ভূমিকম্প নিয়ে আতঙ্ক, সিলেটে মানা হচ্ছে না বিল্ডিং কোড

প্রকাশিত: ৫:০৩ অপরাহ্ণ, জুন ১০, ২০২১

ভূমিকম্প নিয়ে আতঙ্ক, সিলেটে মানা হচ্ছে না বিল্ডিং কোড

 

সিলেট রিপোর্ট ডেস্ক:

ভূমিকম্প ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চল সিলেট। ফলে এখানে ভূমিকম্প নিয়ে আতঙ্ক রয়েছে। গত ৯ দিনের ব্যবধানে ৮ দফা ভূমিকম্প এই আতঙ্ক আরও বাড়িয়ে তুলেছে। তবে আতঙ্ক থাকলেও নেই সচেতনতা। সিলেটে কোনো নিয়ম নীতির না মেনেই গড়ে উঠছে একের পর এক বহুতল ভবন। মানা হচ্ছে না বিল্ডিং কোড। জলাশয় ভরাট- টিলা কাটা চলছে অহরহ। ফলে এই অঞ্চলে বড় ভূমিকম্প হলে ক্ষয়ক্ষতির ঝুঁকি বেড়েই চলছে।

সাম্প্রতিক কয়েকটি ছোট ছোট ভূমিকম্পের কারণে বড় ধরণের ভূমিকম্পের শঙ্কার কথাও প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) তিন বছর আগের এক জরিপে দেখা গেছে, সিলেটে এক লাখ বহুতল ভবন রয়েছে। এসব ভবনের ৭৫ শতাংশ ছয়তলা বা তার চেয়ে বেশি। তবে সিলেট সিটি করপোরেশনের হিসাবে হোল্ডিংই আছে ৭০ হাজার।

বিশেষজ্ঞদের মতে, সিলেটে রিখটার স্কেলে ৭ মাত্রার ভূমিকম্প হলে এ অঞ্চলের প্রায় ৮০ ভাগ স্থাপনা ধসে পড়তে পারে। এতে প্রাণ হারাবে প্রায় ১২ লাখ মানুষ এবং ক্ষতি হবে ১৭ হাজার কোটি টাকার।

সোমবার সন্ধ্যা ছয়টা দিকে সিলেটে দুই দফা ভূমিকম্প অনুভূত হয়। এই ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল সিলেটের দক্ষিণ সুরমা এলাকায়। এর আগে গত ২৯ মে সকাল ১০টা থেকে বেলা ২টার মধ্যে অন্তত পাঁচটি ভূকম্পে কেপে ওঠে সিলেট। পরদিন ভোরে আবার ভূমিকম্প হয়। যার সবগুলোর কেন্দ্রস্থল জৈন্তাপুর এলাকায়।

স্বল্প সময়ের মধ্যে কয়েক দফা ছোট ভূমিকম্প হওয়ায় সিলেটজুড়ে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। আতঙ্ক থাকলেও সিলেটে নেই ভূমিকম্পের ক্ষয়ক্ষতি কমানো ও উদ্ধারকাজ চালানোর মতো কোনো প্রস্তুতি ও সচেতনতা।

সক্রিয় ভূকম্পন এলাকা

ফরাসি ইঞ্জিনিয়ারিং কনসোর্টিয়াম ১৯৯৮-এর জরিপ অনুযায়ী ‘সিলেট অঞ্চল’ সক্রিয় ভূকম্পন এলাকা হিসাবে চিহ্নিত হয়েছে।
৭ মাত্রার ভূমিকম্পেই সিলেট হতে পারে ধ্বংসস্তূপ

১৮৩৩, ১৮৮৫, ১৮৯৭, ১৯০৫, ১৯৩০, ১৯৩৪, ১৯৪৭ ও ১৯৫০ সালের বড় ভূকম্পনের মধ্যে দুটিরই উৎপত্তিস্থল ছিল (এপি সেন্টার) সিলেটের জৈন্তার ভূগর্ভে। একই উৎপত্তিস্থল থেকে ঘটে যাওয়া ১৮৯৭ সালের ভয়াবহ ভূমিকম্পে সিলেট অঞ্চল সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সেটি ভূকম্পনের ইতিহাসে ‘দ্য গ্রেট আসাম আর্থকোয়েক’ নামে পরিচিত। রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৮ মাত্রার বেশি।

