এদারার নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগের প্রতিকার চেয়ে আবেদন

প্রকাশিত: ৮:১৬ অপরাহ্ণ, জুন ১৬, ২০২১

এদারার নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগের প্রতিকার চেয়ে আবেদন

 

সিলেট রির্পোট:
দেশের প্রাচীনতম কওমি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড ’আযাদ দ্বীনী এদারায়ে তালিম বাংলাদেশের সদ্যসমাপ্ত (কমিটি গঠন) সভাপতি নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। এতো দিন মৌখিক শুনাগেলেও এখন বোর্ডের মহাসচিব বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছেন র্বোড সংশ্লিষ্ট কয়েকটি মাদরাসার মুহতামিমগণ।
জানাগেছে, জামিয়া কাসিমুল উলুম দরগাহে হযরত শাহজালাল (র) এর মুহতামিম মাওলানা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ী, জামিয়া আব্বাসিয়া কৌড়িয়ার মুহতামিম মাওলানা হাফিজ মুহসিন আহমদ এবং জামিয়া মাহমুদিয়া সোবহানীঘাটের মুহতামিম মাওলানা আহমদ কবির যৌথ স্বাক্ষরিত এক স্মারক লিপি দিয়েছেন র্বোডের নাযিমে উমুমী (মহাসচিব) মাওলানা শায়খ আব্দুল বছীরের নিকট। লিখিত অভিযোগের বিষয়টি স্বীকার করে বোর্ড মহাসচিব মাওলানা আব্দুল বছীর বুধবার সিলেট রিপোর্টকে বলেন, অভিযোগপত্র পেয়েছি। ২/১ দিনের মধ্যেই আমরা বিষয়টি নিয়ে আলোচনায় বসবো’।
অনুসন্ধানে জানাগেছে, এই প্রথম আযাদ দ্বীনী এদারায়ে তালিম বাংলাদেশের দায়িত্বশীল নির্বাচিত করা হল ভোটের মাধ্যমে। এর আগে মাওলানা আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়া, মাওলানা ফখরুদ্দীন আহমদ গলমুকাপনী, মাওলানা হোসাইন আহমদ বারকুটি,মাওলানা আব্দুল হান্নান শায়খে পাগলা (র) সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন পরার্মশের আলোকে। অতীত রেকর্ড ভঙ্গকরে
গত ৪ মার্চ ২০২১ অনুষ্ঠিত নির্বাচনে মাওলানা জিয়া উদ্দিন ৩৩১টি ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। একই পদে জামেয়া কাসিমুল উলূম দরগাহে হযরত শাহজালাল রাহ. এর মুহতামিম মাওলানা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ী পেয়েছেন ২৬৭ ভোট।
বোর্ড সূত্রে জানা যায়, ৮৬৩টি বালক/বালিকা মাদরাসার মধ্যে ৭৪২টি প্রতিষ্ঠানের মুহতামিম তথা পরিচালকদের ছিল ভোটাধিকার। তবে গ্রহণকৃত ভোটের সংখ্যা ৬০৮। সকাল থেকেই ভোটকেন্দ্র এদারা কমপ্লেক্সে পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা সতর্ক অবস্থানে ছিলেন। কেন্দ্রের বাইরে ছিলেন আলোচিত দুই প্রার্থী সমর্থকরা। ফলাফল ঘোষণার পূর্বে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পছন্দের প্রার্থীনিয়ে বাড়াবাড়িমূলক লিখনীর কারণে সংঘাতের কিছুটা শঙ্কা থাকলেও অবশেষে অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই শেষ হয় ভোটগ্রহণ। নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন মাওলানা এনামুল হক, মাওলানা ইউসুফ আহমদ খাদিমানী, মাওলান এনামুল হক, মাওলানা সৈয়দ ফখরুল ইসলাম, মাওলানা তৈয়্যিবুর রহমান চৌধুরী, মাওলানা আহমদ কবির প্রমুখ।
উল্লেখ্য, ১৯৪১ ইংরেজিতে কুতবুল আলম শায়খুল ইসলাম সাইয়্যিদ হোসাইন আহমদ মাদানী (র)এর নির্দেশে এবং ডা. মুর্তাজা চৌধুরীর অক্লান্ত পরিশ্রমে তৎকালীন আসাম-সিলেট অন্চলের ৯টি মাদরাসার নিয়ে যাত্রা শুরু করে আযাদ দ্বীনী এদারায়ে তালিম শিক্ষাবোর্ড।

এখানে মহাসচিব বরাবরে প্্েররিত অভিযোগপত্রটি পাঠকদের জন্য হুবহ তুলে ধরা হলো:
