আল্লামা শাহ আহমদ শফীর ভক্তবৃন্দ’ ব্যানারে সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত: ৮:৪৯ অপরাহ্ণ, জুন ২, ২০২১

আল্লামা শাহ আহমদ শফীর ভক্তবৃন্দ’ ব্যানারে সংবাদ সম্মেলন
ডেস্ক রিপোর্ট :

অচিরেই ‘নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে’ হেফাজতে ইসলামের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী সব জেলা, থানা, শহর ও নগর কমিটিগুলো নবায়নের ঘোষণা দিয়েছেন হেফাজতের আল্লামা শাহ আহমদ শফীর প্রকৃত অনুসারী হিসেবে পরিচয়দানকারী  নেতারা। এছাড়া কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের মাধ্যমে নতুন কমিটি ঘোষণা করা হবে বলেও জানান তারা। ২ জুন বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়।

‘শাইখুল ইসলাম শহীদ আল্লামা শাহ আহমদ শফীর ভক্তবৃন্দ’ ব্যানারে এই সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান শফির কমিটির নেতা নুরুল ইসলাম জাদিদ।

নুরুল ইসলাম জাদিদ বলেন, আহমদ শফীর চরম বিরোধী ও বিদ্বেষীদের দ্বারা যিনি হেফাজতের কথিত আমির হয়েছিলেন, তাকে এদেশের ধর্মপ্রাণ জনগণ মেনে নিতে পারেনি। যে কারণে তিনি জননোষ থেকে বাঁচার জন্য তথাকথিত ওই অবৈধ কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করতে বাধ্য হয়েছেন। আমরা মনে করি, কথিত হেফাজত সিন্ডিকেটের মাধ্যমে একটি পকেট কমিটি গঠিত হয়েছিল। যেখানে আহমদ শফির মূল অনুসারী হেফাজতের প্রতিষ্ঠাতা নেতৃবৃন্দকে বাদ দেয়া হয়েছিল।

জাদিদ বলেন, একটি মহল ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে দেশের আলেম সমাজকে ভুলপথে ঠেলে দেওয়ার পাঁয়তারা করছে। ওলামায়ে কেরামের সরলতার সুযাগে তারা ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করার অপচেষ্টায় লিপ্ত। একশর বেশি বয়সী শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফীর ইন্তেকাল স্বাভাবিক হবে এটাই ছিল সবার প্রত্যাশা।

কিন্তু আসলেই কি তাই হয়েছিল? সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে চিত্র দুনিয়াবাসীর সামনে এসেছে, তাতে কি বলা যায় তার স্বাভাবিকমৃত্যু হয়েছে?

তিনি বলেন, আমরা মনে করি, শাইখুল ইসলামের শাহাদাতের বিষয়ে প্রকৃত অবস্থা উদঘাটনে ওলামায়ে কেরামের এগিয়ে আসা দরকার। তা না হলে বাংলাদেশে ইসলামের ভবিষ্যত অন্ধকার। জীবনের শেষ মুহূর্তে মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে (শফী) অতি প্রয়োজনীয় ওষুধ গ্রহণ করতে দেওয়া হয়নি, রুমের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছিল, এসি-ফ্যানসহ আসবাবপত্র ভাঙচুর করা হয়েছিল।

আহমদ শফীকে পদত্যাগে ‘বাধ্য করা হয়েছিল’ মন্তব্য করে জাদিদ বলেন, চাপাতি, রামদা, লাঠি, দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত চরম ও উগ্রপন্থীদের দিয়ে তাণ্ডব চালানো হয়েছিল। হাটহাজারি মাদ্রাসায় একটি চরমপন্থি উগ্রগোষ্ঠীর অনুপ্রবেশ ঘটিয়ে সহজ-সরল ছাত্রদের উসকানি দেওয়া হয়েছিল।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, নুরুল ইসলাম জাদিদ বলেন, গঠনতন্ত্রে না থাকলেও এককভাবে তিনি (বাবুনগরী) নিয়ম বহির্ভূত পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট একটি আহ্বায়ক কমিটি গঠন করে নতুনভাবে আলেম-উলামা ও ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের ষড়যন্ত্রের ফাঁদে নিপতিত করার পাঁয়তারা করছেন। এটি হেফাজতের কোনো আহ্বায়ক কমিটি নয় বরং মামা-ভাগ্নের ফটিকছড়ি পকেট কমিটি।