এই ভূমিকম্পের কারণে ব্রহ্মপুত্র নদের গতিপথ পরিবর্তনসহ সিলেট ও অসম অঞ্চলের উল্লেখযোগ্য ভৌগোলিক পরিবর্তন ঘটে।

১৯৫০ সালে অসমে বড় ধরনের ভূমিকম্পের কারণে সিলেট অঞ্চলেও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়ছিল। এই ভূমিকম্পটি ‘আসাম-তিব্বত আর্থকোয়েক’ নামে ইতিহাসে পরিচিত রয়েছে। রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৮.৬।

৭ মাত্রার ভূমিকম্প হলেই বিপুল ক্ষতির শঙ্কা

বছর দশেক আগে বাংলাদেশ, জাপান ও শ্রীলঙ্কার একটি বিশেষজ্ঞ দল সিলেট নগরীর ছয় হাজার ভবনের ওপর জরিপ চালিয়ে একটি গবেষণা প্রতিবেদন তৈরি করে। এই রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়, সিলেটের বেশির ভাগ বাণিজ্যিক ভবনই অপরিকল্পিত এবং মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ। রিখটার স্কেলে ৭ বা তার চেয়ে বেশি মাত্রার ভূমিকম্প হলে সেগুলো ধসে পড়বে। পাল্টে যেতে পারে সিলেটের মানচিত্রও। ক্ষতিগ্রস্ত হবে সিলেটের গ্যাস এবং তেলক্ষেত্রগুলো। কেবল গ্যাস ফিল্ডেই ক্ষতি হবে ৯ হাজার কোটি টাকার। পরিবেশ বিপর্যয়ও নেমে আসবে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অপরিকল্পিত বাসাবাড়ি নির্মাণের কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতির সম্মুখীন হবে নগরীর শাহজালাল উপশহর, আখালিয়া, বাগবাড়ি, মদিনা মাকের্ট এলাকা।

গবেষণার তথ্য অনুযায়ী, সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালসহ বহু বেসরকারি হাসপাতাল রয়েছে, যেগুলো ভূমিকম্পের সময় ধসে পড়ার ঝুঁকিতে থাকবে। তাতে প্রাণহানিও বাড়বে। কারণ, তখন ভূমিকম্পে আহত ব্যক্তিদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা যাবে না।

শ্রীলঙ্কার অধ্যাপক আরঙ্গা পোলা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. হুমায়ূন আখতার, অধ্যাপক ড. আপ্তাব আহমেদ, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. জহির বিন আলম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাকসুদ কামাল, ড. জাহাঙ্গীর আলমসহ জাপান থেকে আসা আরও দুজন বিশেষজ্ঞ এই গবেষণা প্রতিবেদনটি তৈরি করেন।

গবেষক দলের সদস্য ড. জহির বিন আলম বলেন, ‘ভূমিকম্পের দিক থেকে সিলেট মারাত্মক ঝুঁকির মধ্যে থাকলেও তাৎক্ষণিক ক্ষতি-হ্রাস ও উদ্ধারকাজ চালানোর জন্য সিলেটে আধুনিক কোনো যন্ত্রপাতি নেই। ভূমিকম্পের ঝুঁকি মাথায় রেখে সংশ্লিষ্টদের এখনই প্রস্তুতি নেয়া উচিত।’

নেই প্রস্তুতি

সিলেটে নগরায়ণের ক্ষেত্রে ভূমিকম্প-ঝুঁকি মাথায় রেখে একটি মহাপরিকল্পনা (মাস্টারপ্ল্যান) প্রণয়নের প্রয়োজনীয়তার কথা দীর্ঘদিন ধরে বলে আসছেন বিশেষজ্ঞরা। তবে সেটি কার্যকর হয়নি। ফলে বহুতল ভবন নির্মাণ, নগর সম্প্রসারণ হচ্ছে অনেকটা খেয়ালখুশিমতো। হাওর, বিল, খাল-নালা, জলাভূমি ভরাট করে, পাহাড়-টিলা কেটে হাউজিং প্রকল্প গড়ে তোলা হচ্ছে। সেখানে ঝুঁকিপূর্ণভাবে বহুতল ভবন নির্মিত হচ্ছে। এতে ভূমিকম্পপ্রবণ সিলেটে ক্ষতির আশঙ্কা আরও বাড়ছে।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. জহির বিন আলম বলেন, যে টেকনোটিক প্লেটে সিলেট অঞ্চল অবস্থিত, তা ক্রমেই উত্তর-পূর্ব দিকে সরে যাচ্ছে। প্রতি ১০০ বছরে তা এক মিটার সরছে। এ কারণে সিলেট অঞ্চলের ভূমিকম্পের ঝুঁকি দিনদিন আরও বাড়ছে।

