শুরুতেই প্রশ্নবিদ্ধ হাইআতুল উলয়ার বিরাজনীতিকরণ

প্রকাশিত: ১০:৪৬ পূর্বাহ্ণ, মে ২০, ২০২১

শুরুতেই প্রশ্নবিদ্ধ হাইআতুল উলয়ার বিরাজনীতিকরণ

সৈয়দ শামছুল হুদা:

বাংলাদেশের কওমী মাদ্রাসা সমূহের একক নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠান আল-হাইআতুল উলয়া লিল জামি-আতিল কওমিয়া বাংলাদেশ তথা সংক্ষেপে হাইয়া। এর অধীনে ৬টিবোর্ড রয়েছে। আর সেগুলো হলো,
১। বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ, সংক্ষেপে বেফাক।
২। বেফাকুল মাদারিসিল কওমিয়া, গওহরডাঙ্গা, গোপালগঞ্জ।
৩। ইত্তেহাদুল মাদারিসিল কওমিয়া, চট্টগ্রাম।
৪। আযাদ দ্বীনী এদারা বোর্ড, সিলেট।
৫। তানযীমুল মাদারিসিল কওমিয়া, বাংলাদেশ ( উত্তরবঙ্গ)।
৬। জাতীয় দ্বীনি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড বাংলাদেশ (আল্লামা ফরিদ উদ্দীন মাসউদ নিয়ন্ত্রিত ও প্রতিষ্ঠিত)।

এখানে ৬টি বোর্ড থাকলেও মূল নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠান হলো বেফাক। হাইয়াতুল উলয়ার অনুমোদনের সময় এমনভাবে স্বীকৃতি দেওয়া হয় যাতে হাইয়াতুল উলয়াতে বেফাকের একক নিয়ন্ত্রন থাকে। আর এটা মূলত: সম্ভব হয়েছিল হাইয়ার প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান আল্লামা আহমদ শফী রহ. এর একক নেতৃত্ব ও ব্যক্তিত্বের কারণে। ৩২সদস্য বিশিষ্ট হাইয়ার কমিটিতে ৫বোর্ড থেকে ১০জন এবং এককভাবে বেফাক থেকে ২২জন সদস্য থাকবেন। এভাবেই গ্যাজেট প্রকাশিত।

বেফাক থেকে বলতে বেফাকের যিনি চেয়ারম্যান তিনিই হাইয়ার চেয়ারম্যান, বেফাকের যিনি কো-চেয়ারম্যান, তিনিই হাইয়ার কো-চেয়ারম্যান হবেন। এবং হাইয়ায় বেফাকের চেয়ারম্যান এককভাবে ১৫জন সদস্য নিয়োগ দিবেন। আলোচনা সেটা নিয়েও নয়। আজকের আলোচনা হলো, সম্প্রতি হাইয়া তার এক স্থায়ী কমিটির বৈঠকে কিছু গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সেগুলো বাস্তবায়নের যে প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে সেটা নিয়েই মূলত: আজকের আলোচনা।

গত ২৫শে এপ্রিল এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে হাইয়ার অফিস সহকারী বৈঠকের সিদ্ধান্তসমূহ ফেসবুকে প্রচার করেন। সেখানে দেখা যায়, প্রথম যে দুটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে তা জনগুরুত্বপূর্ণ। সেগুলো হলো :
১। কওমি মাদরাসা সম্পর্কিত যাবতীয় বিষয়ে সিদ্ধান্ত ও পদক্ষেপ গ্রহণ করবে একমাত্র আল-হাইআতুল উলয়া। আল-হাইআতুল উলয়ার অধীন এক বা একাধিক বোর্ড কিংবা কোন সংগঠন বা ব্যক্তি আল-হাইআতুল উলয়ার সিদ্ধান্ত ব্যতীত পৃথকভাবে কওমি মাদরাসা বিষয়ক কোন সিদ্ধান্ত বা পদক্ষেপ বা উদ্যোগ গ্রহণ করতে পারবে না।
২। কওমি মাদরাসার ছাত্র ও শিক্ষকগণ প্রচলিত সর্বপ্রকার রাজনীতি থেকে মুক্ত থাকবে মর্মে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

শুধু সিদ্ধান্ত গ্রহনই নয়, এ বিষয়ে যথাযথ পদক্ষেপও গ্রহন করা শুরু হয়। সম্মানিত চেয়ারম্যান মহোদয়ের পক্ষ থেকে তাঁর নিজস্ব প্যাডে মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে ১০.০৫.২০২১ তারিখে একটি চিঠিও দেওয়া হয়। যা ১২.০৫.২০২১তারিখে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় রিসিভ করে।

সেখানে বলা হয়, হাইয়া ব্যাতীত আর কেউ, বা কোন প্রতিষ্ঠান কওমী মাদ্রাসা নিয়ে যেন সরকারের কাছে দেন-দরবার না করে। এটা মূলত: করা হয় এ জন্য যে, সরকার যখন কওমী মাদ্রাসা সমূহ দ্বিতীয় দফা বন্ধ করে দেয়, তখন আল্লামা মাসউদ সাহেবের বোর্ডের কয়েকজন সরকারের সাথে লিয়াজো করে মাদ্রাসা খোলার জন্য দৌঁড়ঝাপ শুরু করে। এতে বেফাক ও হাইয়ার চেয়ারম্যান হিসেবে তিনি বিব্রতবোধ করেন।
এটা ভালো সিদ্ধান্ত যে, এর মাধ্যমে কওমী অঙ্গনে একক নেতৃত্ব এবং শৃঙ্খলা ফিরে আসবে। অনেক অনাকাঙ্খিত বিব্রতকর পরিস্থিতি সামাল দেওয়া সম্ভব হবে।

