মঙ্গলবার, ০৬ ডিসে ২০১৬ ১০:১২ ঘণ্টা

রোহিঙ্গা নির্যাতন: টেকনাফ থেকে ফিরে-১

Share Button

রোহিঙ্গা নির্যাতন: টেকনাফ থেকে ফিরে-১

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী,টেকনাফ থেকে ফিরে: বিভিন্ন গণমাধ্যমে সচিত্র প্রতিবেদন দেখে ও শুনার পরে স্বাভাবিক ভাবেই নিজে সরেজমিন ঘুরে দেখার প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ও মগদের য়ৌথ প্রচেষ্টায় দেশটিতে সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিমদের উপর চলে আসা নির্মম নির্যাতনের খবরে সমগ্র বিশ্বব্যাপী প্রতিবাদের ঝড়উঠলেও আর্ন্তজানিক মহল এখনো নীরব র্দশকের ভুমিকায়। প্রতিবেশী বাংলাদেশের ধর্মপ্রাণ জনগন বিক্ষোভ প্রতিবাদ জানালেও তা আর্ন্তজাকিত মহলকে এখনো জাগাতে সক্ষম হয়নি।
গত শুক্রবার রোহিঙ্গাদের খোঁজ খবর নিতে আমরা টেকনাফের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হই। ৩দিন টেকনাফ,উখিয়া ও ককসবাজার জেলা সদরের বিভিন্ন স্পটঘুরে আমরা যে সব তথ্য পেয়েছি-তা লেখার ভাষা, বর্ণনার শক্তি সত্যিই হারিয়ে ফেলেছি।  রোহিঙ্গা মুসলিম ভাই বোনদের র্নিমমনির্যাতনের কথা শুনলে চোখের পানি ধরে রাখা কঠিন। স্বামী,ভাই,সন্তান হারা অন্তত ১০ টি পরিবারের সাথে কথা হয়েছে। লাখ থেকে ৬০ হাজার টাকা দিয়ে কয়েকটি পরিবার নাফনদী অতিক্রমকরে  পালিয়ে এসেছেন বাংলাদেশে। ১২ বছরের একটি মেয়ে সবহারিয়ে অন্য একটি কাফেলার সাথে নৌকা যোগে দালালের মাধ্যমে জীবন বাচিঁয়ে লেদা নিবন্ধিত শরনার্থী ক্যাম্পে্আশ্রয় নিয়েছে। অনিবন্ধিত বিভিন্ন ক্যাম্পে এবং বাংলাদেশের বর্ডার গার্ডের বিভিন্ন ক্যাম্পেও এমন অনেক নারী আটক রয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।
হাজেরা বেগম ৬০ সিলেট রিপোর্টকে জানান, স্বামী-সন্তানকে হারিয়ে আমি যখন অচেতন তখনই জামাতার আশ্রয়ে কোন রকম প্রাণে রক্ষা পেয়ে এখানে আসলাম।  অভিন্ন ভাষায় একাদিক রোহিঙ্ড় মুসলিম পরিবার জানান, ‘মুসলমান হওয়াটাই আমাদের অপরাধ’। অন্যআরেক মহিলা জানান,
মিয়ানমারের সেনারা বাড়ি বাড়ি আগুন দিয়ে গ্রামবাসীকে একত্রিত হতে বাধ্য করলো। এ সময় দু’চারজন প্রতিবেশী মাঠের ভিতর দিয়ে পালানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু সেনারা তাদের গুলি করে। ভয়ে অন্য সবাই পালানো বন্ধ করে দেয়। রোহিঙ্গাদের ওপর চালানো মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নৃশংসতার এমনই বর্ণনা দিচ্ছিলেন ২০ বছর বয়সী রোহিঙ্গা নারী মোহসেনা বেগম। তিনি যখন এ বর্ণনা দিচ্ছিলেন বার বার তার কণ্ঠ কেঁপে ওঠে। তিনি কেঁদে ফেলেন। তার বাড়ি মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে ছোট্ট গ্রাম কাইরা ফারা’য়। সেই গ্রামের বর্ণনা দিচ্ছিলেন তিনি। তার এ বর্ণনা তুলে ধরেছে বার্তা সংস্থা এপি। মোহসেনা বেগম বলেন, সেনারা আমাদেরকে ঘর থেকে বের করে ফেলে। নারী ও পুরুষদের আলাদা লাইনে দাঁড় করায়। দু’হাত পিছন দিকে ঘুরিয়ে মাথার পিছনে নিয়ে রাখতে নির্দেশ দেয়। এভাবে তারা প্রায় ৫০ জনকে এক জায়গায় জড়ো করে। এক পর্যায়ে সেনাবাহিনীর সদস্য ও স্থানীয়দের একটি গ্রুপ গ্রামের ৪ নেতাকে আলাদা করে। তারপর তাদের গলা কেটে হত্যা করে।
