একজন মুফতি ওয়াক্কাস (র): অন্তরালের কিছুকথা

প্রকাশিত: ৩:৫১ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ১, ২০২১

একজন মুফতি ওয়াক্কাস (র): অন্তরালের কিছুকথা


মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী:

তিনি ১৯৯১ সাল থেকে ২০১৫ সালের ৭ নভেম্বর পর্যন্ত জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ এর লাগাতার মহাসচিবের দায়িত্বে ছিলেন। তিনি
স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম দেওবন্দী এমপি ও মন্ত্রী।
তার আগে কওমি তথা দেওবন্দী কোন আলেম এমপি- মন্ত্রী হতে পারেননি। কিশোরগঞ্জের মাওলানা আতাউর রহমান খান এবং সিলেটের মাওলানা ওবায়দুল হক উজিরপুরী (রহ) সংসদে গিয়েছেন পরে। তাদের অনেক পরে মুফতি ফজলুল হক আমিনী,মুফতি শহিদুল ইসলাম এবং এডভোকেট মাওলানা শাহীনূর পাশা চৌধুরী সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। বলছিলাম শায়খুল হাদীস মাওলানা মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস (রহ) এর কথা। তিনি যখন জমিয়তের মহাসচিব হলেন সেই প্রথম মেয়াদেই (১৯৯৩) জমিয়তের সাথে আমার সসম্পৃক্ততা। সে সুবাদে দূরে ও কাছে থেকে তাকে দেখেছি, উপলব্ধি করেছি। ২০০১ সাল থেকে আমাকে চিনতেন। দুঃখ-বেদনা,মান-অভিমানের অনেক স্মৃতি রয়েছে মরহুমের সাথে। বিশেষ করে বাবায়ে জমিয়ত খ্যাত মাওলানা আশরাফ আলী শায়খে বিশ্বনাথী ও ফখরে মিল্লাত মাওলানা মুহিউদ্দীন খান (র) এর পক্ষ থেকে পত্রবাহক হিসেবে আমি মুফতি সাহেবের কাছে যেতেপারাটা আমার রাজনৈতিক জীবনের বড় অর্জনই বলবো। ২০০৭ সালের সিডর আক্রান্ত বাগের হাটে ত্রাণসামগ্রী নিয়ে মাদানিয়া ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ইউকের প্রতিনিধি দলের সাথে আমিও ছিলাম। তখনই আমার প্রথম সফর ছিলো যশোরের মনিরামপুরের মাদানী নগর এলাকা। যেখান থেকে খলিফায়ে মাদানী হযরত তাজাম্মুল আলী (র) এর নির্দেশে মাত্র ১১ টাকা নিয়ে এমপি নির্বাচনের প্রার্থী হয়েছিলেন একজন আলেম। হাফিজ হোসাইন আহমদ বিশ্বনাথী, মাওলানা শিব্বির আহমদ, মুফতি খন্দকার হারুনুর রশীদ ভাই আমাদের কাফেলায় ছিলেন।*
২০০৪ সালের বন্যার সময় ছাত্র জমিয়তের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগপূর্তি উপলক্ষে জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সমাবেশে সদরে জমিয়ত শায়খে বিশ্বনাথী (র) এর লিখিত বক্তব্য নিয়ে আমি উপস্থিত হলাম। জমিয়ত মহাসচিব মুফতি ওয়াক্কাস সাহেবের হাতে লিখিত পত্রটি নিজে আগে পড়ে, আমাকে মাইকে তা পাঠ করে শুনিয়ে দিতে বল্লেন। মন্চে তখন সাবেক এমপি মাওলানা আতাউর রহমান খানসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। এটিই ছিলো রাজধানীতে আমার জীবনের প্রথম বক্তব্য!
২০০৫ সিলেট ছাত্র জমিয়তের তৎকালীন নেতা মুফতি নাসির উদ্দীন খান, সৈয়দ সালিম কাসেমী ও আমাকে আরজাবাদ থেকে বারিধারায় যাওয়ার পথে সেনাবাহিনী কর্তৃক সন্ধেহভাজন হিসেবে আটক করা হয়। সে দিন মুফতি সাহেবের ফোনালাপে-কথাবার্তায়, আচরণে সেনাবাহিনী শেষতক আমাদেরকে সম্মানজনক ভাবেই বারিধারায় পৌছে দিয়েছিলো।
কয়েকবার সাংগঠনিক কাজে সংসদ ভবনস্থ তার কার্যালয়ে গিয়েছি। এতো সহজ সরল যিন্দেগী সত্যিই অবাক করার মতো।
অনেকেই তাকে অভিমানী, বিদ্রোহী,আপোষহীন বলে অভিহিত করেছেন। এর একটি প্রমান আমি নিজে ২০০৫ সালে দেখলাম।
তিনি অন্যায়কে প্রশ্রয় না দিয়ে সিলেট জেলা ছাত্র জমিয়তের তৎকালীন কমিটিকে তিন মাসের জন্য স্থগিত করেছিলেন। আমি তখন তার দৃঢ়তা,আপোষহীনতা দেখেছি। জেলা জমিয়ত নেতা হযরত মাওলানা জিয়াউদ্দীন সাহেব নাযিমে আঙ্গুরা ও ছাত্র নেতা মাওলানা নজরুল ভাই সিলেট রেলষ্টেশনে গিয়ে মুফতি সাহেবের সাথে দেখা করে স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারের অনুরোধকরেন। কিন্তু মুফতি সাহেব আগের নীতিগত সিদ্ধান্ত থেকে নড়েননি। মুফতি সাহেবের স্পষ্ট কথা ছিলো – জালেমের বিরুদ্ধে মজলুমের পক্ষে। অন্যায়ের শাস্তি পেতেই হবে। তখনকার এই ঘটনার সাক্ষী হলেন মাওলানা আব্দুল মালিক চৌধুরী, মাওলানা মাসরুর আহমদ বাঘা,মাওলানা আবুবকর সরকার।
যাক, এমন আরো অনালোচিত আরো কিছু অন্তরালের কথা পরবর্তী পর্বে আলোকপাত করবো ইনশাআল্লাহ।
এখানে মরহুমকে নিয়ে কয়েকজনের অনুভূতি ও
সংক্ষিপ্ত পরিচয় তুলে ধরাহলো:

