কওমি মাদ্রাসা বন্ধের দায় সরকারকে নয়; নিতে হবে গুটি কয়েক নেতাকে

প্রকাশিত: ৭:২৩ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২১, ২০২১

কওমি মাদ্রাসা বন্ধের দায় সরকারকে নয়; নিতে হবে গুটি কয়েক নেতাকে

মাওলানা ফকরুল হাসান:

অচিরেই হেফাজতের নামে প্রকাশ্য দুটি দলের আবিৰ্ভাব ঘটবে৷
———————–
কওমি মাদ্রাসা বন্ধের দায় সরকারকে নয়; নিতে হবে গুটি কয়েক হেফাজতি নেতাকে৷
——————————————-
সরকারকে মন্দ বলা সহজ; নিজেদের ভুলগুলো শুধরে আনাটাই কঠিন৷ আমাদের তরুণরা সহজটাই করছেন; আর কঠিনটাতে ভন্ডামি করছেন৷ সেদিন ক্লাসের বখাটে ও মেধাহীন ছেলেটি বললো: হুজুর মুখতাসার পড়াতে পারে না৷ অথচ মেধাবী ছেলেটি বলছে: হুজুরের উপস্থাপন অনন্য৷
———————————–
একটি সংগঠনের নেতা পর্যায়ে যারা থাকবেন, তারা নিষ্ঠাবান হবেন; অন্তত সংগঠনের প্রতি সৎ থাকবেন এবং সময়ের কাজ ও বক্তব্য উপযুক্ত সময়ে করার প্রতি গভীর সচেতন হবেন৷ এই শেষ গুণটি শতভাগ থাকা চাই৷ শেষ গুণটির শূন্যতায় সংগঠন যে হুমকির মুখে পড়ে, তা সামাল দিতে আগামী দীৰ্ঘ সময় ধরে অক্লান্ত সাধনা করতে হয়৷ তবু শঙ্কা থাকে কুলিয়ে উঠতে পারবে কিনা৷

হেফাজতের শাপলার মঞ্চ থেকে আজকে পর্যন্ত একটাই ব্যৰ্থতা প্রকটভাবে দেখা যাচ্ছে— উপযুক্ত সময়ে ঠিক সিদ্ধান্ত-কৰ্তব্য-বক্তব্য নিতে না পারার ব্যৰ্থতা৷

যখন হেফাজতের এক-দুজন নেতা বক্তব্য ও আচরণে উগ্র হলো, সরকার তাদের মাহফিলে অংশগ্রহণে বাধা দিলো৷ তবু তারা দমলো না৷ আরো উচ্ছৃঙ্খল হলো৷ সরকার ও প্রশাসনকে প্রকাশ্য তাচ্ছিল্য করতে লাগলো৷ তখন মূল দায়িত্বশীলরা সময়ের উপযুক্ত কাজটি করেননি৷ এমনকি যখন ধরপাকড় করতে করতে মামুনুল হক সাহেবকে পর্যন্ত গ্রেফতার করলো, তখন কিছু উৎসাহীরা এর প্রতিবাদে মোহাম্মদপুরে মিছিল বের করলো৷ তখনো দায়িত্বশীলরা অন্ধকার খাটে শুয়ে “চোর আর কী নেয়” মৰ্মে দর্শক হয়ে রইল৷ এতটুকু দায়িত্ব নেওয়া ও বক্তব্য দেওয়া উচিত ছিল যে, হেফাজত উগ্রতার সাথে নেই৷

উপযুক্ত সময় যখন ফুরিয়ে গেল, যখন নতি স্বীকারের লজ্জাকর পরিস্থিতিতে বাধ্য হলো, যখন মিথ্যা হুমকি-ধমকি দিয়ে পুরো ইসলামি অঙ্গন এবং বিশেষ করে হেফাজতে ইসলামকে কলুষিত করা হলো, তখন তারা ইসলামি উদার নমনীয়তার আহবান নিয়ে তেজহীনভাবে কম্পিত পদে আর থরথর করা হাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাসায় কড়াঘাত করলো৷ ততক্ষণে অনেক দেরি…

কাল হেফাজতের কয়েকজন নেতৃবৃন্দ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ করেন৷ এবং মন্ত্রী মহোদয়কে বুঝাতে চেষ্টা করেন— হেফাজত সহিংসতায় বিশ্বাসী নয়৷ হেফাজতের আমির আল্লামা বাবুনগরি বলেন: হেফাজত জ্বালাও-পোড়াও করে না৷