যথাবিহীত সম্মান পূর্বক নিবেদন যে, বিগত ১১ই এপ্রিল এদারার ২০২১-২০২৩ ইংরেজী সেশনের শুরার প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ঐ বৈঠকে এমন কিছু ব্যক্তিদেরকে পদায়ন করার প্রস্তাব ও পরবর্তীতে বল পূর্বক প্রস্তাব বাস্তবায়নের চেষ্টা করা হলে আমরা যৌক্তিকভাবে জোর আপত্তি জানাই, কিন্তু আমাদের আপত্তির বিষয়ে আলোচনাক্রমে কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ না করার কারণে বৈঠক থেকে আমরা ওয়াক আউট করে চলে আসি। নি¤œ স্বাক্ষরকারীগণ মনে করি যে, বিগত নির্বাচন পূর্ব ও পরবর্তী সময়ে শুরা গঠন ও অন্যান্য কার্যক্রমে এদারার নিজস্ব সংবিধানের যেভাবে লঙ্ঘন ও অবমাননা করা হয়েছে তার কারণ আমাদের বোধগম্য হয়নি, তাই আপনার মাধ্যমে সংবিধান লঙ্ঘিত হওয়া সংক্রান্ত আপত্তি সমূহকে উত্থাপন করছি। আশা করি নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে সংবিধান মোতাবিক বিষয়গুলির সুষ্ঠু সমাধান করবেন বলে আমাদের একান্ত বিশ্বাস।
আপত্তি নং ১. (মাও. ইউসুফ খাদিমানী জকিগঞ্জি):
এদারার সংবিধানের ১২ ও ১৩ নং পৃষ্ঠায় বর্ণিত, ধারা নং-১৬ “মজলিস সমূহের সদস্যগণের যোগ্যতা” শিরোনামে:-
১. সাধারণ সদস্যের মধ্যে হইতে যারা আকাবীর ও আসলাফের চিন্তাধারার বিশ্বাসী, ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন, খোদাভীরু, এদারার নিয়মনীতির প্রতি অনুগত ও অন্য কোন জাতীয় বোর্ডে তার পরিচালনাধীন মাদরাসা ও তিনি অন্তর্ভূক্ত নহেন, এমন ব্যক্তিগণ-ই মজলিসে শুরার সদস্য হইবার যোগ্য বলিয়া বিবেচিত হইবেন।
২. মজলিসে আমেলা:- শুরা সদস্যের মধ্য হইতে যারা এদারার নীতি আদর্শের পূর্ণ অনুসারী, আমানতদার ও এদারার গোপনীয়তা রক্ষাকারী, শিক্ষার উন্নতি ও অগ্রগতি সর্ম্পকে চিন্তা ভাবনা রাখেন। তারাই মজলিসে আমেলার সদস্য হইবার যোগ্য বলিয়া বিবেচিত হইবেন।
উল্লেখ্য যে, সংবিধানের এই ধারা ও উপধারা মতে শুরা ও আমেলার সদস্যদের যোগ্যতায় যে সব গুণাবলি উল্লেখ করা হয়েছে তা কারো মধ্যে পাওয়া না গেলে অথবা তার বিপরীত পাওয়া গেলে তাকে কি শুরা আমেলা এমন কি দায়িত্বশীল নির্বাচন বা মনোনয়ন করা যাবে? সংবিধানের আলোকে বলা যায় যে, তাকে অবশ্যই শুরা আমেলা এবং দায়িত্বশীল করা যাবে না।
১১ই এপ্রিল ২০২১ ইংরেজী তারিখের শুরায় ‘জনাব মাও. ইউসূফ খাদিমানী, মুহতামিম রামধা মাদরাসা কে প্রথমে নাযিমে ইমতিহান, পরবর্তীতে নাইবে নাযিমে ইমতিহান মনোনীত করার প্রস্তাব করলে আমরা সাংবিধানিক ভাবে প্রচন্ড আপত্তি করি। যেমন:“আকাবীর ও আসলাফের চিন্তাধারায় বিশ্বাসী, খোদাভীরু, আমানতদার” এই তিনটি গুণ মাও. ইউসুফ খাদিমানী সাহেবের কাছে আছে বলে আমরা মেনে নিতে পারছি না। কারণ
১. কোন আসলাফ, আকাবীর-রা নিজেও কারো দস্তখত জাল করেননি এবং তাদের দস্তখতও কাউকে জাল করতে উদ্বুদ্ধ করেননি, অপরের দস্তখত যেভাবে জাল করা অপরাধ, ঠিক তদ্রুপ নিজ দস্তখত অন্যকে জাল করার প্রতি নির্দেশ দেয়া সমান অপরাধ বলে বিবেচিত হয় আর কোন খোদাভীরু ব্যক্তি নিজ দস্তখত অন্যজন করবে এমন অনৈতিক কাজের অনুমতি দেয়ার প্রশ্নই আসেনা। কারণ দস্তখত হলো মানুষের কোন বিষয়ের সমর্থন বা অসমর্থন এর বহি:প্রকাশ। মাও. ইউসুফ খাদিমানী নিজের স্বাক্ষর অন্য ব্যক্তিকে জাল করার নির্দেশ দিয়ে থাকেন এবং তার কাজকর্ম এভাবেই পরিচালনা করেন। যার উৎকৃষ্ট প্রমাণ সিলেট শহরের বাদাম-বাগিছা মাদরাসার অডিটের খাতা। (মাদরাসার মুহতামিমের নাম, মাও. আজিজুর রহমান, মোবাইল নম্বর: ০১৭১২-৪৯৬৬৮৬) কিছুদিন পূর্বে তিনি তার মাদরাসার শিক্ষক মাও. রুহুল আমীন জাক্কার সাহেব কে অত্র মাদরাসায় অডিট করার জন্য পাঠান, কিন্তু সে ব্যক্তি তো এদারার মনোনীত অডিটার নয়। তাই মাও.ইউসুফ খাদিমানী তাকে নির্দেশ দেন যে তিনি হিসাব-নিকাশ দেখে অডিট মন্তব্য লিপিবদ্ধ করে তার নাম অর্থাৎ মাও. ইউসুফ লিখে স্বাক্ষর যেন করে দেন এবং এদারার অডিটার নিযুক্তিয় সীল মহর লাগিয়ে দেয়ার জন্যও অনুমতি প্রদান করেন। যেহেতু তিনি খাদিমানী পরিচালিত মাদরাসার উস্তাদ তাই মুহতামিম সাহেবের নির্দেশ তিনি খুব ভালো করেই পালন করেছেন। (অডিট খাতা দেখলে তা পরিস্কার হয়ে যাবে)