মুফতি ওয়াক্কাস যশোর জেলার মণিরামপুর উপজেলার বিজয়রামপুর গ্রামে ১৯৪৮ সালের ১৫ জানুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন। পিতা মো. ইসমাইল মোড়ল-মাতা নূর জাহান বেগম।

স্থানীয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ালেখার সূচনা। শিক্ষাজীবনে তিনি যে কৃতিত্ব দেখিয়েছেন তার রীতিমতো বিস্ময়কর। মাদরাসা বোর্ড থেকে দাখিলে (১৯৬৫) সম্মিলিত মেধা তালিকায় ৩য়, আলিমে (১৯৬৭) সম্মিলিত মেধা তালিকায় ১ম, ফাজিলে (১৯৬৯) মাদরাসা বোর্ডে প্রথম শ্রেণিতে মেধা তালিকায় ৩য় ও কামিলে (১৯৭১) মাদরাসা বোর্ডে প্রথম শ্রেণিতে মেধা তালিকায় ৩য় স্থান অর্জন করেন। দাখিল পরীক্ষার অবসরে মাত্র ৩ মাসে কোরআনে কারিম হিফজ করেন। ১৯৭২ সালে মণিরামপুর মহাবিদ্যালয় থেকে এইচএসসি পাশ করেন।