এরপরও এর জন্য কর্তৃপক্ষের কোনো প্রস্তুতি দৃশ্যমান নয়। সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগে সভা-সেমিনার, কর্মশালা, ভূমিকম্পের মহড়া প্রদর্শনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ।

সিটি করপোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী নুর আজিজুর রহমান বলেন, ‘২০১৬ সালে সবশেষ সিলেটের ঝুঁকিপূর্ণ ভবনগুলোর ব্যাপারে জরিপ চালানো হয়েছিল। এতে ৩২টি ভবন ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। সেগুলো তখন ভেঙে ফেলার উদ্যোগও নেয়া হয়। তবে বিভিন্ন জটিলতায় সে কাজ এগোয়নি।’

সিটি করপোরেশনের অনুমোদন ছাড়াই নগরীতে গড়ে উঠছে অনেক বহুতল ভবন। এতে বাড়ছে ভূমিকম্পে ক্ষতির ঝুঁকি।

আজিজুর জানান, ২৯ মের ভূমিকম্পের পর ওই ভবনগুলোর মধ্যে সাতটি বাণিজ্যিক ভবন বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘সিলেটে প্রায় ৭০ হাজার হোল্ডিং আছে। এর মধ্যে সাততলার ওপরে ভবন আছে অন্তত চার শটি। তবে সিটি করপোরেশনের হিসাবের বাইরে আরও অনেক বহুতল ভবন আছে।

‘নগরের বহুতল ভবনগুলো ভূমিকম্পসহনীয় কি না, তা পরীক্ষা করে দেখতে বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দিয়েছেন। আমরা দ্রুতই সে উদ্যোগ নেব। সব ঝুঁকিপূর্ণ ভবন আমাদের পক্ষে ভেঙে ফেলা সম্ভব নয়। তবে যে ভবনগুলো ভূমিকম্পসহনীয় নয় সেগুলোর সামনে সতর্কতামূলক সাইনবোর্ড টানিয়ে দেব।’

বিশেষজ্ঞদের মতে, সিলেটে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন নগরীর সব ভবনকে ভূমিকম্প প্রতিরোধক করা। এ জন্য নতুন ভবন নির্মাণের আগে মাটি পরীক্ষা করতে হবে। মাটির ধরনের ওপর নির্ভর করে ভবনকে একতলা বা বহুতল করতে হবে।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জহির বলেন, সিলেটের ৭৪ দশমিক ৪ শতাংশ ভবনই ভূমিকম্পের কথা চিন্তা না করে তৈরি করা হয়েছে। এগুলো ভূমিকম্প প্রতিরোধকভাবে নির্মাণ করা হয়নি। ফলে ৭ মাত্রার ভূমকম্প হলেই ৮০ শতাংশ বহুতল ভবন ভেঙে পড়তে পারে।

তিনি বলেন, ‘ঝুঁকিপূর্ণ ভবনগুলো ভেঙে না ফেলে রেকটিফাইটিং করা যেতে পারে। সাপোর্টিং পাওয়ার দিয়ে ভূমিকম্প প্রতিরোধক হিসেবে ভবনগুলোকে গড়ে তোলা যেতে পারে। এই মূহূর্তে সবার আগে প্রয়োজন ভূমিকম্প সেন্টার নির্মাণ। সিলেটে শিগগিরই একটি ভূমিকম্প সেন্টার নির্মাণ করতে হবে।’

তিনি আরও জানান, জলাশয় ভরাট করে বহুতল ভবন নির্মাণ করা যাবে না। বিল্ডিং কোড লঙ্ঘন করে কোনো অবস্থাতেই ভবন নির্মাণ করা যাবে না।

ইসলামের দৃষ্টিভঙ্গি :

ভূমিকম্প আল্লাহর আযাব এবং আল্লাহ ছাড়া কেউ আমাদেরকে বাঁচাতে পারবে না। অতএব আমাদেরকে আল্লাহর কাছে আশ্রয় চাওয়া উচিৎ।

