বাংলাদেশে রাজনৈতিক দেওবন্দীয়াত এর কুফল

প্রকাশিত: ৭:১৬ পূর্বাহ্ণ, মে ২৮, ২০২১

বাংলাদেশে রাজনৈতিক দেওবন্দীয়াত এর কুফল

মোঃ মোস্তফা জামাল ভূইয়া:

বাংলাদেশে রাজনৈতিক দেওবন্দীয়াত মুসলমানদের ঐক্যের জন্য হুমকিস্বরুপ ।
দেওবন্দী ধারার দুইটি দিক । একটি হল ধর্মীয় দিক এবং অপরটি হল রাজনৈতিক দিক । ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ হতে দেওবন্দী ধারার আলেমগণ সমসাময়িক বিশ্বে শ্রেষ্ঠত্বের দাবীদার । আমি ব্যক্তিগতভাবে ধর্মীয় ব্যাপারে তাদের যে কোন মতামতের সাথে অন্য ধারার আলেমগনের ফতোয়ার বিরোধ দেখা দিলে দেওবন্দী আলেমগনের মতামতকে প্রাধান্য দিয়ে থাকি এবং প্রত্যেক মুসলমানের তাই করা কর্তব্য ।

কিন্তুু ইদানিংকালে রাজনৈতিকভাবে দেওবন্দীয়াত এবং কওমীয়ত এর উপর গুরুত্বারোপ করার ফলে ইসলামী দলগুলোর রাজনৈতিক অস্তিত্ব হুমকির সম্মুখীন । বাংলাদেশে যারা রাজনৈতিক অংগনে দেওবন্দীয়ত এবং কওমীয়তের ধ্বজাধারী তারা হয়তবা রাজনৈতিকভাবে জাহেল কিংবা অমুসলিম শক্তির হাতের পুতুল । কারণ রাজনৈতিকভাবে দেওবন্দীয়ত এবং কওমীয়তের ফলে মুসলমানিত্বের ব্যাপারে তারা উদাসীন । রাজনৈতিক দেওবন্দীয়ত বাংলাদেশের মুসলমানদের একতা, অস্তিত্ব এবং স্বার্থের জন্য হুমকিস্বরূপ ।

নব্বইয়ের দশকেও এই রাজনৈতিকভাবে দেওবন্দীয়ত এবং কওমীয়তের তেমন কোন নাম নিশানা ছিল না । দেওবন্দী ধারার দূূরদর্শী আলেমগণ ইন্তেকাল করার পর কিছু সংখ্যক রাজনৈতিকভাবে অর্বাচিন আলেমদের হাতে নেতৃত্ব যাওয়ার পর এই একটি আত্বঘাতী ধারার সূত্রপাত হয় । এই দেওবন্দীয়ত ও কওমীয়ত ধারা আবির্ভাবের ফলে কওমী ধারার কোন রাজনৈতিক দল গঠিত হওয়ার কয়েক বছরের মধ্যে ভাংগন সৃষ্টি হয়ে এক বা একাধিক দল ও উপদল সৃষ্টি হয় । এগুলো হল রাজনৈতিক দেওবন্দীয়ত এবং কওমীয়তের ফলাফল ।

অথচ পাকিস্তান আমলে নেজামে ইসলামী পার্টি ছিল একটি ইসলামী দল । এই দলের নেতৃত্বে ছিলেন হযরত মাওলানা আতহার আলী রহ. । তিনি ছিলেন একজন দেওবন্দের কৃতি সন্তান । বর্তমানে বাংলাদেশে কোন কওমী ধারার রাজনৈতিক দল এমনকি জামায়াতে ইসলামীও এই নেজামে ইসলামীর ধারে কাছে পৌঁছতে সক্ষম হয়নি ।

এর কারণ হল মাওলানা আতাহার আলী রহ. রাজনৈতিকভাবে দেওবন্দীয়ত এবং কওমীয়তের কথা উচ্চারণ করতেন না এবং শুধুমাত্র দেওবন্দী তরিকার আলেমগনকে নিয়ে একটি ইসলামী দল করার চিন্তাও করতেন না । তাই তিনি তৎকালীন সময়ে ফুরফুরা, জৈনপুরসহ আরো অনেক তরিকার আলেমগনের সমন্বয়ে নেজামে ইসলামী পার্টি গঠন করেন । এই নেজামে ইসলামী পার্টি পাকিস্তানকে ইসলামী সংবিধান উপহার দিতে অনেক অবদান রেখেছে এবং কেন্দ্রে এবং প্রদেশে সরকার গঠনে গুরুত্বপূর্ন ভুমিকা রেখেছে । বহু মতের সমন্বয় হওয়ায় নেজামে ইসলামী পার্টি ভেংগে কখনও আরেকটি নেজামে ইসলামী পার্টি হয়নি ।