২. অনুরূপ ভাবে মাও. ইউসুফ খাদিমানী সাহেব দীর্ঘদিন থেকে দাওরা মাদরাসার মুহতামিম হওয়ায় পদাধিকার বলে এদারার শুরার সদস্য, সে সুবাদে তিনি এদারার অভ্যন্তরীন অডিটারের বহুবার দায়িত্ব পালন করেছেন, অভ্যন্তরীন অডিটকাজ শেষ করে অডিটের মত গুরুত্বপূর্ন খাতা নিজ মাদরাসায় নিয়ে যাওয়া এবং ঐ মাও. রুহুল আমীন জাক্কার সাহেব কে দিয়ে বোর্ডের অনেক গোপন বিষয়ের হিসাব, মন্তব্য, সুপারিশগুলি লিখানো কি কোন আমানতদার মানুষের কাজ? যদি তিনি লিখা না জানেন তা হলে কেন তিনি বিভিন্ন মাদরাসা ও বোর্ডের অডিটের মত গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব গ্রহণ করে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। যে অডিট খাতা অডিটারগণ নাযিমে উমুমী কে শুরার বৈঠকে পঠিত হওয়ার আগে দেখান-না, সে জায়গায় এদারার অফিস থেকে খাতা বাহিরে নেওয়া ও অন্য ব্যক্তি দ্বারা লেখানোর মত গর্হিত কাজ কিভাবে সমর্থন করা যায়? এদারার হিসাব অডিটের মত গুরুত্বপূর্ণ খাতা অন্যের মাধ্যমে লিখানো ও প্রকাশ করা কি আমানতদারীর বিপরীত বিষয় নয়?? এবং সে ব্যক্তিকে কি আর আমানতদার হিসাবে বিবেচনা করা যায়? সাথে সাথে ইমতিহান বিভাগের মত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিভাগ যার মূল প্রাণ-ই হল গোপনীয়তা ও আমানতদারী, সে বিভাগের দায়িত্ব কিভাবে তাকে দেওয়া যায়??? তাহলে তো এদারারও অন্যান্য বোর্ডের মত সে দিনের অপেক্ষা করতে হবে যা অন্য বোর্ডের হয় তা হল, ছাত্রদের সর্বনাশ পরীক্ষার প্রশ্নফাঁস!।
৩. বিগত ৪ঠা মার্চ সদ্য অনুষ্ঠিত এদারার ত্রি-বার্ষিক নির্বাচনী মজলিসের “নির্বাচন পরিচালনা কমিটি সংক্রান্ত সাব কমিটির একজন অন্যতম সদস্য ছিলেন মাও. ইউসুফ খাদিমানী। যিনি নির্বাচনের পূর্বে কোন এক প্রার্থীর পক্ষে মাঠে-ময়দানে কাজ করেছেন এবং সে প্রার্থীকে বিজয়ী করতে যা যা করার প্রয়োজন তা করতে তিনি এবং তার সহযোগিরা বদ্ধপরিকর ছিলেন। নির্বাচনের পূর্বে দীর্ঘ সময় নিয়ে স্বচ্ছ ভোটার তালিকা প্রণয়ন সহ অন্যান্য সকল কাজেই স্বদাম্ভিকে তিনি শরীক ছিলেন। এমন কি নির্বাচনের দিন ব্যালট পেপার বিতরণের জন্য দুটি বুথ ছিল তম্মধ্যে একটির দায়িত্বে ছিলেন মাও. ইউসুফ খাদিমানী। অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় হলো যে, এবারের বোর্ডের নির্বাচনে খুবই স্থুল কারচুপি হয়েছে যা আমরা বুঝলেও এদারার ইতিহাস ঐতিহ্যের প্রতি খেয়াল রেখে সেদিন কিছু করিনি, কিন্তু যেহেতু সেই নির্বাচনে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে কারচুপি ও জাল-জালিয়াতিতে যারা যুক্ত ছিলেন তাদেরকে পদায়ন করা দেখে আর নিরব ভূমিকা পালন করতে পারিনি বিধায় অত্র আপত্তি পত্র।
৪. সিলেট বিভাগের শীর্ষ প্রতিষ্ঠান জামেয়া মাদানিয়া আঙ্গুঁরা মুহাম্মদপুর মাদরাসার মুহাদ্দিস, বিশিষ্ট লেখক, সাহিত্যিক, জকিগঞ্জ নিবাসী হযরত মাও. বিলাল আহমদ ইমরান সাহেব নির্বাচনের দিন জাল ভোট প্রদান করলে অন্যান্য নিরীহ ভোটার-রা তার সর্ম্পকে আলোচনা শুরু করেন যে, তিনি কোন মাদরাসার মুহতামিম/প্রতিনিধি। সে বিষয়টি জানতে তারা নির্বাচন পরিচালনা কমিটির শরণাপন্ন হন। নির্বাচন পরিচালনায় দায়িত্বরত-রা বলেন ভোটার তালিকাতে তার কোন নাম নেই, কিন্তু বাস্তবে দেখা যায় তিনি ভোট প্রদান করেছেন। তখন খবর নিয়ে জানা যায় যে, কার্ড বিতরনের কাজে নিয়োজিত এদারার সাধারণ বিভাগের সচিব মাও.সাজিদুর রহমান বলয়ের বলে প্রভাবিত হয়ে অনৈতিক ও অসাংবিধানিক ভাবে মাও. বিলাল আহমদ ইমরান কে সদস্য কার্ড বিতরণ করেন এবং মাও. ইউসুফ খাদিমানী তাকে ব্যালট পেপার সরবরাহ করেছেন, এখানে দেখার বিষয় হল যে, মাও. ইউসুফ খাদিমানী নির্বাচনী পরিচালনা কমিটির সদস্য হয়ে ভোটার তালিকা তৈরী করলেন এবং অতি-পরিচিত ব্যক্তি মাও. বিলাল আহমদ ইমরান এর নাম তালিকায় নেই তা তার অবশ্যই জানা ছিল, সর্বোপরি একই থানার। এরপরও বিনা জিজ্ঞাসা ও তথ্য তালাশ ছাড়া কিভাবে তাকে ব্যালট পেপার বিতরণ করলেন, তা খতিয়ে দেখা একান্ত প্রয়োজন। শুধু মাও.বিলাল আহমদ ইমরান-ই নন, কত জনকে যে মাও. ইউসুফ খাদিমানী অবৈধ ভোট দিতে সহযোগিতা করেছেন তা আল্লাহ-ই ভালো জানেন।