কিন্তু আপত্তি দেওয়া দেখা দিয়েছে দ্বিতীয় সিদ্ধান্তটি কার্যকর করতে যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে সেটি দেখে। ১৮মে বেফাকের পক্ষে তাদের ফেসবুক ভেরিফাইড পেইজে মুহা. রাকিবুল হাসান, অফিস সহকারী উচ্চ, প্রশাসন বিভাগ, বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ, তিনি জানান যে, বেফাক এর মজলিসে খাস বৈঠকে বেফাকের কার্যক্রম গতিশীল করতে কাজের সুবিধাধার্থে ৫টি বিশেষ বিভাগে ৫জনকে বিশেষভাবে দায়িত্ব দেওয়া হয়। উনারা সংশ্লিষ্ট বিভাগের সকল দায়-দায়িত্ব দেখভাল করবেন। সুন্দর সিদ্ধান্ত। বেফাক সুন্দরমতো চলুক এটাই সবারই চাওয়া।

কিন্তু প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, লোক নির্বাচন নিয়ে। হাইয়াতুল উলয়া সিদ্ধান্ত নিয়েছে ও সরকারকে চিঠি দিয়ে জানিয়েছে যে তারা ছাড়া আর কেউ কওমীর বিষয়ে কোন সিদ্ধান্ত নিতে পারবে না। আর বেফাক এর প্রশাসন এবং শিক্ষা বিষয়ে যে দুজন সম্মানিত ব্যক্তিকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে উনারা সম্পুর্ণরূপে রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব।

বেফাক এর প্রশাসন বিভাগ দেখভাল করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি, তুখোড় মেধাবী রাজনীতিবিদ, সংগঠক, সুযোগ্য আলেমে দ্বীন, জামিয়াতুস সুন্নাহ এর প্রিন্সিপ্যাল, মাওলানা নেয়ামতুল্লাহ আল ফরিদীকে। ০২জানুয়ারি ২০২১ দৈনিক যুগান্তর এর রিপোর্ট মোতাবেক জানা যায়, পরবর্তী ৫বছরের জন্য ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর আমীর নির্বাচিত হন ও অন্যরা দু বছরের জন্য নির্বাচিত হন। সেই কমিটির একজন প্রভাবশালী প্রেসিডিয়াম সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন মাওলানা নেয়ামতুল্লাহ আল ফরিদী।

একটি দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য মানে তিনি একজন পাক্কা রাজনীতিবিদ। পেশাদার রাজনীতিবিদ। তিনি কোনভাবেই নিরপেক্ষ মন নিয়ে কওমী মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড সমূহের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক বেফাক এর প্রশাসনিক কর্মকর্তা হিসেবে দলীয় নিরপেক্ষতা বজায় রেখে চলতে পারবেন না। গোটা কওমী জগতে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর অনুকূলে প্রশাসনিক ক্ষমতার সুযোগ নিবেন না এর কোন গ্যারান্টি নেই।

বেফাক এর শিক্ষা বিভাগ দেখার জন্য যাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, তিনিও একজন রাজনৈতিক পৃষ্টপোষক। গত চরমোনাই মাহফিলে তিনি পরিস্কার বলেছেন যে, যারা হকপন্থী দল ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ নিয়ে কোন প্রকার সমালোচনা করবে তাদের ঈমান থাকবে না। তিনি ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর ফতোয়া বিভাগের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এবং সারাদেশে ইসলামী আন্দোলন ও চরমোনাই অনুসারীদের বড় বড় মাহফিলগুলোতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকেন। তিনি অনেক বড় আলেম সন্দেহ নেই। কিন্তু রাজনৈতিকভাবে তিনিও নিরপেক্ষ নন। তিনি একটি দলের সাথে সম্পৃক্ত। উল্লেখ্য যে, উনারা দুইজনই চেয়ারম্যান মহোদয় এর মেয়ে জামাই ও বিয়াই।

তাহলে প্রশ্ন দেখা দেয়, বেফাকের শিক্ষা ও প্রশাসনিক কর্মকর্তা যদি দলীয় মনোভাবাপন্ন লোক হয়, তাহলে তাদের পক্ষে কি নির্দলীয় অথবা অরাজনৈতিক ভূমিকা পালন আদৌ কি সম্ভব? তাহলে কি আমরা ধরে নিতে পারি না যে, একসময বেফাকে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম এর প্রভাব ছিল, এখন সেখান থেকে মুক্ত হয়ে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর প্রভাব বেফাকে সুপ্রতিষ্ঠিত হলো।
তাহলে হাইয়াতুল উলয়া যে, সিদ্ধান্ত নিলো, কওমী মাদ্রাসায় কোন ছাত্র ও শিক্ষক রাজনীতি চলবে না, এটার দেখভাল কে করবে? যিনি সর্বোচ্চ প্রশাসনিক কর্মকর্তা তিনিই যদি দলীয় লোক হয়, তাহলে নীচের লোকদের পক্ষে কি নির্দলীয় থাকা সম্ভব? নাকি একক দলীয় আধিপত্য বিস্তার হবে সারা বাংলাদেশে?

বিষয়গুলো পুনর্বিবেচনার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষসহ বেফাক, হাইয়ার অন্যান্য দায়িত্বশীল অন্য বোর্ডের সকল দায়িত্বশীলদের প্রতি সবিনয় নিবেদন রইলো।

20.05.2021

এই সংবাদটি 417 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com