এপির রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে, বৌদ্ধ সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলিমরা দীর্ঘ দিন ধরে নির্যাতনের শিকার। তারা নাগরিকত্ব বঞ্চিত। অক্টোবরে বাংলাদেশ সীমান্তের কাছে দেশটির একটি সীমান্ত চৌকিতে হামলা হয়। তাতে ৯ সীমান্ত প্রহরী নিহত হন। এরপরই সর্বশেষ এই নৃশংসতা নেমে এসেছে রোহিঙ্গাদের ওপর। কারা ওই হামলা চালিয়েছিল তাদেরকে চিহ্নিত করা যায় নি। তাদের উদ্দেশ্যই বা কি তাও অস্পষ্ট। কিন্তু এমন অবস্থায় পাল্টা হিসেবে সরকার রোহিঙ্গাদের ওপর শুরু করেছে মারাত্মক জোরালো অভিযান। রাখাইন রাজ্যে বসবাসকারীদের বেশির ভাগই রোহিঙ্গা মুসলিম। এ এলাকাটি বাংলাদেশ সীমান্ত লাগোয়া। এ অভিযানে পদাতিক বাহিনীকে সমর্থন দিতে আকাশে হেলিকপ্টার ব্যবহার করা হয়। তা থেকে গুলি করা হয়। রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে এই নৃশংসতার বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক সময়ে মানবাধিকার বিষয়ক সংগঠন ও ওই নৃশংসতা থেকে বেঁচে যাওয়া মানুষগুলো ঘটনার বর্ণনা দিচ্ছেন। তারা আন্তর্জাতিক মহলের কাছে সাহায্য চাইছেন। কিন্তু মিয়ানমার সরকার অব্যাহতভাবে একই কাহিনী বলে যাচ্ছে। তারা বলছে মোহসেনা বেগমের মতো যেসব কাহিনী বলা হচ্ছে তা অতিরঞ্জিত। এই সহিংসতা জিইয়ে রাখার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় শান্তিতে নোবেল পুরস্কার বিজয়ী ও মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সুচিকে দায়ী করছে। সিঙ্গাপুরের চ্যানেল নিউজ এশিয়াকে তিনি সম্প্রতি একটি সাক্ষাতকার দিয়েছেন। সেখানে সুচি বলেছেন, পুলিশ আউটপোস্টে হামলা হয়েছে। সে বিষয়টি এড়িয়ে নেতিবাচক দিকটির দিকে বেশি মনোযোগ দেয়া হচ্ছে। এতে কোনো লাভ হবে না। উল্লেখ্য, কয়েক দশকের সামরিক শাসনের পর গত মার্চে মিয়ানমারের ক্ষমতায় এসেছে সুচির দল। কিন্তু তার দেশে ১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গার ওপর যে নৃশংসতা চলছে তা বন্ধ করতে তিনি কঠোর কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছেন না বলে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে। রোহিঙ্গাদের অনেকে কয়েক প্রজন্ম ধরে রাখাইন রাজ্যে বসবাস করছেন। তারপরও তাদেরকে দেখা হয় বাংলাদেশী হিসেবে। বলা হয় তারা অবৈধ অভিবাসী। অং সান সুচি ওই সাক্ষাতকারে বলেছিলেন, ঘটনা অতিরঞ্জিত না করে এসব জটিল পরিস্থিতির দিকে বেশি মনোযোগ দেয়া উচিত। বাস্তবে যা ঘটছে বা ঘটেছে তার চেয়ে বেশি খারাপভাবে দেখানো হচ্ছে। যদি এই জটিল বিষয়টি স্বীকার করে নেয়া হয় তাহলে তাতে উপকার হবে। কিন্তু মোহসেনা বেগম বলেন, তার গ্রাম কাইরা ফারা’তে যা ঘটেছে তা বাড়িয়ে বলার কোনো দরকার নেই। তিনি আরও বলেছেন, গ্রামের চার নেতাকে হত্যা করার পর গ্রামজুড়ে ভয়াবহ বিশৃংখল পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। মোহসেনা বেগমের স্বামী অশিক্ষিত। দরিদ্র শ্রমিক। তাকে প্রহার করা হয়েছে। তারপর তার গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে। হত্যা করা হয়েছে গ্রামের আরও অজ্ঞাত সংখ্যক মানুষকে। তারপর ওই মৃতদেহগুলো একটি ট্রাকে করে নিয়ে গেছে সেনাবাহিনী। মোহসেনা বেগম বলেন, হামলাকারীরা তার কাছ থেকে