মাওলানা আব্দুল হামিদ মধুপুরেরপীর সাহেবের অবস্থান নিয়ে কিছু কথা

প্রকাশিত: ৭:০১ পূর্বাহ্ণ, জুন ৪, ২০২১

মাওলানা আব্দুল হামিদ মধুপুরেরপীর সাহেবের অবস্থান নিয়ে কিছু কথা

সিলেট রিপোর্ট :

হেফাজতে ইসলামের অন্যতম শীর্ষ  নেতা মাওলানা আব্দুল হামিদ পীরসাহেব মধুপুর এই মুহুর্তে  বহুল আলোচিত এক নাম। কয়েক দিন আগে তিনি গুলিবিদ্ধ হন। সর্বশেষ তিনি হেফাজতে ইসলাম থেকে সরে গিয়ে আল্লামা শাহ আহমদ শফীর (র) এর ছেলে মাওলানা আনাস ও মুফতি ফয়জুল্লাহদের সাথে হেফাজতের ব্যানারে এক সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হওয়ার পরে তাকে নিয়ে বেশ আলোচনা সমালোচনা হচ্ছে। জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’ এর কেন্দ্রীয় সহসভাপতি বয়োবৃদ্ধ  এই আলেমের ৪ জন ছেলেই হেফাজতের ইস্যুতে এখন কারাগারে আছেন। আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমীর ইন্তেকালের পরে ঢাকা কেন্দ্রীক খানকার পীর এবং রাজপথের বীর হিসেবে তিনি সকলের কাছে পরিচিত হন।

হক্কানী আলেম হিসেবে পরিচিত এই পীরসাহেব ছাড়া ঢাকায় সাহসী বক্তব্য দেওয়ার মতো এই মুহুর্তে তার বিকল্প নেই বল্লেই চলে। কোন সাহসী আলেম ছিলোনা বলেই  মাওলানা মামুনুল হকের রিসোর্স কান্ডের পরে হেফাজতের  সকল নেতা ছুটে গিয়ে ছিলেন মধুপুরের পীরের খানকায়।  ধরপাকড়  ও পরিস্থিতি মোকাবেলায় একজন মুরুব্বীর নেতৃত্বদানের বিষয়টি বিবেচনায় রাজধানীর  জামিয়া রাহমানিয়ায় হেফাজত নেতাদের জরুরী বৈঠকে উপস্থিত করা হয় এই পীরসাহেবকেই। বেফাক মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক ও মামুনুল হকসহ অন্যান্য  উলামায়েে কেরাাম তাকেই মুরুব্বী হিসেবে মেনে নিলেন। সরকারের বিরুদ্ধে কঠোর মনোভাব প্রকাশ করে বক্তব্য রাখার পরেও কেনো এই আলেম আজ আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরীর নেতৃত্বাধীন হেফাজতের বিরুদ্ধে  অবস্থান নিলেন?

জানা যায়, গত মার্চে মোদিবিরোধী হরতালে মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখান এলাকায় মাওলানা আবদুল হামিদের নেতৃত্বে মাদ্রাসার ছাত্র-শিক্ষকরা অংশগ্রহণ করে। মধুপুরের পীর সেদিন পুলিশের গুলিতে আহতও হন।

২৮ মার্চ হেফাজতের ডাকা হরতালে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী এবং হেফাজত কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এসময় সিরাজদিখান থানায় হামলা করেন হেফাজত কর্মীরা। সে সময়ের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এসএম জালাল উদ্দিনকে ধরে এনে প্রকাশ্যে পিটিয়ে আহতও করা হয় বলে অভিযোগ রয়েছে।

এই ঘটনায় করা মামলায় মধুপুরের পীরের পাঁচ ছেলেকে আসামি করা হয়। পরে পুলিশ তার চার ছেলেকে গ্রেফতার করে। এখনো তারা কারাগারে আছেন।

সূত্রে জানা গেছে, হেফাজতের হরতালের সময় দু’পক্ষের সংঘর্ষে মেজর জেনারেল আবুল কালাম হুমায়ুন নামে এক সাবেক সেনা কর্মকর্তার মা গুরুতর আহত হন। এ ঘটনায় সরকারের ঊর্ধ্বতন মহল ব্যাপক ক্ষুব্ধ হয়। এতে চাপে পড়েন মধুপুরের পীর মাওলানা আবদুল হামিদ।