নুরুল ইসলাম জাদিদ বলেন, আজ মাহফিল বন্ধ, মাদ্রাসাগুলো বন্ধ ও সরকারি নজরদারির আওতায়, আন্দোলনের নামে নিজেদের নেতা হওয়ার খায়েশে ইসলামকে আজ বিপদের মুখোমুখি এনে দাঁড় করিয়ে দেওয়া হয়েছে। অথচ আহমদ শফীও আন্দোলন করেছেন। আবার তিনি স্বকীয়তা বজায় রেখে সরকারের কাছ থেকে ইসলামের অনেক দাবি-দাওয়া আদায় করে দেশের মুসলমানদের মাথা উঁচু করেছেন। তিনি কারো কাছে মুচলেকা দিয়ে আন্দোলনের ভূমিকাকে কোনোকালেই খাটো করেননি।”

সংবাদ সম্মেলনে আল্লামা আহমদ শফীর ছেলে মাওলানা আনাস মাদানী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন মধুপুরের পীর আব্দুল হামিদ, মাওলানা আবুল কাসেম, আব্দুর রশিদ মজুমদার, খোরশেদ, মাওলানা জাফরুল্লাহ খান, শরীফ বিন আব্দুল কুদ্দুস, মুফতি ফয়জুল্লাহ, মাওলানা আবুল হাসানাত আমিনী, মাঈনুদ্দিন রুহী ও আলতাফ হোসেন ছাড়াও আহমদ শফির শ্যালক মো. মহিউদ্দিন প্রমূখ।

  সম্মেলনের মূল অংশ ঃ

প্রিয় সাংবাদিক বন্ধুগণ!
আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী রহ.-এর চরম বিরোধী ও বিদ্বেষীদের দ্বারা যিনি হেফাজতের কথিত আমীর হয়েছিলেন, তাকে এদেশের ধর্মপ্রাণ জনগণ মেনে নিতে পারে নি। যে কারণে তিনি জনরোষ থেকে বাঁচার জন্য তথাকথিত এই অবৈধ কমিটি বিলুপ্ত ঘোষনা করতে বাধ্য হয়েছেন। আমরা মনে করি, কথিত হেফাজত সিন্ডিকেটের মাধ্যমে একটি পকেট কমিটি গঠিত হয়েছিল, যেখানে আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী রহ.-এর মূল অনুসারী হেফাজতের প্রতিষ্ঠাতা নেতৃবৃন্দকে বাদ দেওয়া হয়েছিল। বিগত দিনে যারা আন্দোলনে ভূমিকা রেখেছিলেন, সক্রিয় ছিলেন, জীবন বাজি রেখে জেল-জলুম উপেক্ষা করে, হামলা-মামলার তোয়াক্কা না করে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছিলেন তাদেরকে পাশ কাটিয়ে এই কমিটি গঠন করা হয়েছিল। গঠনতন্ত্রে না থাকলেও এককভাবেই তিনি নিয়ম বহির্ভূত ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি আহবায়ক কমিটি গঠন করে নতুনভাবে আলেম-উলামা ও ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের ষড়যন্ত্রের ফাঁদে নিপতিত করার পাঁয়তারা করছেন। ইত্যেমধ্যেই দেশবাসী বুঝতে পেরেছে, এটি হেফাজতের কোন আহবায়ক কমিটি নয় বরং মামা-ভাগ্নের ফটিকছড়ি পকেট কমিটি। শোনা যাচ্ছে, এই আহবায়ক কমিটিই আবারও কোন কাউন্সিল না করে নিজেদের পছন্দমাফিক লোকদের মনোনয়নের মাধ্যমে নতুন আরেকটি অবৈধ কমিটি জন্ম দেওয়ার নীলনকশা চূড়ান্ত করে তা ঘোষণা করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে।