১. যিনি নিজ স্বাক্ষর ও এদারার পদযুক্তিয় সীল অন্য ব্যক্তিদ্বারা ব্যবহার করিয়ে থাকেন।
২. এদারার গোপন অডিট রিপোর্টের খাতা অফিসের বাহিরে নিয়ে অন্যজন দ্বারা লিপিবদ্ধ করিয়ে থাকেন।
৩. নির্বাচনে জাল ভোট দানে সহযোগিতা করেন, সে ব্যক্তি শরীয়তের মানদন্ডে আমানতদার হিসাবে বিবেচিত হবেন কি? এবং তিনি কোন ধরণের খোদাভীরু, আকাবীর ও আসলাফের অনুসারী??? তা জানা সময়ের দাবী।
হাফিজ মাও. ফখরুজ্জামান জকিগঞ্জি সংক্রান্ত আপত্তি:-
 সংবিধানের ধারা ১৬-১. এর বিধান মতে অন্য কোন জাতীয় বোর্ডে তার পরিচালনাধীন মাদরাসা ও তিনি অন্তর্ভূক্ত হলে এদারার শুরা আমেলা ও কর্মকর্তা হতে পারবেন না।
সংবিধানের এই ধারার ব্যাখা হল, যে সব প্রতিষ্ঠান এদারার অন্তর্ভূক্ত থেকে অন্য কোন জাতীয় বোর্ড যেমন: বেফাক সহ বাকী ৪ বোর্ডের সাথে ইলহাক থাকবে, সে মাদরাসার পরিচালক/প্রতিনিধি কেহ শুরা আমেলার সদস্য ও কর্মকর্তা হতে পারবেন না।
১. আমাদের সিলেটের হিফজ বিভাগের অতি-পরিচিত একটি মাদরাসা “জামিয়া ইসলামিয়া ফরিদাবাদ বড়শালা” (যার প্রতিষ্ঠাতা মুহতামিম ও সভাপতি হলেন মাও.হাফিজ ফখরুজ্জামান জকিগঞ্জি) সে মাদরাসাটি দীর্ঘদিন যাবত এদারা ও বেফাক বোর্ডের অন্তর্ভূক্ত রয়েছে। যেহেতু বেফাক বোর্ডে অন্তর্ভুক্ত থাকার কারণে এদারার শুরা আমেলা ও কর্মকর্তা হওয়ার সুযোগ নেই। অতএব কিভাবে এদারার কর্মকর্তা হওয়া যায় তার সব কুটকৌশল তিনি অবলম্বন করেছেন, যা সরাসরি স্ববিরোধী, নীতি নৈতিকতা ও আমানতদারীর পরিপন্থী।
২. একথা সর্বজন বিদিত যে সিলেট বিভাগের অনেক মাদরাসা এদারা ও বেফাক ভূক্ত রয়েছে, এদারা ও বেফাকের ভিন্ন ভিন্ন ইলহাক নম্বর রয়েছে। ফরিদাবাদ মাদরাসার নামে বেফাকবোর্ডে যে ইলহাক নং রয়েছে তা হল ৭/৮৯০ যা অনেক পুরাতন।
৩. জামিয়া ইসলামিয়া ফরিদাবাদ মাদরাসার বিভিন্ন জায়গায় ক্যাম্পাস রয়েছে যেমন: মিরাপাড়া, গোলাপগঞ্জ। সেই সব ক্যাম্পাসের নাম হল: জামিয়া ইসলামিয়া ফরিদাবাদ মিরাপাড়া, জামিয়া ইসলামিয়া ফরিদাবাদ গোলাপগঞ্জ ইত্যাদি। মিরাপাড়া, টুলঠিকর, গোলাপগঞ্জ কোন জায়গার নাম ফরিদাবাদ নয়। তথাপি সিলেট বড়শালা ফরিদাবাদের শাখা/ক্যাম্পাস হওয়ার কারণে সব জায়গা-ই ফরিদাবাদের নামটি যুক্ত রয়েছে।
৪. বিগত ২০/০১/২০২১ ইংরেজী তারিখে জামিয়া ইসলামিয়া ফরিদাবাদ মাদরাসার সভাপতি জনাব মাও. হাফিজ ফখরুজ্জামান এর সভাপতিত্বে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়, সে সভায় সিদ্ধান্ত হয় যে অদ্য থেকে বেফাকভূক্ত জামিয়া ইসলামিয়া ফরিদাবাদ মাদরাসার স্থান ও পরিচালক পরিবর্তন করা হইল এখন থেকে মাদরাসার ঠিকানা হবে জামিয়া ইসলামিয়া ফরিদাবাদ, মিরাপাড়া, টুলঠিকর, সিলেট এবং পরিচালক হবেন হাফিজ দিলওয়ার।
এখানে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল যে, একই মাদরাসা দুই বোর্ডে অন্তর্ভূক্ত হলে এক বোর্ডে একজন পরিচালক ও অন্য বোর্ডে অপর পরিচালক হন কিভাবে? এর নজীর তো দুনিয়ার কোথাও পাওয়া যাবে বলে মনে হয় না।
 একই ব্যক্তি প্রতিষ্ঠানের পরিচালক ও সভাপতি হন কিভাবে এবং কোন সংবিধানে? নিজ প্রতিষ্ঠিত মাদরাসা হওয়ার কারণে একেক সময় একেক পদের ব্যবহার, তা কি কুটকৌশল ও অসত্যের আশ্রয় নয়?
 মুশতারাক/ (দুই বোর্ড অন্তর্ভূক্ত) মাদরাসা এক বোর্ডের অফিসে স্থান পরিবর্তনের আবেদন হলে অন্য বোর্ডের মাদরাসা কি স্ব-স্থানে বহাল থাকে তা কোন ফলসফি?
 ২৪শে ফেব্রুয়ারী মাও. হাফিজ ফখরুজ্জামান জামিয়া ইসলামিয়া ফরিদাবাদ পরিচালক স্বাক্ষরিত একটি পত্র প্রতিনিধি নিয়োগের জন্য এদারা বোর্ডে প্রেরণ করা হয়, সে দরখাস্ত মতে তার মাদরাসার শিক্ষক মাও. খায়রুল ইসলাম বড়লেখী কে প্রতিনিধি হিসাবে গ্রহণ করা হয়। যেহেতু ২০/০১/২০২১ ইংরেজী মাদরাসার পরিচালক পরিবর্তন হয়ে গেলেন তা হলে কিভাবে তিনি তার স্বাক্ষরিত দরখাস্ত প্রেরণ করলেন? এর বৈধতা আছে কি?