এর কারণ হল ধর্মীয় বিষয়ে ছোট খাট মতপার্থক্য থাকা সত্বেও মুসলমানদের বৃহত্তর স্বার্থে একটি রাজনৈতিক প্ল্যাটফর্মে সবাইকে নিয়ে আসা । মাওলানা আতাহার আলীর ব্যাপারে এমনও শুনা যায় রাজনৈতিকভাবে একই পতাকাতলে আসার জন্য মীলাদ ও কিয়ামের অন্যতম প্রবক্তা চট্রগ্রামের শেরে বাংলা আজিজুল হকের সমর্থনও আদায় করতে সক্ষম হয়েছিলেন ।

আবার ধর্মীয় বৃহত্তর স্বার্থেও দেওবন্দী আলেমগন তাদের ব্যতিত অন্যান্য আলেমগনকে নিয়ে একসাথে আন্দোলন করেছেন । উদাহরন স্বরূপ, ১৯৯১ সালের বি এন পি সরকারের আমলে কাদিয়ানীদেরকে অমুসলিম ঘোষণার দাবীতে সর্ববৃহৎ সমাবেশ মানিক মিয়া এ্যাভিনুতে হয়েছিল। এই সমাবেশে শর্ষিনার পীর, ফুলতলীর পীরসহ দেওবন্দী ধারার বাহিরে আরো অনেক পীর সাহেবগন ছিলেন । সেই সমাবেশে খতিব উবায়দুল হক সাহেবসহ তৎকালীন দেওবন্দী ধারার বড় বড় আলেমগন ছিলেন । এতদ্ব্যতিত আরো অনেক সভায় অনেক বড় বড় দেওবন্দী আলেমগন উপস্থিত থাকা সত্বেও ফুলতলীর পীর সাহেবেক দিয়ে মোনাজাত পরিচালনা করা হত ।

বর্তমানে দেওবন্দীয়ত এবংকওমীয়তের ওপর বেশী গুরুত্বারোপ করার কারণে মুসলমানিয়্যাত হারিয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে । এর কারন হল বর্তমানে রাজনৈতিক দেওবন্দী আলেমগনের অযোগ্যতা । রাজনৈতিকভাবে অযোগ্য এই সব আলেমগন যদি অন্যদেরকে নিয়ে রাজনীতির ময়দানে অবতীর্ন হয় তাহলে তাদের ভয় হল তাদের নেতৃত্বে ভাটা পড়বে । দেওবন্দীয়ত এবং কওমীয়ত জপনেওয়ালা কিছু সংখ্যক আলেম ভারতের দেওবন্দী আলেমগনের নাম নিতে নিতে মুখে ফেনা তুলে ফেলে, কিন্তুু বাংলাদেশের মাওলানা আতাহার আলী ন্যায় দেওবন্দী আলেম কিংবা পাকিস্তানের দেওবন্দী আলেমগনের নাম নিতে লজ্জাবোধ করে। এরা নিঃসন্দেহে রাজনৈতিকভাবে পথভ্রষ্ট এবং অমুসলিম শক্তির হাতের পুতুল ।

আমার এই বক্তব্য ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ হতে নয় , বরং এটি হল রাজনৈতিক দৃষ্টিকোণ হতে । ধর্মীয়ভাবে আমি যেমন দেওবন্দী ধারার আলেমগনের অনুসারী , কিন্তুু রাজনৈতিক ভাবে আমি দেওবন্দী ও কওমীয়ত ধারা করণের বিরোধী । আমি মুসলমানদের বৃহত্তর ঐক্যের সমর্থক । তাই যারা রাজনৈতিকভাবে দেওবন্দীয়ত এবং কওমীয়তের শ্লোগান দেয় তাদের রাজনৈতিক নেতৃত্ব পরিহার করা মুসলমানদের অবশ্যই কর্তব্য । নতুবা অদূর ভবিষ্যতে খেসারত দিতে হবে ।

মোঃ মোস্তফা জামাল ভূইয়া
এ্যাডভোকেট
সুপ্রীম কোট অভ বাংলাদেশ ।
চেয়্যারমান
প্যান ইসলামিক আন্দোলন

এই সংবাদটি 242 বার পঠিত হয়েছে

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com