তার ছোট ছেলেকে কেড়ে নেয়। এরপর তাকে ধর্ষণ করে। শেষ পর্যন্ত সেনাবাহিনী যখন তার দিক থেকে মনোযোগ সরিয়ে নেয় তখন তিনি ছেলেকে বুকে জড়িয়ে ধরে দৌড়াতে থাকেন পাশের পাহাড়ের দিকে। সেখানে দু’দিন পালিয়ে ছিলেন। তার ভাই তাকে প্রায় ৩৮ ডলারের মতো অর্থ দিয়েছিলেন। সেই অর্থ দিয়ে তিনি যাতে পাচারকারীদের দাবি মেটাতে পারেন, তিনি ও তার ছেলে পাড়ি দিতে পারেন বাংলাদেশে। মোহসেনা বেগম এপিকে বলেছেন, বাংলাদেশ বর্ডার গার্ডরা তাকে থামিয়ে দিলে তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন। মোহসেনা বেগমের ভাষায়, আমি তাদেরকে বলি যে, আমাকে রক্ষা করার মতো কেউ নেই মিয়ানমারে। আমার শিশুটির দিকে তাকান! আমি যদি মিয়ানমারে ফিরে যাই তাহলে সে মারা যাবে! এরপরই আমি বাংলাদেশে প্রবেশের সুযোগ পাই।
সহিংসতা শুরুর পর রাখাইনের বেশির ভাগই বাইরের মানুষ, বিশেষ করে সাংবাদিকদের নজর থেকে বাইরে রাখা হয়েছে। তবে জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনানকে রাখাইন পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের অনুমতি দেয়া হয়েছে। আজ মঙ্গলবার মিয়ানমারের রাজধানী ইয়াঙ্গুনে তার সংবাদ সম্মেলন করার কথা রয়েছে। কিন্তু যে নাফ নদী বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে সীমানা ভাগ করেছে সেকানে এমন মানুষ পাওয়া কঠিন নয়, যারা রাখাইনের এসব নৃশংসতার বিষয়ে মুখ খুলবেন। এপির রিপোর্টে বলা হয়েছে, গত মাসে প্রায় ১৫ হাজার রোহিঙ্গা পৌঁছেছেন বাংলাদেশে। পুলিশ ও গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের মতে তাদেরকে এখানে নিয়ে আসছে পাচারকারীরা।  ১৯৭০ এর দশক থেকে বাংলাদেশে মিয়ানমারের রোহিঙ্গারা এসে বসবাস করা শুরু করেন। এমন রোহিঙ্গার সংখ্যা প্রায় ৫ লাখ। তাদের কোনো কাগজপত্র নেই। তার সঙ্গে যোগ হয়েছে ওই ১৫ হাজার। ৩৩ হাজার নিবন্ধিত রোহিঙ্গা শরণার্থী বাস করছেন কক্সবাজার জেলায়। ওদিকে জাতিসংঘ বলছে, সাম্প্রতিক সহিংসতায় মিয়ানমার থেকে বাড়িঘর ছেড়েছে প্রায় ৩০ হাজার রোহিঙ্গা মুসলিম। স্যাটেলাইটে পাওয়া ছবি বিশ্লেষণ করে মানবাধিকার বিষয়ক গ্রুপ হিউম্যান রাইটস ওয়াচ বলছে, নভেম্বরে রোহিঙ্গাদের গ্রামের ১২৫০টি অবকাঠামো ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে। ১১ই নভেম্বর আরবির শিক্ষক ওসমান গণির গ্রাম গোউজো বিল-এ হামলা হয়। এ সময় তিনি পালিয়ে আসেন। নাফ নদীর পাড়ে দাঁড়িয়ে তিনি এপিকে বলেন, হামলাকারীরা এসেই নির্দয়ের মতো হত্যাকা- শুরু করে। তারা আমাদের বাড়িঘর পুড়িয়ে দিতে থাকে। সেখানে কেউই নিরাপদ নেই। গ্রামের কাছেই একটি স্থানে প্রায় এক সপ্তাহ তিনি পরিবার নিয়ে পালিয়ে ছিলেন। এক পর্যায়ে যখন অভিযান আরও জোরালো হয়, সেনাবাহিনী পুরুষদের টার্গেট করতে থাকে তখন নিজের পরিবার মিয়ানমারে রেখেই পালিয়ে আসতে বাধ্য হই। ওসমান গণি বলেন, তাদেরকে ফেলে চলে আসা ছাড়া আমার সামনে আর কোনো বিকল্প ছিল না। আমি নদীর পাড়ে চলে আসি এবং সাঁতরাতে শুরু করি। এর কয়েক দিন পরে আমার পরিবার বাংলাদেশে এসে আমার সঙ্গে একত্রিত হয়।
(অসমাপ্ত)

একটি ভিডিও সিলেট রিপোর্টের অনুসন্ধানে…

এই সংবাদটি 1,067 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com