এরপর মুফতি ওয়াক্কাস তার মুরুব্বি ও মুর্শিদ হজরত মাওলানা তাজাম্মুল আলী রহমাতুল্লাহি আলাইহির নির্দেশে দারুল উলুম দেওবন্দ গমন করেন ও সেখানে ৪ বছর অধ্যায়ন করেন। ১৯৭৩ সালে ১ম বিভাগে মওকুফ আলাইহি, ১৯৭৪ সালে দাওরায়ে হাদিস (মেধা তালিকায় ৪র্থ), ১৯৭৫ সালে তাকমিল দ্বীনিয়াত (মেধা তালিকায় ১ম) ও ১৯৭৬ সালে ইফতা (মেধা তালিকায় ১ম) শেষ করে মুফতি সনদ লাভ করেন। সময়ের হিসেবে তিনি দেওবন্দে পড়াশোনার সময় শ্রেষ্ঠ মুহাদ্দিস ও শিক্ষকদের পেয়েছেন। ১৯৭৩ সালে তিনি শায়খ তজম্মুল আলী (রহ.)-এর হাতে বায়াত হন এবং ১৯৮৪ সালে খেলাফত লাভ করেন।
দারুল উলুম দেওবন্দ থেকে দেশে ফিরে শায়খ তজম্মুল আলী (রহ.)-এর পরামর্শে হেড মাওলানা হিসাবে লাউড়ী কামিল মাদরাসায় যোগ দিয়ে ২ বছর শিক্ষকতা করেন। পরে দারুল উলুম খুলনায় (১৯৭৮-১৯৮৬) ৮ বছর শায়খুল হাদিস, নাজেমে তালিমাত ও প্রধান মুফতির দায়িত্ব পালন করেন। মাঝে কিছুদিন ঢাকা মালিবাগের মুহতামিম ও শায়খুল হাদিস ছিলেন। ১৯৯৩ সাল থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত যশোরের জামেয়া এজাজিয়া রেলষ্টেশন মাদরাসার শায়খুল হাদিসের দায়িত্ব পালন করেন। এ ছাড়া নিজের প্রতিষ্ঠিত জামেয়া ইমদাদিয়া মাদানীনগরের মুহতামিম ও শায়খুল হাদিস। ১৯৮২ সালে জামেয়া ইমদাদিয়া মাদানীনগর প্রতিষ্ঠা করেন মুফতি ওয়াক্কাস। ১৯৮৯ সালে এর বালিকা শাখা প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৯৫ সালে বালিকা শাখায় দাওরায়ে হাদিস এবং ২০০৩ সালে বালক শাখায় দাওরায়ে হাদিস চালু হয়। ২০০৯ সালে ইফতা ও ২০১৪ সনে আরবি বিভাগ খোলা হয়। প্রতিষ্ঠানটি দক্ষিণবঙ্গের অন্যতম বৃহৎ দ্বীনি প্রতিষ্ঠান। এখানে প্রায় দুই হাজার ছাত্র-ছাত্রী লেখাপড়া করছে।

পাকিস্তান আমলেই শায়খ তজম্মুল আলী (রহ.)-এর তত্ত্বাবধানে জমিয়তের রাজনীতিতে যুক্ত হন। বাহাদুরপুর কামিল মাদরাসায় পড়াশোনার সময় জমিয়তে তলাবায়ে আরাবিয়া বাহাদুরপুর শাখার ভিপি ছিলেন। স্বাধীনতার পর শায়খে কৌড়িয়া রহ. ও শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিুল হক রহ. জমিয়তের সভাপতি থাকাকালীন সময়ে মুফতি ওয়াক্কাস খুলনা বিভাগে জমিয়তের নাজেমের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮৬ সালে দলমত নির্বিশেষে এলাকাবাসীর অনুরোধে স্বতন্ত্রপ্রার্থী (মটরগাড়ী প্রতীক) হিসেবে যশোর-৫ আসন থেকে জাতীয় সংসদ নির্বাচন করে বিপুল ভোটে সরকার দলীয় প্রার্থীকে পরাজিত করেন।

নির্বাচনে এলাকাবাসীর স্বতস্ফূর্ত অংশগ্রহণে সম্পূর্ণ বিনাখরচে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। যা রাজনীতিতে বিরল ঘটনা। পরে এলাকার উন্নয়নের কথা চিন্তা করে এলাকাবাসী ও জমিয়তের নেতৃবৃন্দের পরামর্শক্রমে জাতীয় পার্টিতে যোগ দেন মুফতি ওয়াক্কাস। ১৯৮৮ সালের নির্বাচনে পুনরায় নির্বাচিত হন ও ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। নানা কারণে মন্ত্রিত্বের পদে বেশিদিন থাকা হয়নি। এর পর তিনি এরশাদ সরকারের শেষদিন পর্যন্ত জাতীয় সংসদের হুইপের দায়িত্ব পালন করেন। এরশাদ সরকারের পতনের পর মুফতি ওয়াক্কাস আবার সক্রিয় হন জমিয়তের রাজনীতিতে। ১৯৯১ সালে আরজাবাদ মাদরাসায় অনুষ্ঠিত জমিয়তের জাতীয় কাউন্সিলে তাকে সর্বসম্মতিক্রমে জমিয়তের মহাসচিব নির্বাচিত করা হয়।
মুফতি ওয়াক্কাস ১৯৮৬, ১৯৮৮, ১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০১, ২০০৮ ও ২০১৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছেন। তন্মধ্যে ১৯৮৬, ১৯৮৮ ও ২০০১ সালে যশোর-৫ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। সংসদীয় কমিটি

