জমিয়তের কেন্দ্রীয় সভাপতি নির্বাচন নিয়ে কিছু কথা!

প্রকাশিত: ৬:৫৬ পূর্বাহ্ণ, মে ৩১, ২০২১

জমিয়তের কেন্দ্রীয় সভাপতি নির্বাচন নিয়ে কিছু কথা!

মাওলানা সৈয়দ ছালিম কাসেমী::

 

বরকত নেয়ার জন্য যদি জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সভাপতি বানানোর প্রয়োজন হয়, আর এই প্রয়োজনটা যদি সিলেট থেকেই মিটাতে হয়, তাহলে শায়খুল ইসলাম মাদানী রাহ. এর দীর্ঘ সুহবতপ্রাপ্ত যুগের শ্রেষ্ঠ শায়খুল হাদীস, আধ্যাত্মিক রাহবার আল্লামা মোকাদ্দাস আলী সাহেবই সর্বাপ্রেক্ষা যোগ্যলোক। যিনি ৬৫ বছর যাবত বুখারি শরীফ পড়াচ্ছেন, তাঁকে অথবা মরহুম খতিব আল্লামা ওবায়দুল হক রাহ. এর ভাই শাগরিদে মাদানি শায়খুল হাদীস আল্লামা আহমদুল হক অথবা শায়খুল হাদিস আল্লামা লক্ষীপুরী সাহেবকে সভাপতি বানানো হোক।

আর যদি মনে করেন জমিয়ত দেশব্যাপি একটি সংগঠন তাহালে চট্টগ্রাম থেকে তাহলে  ফাজিলে দেওবন্দ আল্লামা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরীকে করা হোক। তিনিও শায়খুল ইসলাম হুসাইন আহমদ মাদানী রাহঃ এর সহবতপ্রাপ্ত এবং সদরে জমিয়ত আল্লামা ফখরুদ্দীন মোরাদাবাদীর ছাত্র (যিনি ছাত্রজীবন থেকে জমিয়তের কাজে প্রচুর অর্থ এবং শ্রম ব্যয় করেছেন, একসময় তিনি সিলেটের কয়েকজন তরুণ আলেমকে আফসোস করে বলেন আমরা জমিয়তের কাজে সক্রিয় ছিলাম, কিন্তু পরবর্তীতে নেযামে ইসলামের কর্মতৎপরতায় জমিয়ত ঝিমিয়ে পড়ে, আজ আবারো সময় এসেছে জমিয়তকে শক্তিশালী করার, জমিয়তের তেমন কোন কাজ নাই বলে আফসোস করেছিলন)অতএব জমিয়তের সভাপতি মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরীকে বানানো যায়। অথবা দারুল মাআরিফের মোহতামি মাওলানা সুলতান যৌওকনদভী বা প্রবীণ মুরুব্বি মাওলানা জহিরুল হক ভুইয়া সাহেবের দোয়া নেয়া যায়।  হায়াতের শেষ সময়ে মুরুব্বিদেয় দোয়া নিন, ইংশাআল্লাহ মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী সভাপতি হলে বৃহত্তর চট্টগ্রামসহ সারাদেশে জমিয়ত একটি শক্তিশালী সংগঠনে রুপ নেবে। সারাদেশে সবচেয়ে পরিচিত এবং শ্রদ্ধেয় শীর্ষ আলেম হিসেবে তিনি এখনো বেঁচে আছেন।

আর যদি মনে করেন আফ্রিকা ভারত পাকিস্তানের মত কর্মদক্ষ চলমান এবং দেশ জাতির নেতৃত্বের প্রয়োজনে রাজধানীতে অবস্থানরত নেতৃত্ব দিয়ে জমিয়তকে শক্তিশালী সংগঠনে রুপান্তরিত করবেন, তাহলে শায়খুল হাদীস আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক কাসেমী ( সিলেটী) দামাত বারাকাতুহুম, শায়খুল হাদীস আল্লামা আব্দুর রব ইউসুফী, শায়খুল হাদিস আল্লামা আব্দুল হামিদ পীরসাহেব মধুপুর এই তিনজন সাহসী কর্মতৎপর মুরব্বী থেকে কোন একজনকে সভাপতি বানানো হোক।

অথবা যদি মনে করেন বয়সী হওয়ার পরও তাগড়া যুবকের মতো কর্মদ্যোমী এবং সর্বমহলে গ্রহণযোগ্য ব্যক্তি, ভালো আলোচক হিসেবেও পরিচিতি, তা ছাড়াও তিনি হবেন একজন সিলেটী আলেম, তাহলে সভাপতি পদে শায়খুল হাদীস আল্লামা নুরুল ইসলাম খান সুনামগঞ্জী, শায়খুল হাদীস আল্লামা মুখলিছুর রহমান কিয়ামপুরী, মুফতী রশীদুর রহমান ফারুক পীরসাহেব বরুনী, অথবা খলীফায়ে গহরপুরী শায়খুল হাদীস আল্লামা শফিকুল হক মুহাদ্দিসে সুরইঘাটীকে নিয়ে চিন্তা করুন। দলকে সত্যিকারের দলে রুপান্তরিত করুন, বায়তুলমাল গঠন করুন, সদস্য সংগ্রহ করুন, কর্মসূচি পালন করুন, নিজনিজ বাড়িতে বা মাদরাসায় বসে শুধু দোয়া করাকে ফিকির বলা হয় না।

আল্লামা মাদ্রাজী সাহেব ইমামবাড়ী হুজুরকে বলছিলেন শুধুমাত্র দোয়ার মাধ্যমে কিছু হয়না, তদবির করনা চাহিয়ে। আল্লাহ যেন আকাবির আসলাফের আমানত জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশকে দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে সময়ের সঠিক এবং সাহসী সিদ্ধান্ত নেয়ার তৌফিক দান করেন। আমরা যেন ইসলাম প্রতিষ্ঠায়, জালিমদের জুলুমের বিরুদ্ধে জমিয়তের মাধ্যমে নিজের জানমাল কোরবান করতে পারি।

যাদের গ্রহণযোগ্যতা নেই, পরিচিতি নাই, কিন্তু ক্রিমিনালি বুদ্ধি আছে, মুহাদ্দিস না হলেও হাদীসের কিতাব পড়ান, ইজাজজ প্রাপ্ত খলিফা না হলেও শায়খ দাবি করেন, গাড়ি ভাড়া পাঠালে আর হাদীয়া দিলে প্রোগ্রামে উপস্থিত করা যায়,, এমন গুণাবলীর মুরুব্বিদেরকে উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য বানিয়ে দোয়া নেয়ার জায়গায় থাকুক। ইদানিং ‘বরকত’ বড় অসহায়! তবে তাদের মুল্যায়নে বছরে দু’ একবার বরকত নেয়ার জন্য মোনাজাতের আয়োজন করা যায়!
দলের জন্য খয়র মনে করে আমি আমার মতামত প্রকাশ করলাম।
সৈয়দ ছালিম কাসেমী
জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের একনিষ্ঠ একজন কর্মচারী, ২৯/৫/২০২১

এই সংবাদটি 186 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com