হাইআতের সু-চতুর সিদ্ধান্ত ও আমাদের পর্যালোচনা

প্রকাশিত: ২:৫১ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৮, ২০২১

হাইআতের সু-চতুর সিদ্ধান্ত ও আমাদের পর্যালোচনা

গত ২৫-০৪-২১ ঈ অনুষ্ঠিত হাইআতুল উলয়ার সিদ্ধান্ত (১)

“কওমি মাদরাসা সম্পর্কিত যাবতীয় বিষয়ে সিদ্ধান্ত ও পদক্ষেপ গ্রহণ করবে একমাত্র আল-হাইআতুল উলয়া। আল-হাইআতুল উলয়ার অধীন এক বা একাধিক বোর্ড কিংবা কোন সংগঠন বা ব্যক্তি আল-হাইআতুল উলয়ার সিদ্ধান্ত ব্যতীত পৃথকভাবে কওমি মাদরাসা বিষয়ক কোন সিদ্ধান্ত বা পদক্ষেপ বা উদ্যোগ গ্রহণ করতে পারবে না”।
________________
ভূমিকা-
যেহেতু উপরোল্লিখিত সিদ্ধান্তের কোথাও ইহা উল্লেখ নেই যে, এই সিদ্ধান্তটি সাময়িক
পরিস্থিতি মোকাবেলায় গ্রহণ করা হয়েছে। পরবর্তীতে এর কার্যকারিতা রহিত হয়ে যাবে। বরং এদ্বারা প্রতীয়মান হচ্ছে।এই সিদ্ধান্তটি হাইআতুল উলয়ার একটি নীতিমালার অন্তর্ভুক্ত ।
কাজেই হাইআতের এই সিদ্ধান্ত আমাদের কাছে ভবিষ্যতে
আঞ্চলিক বোর্ডের জন্য নানাবিধ বিভ্রান্তি সৃষ্টি করবে।
তাই আমাদের এই কসরত ও পর্যালোচনা।
দেশের চলমান পরিস্থিতি, সামনের দিনে করণীয় ও পদ্ধতি বিষয়ে হাইআতুল উলইয়ার গত সভাটি হয়। মুরব্বীগণ এ সভায় অনেক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। এখানে প্রথমে প্রথম সিদ্ধান্ত ও তার বস্তুনিষ্ঠ পর্যালোচনা করার চেষ্টা করবো। এভাবে ধারাবাহিক পর্যালোচনা হবে।
সাথে থাকুন।

পর্যালোচনা:
০১,
“কওমি মাদ্রাসা বিষয়ক যাবতীয় সিদ্ধান্ত হাইআতুল উলয়ার সিদ্ধান্ত ব্যতীত অধীনস্থ আঞ্চলিক কোনো বোর্ড গ্রহণ করতে পারবেনা”।
দেখুন এখানে বলা হয়েছে, “যাবতীয় সিদ্ধান্ত”; যা ব্যাপক অর্থে প্রযোজ্য। এটা একটা নীতির পর্যায়ে সাব্যস্ত হয়েছে। প্রশ্ন হলো-তো আঞ্চলিক বোর্ডগুলোর কাজ কী? তারা কি তাদের বোর্ডের শিক্ষা দীক্ষা, নেসাব, পরীক্ষা, পুস্তক রচনাসহ শিক্ষামূলক উন্নয়ন
কর্মসূচি চালিয়ে যাবেনা? আর চালাতে হলে হাইআতের অনুমোদন নিতে হবে। ইহা কোন্ ধরনের সিদ্ধান্ত বা আইন? এর অর্থ দাঁড়ায়। আঞ্চলিক বোর্ডগুলো হাইআতের কাছে জিম্মি হয়ে গেছে। ইহা কীভাবে হতে পারে? আমি অবাক হলাম, এরকম একটি সিদ্ধান্তের খাতায় আঞ্চলিক বোর্ডের প্রতিনিধিরা কীভাবে স্বাক্ষর করে আসলেন। তাঁরা এরকম একটি সিদ্ধান্তের খাতায় দস্তখতের পূর্বে নিজ বোর্ডের মজলিসে শূরার অনুমোদন লাভের প্রয়োজন মনে করেননি কেন?
কিংবা হাইআতুল উলয়াকে সর্বময় ক্ষমতার অধিকার দিয়ে আসার অধিকার প্রদানের ক্ষমতা আঞ্চলিক বোর্ডগুলো কী তাদের প্রতিনিধিদেরকে দিয়ে পাঠিয়ে ছিলেন; যা তারা করে আসলেন?