৫. এ বছর তিনি বেফাক বোর্ডে আবেদন করে মাদরাসার স্থান ও পরিচালক/ পরিবর্তন করে নিলেন। কিন্তু যে ইলহাক নম্বর এর মাদরাসাটির পরিবর্তন হলো তা তো মূল জামিয়া ইসলামিয়া ফরিদাবাদের ইলহাক নম্বর ৭/৮৯০, কারণ যে ক্যাম্পাসে ইলহাক নং ৭/৮৯০ পরিবর্তন দেখানো হয়েছে সে শাখা তো ২০১৬ থেকে শুরু হয়েছে এবং ঐ ইলহাক তো পূর্বে নেয়া, তাহলে এসব চল-চাতুরী নয় কি? তাই পরিস্কার হয়ে গেল যে, মিরাপাড়া ফরিদাবাদের-ই একটি শাখা। আরো প্রমাণ হলো ফরিদাবাদ একটি জায়গার নাম, মিরাপাড়ার নাম ফরিদাবাদ নয়, অতএব বুঝতে বাকি থাকে না যে, তা হল বড়শালা ফরিদাবাদের শাখা??? বাকী রইল এবার তিনি খাগাইল মাদরাসার মুহতামিম হিসাবে শুরা সদস্য হয়েছেন, ঐ মাদরাসা তো তার জন্য অতিথি মাদরাসা, কিন্তু জামিয়া ইসলামিয়া ফরিদাবাদের মূল প্রতিষ্ঠাতা, সভাপতি ও পরিচালক তিনি-ই সব। এখন তিনি যা বলবেন এবং দেখবেন তা হল শুধুমাত্র কাগুজি কাজ কর্ম।
৬. চলতি বছর উনার পরিচালনাধীন মাদরাসা থেকে বেফাকে ৪৯ জন এবং এদারায় ৩৪ জন পরীক্ষার্থী ছিল। এদারার পরীক্ষায় যে ৩৪ জন অংশ গ্রহণ করেছে সবাই আবার বেফাকের পরীক্ষায়ও অংশগ্রহণ করেছে এবং বেফাকে যারা অংশগ্রহণ করেছে তারা অধিকাংশ-ই ফরিদাবাদে অবস্থানকারী ও অধ্যয়নরত ছিল। সুষ্ঠু তদন্ত করলে তা বেরিয়ে আসবে ইনশাআল্লাহ।
আমাদের প্রতিপাদ্য বিষয় হল যে, একজন (বেফাক প্রেমিক) ব্যক্তি সুক্ষ কুটকৌশলের মাধ্যমে কিভাবে এদারার কর্মকর্তা হওয়া যায়, তার জন্য তথ্য গোপন ও অসত্যের আশ্রয় নিয়ে এদারার পদে আসার শতভাগ চেষ্টা করে যাচ্ছেন। এরই ধারাবাহিকতায় একটি রেজুলেশনকে ভিত্তি করে ২০শে জানুয়ারী ২০২১ ইংরেজী বেফাক বোর্ডে দরখাস্তের মাধ্যমে মাদরাসার পরিচালক ও ঠিকানা পরিবর্তন করলেও ২৪ শে ফেব্রুয়ারী ২০২১ ইংরেজী তারিখে তার স্বহস্তের দস্তখত ও পরিচালক সম্বলিত সীল ব্যবহার করে এদারার নির্বাচনী মজলিসে প্রতিনিধি নিয়োগের দরখাস্ত কিভাবে প্রেরণ করেন? এবং সুচতুরীর মাধ্যমে ফরিদাবাদের নামে একজন শুরা সদস্যও হাসিল করে নেন।
 বিগত মেয়াদে মাও. হাফিজ ফখরুজ্জামান সাহেব ছিলেন এদারার নাযিমে তাসনিফ। এই মেয়াদে এদারার নুরানী সাব কমিটির মাধ্যমে নুরানী বিভাগ অস্তিত্ব লাভ করে, যার দায়িত্বে ছিলেন নাযিমে তাসনিফ। কিন্তু পরিতাপের বিষয় হল যে, অনেকাংশে সাব কমিটির কোন তোয়াক্কা না করে এমনকি রেজুলেশনকেও পাশ কাটিয়ে স্বেচ্ছাচারীতার মাধ্যমে নুরানী বই প্রনয়ণ করেন। বই গুলি ছাপা হয়ে আসার পর এদারার শুরা ও আমেলায় অনেক সদস্য ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন যে, সে বইগুলি নুরানী বিভাগের জন্য মান-সম্মত হয়নি, তাই পুনরায় সবকটি বই নুরানী বিভাগের বিজ্ঞ উস্তাদ ও প্রশিক্ষক দ্বারা পরিবর্তন ও পরিবর্ধন করা একান্ত প্রয়োজন এবং সে মর্মে মাশাআল্লাহ পরবর্তীতে তা আবার নুরানী বিভাগের দক্ষ উস্তাদ ও প্রশিক্ষক দ্বারা মানান সই করে নতুন আঙ্গিকে ছাপানো হয়। ছয় মাসের মধ্যেই বইগুলো পরিবর্তনের প্রয়োজন পড়ায় সংযোজন-বিয়োজন কারীদের পুনরায় সম্মানী প্রদান, কম্পোজ, প্লেট ইত্যাদি ব্যয়ের কারণে এদারা বোর্ডের বেশ কয়েক লক্ষ টাকার আর্থিক ক্ষতি সাধিত হয়েছে, যার জন্য নাযিমে তাসনিফ ছাড়া আর কাকে দায়ী করবেন?
 বিগত শিক্ষা বছরের ক্যালেন্ডার ও সিলেবাস কতবার ছাপা হয়েছিল? এবং নাযিমে উমুমী কার মাধ্যমে বার বার ছাপা করে এদারার আর্থিক ক্ষতি করেছেন? সে ব্যক্তি কি নাযিমে তাসনিফ হাফিজ মাও. ফখরুজ্জামান ছাড়া অন্য কেউ?? এহেন ক্ষতিকর কাজে জড়িত, স্বেচ্ছাচারী ও অধিক কুটিল ব্যক্তিকে আমরা আমানতদার ও এদারার জন্য হিত কামনা কারী মনে করি না।
মাও. তৈয়বুর রহমান চৌধুরীর উপর আপত্তি সমূহ:
১. জনাব মাও. তৈয়বুর রহমান চৌধুরী বিগত মেয়াদে জামিয়া শাখাইতি (দক্ষিণ সুনামগঞ্জ) মাদরাসার প্রতিনিধি হিসাবে পদাধিকার বলে শুরা ও পরবর্তীতে আমেলার সদস্য হন। চলতি বছর শাখাইতি মাদরাসা থেকে প্রতিনিধি হওয়ার সুযোগ না পেয়ে তিনি অত্যন্ত সুকৌশলে মুরাদপুর আনোওয়ারুল উলুম মাদরাসা, ভাটিপাড়া দক্ষিণ সুনামগঞ্জ (মাদরাসার স্তর ইবতেদাইয়্যাহ) থেকে সহকারী মুহতামিম এর পদ যে কোন ভাবে বাগিয়ে নিয়ে ঐ মাদরাসার পক্ষ থেকে প্রতিনিধির দরখাস্ত এদারা অফিসে জমা করেন এবং সে অনুযায়ী নির্বাচনী মজলিসের সদস্য ও পরবর্তীতে শুরা সদস্য মনোনীত হন। অনুসন্ধান করে জানা যায় যে, সে মাদরাসার উস্তাদ হাজিরা খাতা ও ক্লাস রুটিনে মাও. তৈয়বুর রহমান চৌধুরীর কোন নাম নেই। এখানে প্রশ্ন হল যে, মাদরাসার এতবড় পদের লোক সহকারী মুহতামিম তার নাম হাজিরা খাতা ও রুটিনে থাকবে না এ কেমন কথা?
