হেফাজতের কেন্দ্রীয় কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা

প্রকাশিত: ১১:৪৯ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৫, ২০২১

হেফাজতের কেন্দ্রীয় কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা

ডেস্ক রিপোর্ট : দেশের সর্ববৃহত অরাজনৈতিক সংগঠন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় কমিটিকে বিলুপ্ত ঘোষণা দিয়েছেন সংগঠনের আমীর আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। ২৫শে এপ্রিল (রোববার) রাত ১১টার দিকে আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসায় আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী ভিডিও বার্তার মাধ্যমে এমনটি জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, বর্তমানে দেশের পরিস্থিতির কারণে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় কমিটির কিছু গুরুত্বপূর্ণ সদস্যদের সাথে পরামর্শক্রমে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে। এবং আগামী কিছুদিনের মধ্যে আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হবে।

এদিকে হঠাৎকরে কমিটি বিলুপ্ত কেনো করলেন আমিরে হেফাজত?
এই প্রশ্নের জবাবে শীর্ষ দুই হেফাজত নেতা জানান সাম্প্রতিক সময়ে হেফাজত ঢাকা কেন্দ্রিক হয়ে যায় আমিরকে না জানিয়েই কর্মসুচি পালন করা হয়েছে। ফলে কেউ কেউ অনৈতিক ভাবে সংগঠনকে কলুষিত করার পায়তারা করছিলেন। একজন নেতার পদস্খলনের দায় সংগঠন নিতে পারেনা। তাই এসব থেকে সংগঠনকে মুক্ত রাখতে এই সিদ্ধান্ত।
অনুসন্ধানে জানাগেছে মাওলানা মামুনুল হকের রিসোর্ট কান্ডে হেফাজতের ইমেজ ক্ষুন্ন হওয়ার পাশাপাশি সরকারের রোষানলে পড়ে সংগঠনটি। হাটহাজারী মাদরাসায় অনুষ্ঠিত হেফাজতের সর্বশেষ বৈঠকে মামুনুল হককে অব্যাহতি দেওয়ার প্রশ্নে দ্বিধাবিভক্তি দেখা দেয়। মামুনুল হকের অনুসারীদের চাপের মুখে সে দিন কোন সিদ্ধান্তে পৌছাতে পারেনি।

আল্লামা বাবুনগরী তাৎক্ষণিক ভাবে মামুনুল হকের ব্যাপারে কঠোর সিদ্ধান্তে যেতে না পারায় অন্যান্য নেতারা পদত্যাগের কথা চিন্তা করতে থাকেন। কয়েকজন ইতিমধ্যে পদত্যাগ করেছেন। ২০১৩ সালের শাপলা চত্তরের ঘটনার মামলায় ডজনখানেক হেফাজত নেতার গ্রেফতারের পরপরই সংগঠনটির মধ্যে পদত্যাগের হার বৃদ্ধির আশংকা থেকেই কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন।
https://m.facebook.com/story.php?story_fbid=517410202601467&id=100029974741054
কমিটি বিলুপ্ততির ব্যাপারে সংগঠনের কেন্দ্রীয় আইন বিষয়ক সম্পাদক সাবেক এমপি এডভোকেট মাওলানা শাহীনূর পাশা চৌধুরী বলেন:
হেফাজত দেশ ও মিল্লাতের বৃহত্তর স্বার্থ বিবেচনায় হেফাজত হয়ে গেলো।
বৃটিশ বিরোধী আন্দোলন থেকে সফল নেতৃত্বদানকারী হক্বের ঝান্ডাবাহী এ বিজয়ী কাফেলার আপোষহীনতা ছিলো গর্ব করার মতো। বাবুনগরী হুজুরের ভিডিও বার্তায় গাবড়াবার কিছু নেই। আগে বাঁচাতে হবে মানচিত্র। অস্থিত্ব টিকিয়ে রাখতে হবে দেশ ও মিল্লাতের প্রকৃত মানুষ তৈরির মাদারিসগুলোকে। এজন্যই গতকালকের কওমী মাদরাসার সর্বোচ্চ বোর্ড আলহাইয়্যাতুল কওমিয়া বাংলাদেশের বৈঠক থেকে মাদরাসাগুলোতে শিক্ষকদের রাজনীতি নিষিদ্ধের সিদ্ধান্ত এসেছে।
আমি অবশ্য কওমী মাদরাসায় এই মুহূর্তে রাজনীতি এবং ফেইসবুক তথা টাচ মোবাইল ব্যবহারের কড়াকড়িতে ব্যক্তিগতভাবে ঐক্যমত পোষণ করছি।
কারণ মাস চারেক আগে আমি একটি ফেইসবুক স্ট্যাটাস থেকে শক্ত ভাষায় বলেছিলাম, ” আমার সন্দেহ জাগে আগামী ২০ বছর পর কওমী মাদরাসাগুলোতে হাদীস পড়ানোর যোগ্যতাসম্পন্ন শায়খুল হাদীস খুঁজে পাওয়া যাবে কি না? কারণ পরীক্ষা চলাকালীন সময়ও দাওরায়ে হাদীসের ছাত্ররা মোবাইল আসক্তিতে ভোগে।
ওগো আল্লাহ ফায়সালা যাই হোক, দ্বীন ইসলামের মঙ্গলের জন্যই যেন হয়।

এই সংবাদটি 98 বার পঠিত হয়েছে

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com