আঞ্চলিক বোর্ডগুলো তাদের প্রতিনিধিদেরকে যদি এই ক্ষমতা না দিয়ে থাকেন- তাহলে হাইআতকে কওমী মাদরাসা বিষয়ক সর্বময় ক্ষমতার অধিকার তারা কাদের অনুমতিতে দিয়ে আসলেন?

আঞ্চলিক বোর্ডের আঞ্চলিক অধিকার খর্ব করার অধিকার হাইআত তার কোন নীতির ভিত্তিতে পেলো? অথচ আঞ্চলিক বোর্ডের স্বায়ত্বশাসনের অধিকার ছিনিয়ে নেয়ার হক তার নেই এবং নেয়ারও কথা না। কিন্তু সে তো নিয়ে নিল।
আমরা সবাই ঘুমে?

০২.
হাইআত তো শুধু মাত্র তাকমিল পরীক্ষা একত্রে সম্মিলিতভাবে আদায় করার একটি মিলনকেন্দ্র। যা সরকারী স্বীকৃতি লাভের পূর্বশর্ত হিসাবে অপরিহার্য ছিল, বিধায় এই সুযোগ অবলম্বন করা হয়েছে। ‘কেন্দ্রীয় পরীক্ষা সংক্রান্ত যাবতীয় বিষয়ে হাইআত সিদ্ধান্ত নিবে’ এটাই যুক্তিযুক্ত।
কেন্দ্রীয় পরীক্ষা ব্যতীত অন্য কোন বিষয়ে অন্যান্য বোর্ডের উপর কোনো রকম নিয়ন্ত্রণ করতে তো হাইআতের জন্ম হয়নি। আর ইহা তো কোনো বোর্ড কর্তৃপক্ষ কস্মিনকালেও মেনে নেবেনা।

০৩.
কখনো হাইআতুল উলয়ার নেতৃত্বের আসনে যদি কওমি মাদ্রাসার চিন্তা-চেতনা বিরোধী ব্যক্তিত্বের অভ্যুদয় ঘটে, আর তাদের সংখ্যা গরিষ্ঠতা হয়।
তখন এরা হাইআতকে ধংসের পথে নিয়ে যেতে চাইলে তাদের রুখবেন কীভাবে? সব ক্ষমতা তো তাদেরকে দিয়েই আসলেন। তাইলে ইহা ক্রমান্বয়ে সরকারের নিয়ন্ত্রণে মাদ্রাসাগুলো ঠেলে দেবার এক অভিনব অযাচিত কৌশল নয় কি? হাইআত যা চাইবে, তা করবে।
আঞ্চলিক বোর্ডগুলোর বাধা দেয়ার ক্ষমতা থাকবেনা।

