কী ঘটেছিলো সে দিন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়?

প্রকাশিত: ৯:২৯ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ৩১, ২০২১

কী ঘটেছিলো সে দিন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়?

প্রশ্ন অনেক। প্রশ্নগুলো তিতাস নদীর তীরবর্তী শহর ব্রাহ্মণবাড়িয়া নিয়ে। রক্তারক্তির জনপদে কেন পরিণত হলো এই শহর। কী ঘটেছিল এখানে। কেন এত বিক্ষোভ, জ্বালাও পোড়াও আর কেন দরকার হলো গুলিবর্ষণের। এসব প্রশ্নের অনেক উত্তর জানা থাকলেও মুখ খুলছেন না কেউ। আতঙ্কে রয়েছেন সাধারণ মানুষ। এই সময়ে দেশের সবচেয়ে আলোচিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া ঘুরে ও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে অনেক তথ্য।
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরকে কেন্দ্র করে এখানে ঘটেছে রক্তারক্তির ঘটনা। শুরুটা গত ২৬শে মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবসের দিন হলেও তা ভয়াবহ আকার ধারণ করে পরদিন ২৭শে মার্চ থেকে। ২৬শে মার্চ কোনো কর্মসূচি ছিল না হেফাজতে ইসলামের। ওইদিন বিকালে হঠাৎ করেই বড় মাদ্রাসা হিসেবে পরিচিত ‘জামিয়া ইসলামিয়া ইউনুছিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া’ থেকে একটি মিছিল বের হয়। আরো একটি মিছিল বের হয় ভাদুঘরের ‘জামিয়া সিরাজীয়া দারুল উলুম’ থেকে। তারপর বিভিন্ন এলাকা থেকে এই দুটি মিছিলে নানা পেশার লোকজন অংশ নেন। মিছিলকারীরা কাউতলী মোড়ে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করতে থাকেন। বিক্ষোভকারীদের বাধা দেয় পুলিশ। ফিরে যেতে অনুরোধ করে। এসময় বাধা উপেক্ষা করেই সড়ক অবরোধ করার চেষ্টা করেন তারা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে লাঠিচার্জ করে পুলিশ। এ সময় বিক্ষোভকারীরাও পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। পরিস্থিতি আরো উত্তপ্ত হয়ে উঠলে রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে পুলিশ।
ওই সময়ে বিক্ষুব্ধ জনতা ইটপাটকেল ছুড়ে ও একপর্যায়ে অগ্নিসংযোগ করে জেলা পরিষদের ডাকবাংলোতে। ঢিল ছুড়ে পুলিশ সুপারের অফিসের পার্র্কিং এবং এসপি অফিস সংলগ্ন ফাঁড়িতে। বেশ কয়েকটি গাড়িও ভাঙচুর করে তারা। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মিছিলকারীরা যখন ছত্রভঙ্গ। পিছু হটে যাচ্ছিলো। ঠিক তখনই কয়েকটি গুলির শব্দ শুনতে পান তারা। এসময় গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান আশিক নামে কলেজপাড়ার এক তরুণ। তিনি স্থানীয় একটি ওয়ার্কশপে কাজ করতেন। এই ঘটনার পর রেলস্টেশনে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে বিক্ষুব্ধ লোকজন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ভাদুঘরের ‘জামিয়া সিরাজীয়া দারুল উলুম’-এর সভাপতি মাওলানা মুহাম্মদ বোরহান উদ্দীন আল মতিন জানান, তখন বিকাল সাড়ে ৪টা। তিনি তার শ্বশুরবাড়ি কাউতলী এলাকায়। ফোনে খবর পান হাটহাজারীতে চারজন নিহত হয়েছেন। বায়তুল মোকাররমে হামলা হয়েছে। প্রতিবাদে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মিছিল বের করেছে মাদ্রাসার ছাত্ররা। এতে যোগ দিয়েছে সাধারণ মানুষও। ফোনে পুলিশ সুপারের অনুরোধে তিনি তাৎক্ষণিক কাউতলী মোড়ে গেলেও পরিস্থিতি তখন নাগালের বাইরে। কাউতলীতে একজন নিহত হওয়ার পরদিন ২৭শে মার্চ মাদ্রাসা ছাত্রদের নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করেন কর্তৃপক্ষ। শহরজুড়ে তখন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের অবস্থান। এরমধ্যে জোহরের নামাজের পর হেফাজতের কর্মসূচি অনুসারে দুটি মাদ্রাসা থেকে মিছিল বের হলেও পুলিশি বাধায় ও শিক্ষকদের নির্দেশে তারা পুরো শহর