এই বক্তব্যের সাথে আমি পূর্ণ সহমত পোষণ করে বলছি যে, হেফাজতের কয়েকজনের এমন কিছু বক্তব্য অনলাইনে প্রচারিত, যেগুলোতে উক্ত দাবি ও বক্তব্যের ভিন্নতা পাওয়া যায়৷ কয়েকজনের বক্তব্য সত্যিই উগ্র ও মিথ্যা হুমকি-ধমকি মূলক৷ সেদিকে তাকালে, উপরিউক্ত দুটি বিবৃতি অসত্য৷ যাক! সেই কথা পরে হবে৷

আমি জানি না যে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাসায় গমন কি হেফাজতের সকল দায়িত্বশীলের সিদ্ধান্তক্রমে; নাকি গুটি কয়েকজনের সিদ্ধান্তে৷
আমি জানি না যে, আল্লামা বাবুনগরি হুজুরের বিবৃতি কি গুটি কয়েকজনের পরামর্শে; নাকি হেফাজতের সৰ্বসম্মতের অধীনে৷ তবে গণমাধ্যম থেকে জানতে পারি, উক্ত বিবৃতি দুটি হেফাজতের৷

উক্ত বিবৃতিতে হেফাজত বলতে যাদের নাম এসেছে, তারা এতোদিন কোথায় ছিল? সরকার তো একদিনে এমন বিধ্বংসী হয়নি৷ এতোদিন যে সকল তরুণরা যে কোনো অন্যায় হুমকির সপক্ষে নেচেছে, তারা এখন কোথায়? হুমকি-ধমকি কিছুই পালন হলো না, আর এদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাসায় চলে গেল৷
হে নন্দিত তরুণ! এখন বলো: এই কি তবে তোমাদের ইসলাম? মিথ্যার ফাঁকা বলি; আর দিন গড়াতেই গদির কাছে আত্মসমৰ্পন?

যেগুলো জানি না, সেগুলো নিয়ে আলোচনা করতে চাই না৷ এটা আমার পছন্দও নয়৷ চায়ের দোকান কিংবা বন্ধু আড্ডায় এজন্য আমি নিজেকে কখনো মেলে ধরতে পারি না৷ কেননা, অজ্ঞ অজ্ঞতার জোরে কতটুকুই বলতে পারে!

তবে যে কথাটি আমি বলতে চাই এবং বলে আসছি— যতটুকু শক্তি, ততটুকুই দেখানো বুদ্ধিমত্তা এবং সততা৷ এর বাইরে উগ্র হুমকি-ধমকিকে সরকার বলে “উসকানিমূলক বক্তব্য” আর ইসলামি শরিয়া বলে “মিথ্যা দম্ভ”৷ যা রাষ্ট্রীয়ভাবে মহা অন্যায় এবং শরিয়তের দৃষ্টিকোণে নিৰ্জলা মিথ্যা তথা মহাপাপ এবং হত্যাকান্ডের চেয়েও মহা অপরাধ তথা বিশৃঙ্খলার নামান্তর৷
এখন যারা মন্ত্রী মহোদয়ের বাসায় গিয়েছেন, সেখানে গিয়ে যা ব্যক্ত করতে চেয়েছেন— এগুলো সেটাই, যেটা আমি এবং আমরা বলে এসেছি৷ তাহলে হেফাজতের এই নেতাদের জন্য যেটা কৰ্তব্য ছিল তা হচ্ছে, যারা এমন জ্বালাও-পোড়াও-হুমকি-ধমকির বক্তব্য দিয়েছে, তাদের নিয়ন্ত্রণ করা৷ যখন পরিবেশ ও পরিস্থিতি নিজেদের করতলগত, তখনই উচিত ছিল, হেফাজতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে এমন বিশৃঙ্খলাকারীদের বাগে রাখা, নতুবা বহিষ্কার করে সংগঠনকে আগাছামুক্ত করা৷

দুঃখ হয়— তখন তারা কৰ্তব্য নিরূপণ করেনি; ঘুমন্ত বাঘ যখন হুঙ্কার দিলো, এখন তারা ঠিক সেই কৰ্তব্যের কাজটি সম্পাদন করতে গেলেন৷ বলতে গেলেন— আমরা উগ্রতার সাথে নেই; আমরা সহিংসতার সাথে নেই৷