০৪.
হাইআতের তাকমিল পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের আলিমদের ভবিষ্যত সার্বিক উন্নয়ন, কর্মস্থল নির্ধারণ, প্রশিক্ষণ কর্মশালা আয়োজন,
দেশ বিদেশে তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থার জন্য
পদক্ষেপ গ্রহণ, উচ্চ শিক্ষা লাভের জন্য কোনো পথ ও পথের অবলম্বন ইত্যাদি এগুলো তাইলে আর আঞ্চলিক বোর্ডগুলো করার অধিকার রাখেনা?
তাঁর মানে ১৫ বছর মিশকাত পর্যন্ত নিজের বোর্ডের অধীনে লেখাপড়া করিয়ে অনেক চেষ্টার পর তাকে মানুষ হিসাবে গড়ে তুলার পর এক বছর তাকমীল পরীক্ষা হাইআতে করতে দেয়ার মাধ্যমে এই শিক্ষার্থীর ভবিষ্যত চিন্তার আর কোনো জিম্মাদারী না থাকলো মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের উপর আর না থাকলো আঞ্চলিক বোর্ডগুলোর উপর। তাকে পালকিতে তুলে হাইআতের কাঁধে তুলে দিয়ে অন্যরা ছাড় পেয়ে গেল। ইহা কখনো মেনে নেয়া যায়না।
উত্তীর্ণ আলেমদের কর্মসংস্থান বিষয়ে আজ পর্যন্ত হাইআত কী চিন্তা করেছে?
না পেরেছে প্রাইমারীতে ধর্মশিক্ষক হিসেবে কওমীর আলেমদেরকে নিশ্চিত করতে আর না পেরেছে হাইস্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় বা সরকারী মসজিদ, মাদরাসাতে হাইআতের আলেমদের প্রবেশ নিশ্চিত করতে। তাহলে যেদিকে হাইআত কাজ করার কথা ছিল সেদিকে গাফেল হয়ে কাজ করছে অন্যত্র। হাইআতকে তার মাকসাদে কাজ করার পরামর্শ দেয়ার কি কেউ নেই? আবার আঞ্চলিক বোর্ডে ক্ষমতা হাইআত নিয়ে নেয়- সচেতন কোনো প্রতিনিধি তা খেয়ালও করেন নি। তা কেনো? প্রতিনিধিরা এতটা সরল হয়ে কাজ করেন?

০৫.
অনেক সময় কেন্দ্র অপেক্ষা শাখা প্রতিষ্ঠান তার নেক নিয়তি, কর্ম পরিকল্পনা, পরিচালনা, ইত্যাদি গুণাবলির কারণে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে থাকে।
আর তাই যাবতীয় বিষয়ে কেন্দ্রীয় কমিটির অনুমোদন নিতে প্রয়োজন হয়না। কিন্তু হাইআতের এই সিদ্ধান্ত আমাদের কোন পথ দেখাচ্ছে? এনিয়ে কী কিছুটা ভাবছেন? হাইআত কোন দিকে এগুচ্ছে? তার কাজে না অন্যের ক্ষমতা খর্ব করতে?

আঞ্চলিক বোর্ডের রাহবারগণ একটু চিন্তা করবেন, নিজেদের ক্ষমতা কোন দিকে খুয়া যাচ্ছে আর কোন দিকে রক্ষা হচ্ছে।

০৬.
প্রতিনিধিরা বলতে পারতেন, হাইআতের এই অধিকারকে সীমিত ও স্পষ্ট করা হোক।
শুধু করোনা কালিন মাদ্রাসাগুলোর
খোলার বিষয় ও তাকমিলের পরীক্ষা বিষয়ে হাইআতের সর্বময় ক্ষমতা থাকুক।

০৭.
সিদ্ধান্ত যেহেতু স্থায়ী, তাই এটা নিয়ে গভীরভাবে ভাবা দরকার। না হয় সামনে অন্ধকার আছে বলে আমরা মনে করি।

উপসংহার:
এবার বোর্ডের প্রধান প্রধান দায়িত্বশীলদেরকে বিনীতভাবে বলতে চাই, এতটাই সরল লোকদেরকে আপনারা বোর্ডের প্রতিনিধি বানিয়ে দিলেন- যিনি তার অজান্তেই নিজেদের ক্ষমতা বিকিয়ে দিয়ে অন্যের জন্য ওয়াকফ করে চলে আসলেন। এভাবে হলেতো বোর্ডের সদর, নাজিম নির্ধারণে বিচক্ষণ ব্যক্তি নির্বাচনের কোনো দরকার ছিলোনা।

মুখলিসুর রাহমান রাজাগঞ্জী
মুহতামিম,
জামেয়া আয়েশা সিদ্দিকা রা সিলেট।
(জাহানপুর, ইসলামপুর, মেজরটিলা)
নিবন্ধন নম্বর-ম-০৫
আজাদ দ্বীনী এদারায়ে তা’লীম বাংলাদেশ

এই সংবাদটি 182 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com