সিলেটের বাসিন্দারা লাগাতার ভূমিকম্পে আতঙ্কিত। অনেকে প্রশ্ন করছেন, এসব ছোট ছোট ভূমিকম্প কি বড় ভূমিকম্পের পূর্বলক্ষণ? ভূমিকম্পে আমাদের করণীয় কী? প্রশ্নগুলোর জবাব জানার জন্য আমি দুটি সূত্রের দ্বারস্থ হয়েছিলাম— একটি বিজ্ঞান, যেটি ভূমিকম্পের জাগতিক কারণ ও পদ্ধতি ব্যাখ্যা করা করবে। আরেকটি কুরআন ও সুন্নাহ, যেখানে এর প্রকৃত কারণ ও করণীয় খুঁজে পাব। এ দুটি সূত্র থেকে আপনাদের জন্য কিছু প্রয়োজনীয় তথ্য পেশ করছি।

ভূমিকম্প কীভাবে হয়, সেটি আমরা জানি। ১৯১২ সালে জার্মান বিজ্ঞানী আলফ্রেড ওয়েগনার আবিষ্কার করেছেন, পৃথিবীর ভূপৃষ্ঠ অনেকগুলো খণ্ডে বিভক্ত। এই খণ্ডগুলোকে টেকটনিক প্লেইট বলা হয়। এগুলো একে অপরের পাশাপাশি, কিন্তু স্থির নয়। তাই কখনো এদের মাঝে সংঘর্ষ হয়। বিপুল পরিমাণে শক্তি বহন করা দুটি টেকটনিক প্লেইট যখন একে অপরের সাথে ধাক্কা খায় তখন তলদেশে জমাট শক্তি বাইরে নির্গত হয়, যা পৃথিবীর উপরিভাগকে কাঁপিয়ে দেয়। তখন পৃথিবীতে ভূমিকম্প অনুভূত হয়।

স্বাভাবিকভাবে প্রতিটি প্রাকৃতিক দুর্যোগের জাগতিক কারণ ও পদ্ধতি রয়েছে। তবে সেই ‘কারণ’ তখনই কার্যকরী হয়, যখন আল্লাহ এগুলোকে নির্দেশ দেন। ভূমিকম্পও এর ব্যতিক্রম নয়। আল্লাহ বলেছেনঃ

“যখন যমিন প্রচণ্ডভাবে প্রকম্পিত করা হবে। এবং পৃথিবী তার ভূগর্ভস্থ বোঝা বাইরে নিক্ষেপ করবে। মানুষ বলবে, এর কী হয়েছে? সেদিন যমিন তার বৃত্তান্ত বর্ণনা করবে। কারণ তোমার রব তাকে আদেশ করবেন।” [সুরা যিলযাল : ১-৫]

ভূমিকম্পসহ যাবতীয় প্রাকৃতিক বিষয়কে আল্লাহ তাঁর ‘আয়াত’ বা নিদর্শন হিসেবে তৈরি করেছেন। আল্লাহ বলেছেনঃ

“দৃঢ় বিশ্বাসীদের জন্য যমিনে অনেক নিদর্শন রয়েছে।” [সুরা যারিয়াত : ২০]

আল্লাহ এসব ‘আয়াত’ বা নিদর্শন প্রকাশ করার মাধ্যমে আমাদেরকে ভীতি প্রদর্শন করেন, যেন আমরা আমাদের রবকে ভুলে না যাই। আল্লাহ বলেছেনঃ

“আমি কেবল ভীতি প্রদর্শনের জন্যই (আযাবের) নিদর্শনসমূহ পাঠাই।” [সুরা ইসরা : ৫৯]

আবার কখনো ভূমিকম্প আমাদের জন্য আযাব হিসেবেও সমাগত হয়। আবু মূসা রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ ﷺ বলেছেন:

“আমার এই উম্মাত দয়াপ্রাপ্ত উম্মাত। এই উম্মাতকে আখিরাতে কোনো আযাব দেয়া হবে না। তবে দুনিয়াতে এদের শাস্তি হলো ফিতনা, ভূমিকম্প ও যুদ্ধবিগ্রহ।” [সুনান আবি দাউদ; কিতাবুল ফিতান ওয়াল-মালাহীম]