আমরা দ্ব্যর্থহীন ভাষায় ঘোষণা করছি, চক্রান্তের মাধ্যমে আবারও হেফাজতে ইসলামের নামে এ জাতীয় কোন অবৈধ কমিটি ঘোষণা করা হলে দেশবাসী আবারও তা ঘৃনাভরে প্রত্যাখ্যান করবে। যারা আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী রহ.-এর হত্যা মামলার স্বীকৃত আসামী তারা হেফাজতের কর্ণধার থাকতে পারে না। আমরা নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে শহীদ আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী রহ.-এর রেখে যাওয়া আমানত হেফাজতে ইসলামের কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছি এবং অচিরেই দেশের শীর্ষস্থানীয় উলামায়ে কেরামের পরামর্শক্রমে নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে তার গঠন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে ইনশাল্লাহ। হেফাজতের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী নিয়মতান্ত্রিকভাবে সব জেলা, থানা, শহর ও নগর কমিটিগুলো নবায়ন করে কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের মাধ্যমে হেফাজতের কমিটি পুনঃ ঘোষণা করা হবে।

প্রিয় সাংবাদিক বন্ধুগণ!
দেশবাসী মনে করে, আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী রহ.কে লাঞ্ছিত করে হাটহাজারী মাদরাসা থেকে পদত্যাগে বাধ্য করা এবং বিভিন্নভাবে মানসিক নির্যাতনের কারণে তার অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে। আন্দোলনের নামে সে সময় এমন ভয়াবহ ও বিভীষিকাময় পরিস্থিতি সৃষ্টি করা হয়েছিল, তখন সহজ-সরল ছাত্র-শিক্ষকরা ভীত-সন্ত্রস্ত হয়ে মুখ খোলার পর্যন্ত সাহস পায়নি। একটি চিহ্নিত উগ্রগোষ্ঠি ছাত্র-শিক্ষকদের জিম্মি করে মাদ্রাসায় অরাজকতা সৃষ্টি করে যে নারকীয় তান্ডবলীলা চালিয়েছিল এর ভিডিও ফুটেজগুলো এখনো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিদ্যমান। সেই উগ্রগোষ্ঠীর কয়েকশো সদস্য এখনো হাটহাজারীতে অবস্থান করে ঐতিহ্যবাহী এই প্রতিষ্ঠানটিকে একটি চিহ্নিত গোষ্ঠীর নিয়ন্ত্রণে রেখে রাজনৈতিক এজেন্ডা বাস্তবায়নের অপচেষ্টা অব্যহত রেখেছে বলে বিশ^স্ত সূত্রে জানা গেছে।

প্রিয় সাংবাদিক বন্ধুগণ!
যারা আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী রহ.-এর বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়ে বলেছে যে, তিনি কেন সরকারের বিরোধিতা করেন না, কেন সরকার পতনের আন্দোলন করেন না, তার অনুসারীরা সরকারের দালাল; কিন্তু যারা তার বিরুদ্ধে চক্রান্ত করেছে, উস্কানি দিয়েছে, নিরীহ ছাত্রদেরকে বিভ্রান্ত করেছে, নিজেদেরকে সরকার বিরোধী হিসেবে উপস্থাপন করে ধর্মপ্রাণ মুসলমান বিশেষত কওমী অঙ্গনের ছাত্র-শিক্ষকদের বাহবা নেওয়ার জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানা অপপ্রচার চালিয়েছে, আজ তারাই সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে ধর্ণা দিয়ে সরকারী আনুকূল্য পাওয়ার জন্য মুচলেকা দিয়ে নিজেদের জীবন বাঁচাতে ইসলামকে জলাঞ্জলি দিতেও কুণ্ঠাবোধ করছে না। তারা আজ বক্তৃতায় সরকারকে শত বৎসর ক্ষমতায় থাকার জন্য মায়াকান্না করছে। এগুলো কি দালালি নয়?

উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে অদূরদর্শী, অপরিপক্ক ও হঠকারীমূলক বক্তৃতা-বিবৃতি দিয়ে দেশের ওলামায়ে কেরামকে বারবার বিপদের মুখে ঠেলে দেওয়া হয়েছে। আজ মাহফিল বন্ধ, মাদ্রাসাগুলো বন্ধ ও সরকারী নজরদারির আওতায়, আন্দোলনের নামে নিজেদের নেতা হওয়ার খাহেশে ইসলামকে আজ বিপদের মুখোমুখি এনে দাঁড় করিয়ে দেওয়া হয়েছে। অথচ আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী রহ.ও আন্দোলন করেছেন। আবার তিনি স্ককীয়তা বজায় রেখে সরকারের কাছ থেকে ইসলামের অনেক দাবি-দাওয়া আদায় করে দেশের মুসলমানদের মাথা উঁচু করেছেন। তিনি কারো কাছে মুচলেকা দিয়ে তার আন্দোলনের ভূমিকাকে কোনোকালেই খাটো করেননি। তিনি বিশ্ববাসীর সামনে ইসলামকে সমুন্নত করেছেন। কোনো বাধা-বিপত্তি তার আধ্যাত্মিক শক্তির মোকাবেলা করতে সক্ষম হয়নি। তাঁর দূরদর্শী সিদ্ধান্তের কারণে সকল শ্রেণী-পেশার মানুষ তাকে সম্মান জানিয়েছে, তাঁকে শ্রদ্ধা করেছে। এগুলো কি আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী রহ.-এর অপরাধ ছিল? তিনি কি এসব নিজের জন্য করেছিলেন? দেশ ও উম্মাহর স্বার্থে করেছিলেন। এতকিছু করার পরও একটি রাজনৈতিক গোষ্ঠীর এজেন্ডা বাস্তবায়নে কেন তার সাথে এহেন অমানবিক আচরণ করা হলো?

সুতরাং আজকের সংবাদ সম্মেলন থেকে সরকারের কাছে আমাদের দাবি হলো:
এক. আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী রহ.-এর অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় দাখিলকৃত মামলা ও পিবিআইয়ের তদন্ত প্রতিবেদনে অভিযুক্তদের অনতিবিলম্বে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।
দুই. আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী রহ.-এর পরিবারের সদস্যদের ও তার অনুসারীদের নিরাপত্তা বিধান করতে হবে। যারা মামলা তুলে নেওয়ার হুমকি-ধমকি দিচ্ছে তাদেরকে চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে অবিলম্বে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।
তিন. শহীদ আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী (রহ.)-এর রেখে যাওয়া সকল দ্বীনি ও সামাজিক অঙ্গনগুলো থেকে হযরতের বিরোধীদের অপসারণ করতে হবে।
চার. অবিলম্বে দেশের কওমী মাদরাসার মক্তব ও হিফজ বিভাগ খুলে দিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মানার শর্তে কিতাব বিভাগগুলোও খুলে দিতে হবে।
পাঁচ. শান্তি-শৃঙ্খলাবিরোধী কর্মকান্ডে জড়িত নয় গ্রেফতারকৃত এজাতীয় নিরীহ, নিরপরাধ আলেম-উলামাদের মুক্তি দিয়ে হয়রানি বন্ধ করতে হবে। সেই সাথে সারাদেশে নিরপরাধ আলেম-উলামাদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে।

প্রিয় সাংবাদিক বন্ধুগণ!
আপনারা সত্য প্রকাশে অহর্নিশ কাজ করে যাচ্ছেন। সত্য প্রতিষ্ঠার জন্যই আপনাদের এই নিরন্তর চেষ্টা প্রচেষ্টা। সুতরাং আল্লামা শাহ আহমদ শফী রহ.-এর অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনা আপনারা দেখেছেন। আমাদের অনুরোধ, আপনারা সত্য উদঘাটনে অগ্রসর হোন। এক্ষেত্রে আপনাদের ভূমিকা চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।

পরিশেষে আজকের এই সম্মেলনে কষ্ট করে আসার জন্য শাইখুল ইসলাম শহীদ আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী রহ.-এর ভক্তবৃন্দ-এর পক্ষ থেকে আপনাদেরকে আবারো জানাচ্ছি আন্তরিক অভিনন্দন ও মোবারকবাদ। আল্লাহ হাফেজ

আয়োজনে:
শাইখুল ইসলাম শহীদ আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী রহ.-এর ভক্তবৃন্দ

এই সংবাদটি 49 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com