এ বিষয়ে গত মঙ্গলবার দুঃখ প্রকাশ করে একটি বিবৃতি দেন তিনি। তাতে মধুপুরী পীর বলেন, ‘আমি আল্লামা আহমদ শফীর নীতি ও আদর্শের ওপর অবিচল আছি এবং আজীবন থাকব। আমি দ্ব্যর্থহীনভাবে ঘোষণা করছি, হেফাজতে ইসলামের বিলুপ্ত কমিটির সঙ্গে আমার কোনো সম্পর্ক নেই, আহ্বায়ক কমিটির প্রতিও সমর্থন নেই। এই কমিটিকে আমি বৈধ মনে করি না।’

বিবৃতিতে তিনি গত মার্চে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফরবিরোধী কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে মুন্সিগঞ্জের মধুপুরে অপ্রত্যাশিত ঘটনাবলির জন্য আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করেন।

মাওলানা আবদুল হামিদ বলেন, আমি হেফাজতে ইসলামের মোদি বিরোধী কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে মুন্সীগঞ্জের মধুপুরে অপ্রত্যাশিত ঘটনাবলীর জন্য আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি। বিশেষ করে আমার অত্যন্ত স্নেহভাজন মেজর জেনারেল আবুল কালাম হুমায়ুনের আম্মার আহত হওয়ার খবর শুনে অত্যন্ত দুঃখিত ও ব্যথিত হয়েছি। বিশেষ করে মেজর জেনারেল সাহেবের বাড়িঘরসহ অন্যান্যদের বাড়িঘরে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

মধুপুরের পীর মাওলানা আবদুল হামিদ বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের শরিক জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নেতা। ২০১৮ সালের ২২ নভেম্বর ইসলামী ঐক্যজোট ছেড়ে জমিয়তে যোগ দেন তিনি।

সরকারের চাপে নাকি অন্যকোন কারণে তিনি পাল্টেগেলেন? এই বিষয়টি ক্লিয়ার বুঝতে হলে সিলেট রিপোর্ট এর পাঠকদের উদ্দেশ্যে ফাহিম সিদ্দিকীর একটি ফেসবুক স্ট্যাটাস এখানে হুবহু তুলে ধরা হলো:

“ইতোপূর্বে এ বিষয়ে একটি দীর্ঘ পোস্ট লিখেও মুছে ফেলেছিলাম! অতি প্রয়োজনীয় এ অনুশোচনাটুকু বিলম্বে হলেও জরুরী ছিল।

খুব সংক্ষেপে যদি বলি, কেনিয়ার রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল (অব.) আবুল কালাম মো. হুমায়ুন কবির, সম্পর্কে আমার ভগ্নিপতি হন (আব্বুর ভাগ্নি জামাতা)।

মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার রাজানগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি এ.কে.এম আলমগীর কবিরের মধুপুর গ্রামের বাড়িতে হেফাজতের নেতাকর্মীরা হামলা চালিয়ে বাড়ির দুটি বিল্ডিংয়ে ঢুকে ৫টি কক্ষের আসবাবপত্র ভাঙচুর করে অগ্নিসংযোগ করে। এ সময় বাড়িতে অবস্থান করছিলেন আলমগীর কবিরের ৮৭ বছরের রত্মগর্ভা বৃদ্ধা মা নূরজাহান বেগম ও সেজো ভাই মুনসুর সাদী। দুজনকেই নির্মমভাবে পেটানো হয়। আহত রত্নগর্ভা মা নূরজাহান বেগম ৬ ছেলে ৩ মেয়ে সন্তানের মা। ছেলেদের মধ্যে একজন কোরআনে হাফেজ, একজন (ভাইয়া) সাবেক মেজর জেনারেল ও রাষ্ট্রদূত, একজন যুক্তরাষ্টের বিশিষ্ট চিকিৎসক, একজন অগ্রণী ব্যাংকের সাবেক মহাব্যবস্থাপক ও দুজন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী। নুরজাহান বেগমকে ১৯৯৫ সালে রাজানগর ইউনিয়নের সৈয়দপুর যুব সংঘের পক্ষ থেকে রত্নগর্ভা মা হিসেবে সম্মাননা প্রদান করা হয়।