এবার প্রশ্ন আসে, ছোট ছোট ভূমিকম্প কি বড় ভূমিকম্পের পূর্বলক্ষণ? আমেরিকার Seismology Lab (জানুয়ারি ২০১৯) জানিয়েছে, ভূমিকম্পের ব্যাপারে নিশ্চিতভাবে কিছু বলা সম্ভব নয়। কখনো বড় ভূমিকম্পের পূর্বে ছোট ছোট ভূমিকম্প হয়, কখনো হয় না। আবার কখনো পরপর অনেকগুলো ছোট ভূমিকম্প হলেও বড় ভূমিকম্প হয় না। অপরদিকে আমেরিকার ভূবিজ্ঞান ও মহাকাশ গবেষণা সংস্থা AGU এর একটি গবেষণাপত্রে (জুলাই ২০১৯) বলা হয়েছে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ছোট ছোট ভূমিকম্প বড় ভূমিকম্পের পূর্বলক্ষণ। মোটকথা, আমরা নিশ্চিতভাবে কিছু জানি না। আর জেনেও যে কিছু করে ফেলতে পারব, এমনটিও নয়। ভূবিজ্ঞানীদের মতে, আমাদের সিলেট অঞ্চল অনেক বছর ধরে বড় ভূমিকম্পের ঝুঁকিতে রয়েছে। অতীতেও এ অঞ্চলে তিনটি শক্তিশালী ভূমিকম্প (১৮৬৯, ১৯১৮, ১৯২৩) হয়েছিল। হয়তো কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করার মাধ্যমে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কমবেশি হতে পারে। কিন্তু ভূমিকম্প এমন এক দুর্যোগ, যা পূর্বানুমান করা যায় না, যাকে থামানো যায় না, যাকে মোকাবিলা করার শক্তি মানুষের নেই। ভূমিকম্পের সময় করণীয় বলে যা কিছু শেখানো হয়, ভূমিকম্পের প্রথম ধাক্কায় মানুষ তা ভুলে যায়। পায়ের তলার মাটি যখন দুলছে, তখন কার মগজ বিজ্ঞান নিয়ে পড়ে থাকবে বলুন?

আরেকটি বিষয় ভুলে গেলে চলবে না যে, অধিক ভূমিকম্প কিয়ামাতের সুস্পষ্ট আলামত। আবু হুরায়রা রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ ﷺ বলেছেনঃ

“কিয়ামাত সংঘটিত হবে না, যতক্ষণ না (দ্বীনি) ইলম উঠিয়ে নেয়া হবে, অধিক পরিমাণে ভূমিকম্প হবে, সময় সংকোচিত (দ্রুত) হয়ে আসবে, ফিতনা প্রকাশিত হবে, হারাজ তথা যুদ্ধবিগ্রহ বৃদ্ধি পাবে। এমনকি তোমাদের সম্পদ এত বৃদ্ধি পাবে যে, তা উপচে পড়বে।” [সহীহ বুখারী; কিতাবুল ইস্তিসক্বা]

বর্তমান পৃথিবীর দিকে তাকিয়ে নিজেকে প্রশ্ন করুন, এই আলামতসমূহের মধ্যে একটিও কি প্রকাশিত হওয়ার বাকি আছে? জবাব হবে, না। অতএব আমাদেরকে কিয়ামাতের প্রলয়ঙ্করী ঝাঁকুনির জন্য প্রস্তুত হওয়া উচিৎ। আল্লাহ বলেছেনঃ

“হে মানবজাতি, তোমরা তোমাদের রবকে ভয় করো। নিশ্চয়ই কিয়ামাতের প্রকম্পন এক ভয়ানক ব্যাপার।” [সুরা হাজ্জ : ১]

শেষ প্রশ্নটি হচ্ছে, ভূমিকম্প হলে আমাদের করণীয় কী? প্রথমত, সম্ভব হলে ঘর ছেড়ে খোলা জায়গায় চলে যাওয়া, আর না হলে শক্ত কিছুর নিচে নিজেকে সুরক্ষা করা। ভূমিকম্পের সময় বিদ্যুৎ ও গ্যাসের লাইন বন্ধ করে দেয়া। তবে আসল জবাব হচ্ছে, রবের দিকে মুখ ফেরানো। ইবনে আব্বাস রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ ﷺ বলেছেনঃ

“যখন তোমরা আল্লাহর আয়াত বা নিদর্শন দেখবে, তখন সাজদায় পতিত হবে।” [সুনান আবি দাউদ; কিতাবুল ইস্তিসক্বা]

আবু মূসা রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ ﷺ বলেছেনঃ

“যখন এরকম কোনো (আয়াত বা নিদর্শন) দেখবে, তখন (ভীত অবস্থায়) আল্লাহর যিকর, দুআ এবং ইস্তিগফার করার দিকে ধাবিত হবে।” [মুত্তাফাকুন আলাইহি]

 

এই সংবাদটি 26 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com