১৯৯১ থেকে ২০১৫ পর্যন্ত মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস বাংলাদেশ তথা ভারত উপমহাদেশের সবচেয়ে পুরোনো ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দল জমিয়তে উলামায়ে ইসলা বাংলাদেশ-এর মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করেন। দল পরিচালনার নানা বিষয় নিয়ে জমিয়তের কেন্দ্রীয় নেতারা মতবিরোধে জড়িয়ে যান।
এক পর্যায়ে মাওলানা জিয়াউদ্দীন সাহেবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে জমিয়ত থেকে তাকে বহিষ্কারের ঘোষণা আসে।
ফলে ২০১৮ সালের ১১ জানুয়ারি মাওলানা মনসুরুল হাসান রায়পুরীর সভাপতিত্বে তার অনুসারিরা আলাদা কনভেনশন করে মুফতি ওয়াক্কাসকে জমিয়তের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। পরেরটা ইতিহাসের অংশ। (বিস্তারিত পরবর্তী পর্বে)

মুফতি ওয়াক্কাস রাজনীতির পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক আন্দোলন থেকে শুরু করে ধর্মবিরোধী কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদে সংগঠিত আন্দোলন-সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়েছেন। কাদিয়ানী বিরোধী আন্দোলনের মাইলফলক ১৯৯৪ সালের আন্তর্জাতিক মজলিসে তাহাফফুজে খতমে নবুওয়ত আহুত মহাসমাবেশে তার ভূমিকা ছিল উল্লেখযোগ্য। এ ছাড়া মুসলিম পারিবারিক আইনে কোরআন-সুন্নাহ বিরোধী ধারা বাতিল, এনজিওদের ধর্মান্তরের কাজের প্রতিবাদে হওয়া আন্দোলনেও তিনি বিশাল ভূমিকা রেখেছেন। ১৯৯৫ সালে ‘ঈমান বাঁচাও দেশ বাঁচাও’ কমিটি এবং ২০০১ সালের ১ জানুয়ারি বিচারপতি গোলাম রাব্বানী ও নাজমুন আরা সুলতানার ‘সব ধরনের ফতওয়া নিষিদ্ধ’ রায়ের প্রতিবাদে সব ইসলামি দল নিয়ে গঠিত ‘ইসলামী আইন বাস্তবায়ন কমিটি’র মহাসচিব ছিলেন মুফতি ওয়াক্কাস।

ইসলামী আইন বাস্তবায়ন কমিটি বাংলাদেশের ইতিহাসের অন্যতম অধ্যায়। ফতোয়া বিরোধী রায়ের বিরুদ্ধে জন্ম নেওয়া সংগঠনটি কোরআন-সুন্নাহ বিরোধী নারী উন্নয়ন নীতিমালা এবং সংবিধান থেকে আল্লাহর ওপর থেকে আস্থা ও বিসমিল্লাহ উঠিয়ে দেওয়ার প্রতিবাদে ব্যাপক ভূমিকা রাখে। এভাবে মুফতি ফজলুল হক আমিনী ও মুফতি ওয়াক্কাস হয়ে উঠেন বাংলাদেশের ইসলামি আন্দোলনের দুই মহীরুহ।

মুফতি ওয়াক্কাস ১৯৮৭ সালে সংসদ সদস্য হিসেবে, ১৯৮৮ সালে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী থাকাকালে দলনেতা হিসেবে হজপালন করেন। সেবার সৌদি সরকারের পক্ষ থেকে তাকে বায়তুল্লাহ শরিফের মহামূল্যবান গিলাফ উপহার দেওয়া হয় এবং পবিত্র কাবা ঘরে প্রবেশ করে নফল নামাজ আদায়ের সুযোগ পান। এরপর তিনি আরও অনেকবার হজ-উমরা পালন করেছেন। রাষ্ট্রীয় কাজে সৌদি আরব, ইরাক, লিবিয়া ও মৌরিতানিয়া সফর করেছেন। এছাড়া ব্রিটেন, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ভারত ও পাকিস্তান সফর করেছেন।

মুফতি ওয়াক্কাস ‘শরীয়তের আলোকে মুসলিম পারিবারিক আইন’ ও ‘ইসলামী আইন বনাম প্রচলিত আইন’ নামে গুরুত্বপূর্ণ দু’টি বই রচনা করেছেন।