উদাহরণটি তাঁদের সাথে যায় না৷ তাও দিতে হচ্ছে— গাধা পানি ঘোলা করে খায়৷
এই যে উদাহরণটি তাদের সাথে জুড়ে দেওয়া হলো— এটাই অন্যায়৷ কতটুকু অন্যায়? যতটুকু অন্যায় তারা করেছে যথাসময়ে কৰ্তব্য পালন না করে; ঠিক ততটুকুই অন্যায়৷

জামাত কখনোই আমাদের আদৰ্শ নয়৷ তবু জামাতের একটা কথা বলতে হয়— তারা কখনো সমঝোতার জন্য সরকারের কাছে দলীয় ব্যানারে যায়নি৷

তাহলে আমরা সমঝোতা করবো না? আমি বলি: এমন কিছুই ঘটাবো না ; বলবো না, যদ্দরুন সমঝোতা করতে হয়, নত হতে হয়৷ হুঙ্কার ততটুকুই দিবো, যতটুকুতে হুঙ্কারের অশ্রদ্ধা না হয়৷

শুনা যাচ্ছে— জামাতের সাথে কয়েকজন নেতার হৃদ্যতার কথা৷ পানির টান নিম্ন ভূমির দিকে৷ তাকে উপরের দিকে টেনে তোলে আধুনিক যন্ত্র৷ হৃদয়ের টান নিম্নগামী হলে, তাকে কে তুলবে৷ তারাই যখন সর্বেসর্বা; ভিন্ন কেউ তো আর তুলতে আসবে না৷ তাই তারাও নিম্নগামী৷৷তাই আমি বলি: যাচ্ছে যাক৷ তারা বুঝে, শুনে এবং গুনে গুনে যাচ্ছে৷ তারা নিজেদের জন্য যাচ্ছে৷ ভালো হতো; যদি নিজ পরিচয়ে যেত৷ ঘৃণা হয়— তারা হেফাজতকে টেনে নিয়ে যাচ্ছে বিরোদ্ধশক্তির কাছে৷

ইতিহাসের নিৰ্মম পরাজয় কেউ ভুলে না৷ আমরাও ভুলিনি৷ হেফাজতের উত্থানটা খুব বেশিদিন গত হয়নি৷ এই তো ২০১৩৷ তখন শাপলায় অবস্থানের ফলে এবং কিছুজনের হুমকিমূলক বক্তব্যের দরুন উলামায়ে কেরামের উপর দিয়ে যে মহাপ্লাবন গিয়েছে— তা ভুলতে পারিনি৷ স্মৃতির ক্ষত এখনো শুকোয়নি৷ এরই মধ্যে তারা ঘটালো আরো আরো বিস্ফোরণ৷

২০২১৷ উদ্দেশ্যহীন হরতাল৷ সরকারকে ক্ষিপ্ত করা৷ প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখানো৷ মাহফিলের মঞ্চে বসে সরকারকে, দেশকে, দেশের আইনকে তাচ্ছিল্য করা৷ সবগুলোই ঘটিয়েছে এককভাবে, অনৈসলামিকভাবে, উচ্ছৃঙ্খলভাবে, উদ্দেশ্যহীনভাবে কিংবা হীন উদ্দেশ্য সাধনে৷ পরিণতিতে সরকারের আক্রোশের শিকার কওমি মাদ্রাসা আর প্রশাসনের বিপদসংকুল হাত হানা দিচ্ছে কওমি অঙ্গনের দিকে৷

এই গুটি কয়েকের কারণে প্রশ্ন উঠছে: এখন হেফাজত কওমি মাদ্রাসার জন্য কতটুকু নিরাপদ?

এখন তারা হেফাজতের পরিচয় নিয়ে মন্ত্রী মহোদয়ের বাসায় গিয়েছে৷ এই যাওয়ার একটা অৰ্থ হচ্ছে, আমরা নতি স্বীকার করছি৷ অথচ পূৰ্বেই সচেতন হলে এমন বশ্যতা স্বীকার করা লাগত না৷

সংগঠনের কাঁধে যদি খামখেয়ালী এবং খ্যাতি ও স্বাৰ্থান্নেষী নেতারা বসে আর সন্নাসী ভাব ধরে, তবে সেই সংগঠনে মরিচা ধরতে সময় লাগে না৷

আর সংগঠনে মরিচা ধরলে ক্ষয়ে যায় না; বিভক্ত হয়৷ যদ্দরুন শক্তিহীন রুপহীন হয়৷

এই সংবাদটি 683 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com