আমাদের এদারা প্রণীত মাদরাসা পরিচালনার মূলনীতি নামক দস্তুরে আসাসিতে ২৫ নং ধারার “খ” তে উল্লেখ রয়েছে যে, “নাইবে মুহতামিম এর দায়িত্ব ও ক্ষমতা।” প্রধান কাজই হচ্ছে মুহতামিমের সহযোগিতা করা।
তিনি যেহেতু শাখাইতি মাদরাসার নিয়মিত মুহাদ্দিস ও নাইবে মুহতামিম এবং পুরো দিন-ই মাদরাসায় তার ক্লাস রয়েছে তা হলে তিনি কিভাবে দ্বিতীয় বার অন্য মাদরাসার সহকারী মুহতামিম হন? সহকারী মুহতামিম তো শিক্ষক থেকেই হতে হয়। নিয়মিত রুটিন ও হাজিরা খাতায় নাম থাকতে হয় যেহেতু উনার নাম ঐ দুই জায়গায় নেই তখন আর বুঝতে বাকী রইল না যে সুকৌশলে এদারার সদস্য পদ হাসিলের জন্য এ প্রতিনিধি কাগুজি পত্র তৈরি করা হয়েছে। একই ব্যক্তি কয়েক মাদরাসার মুহতামিমের দায়িত্ব পালন করার নজীর রয়েছে, তবে নাইবে মুহতামিম মাদরাসার শিক্ষক ছাড়া তা এই প্রথম আমাদের নজরে আসলো, আর মাদরাসাটির স্তর হলো ইবতেদাইয়্যাহ, সে মাদরাসায় আদৌ কোন সহকারী মুহতামিম প্রয়োজন আছে কি? সিলেটে অনেক মাদরাসায় নাইবে মুহতামিমের পদ রয়েছে, সবকটি মাদরাসায়-ই শিক্ষক থেকে কোন একজনকে নাইবে মুহতামিম বানানো হয়। কোন মাদরাসায় অন্য মাদরাসার নাইবে মুহতামিম ও নিয়মিত উস্তাদকে নাইবে মুহতামিম নির্ধারণ করলে কয় জায়গায় সংবিধানে উল্লেখিত দায়িত্ব পালন করবেন?? এসব ছল-চাতুরীর আশ্রয় নিয়ে তিনি এদারার শুরার সদস্য পদ বাগিয়ে নিয়েছেন। তা কোন নীতি নৈতিকতা?
২. নির্বাচনী মজলিস থেকে শুরা কমিটি গঠন করার জন্য যে ১১জন ব্যক্তিবর্গের উপর দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল তারা খুবই সুন্দরভাবে সংবিধানের ধারা নং ১০ এর “চ” অনুযায়ী সকল উপজেলা/থানা ওয়ারী সদস্য মনোনয়ন করেছেন। কিন্তু অতীব দুঃখের বিষয় হল যে সুনামগঞ্জ জেলার থানা ওয়ারী তালিকা মাও. তৈয়বুর রহমান ও নাযিমে উমুমী তৈরি করেছেন। আমরা বিস্মিত হই সুনামগঞ্জের ১০টি অঞ্চলের মধ্যে ৭টিতেই সংবিধানকে পদদলিত করে সদস্য নেয়া হয়েছ। এসব কাজ কার স্বার্থে করা হয়েছে তা খতিয়ে দেখা একান্ত প্রয়োজন। সে দিনের বৈঠকে লিখা-লিখির কাজ আঞ্জাম দিয়েছিলেন মাও.তৈয়বুর রহমান চৌধুরী। আর তিনি-ই কমিটির তালিকা কম্পিউটারে লিপিবদ্ধ করিয়েছিলেন এবং সম্ভবত তিনি-ই রেজুলেশন খাতায় তা লিপিবদ্ধ করেছেন।
শুরা গঠনে অনিয়মের বর্ণনা:-
 সুনামগঞ্জ সদর : মাদরাসা সংখ্যা মোট -৪৩টি (তাকমিল -৫টি, ফজিলত- ১টি, উলয়া- ৪টি, মুতাওয়াসসিতাহ-৯টি ইবতেদাইয়্যাহ -১৫টি ও হিফজ ৯টি )
ফজিলত উলয়া মাদরাসা সংখ্যা ৫টি, সংবিধান অনুযায়ী এই স্তরের মাদরাসা থেকে ১জন সদস্য হওয়ার কথা থাকলেও বাস্তবে দুইজন সদস্য নেয়া হয়েছে (১) মাও. আনোওয়ার হুসাইন তেঘরিয়া (২) মাও. মাহমুদ হুসাইন, রামনগর বানীপুর। ৯টি মুতাওয়াসসিতাহ মাদরাসা থাকাতে ১জন সদস্য নেয়া হয়েছে: (১) মাও. আব্দুল ওয়াহহাব টুকের বাজার মাদরাসা। অনুসন্ধানে দেখা যায় যে, ১৫টি ইবতেদাইয়্যাহ ও ৯টি হিফজ মাদরাসা (মোট ২৪টি) ঐ থানায় হওয়ার পরও সাংবিধানিক ভাবে একজন শুরা সদস্য হওয়ার কথা থাকলেও তা করা হয়নি।
 দক্ষিণ সুনামগঞ্জ: মোট মাদরাসা সংখ্যা -৩১টি (তাকমিল -২টি, উলয়া আম্মাহ- ৪টি, মুতাওয়াসসিতাহ-৬টি ইবতেদাইয়্যাহ -১৪টি ও হিফজ ৫টি )
উলয়া ১টি ও আম্মাহ ৩টি মাদরাসা, ঐ চারটি মাদরাসা থেকে ১জন সদস্য নেয়া হয়েছে (১) হাফিজ মাও. মিসবাহ উদ্দীন, ডুংরিয়া মাদরাসা। ৬টি মুতাওয়াসসিতাহ থাকাতে এই স্তর থেকে কাউকে নেয়া যায় না। ৫টি হিফজ মাদরাসা ও ১৪টি ইবতেদাইয়্যাহ মাদরাসা থেকে ২জন সদস্য নেয়া হয়, যেখানে সংবিধানে ১জন সদস্য নেয়ার কথা রয়েছে। ১. মাও. তৈয়বুর রহমান চৌধুরী, মুরাদপুর মাদরাসা ২. মাও. মুশতাক আহমদ বড়মোহা মাদরাসা। যা সম্পূর্ণরূপে সংবিধান বিরোধী।
 দোয়ারাবাজার : মাদরাসা সংখ্যা মোট -২০টি (তাকমিল -২টি, উলয়া ৪টি, আম্মাহ- ২টি, মুতাওয়াসসিতাহ-৫টি ইবতেদাইয়্যাহ -৬টি ও হিফজ ১টি )