২০১৩ সালে কথিত শাহবাগ জাগরণের নামে ধর্ম অবমাননা, আল্লাহ ও তার রাসূল সম্পর্কে কটূক্তি এবং কোরআন-হাদিস, আলেম-উলামা ও ইসলামি পোশাক নিয়ে বহুমুখী চক্রান্ত ও ষড়যন্ত্র শুরু হয়। এমতাবস্থায় হাটহাজারী মাদরাসার মহাপরিচালক আল্লামা শাহ আহমদ শফীর আহবানে ২০১৩ সালের ৯ মার্চ হাটহাজারীতে বাংলাদেশের শীর্ষ আলেমরা উপস্থিত হন। গঠিত হয় অরাজনৈতিক সংগঠন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ।
মুফতি ওয়াক্কাস হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমির নির্বাচিত হন। হেফাজত আন্দোলনের অন্যতম শীর্ষ নেতা মুফতি ওয়াক্কাস ২০১৩ সালের ২ সেপ্টেম্বর চৌধুরীপাড়া থেকে গ্রেফতার হন। তার বিরুদ্ধে রুজু হয় একে একে ২৪টি মামলা। দীর্ঘ ৯ মাস কারাভোগের পর ২০১৪ সালের ৯ জুন তিনি জামিনে মুক্তি পান। তিনি বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়ার সিনিয়রসহ-সভাপতি এবং কওমি মাদরাসার সবোর্চ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা হাইয়াতুল উলইয়ার কো-চেয়ারম্যান হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

কর্নেল (অব:) সৈয়দ আলী আহমদ স্মৃতিচারণ:
“১৯৮৬ সালের সংসদ নির্বাচন। যশোর মনিরামপুর আসনের জাপা প্রার্থি তিনলক্ষ টাকা পেয়ে নিখোঁজ। কর্নেল বারী আমাকে দায়িত্ব দিলেন খুঁজতে।
একদিন বিকালে থানারোডে এক অফিসে বসে আছি। পেছনে এক প্রেস। ওখানে কথাবার্তা কানে এলো। এক প্রার্থি ৫শত হাফসাইজ পোস্টার ও তিন বা চার হাজার লিফলেট করবেন। মোট ১২ হাজার টাকা। প্রার্থি দশহাজার দিবেন। পরে চাঁদা করে এনে দুইহাজার দেবেন। প্রেস মানছেনা। তারা একহাজার কম নেবে। তবে অর্ধেকের বেশী মাল দশহাজারে দেবে।
আমি গিয়ে দেখি এক মওলানা হতাশ হয়ে কথা বলছেন। আমি বললাম, আমার সংগে একটু কথা বলবেন? তিনি বের হয়ে এলেন। আমি বললাম, এতো কম লিফলেটে কী হবে? স্বতন্ত্র প্রার্থি টাকা লাগবে। তিনি বললেন, আমার ভোটার আছে। পৌস্টার লিফলেট হলো প্রতিক চিনিবার জন্য।
কথার মধ্যে ব্যক্তিত্ব ছিলো।
আমি বললাম যদি সরকারের পক্ষে থাকেন তবে একলাখ যোগাড় করে দেবো। তিনি বললেন,কিছুই লাগবেনা। দোয়া করবেন। আমি ম্যানেজারকে ইশারা করলাম। সে সব মেনে মওলানাকে বিদায় দিলো। আমি জাপার প্রার্থি খুঁজা বাদ দিলাম।
মুফতি ওয়াক্কাস ও মনিরামপুরের প্রার্থি।
আমি ম্যানেজারকে বললাম, দুই হাজার পোস্টার ও দশহাজার লিফলেট করে দিতে। আমি খরছ দেবো। আমি জেনারেল সাদিককে বললাম, স্যার, আমি অল্প টাকা খরছ করতে চাই। স্যার সব শুনে বললেন,যা খুশি খরছ করো। এই ভালো মানুষটি পাশ করুক।
কর্মিরা এসে ১০ হাজার দিয়ে সব নিয়ে গেলো। আমি পরে আরো একহাজার পোস্টার ও দশহাজার লিফলেট স্থানীয় লোকমাধ্যমে ছড়িয়ে দিলাম। আমি হুমায়ুন রশীদ সাহেবের নির্বাচন করতে সিলেটে আসার আগে মেজর মকসুদকে বললাম, ভোটে মুফতি পাশ করলে কোন সমস্যা যেনো না হয়।
মেজর মকসুদ ভোটের দিন মুফতিকে পরিচয় দিয়ে বললেন, ভোট কালেকশন করেন। কেউ অসুবিধা করলে আমাকে খবর দিবেন।
মুফতি ওয়াক্কাস নিজ জনপ্রিয়তায় বেশি ভোট পেয়ে পাশ করলেন। পরে একদিন মনিরামপুর গিয়ে মুফতি সাহেবকে এনে জেনারেল সাদিকের সঙ্গে বাসায় সাক্ষাত করাই।
নাজিমউদ্দীন আল আজাদ পদত্যাগ করলে প্রেঃ এরশাদের ডাকে তিনি জাপায় যোগ দেন এবং ধর্ম প্রতিমন্ত্রি হন। অনেক পরে তিনি আমার সহযোগিতার কথা জানতে পারেন।
১৯৯২ সালে মওলানা সৈয়ল মুস্তাকিম আলী ও সৈয়দ রেজওয়ান আহমদের দাওয়াতে আমার গ্রামে যান। এক জলসায় বয়ান করেন। আমি ঐ গ্রামের ছেলে জেনে মুস্তাকিমকে আমাকে ডাকতে বলেন। রাতে সাক্ষাত হয়। পরদিন সকালে আমার বাড়িতে নাশ্তার দাওত রাখেন।
পরদিন সকালে নাশ্তা সেরে বের হবেন, তখন আমার দুলাভাই দুটি ১শ টাকার নোট তাঁর হাতে গুঁজে দেন। কিন্তু তিনি নিবেন না। তাঁকে বুঝালাম যে, বাড়িতে মেহমান এলে সালামি দেয়া সিলেটের কালচার। পরে হাদিয়া বলার পরে তিনি নিলেন এবং বললেন, এই ছিলো তাঁর জীবনের প্রথম হাদিয়া।
সিলেটে এলে মাঝে মাঝে আমার খুঁজ নিতেন। দেখা হতো।
আমাদের নির্লোভ বন্ধু , ইসলামি আন্দোলনের রাহবার আজ চলে গেলেন। তাঁর নিরহংকার ব্যক্তিত্ব, নিষ্কলুষ চরিত্র আমাদের জাতিকে পথ দেখাবে। আল্লাহ তাঁকে জান্নাত দান করুন। আমিন।”