মধুপুরের পীর সাহেবের মাদরাসায় সবচেয়ে বেশি অনুদান সহযোগিতা ছিল আপুর শাশুড়ির।
তিনি ছেলে-মেয়ের কাছে কালেকশন করে করে উক্ত মাদরাসায় প্রতিনিয়ত দান খয়রাত করতেন। দিয়েছেন প্রচুর জায়গা জমি। স্বামীগৃহে মিরাছ সূত্রে পাওয়া দুই বিঘা জমি তিনি মাদরাসার নামে লিখে দিয়েছেন। এ ছাড়া নুরজাহান বেগম সারা জীবন দ্বীন ইসলামের খেদমত করার চেষ্টা করেছেন, মানব কল্যাণে কাজ করেছেন। মাওলানা আব্দুল হামিদ সাহেব আমেরিকায় মাদরাসার তাহসিলের জন্য গেলে আপুর বাসায় থেকে তাঁদের পরিচিতজনদের কাছেই মাদ্রাসার এয়ানত সংগ্রহ করতেন‌‌। এই পুরো পরিবারটিই হুজুরকে এবং তার দ্বীনি প্রতিষ্ঠানটিকে নানাভাবে সহযোগিতা করেন। এমনকি ঘটনার দিন দুলাভাইয়ের বড় ভাই যিনি স্থানীয় আওয়ামী লীগের সভাপতি এ.কে.এম আলমগীর কবির সংঘর্ষ চলাকালে শুধুমাত্র ঘটনা পর্যবেক্ষণ করতে বাড়ি থেকে বের হয়ে হুজুরকে রাস্তায় দেখে বাঙ্গি এবং পানি কিনে দেন। পরবর্তীতে পুলিশ গুলি ছুড়লে হুজুর ঘটনাচক্রে আহত হন। এতে অতি উৎসাহী কেউ উত্তেজিত হয়ে মাদরাসার মাইকে স্থানীয় লীগের লোকদেরকে দায়ী করে তাদের ঘরবাড়িতে হামলার আদেশ দেয়। এ সময় হেফাজত সমর্থকরা আপুর শাশুড়িকে নির্মমভাবে পিটিয়ে আহত করে। মাকে নিয়ে হাসপাতালে যাওয়ার পথে ছোট ছেলের হাতে দা দিয়ে পর্যন্ত কুপিয়েছে। ঘরের আসবাবপত্র আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দিয়েছে। পরবর্তীতে সিএমএইচে দীর্ঘ অপারেশনের পর আপুর শাশুড়ির একটি চোখ চিরতরে অন্ধ হয়ে যায়।
উচিত ছিল এ ঘটনায় সাথে সাথে অনুতপ্ত হওয়া দ্বীন ফিদা মহিলাটির খোঁজখবর নেওয়া। তা না করে বরং সেদিনই ভিডিওবার্তায় পীর সাহেব হুজুরের দম্ভোক্তি দেখে বিমর্ষ হই। গত দুই মাসে কওমি অঙ্গনের অদূরদর্শী নেতৃত্বের আত্মঘাতী তৎপরতায় ধর্মীয় অঙ্গন চিড়াচ্যাপ্টা হবার দশা।অদূরদর্শী নেতৃত্বের কারণে মাদ্রাসা, মসজিদ, ইসলামী রাজনীতিসহ ধর্মীয় অঙ্গনে যে অস্থিরতা, আতঙ্ক ও শঙ্কার পরিবেশ তৈরি হয়েছে, তার কারণ পর্যালোচনা পূর্বক ভবিষ্যত কর্মপন্থা গ্রহণ না করলে এরকম বিপর্যয়কর পরিস্থিতি থেকে সহসা উত্তরণ হবে বলে মনে হয় না।

হরতালে সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে বাড়ি-গাড়ি, ভাংচুর করা, জান-মালের ক্ষতি করা, একজনের অন্যায়ের শাস্তি অন্যকে দেয়া সম্পূর্ণ হারাম। হরতাল চলাকালে অন্যায়ভাবে কারো জান-মাল ক্ষতিগ্রস্থ না হয় এবং শরীয়ত বিরোধী কোনো কর্মকান্ড না হয় সেবিষয়ে যথাযথ সিদ্ধান্ত ও কর্মপন্থা গ্রহণ করা সবই শরীয়তের দিকনির্দেশনার আওতাভুক্ত। এজাতীয় কর্মকান্ডের বা সুযোগ সৃষ্টির কোনোই সুযোগ নেই। এই প্রতিকূলতায় শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তিবর্গের অসহায়ত্ব ও সিদ্ধান্তহীনতা আমাদেরকে বলে দিচ্ছে যে, আমরা কতোটা যোগ্য ও দূরদর্শী নেতৃত্বশূন্যতায় ভুগছি। যে নেতৃত্ব তরুণ ও মধ্যবয়সীদের আবেগ এবং জোয়ারে নয়, বরং অভিজ্ঞতার আলোকে বিবেক দিয়ে পরিচালিত হবে।
আল্লাহ আমাদের যোগ্য, সতর্ক নেতৃত্ব দান করুন। আরও সহনশীল ও সজাগ উম্মত হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করুন॥”

এই সংবাদটি 613 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com