উলয়া স্তরে ৪টি মাদরাসা থাকার পরও ঐ স্তর থেকে কোন সদস্য না নিয়ে ২টি আম্মাহ মাদরাসা থেকে দুইজন সদস্য গ্রহণ করা হয়েছে ১. মাও. ফজলুল করীম, দোহালিয়া ২. মাও. আখতার হুসাইন, বালিউরা। এখানে হওয়ার কথা ছিল উলয়া থেকে একজন মুতাওয়াসসিতাহ, ইবতেদাইয়্যাহ ও হিফজ থেকে একজন, যা করা হয়েছে তা সংবিধান পরিপন্থী।
 ছাতক: মোট মাদরাসা সংখ্যা -৩৭টি (তাকমিল-৩টি, ফজিলত-৪টি, উলয়া-৭টি, আম্মাহ- ২টি, মুতাওয়াসসিতাহ-১১টি ইবতেদাইয়্যাহ -৬টি ও হিফজ ৪টি )
ছাতক থানায় ফজিলত ৪টি ও ৭টি উলয়ার স্তরের মাদরাসা রয়েছে কিন্তু ৪জন শুরা সদস্য-ই দেখা যায়; ফজিলত ও উলয়া স্তর থেকে নেয়া হয়েছে। বাকী ২টি আম্মাহ, ১১টি মুতাওয়াসসিতাহ, ৬টি ইবতেদাইয়্যাহ ও ৪টি হিফজ মাদরাসা থেকে কোন সদস্য নেয়া হয়নি, যা সংবিধানের গুরুতর লঙ্ঘন।
 জগন্নাথপুর : মাদরাসা সংখ্যা মোট -৩৮টি (তাকমিল-৪টি, ফজিলত-৫টি, উলয়া-৪টি, আম্মাহ- ৩টি, মুতাওয়াসসিতাহ-৫টি, ইবতেদাইয়্যাহ -৯টি ও হিফজ ৮টি )
৫টি ফজিলত মাদরাসা ও ৪টি উলইয়া মাদরাসা থেকে ২জন সদস্য নেয়া হয়েছে। বাকী ৩টি আম্মাহ, ৫টি মুতাওয়াসসিতাহ, ৯টি ইবতেদাইয়্যাহ ও ৭টি হিফজ মাদরাসা থাকা সত্ত্বেও কোন সদস্য গ্রহণ করা হয়নি। যা সংবিধান পরিপন্থী। এখানে দেখা যায় যে ২৭শে ফেব্রুয়ারী ২০২১ইং তারিখে অন্তর্ভূক্ত মহিলা মাদরাসা ইলহাক নং ১৪৭ কে সদস্য হিসাবে গ্রহণ করা হয়েছে। যে মাদরাসা এ বছর পরীক্ষায় ও অংশগ্রহণ করেনি।
 জামালগঞ্জ : মাদরাসা সংখ্যা মোট -২৬টি (তাকমিল-৩টি, ফজিলত-২টি, উলয়া আম্মাহ- ১টি, মুতাওয়াসসিতাহ-৪টি, ইবতেদাইয়্যাহ -১২টি ও হিফজ -৪টি )
দেখা যায় যে, অত্র অঞ্চলে ৪টি হিফজ ও ১২টি ইবতেদাইয়্যাহ মোট ১৬টি মাদরাসা থাকা সত্ত্বেও তাদের থেকে একজন সদস্যও নেয়া হয়নি। যা সংবিধান বহির্ভুত কাজ।
 দিরাই : মোট মাদরাসা সংখ্যা -৪৮টি (তাকমিল-৩টি, ফজিলত-৪টি, আম্মাহ- ৭টি, মুতাওয়াসসিতাহ-৪টি ইবতেদাইয়্যাহ -২৫টি ও হিফজ ৫টি )
সংবিধান অনুসারে ১০টি আম্মাহ ও মুতাওয়াসসিতাহ মাদরাসা থেকে একজন শুরা সদস্য হবেন বলে উল্লেখ রয়েছে; সংবিধান মোতাবিক সে স্তর থেকে ১জন সদস্য নেয়ার কথা থাকলেও শুরা কমিটিতে দুইজন সদস্য যথাক্রমে: ১. মাও. নুরুদ্দীন আহমদ, চন্দিপুর ইসলামিয়া মাদরাসা (স্তর আম্মাহ) ২. মাও. তাহির আহমদ দৌলতপুর মাদরাসা (স্তর আম্মাহ) নেয়া। ৪টি ফজিলত মাদরাসা থাকা সত্ত্বেও সে স্তর থেকে কাউকে নেয়া হয়নি। তার চাইতেও দুঃখজনক বিষয় হল যে, দিরাই থানার মাদরাসা সংখ্যা অনুযায়ী পদাধিকার ২জন সদস্য ছাড়াও আরো ৩জন সদস্য নেয়া-ই হল সংবিধান সম্মত কিন্তু তা নেয়া হয়নি, ৫টি হিফজ ও ২৫টি ইবতেদাইয়্যাহ মাদরাসা থেকে কোন সদস্য নেয়া হয়নি যা সরাসরি সংবিধানের লঙ্ঘন। স্মর্তব্য যে, সুনামগঞ্জের ১১টি থানা থেকে ৭টি থানাতেই অসাংবিধানিক ভাবে শুরা সদস্য নেয়া হয়েছে। এই সব কাজ রাজনৈতিক বলয়কে শক্তিশালীকরণ ও কর্তৃত্ব কায়েমের হীন স্বার্থে সংবিধানকে পদদলিত করে শুরার তালিকা করা হয়েছে। আর এ নৈপথ্যে কাজ করেছেন সুনামগঞ্জ জেলার জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক মাও. তৈয়বুর রহমান চৌধুরী। সংবিধান বহির্ভূত এ তালিকা বাদ দিয়ে ১১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্বের সাব কমিটির বৈঠক আহ্বান করে আপত্তিকৃত অঞ্চলের সাংবিধানিক ভাবে শুরা সদস্য নেয়ার জোর দাবী জানাচ্ছি।
৩. বিগত ৪ঠা এপ্রিল ২০২১ ইং পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে লকডাউন এর কড়াকড়ি আরোপের পর এদারার ইমতিহান কমিটির এক বিশেষ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সে বৈঠকে পরীক্ষাসংক্রান্ত কিছু বিষয়ের পরিবর্তন-পরিবর্ধন করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। দেখা যায় যে, ঐ সব সিদ্ধান্তবলী এদারার ফেইসবুক পেইজে প্রচার করার আগেই মাও. তৈয়বুর রহমান চৌধুরী তার ফেইসবুক আইডি থেকে তা প্রকাশ করেন, যা অত্যন্ত দুঃখজনক। যার জন্য এদারার