মাওলানা মাসুম আহমদ ছাহেবযাদায়ে শায়খে কৌড়িয়া (র) উল্লেখ করেন:
মুফতি সাহেবকে আর কোর্টে হাজিরা দিতে হবে না। ১৭ টি মামলায় বিগত আট বছর যাবত হাজিরা দিয়েছেন কোর্টে। আজ আল্লাহ তায়ালা’র দরবারে হাজিরা দিলেন।
আমাদের প্রজন্মের অনেকে মুফতি সাহেবের এই কুরবানির কথা জানে না। যারা জানে, তারাও নিজেদের চাহিদামতো ভূমিকায় না পেয়ে মূল্যায়নের পরিবর্তে বাজে ব্যবহার করেছে।
অথচ ২০১৩ পরবর্তী সময়ে প্রকৃত অর্থে যারা নিপীড়নের শিকার হয়েছিলেন, তাদের অন্যতম ছিলেন তিনি।
আল্লাহ তায়ালা তাঁর সমস্ত কুরবানিকে কবুল করুন। জান্নাতের সুউচ্চ মাক্বাম নসীব করুন।

মাওলানা রেজাউল কারীম আবরার :
নভেম্বরের দিকে আমি নোয়াখালি যাচ্ছিলাম৷ মালিবাগ আসার পর দেখলাম, মুফতি ওয়াক্কাস রাহি. রিকশায় করে পল্টন যাচ্ছেন৷
আমি দ্রুত গাড়ি থেকে নেমে গিয়ে পরিচয় দিলাম৷ কয়েক বছর আগে একবার Wali Ullah Arman ভাই আমাকে হুজুরের কাছে নতুববাগ মাদরাসায় নিয়ে গিয়েছিলেন৷ সে দিন মোটামোটি লম্বা সময় হুজুরের সাথে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেছিলাম৷
আব্বার পরিচয় দেওয়ার পর হুজুর খুশি হলেন এবং গাড়িতে উঠলেন৷ আমি হুজুরকে পল্টন নামিয়ে দিয়ে চলে গেলাম৷
আল্লামা নুর হুসাইন কাসেমি রাহি. ইন্তেকালের দিন সন্ধ্যার পর লাশ দেখে নতুনবাজার মোড়ে এসে দেখি, মুফতি ওয়াক্কাস রাহি. রামপুরা যাওয়ার জন্য সি, এন জি তালাশ করছেন৷
আমাদের মুরব্বিদের মাঝে মুফতি সাহেব হুজুর তিনবারের সংসদ সদস্য এবং মন্ত্রীও ছিলেন৷ তারপরও তার জীবনে কখনো সম্পদের ছোঁয়া লাগে নি৷ রিকশা এবং সি, এন, জিতে চলতেন৷
হেফাজতের ৫ ই মের হৃদয়বিদারক ট্রাজেডির ধকল সবচেয়ে বেশি ধকল সহ্য করেছিলেন মুফতি সাহেব৷ বছরখানেক জেল খেটেছেন৷ মৃত্যুর আগ পর্যন্ত পঞ্চাশের অধিক মামলা মাথায় নিয়ে ঘুরেছেন৷ প্রত্যেক মাসে বয়সের ভারে নুয়ে পড়া শরীর নিয়ে যশোর থেকে ঢাকায় এসে আদালতে হাজিরা দিতেন৷
মুফতি সাহেবের মতো সচেতন এবং বিচক্ষণ রাজনীতিবিদ আমাদের ছেড়ে চলে গেলেন৷ ৫ ই মে সন্ধ্যায় তিনি পরামর্শ দিয়েছিলেন, আপনারা আওয়ামীলীগকে চিনতে ভুল করছেন৷ যেভাবে পারেন চলে যান! নিজের অভিজ্ঞতা থেকে তিনি ভয়ানক পরিস্থিতি আঁচ করতে পেরেছিলেন৷ তাজরেবা বলে যে শাস্ত্র রয়েছে, সে শাস্ত্রে মুফতি সাহেব অনেক এগিয়ে ছিলেন৷