প্রদক্ষিণ না করেই কর্মসূচি শেষ করে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া ইন্ডাস্ট্রিয়াল স্কুল সংলগ্ন সমাজকল্যাণ সংসদের অফিসে তখন মিটিং করছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকারসহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের কিছু নেতাকর্মীও সেখানে ছিলেন। স্থানীয় সংসদ সদস্য পরে যোগ দেন সুর সম্রাট ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ সঙ্গীতাঙ্গনের অডিটোরিয়ামে স্বাধীনতা দিবসের এক আলোচনা সভায়। সেখান থেকে তার নেতৃত্বে মিছিল বের হয়। প্রত্যক্ষদর্শীদের বর্ণনা অনুযায়ী মিছিলে লাঠিসোটা হাতে নিয়ে অংশ নেন অনেকে। মিছিলটি কুমার শীল মোড় থেকে টিএ রোড হয়ে বড় মাদ্রাসা সংলগ্ন কান্দিপাড়া মোড়ে প্রধান সড়কে থামে। সাধারণত এ ধরনের মিছিল শহরের প্রধান সড়ক দিয়ে যাওয়া-আসা করে। মিছিলটি সড়ক ধরে না গিয়ে এখানে থেমে যায়। প্রত্যক্ষদর্শীদের করা বিভিন্ন ভিডিওতে ওই সময়ে ঘটনাপ্রবাহ ধরা পড়ে। মানবজমিনের কাছে আসা এমন একটি ভিডিওতে দেখা যায়, কালো মাস্ক পরা লোকজন তখন সক্রিয় হয়ে যান। তারপরই ওই গলির সামনে এগিয়ে যান স্থানীয় নেতাকর্মীরা। তারা শুরুতেই ভাঙচুর চালান প্রধান সড়কের জমিলা ম্যানশনে। ওই মোড় থেকে কয়েকশ’ মিটার দূরে মাদ্রাসার অবস্থান। মিছিলকারীরা মাদ্রাসা গলি ধরে ভেতরে প্রবেশ করেন। মাদ্রাসা ঘেরাও করে ইটপাটকেল ও ককটেল ছোড়া হয় তখন। মাদ্রাসায় পরীক্ষা থাকায় ছাত্ররা যাতে বাইরে যেতে না পারে এজন্য পূর্ব থেকেই গেট ছিল তালাবদ্ধ। প্রত্যক্ষদর্শী মোস্তফা আল হুসাইন বলেন, হামলাকারীরা পাইপগান দিয়ে গুলি করেছে এবং মুহুর্মুহু ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে। ভেতরে থাকা ছাত্ররা তখন ছাদে উঠে আশেপাশের লোকজনের সহযোগিতা চাচ্ছিলেন বলে জানান তিনি। ততক্ষণে বাইরে ও মসজিদে থাকা কিছু ছাত্র ও আশেপাশের লোকজন এগিয়ে যান। শুরু হয় সংঘর্ষ। তালা ভেঙে বের করা হয় ছাত্রদের। সংঘর্ষের এক পর্যায়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা স্থান ত্যাগ করলেও ঘটনার শেষ হয়নি। পুরো শহরে তখন বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। সন্ধ্যা ৬টার দিকে বিদ্যুৎ চলে যায়। এর আধা ঘণ্টা পরেই শুরু হয় আবারো হামলা-সংঘর্ষ। বড় মাদ্রাসার কিছু ছাত্র ও আশেপাশের লোকজনের সঙ্গে সংঘর্ষ শুরু হয় ক্ষমতাসীন দলের কর্মীদের। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে পুলিশ রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। সংঘর্ষ ও বিক্ষোভ থামাতে অংশ নেন বিজিবি সদস্যরা। ফকিরাপুল সংলগ্ন পুলিশ ক্লাবের সামনে বিজিবি ও পুলিশের অবস্থানের পাশেই আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা অবস্থান নেন। সামনে কয়েক শ’ গজ দূরে মাদ্রাসা। ওই সময়ে মাদ্রাসার মাইকে বলা হয়, মাদ্রাসা ও মসজিদে হামলা করেছে। হামলা প্রতিহত করতে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানানো হয়। এই আহ্বান জানানোর পর শহরের বিভিন্ন স্থান থেকে মাদ্রাসা ছাত্র ও হেফাজত অনুসারীরা বড় মাদ্রাসার দিকে যেতে থাকেন। তুমুল আকার ধারণ করে সংঘর্ষ। শহরজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে সংঘর্ষ। ক্রমে সংঘর্ষ বেড়ে যাওয়ায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরাও নিরাপদ অবস্থানে চলে যান। বিক্ষোভকারীরা শহরের বিভিন্ন স্থাপনা, আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের বাড়িতে হামলা করে। আক্রান্ত হয় ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেস ক্লাব। দিনভর চলা ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগে ভুতুড়ে শহরে পরিণত হয় ব্রাহ্মণবাড়িয়া।

