থেকে ৪ বছর মুহতামিমসহ প্রায় ২০ বছর ছিলেন মৌলভীবাজার দারুল উলুমে।

তিনি ১৯৬৩ সাল থেকে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সাথে সম্পৃক্ত হন। মৌলভীবাজার জেলা জমিয়তের সভাপতি ছিলেন। প্রথমে হাফিজুল হাদীস আল্লামা আব্দুল্লাহ দরখাস্তীর নিকট বায়াত হন।পরে খলিফায়ে মাদানী আব্দুল মতিন শায়খে ফুলবাড়ীর নিকট বায়াত হন। ১৯৮০ সালে শায়খে ফুলবাড়ী কর্তৃক ইজাযত প্রাপ্ত হন।
ব্যক্তগত জীবনে তিনি প্রথম স্ত্রীর ইন্তেকালের পরে ২ য় সাদী করেন। প্রথম তরফে ১ ছেলে, দ্বিতীয় তরফে ২ মেয়ে ও ১ ছেলে রেখেযান।

এই সংবাদটি 286 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com