আজ একটি ইতিহাসের পরিসমাপ্তি ঘটল৷ আকাবিরদের জীবন্ত এক নমুনা পরপারের যাত্রী হলেন৷ আল্লাহ মুফতি সাহেবকে ক্ষমা করে জান্নাতের উচ্চ মাকাম দান করুন৷ তার পরিবারকে ধৈর্যধারণের তাওফিক দান করুন৷

গবেষক সৈয়দ মবনু লিখেন:
মুফতি ওয়ক্কাস এই পৃথিবী থেকে বিদায় নিলেন। আমরা শোকাহত, আমরা মর্মাহত। আমার জানা মতে মুফতি ওয়াক্কাস ছিলেন আমাদের সময়ের একজন ভালো মানুষ। তাঁর সাথে ব্যক্তিগত তেমন সম্পর্ক ছিলো না। তবে আমি তাঁর খবর রাখতাম। কেউ কেউ বলেছেন, তিনি আমার অনেক লেখা পড়েছেন এবং প্রশংসা করেছেন। শোনা কথা, সত্য-মিথ্যা জানি না। তবে তাঁকে বেশ ক’বার দেখেছি কাছ থেকে এবং দূর থেকে। তিনি যখন এরশাদের মন্ত্রী পরিষদে মন্ত্রী ছিলেন তখন একটু নারাজ হয়েছিলাম। নারাজ হলেও তাঁর প্রতি শ্রদ্ধার ঘাটতি ছিলো না। ২০১৭ খ্রিস্টাব্দে যখন জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মধ্যে হাইব্রিড জমিয়তিরা বৃদ্ধি লাভ করে তাঁকে বের করে দেওয়া হয়েছিলো কিংবা তিনি বেরিয়ে আসতে বাধ্য হয়েছিলেন তখন খুব কষ্ট হয়েছিলো। কারণ, আমার জানা মতে জমিয়তের দুর্দিনে যারা হাল ধরেছিলেন তাদের অন্যতম একজন ছিলেন মুফতি ওয়াক্কাস (র.)। আমি দেখেছি, যখন জমিয়তের কেন্দ্রীয় অফিসের ভাড়া দেওয়া সম্ভব হতো না তখন মুফতি ওয়াক্কাস সিলেট এসে মাওলানা মনসুরুল হাসান রায়পুরীর মাধ্যমে টাকা সংগ্রহ করে নিয়ে যেতেন। অতঃপর মুফতি ওয়াক্কাস (র.)-এর নেতৃত্বে পৃথক জমিয়ত গঠিত হয়। ৫ মার্চে হেফাজতে ইসলামের আন্দোলনের পর অনেক নেতা আরাম আয়েশে সময় কাটালেও মুফতি ওয়াক্কাস ছিলেন জেলে। তাঁর উপর হয়েছে অনেক নির্যাতন। কিন্তু দেখাগেলো পরবর্তীতে কমিটিতে তাঁর নাম নেই। কারণ, তিনি আল্লামা আহমদ শফি (র.)-এর সাথে হওয়া বেয়াদবির প্রতিবাদ করে বলেছিলেন বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করা হোক।
আল্লামা আহমদ শফি (র.)-এর ইন্তেকালের পর বেয়াদবদের বিরুদ্ধে মুফতি ওয়াক্কাস (র.) যে ভূমিকা রেখেছেন তা আহমদ শফির ভক্ত-শিষ্যদের অন্তর জয় করে নিয়েছিলেন। তিনি তাঁর চিন্তায় অটল ছিলেন সর্বদা। তিনি ছিলেন আকাবির আসলাফদের প্রকৃত অনুসারী। আল্লাহ তাঁকে জান্নাতুল ফেরদৌসের উচু মাকাম দান করুন।