জামেয়া ইসলামিয়া ইউনুছিয়া মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের দাবি, এ পর্যন্ত ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের সবাই গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। সর্বশেষ মঙ্গলবার গুলিবিদ্ধ এক ছাত্রের মৃত্যু হয় বলে মাদ্রাসা অধ্যক্ষ মানবজমিনকে নিশ্চিত করেছেন। তাদের দেয়া তথ্য অনুযায়ী শনিবার সংঘর্ষের সময় গুলিতে আহত হন আরবি সাহিত্যের মাস্টার্সের ছাত্র হুসাইন আহমেদ। পরের দিন তিনি হাসপাতালে মারা যান। একই দিন শরীফপুরের কিশোর জুবায়ের ও শিমরাইলকান্দির তরুণ মোশাহিদ মিয়া মারা যান বলে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের দাবি। ওইদিন মাদ্রাসা এলাকায় প্রথম দফা সংঘর্ষের পরপরই বুধল ইউনিয়নের নন্দনপুরে সড়ক অবরোধ করেছিলেন স্থানীয় মাদ্রাসা ছাত্র, হেফাজত কর্মী ও গ্রামের অনেক মানুষ। তাদের সড়ক থেকে সরাতে চেষ্টা চালিয়েছিল পুলিশ ও বিজিবি। এসময় অবরোধকারীরা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারীদের ঘিরে বিক্ষোভ-অবরোধ অব্যাহত রাখলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী গুলি ছুড়ে। এতে চার জনের মৃত্যু হয়। পরে আরো একজনের মৃত্যু হয় বলে স্থানীয় হেফাজত নেতারা দাবি করেছেন। জামিয়া ইসলামিয়া ইউনুছিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়ার প্রিন্সিপাল মোবারক উল্লাহ মানবজমিনকে বলেন, এ পর্যন্ত আমাদের ১৬ জনকে হত্যা করা হয়েছে। কেউ ঘটনাস্থলে কেউ হাসপাতালে মারা গেছে। তিনি বলেন, স্থানীয় সংসদ সদস্যের নির্দেশেই মাদ্রাসায় হামলা হয়েছে। পরের ঘটনার দায় দায়িত্ব তাকেই নিতে হবে।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার বলেন, আমরা মিছিল নিয়ে যাওয়ার পথে মিছিলের পেছন থেকে একটি অংশ ধর ধর বলে মাদ্রাসায় হামলা চালায়। তখন মাদ্রাসা ছাত্ররা ভেতরেই ছিল। হামলাকারীরা তৃতীয় কোনো পক্ষ হতে পারে। তারা হয়তো এ ঘটনা ঘটিয়েছে। মাদ্রাসায় হামলার কোনো নির্দেশ আমাদের ছিল না। হামলাকারী কারা জানতে চাইলে তিনি বলেন, গত পৌর নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থীর লোকজন এই ঘটনায় জড়িত থাকতে পারে। এ ছাড়া বিএনপি-জামায়াতও জড়িত থাকতে পারে।

পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি আনোয়ার হোসেন বলেন, ভিডিওচিত্র ও তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আলামত সংগ্রহ করা হচ্ছে। প্রতিটি ঘটনায় মামলা হবে বলে জানান তিনি। এদিকে, পুলিশের একটি সূত্র জানিয়েছে, এ পর্যন্ত পাঁচটি মামলা হয়েছে। এতে প্রায় ১৬ হাজার অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে। গ্রেপ্তার ১৪ জন এজাহারনামীয় আসামি। এসব ঘটনায় অন্তত ৩০টি মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে।
উল্লেখ্য, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফরের প্রতিবাদে গত শুক্রবার জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে বিক্ষোভ ঘিরে হামলা-সংঘর্ষের ঘটনার জেরে চট্টগ্রামের হাটহাজারী এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ওইদিন বিক্ষোভ ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ওই দিন চট্টগ্রামে ৪ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় একজনের মৃত্যু হয় গুলিতে। এই প্রাণহানির প্রতিবাদে পরের দিন বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে বিভিন্ন জায়গায়। প্রাণহানির সংখ্যা বাড়ে। প্রতিবাদে রোববার সারা দেশে হরতাল ডাকে হেফাজত। ওই হরতালের দিনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে ব্যাপক সংঘাতে আরো ২ জনের মৃত্যু হয়।
সুত্র: মনব জমিন

এই সংবাদটি 26 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com