পরীক্ষা বিভাগ মাদরাসা কর্তৃপক্ষদের কাছে জবাবদিহি করতে হয়েছে। তিনি এ ধরনের কাজ করেছেন প্রকাশ পেলে, নাযিমে ইমতিহান তাকে কেন এ কাজ করেছেন এ মর্মে তিরস্কার করেন এবং তাকে এ ধরনের কাজ থেকে বিরত থাকতে বুঝানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু দেখা যায় হিতে বিপরীত, ঐ ব্যক্তি স্বগৌরবে পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে রামনগর সেন্টারে গিয়ে পরীক্ষা শুরু হওয়ার পর, পরীক্ষার আইন অমান্য করে অনাধিকার চর্চা করতঃ হলে প্রবেশ করে ছাত্রদের পরীক্ষায় বিঘœ ঘটিয়ে বক্তব্য প্রদান নিজ ফেইসবুক আইডিতে প্রকাশ করেন। এদারার পরীক্ষার হল পরিদর্শন করেছেন বলে পরীক্ষার হলের নিজে বক্তব্য দানরত অবস্থার ছবি প্রকাশ করেন। পরবর্তীতে ১০ই এপ্রিল ২০২১ইং তারিখে এদারার ইমতিহান কমিটির এক সভায় সে বিষয়টি সকলের নজরে আসলে পরে সবাই ক্ষোভ প্রকাশ করেন, এমনকি সদর সাহেব বলেন যে, পরীক্ষা শুরু হওয়ার পর ছাত্রদের মনকে অন্য দিকে নিয়ে যাওয়া মারাত্মক খারাপ কাজ। তাই সদরে এদারা, নাযিমে উমুমী ও নাযিমে ইমতিহান এই তিনজন মিলে তাকে সতর্ক করার জন্য এবং তার আইডি থেকে সে ছবি ও লেখাকে অপসারণের নিমিত্ত একটি রেজুলেশন পাশ করা হয়। এই ধরনের নেহায়ত গর্হিত কাজে যে ব্যক্তি জড়িত, তাকে এদারার পদ পদবীতে পদায়ন করা এদারার জন্য মঙ্গল হবে বলে আমরা মনে করি না।
“আযাদ দ্বীনী এদারায়ে তালীম বাংলাদেশের” সংবিধানের ধারা ৫- আদর্শ ও উদ্দেশ্য এর ‘ঘ’ উপধারায় উল্লেখ রয়েছে যে “আযাদ দ্বীনী এদারায়ে তালীম বাংলাদেশ একমাত্র শিক্ষা বিষয়ক প্রতিষ্ঠান বিধায় কোনো রাজনৈতিক দল বা সংগঠনের সহিত এই বোর্ডের সম্পর্ক থাকিবেনা”
কিন্তু অতীব দুঃখের বিষয় হল বর্তমানে জমিয়ত কেন্দ্রীক রাজনৈতিক কর্মকান্ডে এদারা কে জড়িত করার মানসে একদল লোক দিবানিশি কাজ করে যাচ্ছেন। সে প্ল্যান বাস্তবায়নের নিমিত্ত বিগত ৪ঠা মার্চ এদারার নির্বাচনী মজলিসের পূর্বে বিয়ানীবাজারের জামিয়া মাদানিয়া আঙ্গুঁরা মোহাম্মদপুর থেকে একটি ভিডিও বার্তা প্রেরণ করা হয় (যা এদারা কম্পিউটারে রক্ষিত আছে) যাতে বলা হয় আমাদের হুজুর (হযরত মাও.শায়খ জিয়া উদ্দীন সাহেব দা.বা.) বর্তমানে মাজুর এবং এদারার সদর হওয়ার পাশাপাশি তিনি জমিয়তেরও সদর। তিনি যদি এদারার সভাপতি না হতে পারেন তা হলে আমাদের জমিয়তের কি হবে? এবং একটি চক্রান্তকারী মহল হুজুর কে সভাপতি করতে চায় না, তাই আপনারা যে যেখানে আছেন হুজুর কে ভোট দিয়ে যেকোন ভাবে সভাপতি নির্বাচিত করতে হবে।
 ৩রা মার্চ সুনামগঞ্জ জেলা জমিয়তের উদ্যোগে আকাবীর কনফারেন্স এর নামে আয়োজিত সম্মেলনে জমিয়তের সভাপতি উপস্থিত হয়ে বক্তব্য রাখেন। তার বক্তব্যে এদারার নির্বাচনী প্রচারণা চালান, (যার রের্কড এদারার কম্পিউটারে আছে)। এখানে প্রশ্ন হল যেহেতু এদারা অরাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান তাহলে জমিয়তের সম্মেলনে এদারার প্রচারণা কেন? উল্লেখিত দুটি ভিডিও ফুটেজ দেখে ও শুনে তদন্ত করা আবশ্যক।
 আঙ্গুঁরা মাদরাসার বিশিষ্ট মুহাদ্দিস ও সহকারী নাযিম মাও. বিলাল আহমদ ইমরান সাহেব এর জাল ভোট প্রদান মূলত ঐসব বক্তব্যের-ই সফল বাস্তবায়ন।
 ১১ই এপ্রিল আমরা শুরার বৈঠক থেকে ওয়াক আউট করে আসার পর অসাংবিধানিক ভাবে কিছু কার্যক্রম চালানো হয়েছে যা বাতিলযোগ্য। শুনা যায় যে, আমরা হল ত্যাগ করার পর পুনরায় উপস্থিতির স্বাক্ষর নেয়া হয়েছে, যা সম্পূর্ণ অসাংবিধানিক। কারণ পুনারায় যে স্বাক্ষর নেয়া হয়েছে তা কোন বৈঠকের? একই বৈঠকে দু’বার স্বাক্ষর নেওয়ার নজীর কোনো প্রতিষ্ঠানে আছে কি?
অতএব, আপনার বরাবরে নিবেদন যে, অতিসত্তর উত্থাপিত আপত্তিসমূহের সুষ্ঠু তদন্তক্রমে ফয়সালা করা অপরিহার্য। এ বিষয়গুলির ফয়সালার পূর্বে এদারার কোন বৈঠক আহ্বান করা থেকে বিরত থাকতে আমরা জোর দাবী জানাচ্ছি।

এই সংবাদটি 243 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com