মাওলানা ওয়ালিউল্লাহ আরমান উল্লেখ করেন:

কতোটা সাদামাটা ছিল আপনার জীবন! কতোটা লৌকিকতামুক্ত জীবনযাপন করতেন আপনি! কী প্রখর আপনার মেধা! নিজের নীতি আর গতিতে আপনি কতোটা অবিচল ছিলেন। মজলিসে আপনার উত্থাপিত প্রস্তাবনা কতোটা যৌক্তিক আর অকাট্য ছিল,‌ তা অনেকের জানা।

শারীরিক দুর্বলতা আস্তে আস্তে আপনাকে কাবু করলেও কর্মক্ষম জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত আপনি ছিলেন পূর্ণ দায়িত্ব সচেতন। যুগের নির্মমতায় জীবনের শেষ কয়েকটি বছর আপনাকে নিঃসীম যন্ত্রণায় ক্ষতবিক্ষত হতে হয়েছে। পুরনো ক্ষতের উপশম না হওয়া সত্ত্বেও আপনি উদারচিত্তে হাত বাড়িয়েছেন, পুনরায় আপনাকে জর্জরিত করা হয়েছে। এর প্রতিক্রিয়ায় অন্যরা রাগ দেখালে আপনি বলতেন, ‘আমি ভালো কিছুর চেষ্টা করলাম। এর বিনিময়ে কেউ খারাপ করলে ব্যর্থতা তার, আমার নয়।’

‘অনলাইনে ছেলেরা আপনাকে খুব খারাপ ভাষায় উপস্থাপন করছে’ বললে জবাব দিতেন, ‘আমি কী করছি তা আল্লাহর চেয়ে ভালো কেউ জানে না।’ স্রোতের বিপরীতে দাঁড়িয়ে নিজের দৃষ্টিভঙ্গি তুলে ধরতে কখনো সংকোচ বোধ করেননি।

আপনি শেষ যামানার রক্ত-মাংসে মানুষ ছিলেন। ইজতেহাদ, সিদ্ধান্ত আর পদক্ষেপে কিছু ভুল আপনার হওয়াটাই স্বাভাবিক। কিন্তু দ্বীনের যেকোনো ক্ষেত্রে সীমিত শক্তির প্রয়োগে সর্বোচ্চ কল্যাণ ঘরে তোলার ব্যাপারে আপনি ছিলেন সিদ্ধহস্ত।

খুব কাছ থেকে আপনাকে দেখার কথা মনে পড়ছে আর অনুভূতিগুলো কষ্টের দলা পাকিয়ে গলায় আটকে যাচ্ছে। আল্লাহ রাব্বুল আলামীন আপনার ভুলত্রুটি ক্ষমা করে দ্বীনের তরে খেদমতগুলো কবুল করে জান্নাতে উঁচু মাকাম দান করেন।

এই সংবাদটি 227 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com