যে গোত্রে স্ত্রীদের ঠেলে দেয়া হয় পতিতাবৃত্তিতে

প্রকাশিত: ১২:২০ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৭, ২০১৬

যে গোত্রে স্ত্রীদের ঠেলে দেয়া হয় পতিতাবৃত্তিতে

ডেস্ক রিপোর্ট:  ভোরবেলা বাড়ি ফেরেন সীতা (ছদ্ম নাম)। সেসময় তার স্বামী সাধারণত ঘুমিয়ে থাকেন। সারা রাত দিল্লির অদূরে রাস্তায় রাস্তায় দেহ বিক্রি করে তবেই বাড়ি ফেরা হয় সীতার। কিন্তু এখানেই তার কাজ শেষ হয় না। প্রথমে গোসল সারেন। এরপর লেগে যান নাস্তা তৈরি করতে। বাচ্চাদের স্কুলে দিয়ে তবেই কিছুটা বিশ্রাম নেয়ার ফুরসত মেলে তার। নাজাফগড়ের স্বল্পোন্নত এক কোণে একগুচ্ছ শহুরে গ্রাম মিলেছে দিল্লির প্রান্তসীমায়। জীবনধারণের জন্য সীতা যা করেন তা গোপন কিছু নয়। সীতা পের্না গোত্রের। অত্যন্ত সুবিধাবঞ্চিত এই সম্প্রদায়ের নারী ও মেয়েদের বিয়ে ও সন্তান গ্রহণের পর যৌন ব্যবসায় ঢুকে পড়া স্বাভাবিক বিষয়। সীতা বলেন, ‘আমার প্রথম সন্তান জন্মের পরপরই মারা যায়। ২য় সন্তানের বয়স যখন ১ বছরের মতো তখন আমি এই কাজ শুরু করি।’ তারুণ্যের মাঝামাঝি বয়সে পের্না গোত্রের অচেনা এক পুরুষের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। সীতার অনুমান ১৭ বছর হতে হতে তার পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি হয়ে পড়েন তিনি। এখন তার বয়স ২০ এর কোঠার শেষের দিকে। এখনও পের্না বস্তিতে থাকেন তিনি। গোত্রের অন্য নারীদের সঙ্গে প্রতি রাতে খদ্দেরের খোঁজে বের হন। নিজের এলাকা থেকে দূরে চলে যান। পুলিশের দৃষ্টিসীমা এড়িয়ে কখনো বাস স্টপেজে। কখনো পার্কে। তারা দলবদ্ধভাবে চলাচল করেন। রিকশার ভাড়া ভাগাভাগি করেন। দল বেঁধে চলার অন্য কারণ হলো হয়রানির ঝুঁকি কমানো। সীতা জানালেন, ‘আমরা চেষ্টা করি দ্রুত কাজ সারার জন্য।’ গাড়িতে বা উন্মুক্ত স্থানের গোপন কোণাকাঞ্জিতে খদ্দেরের চাহিদা পূরণ করেন। একজন নারী খদ্দেরের সঙ্গে থাকলে অপরজন কিছুটা দূরত্বে অবস্থান করেন যেন অবস্থা বেগতিক দেখলে চিৎকার করে সাবধান করতে পারেন। খদ্দেরপ্রতি ২০০ থেকে ৩০০ রুপি পান। এক রাতে সর্বোচ্চ ১০০০ রুপি পর্যন্ত উপার্জন হয় সর্বোচ্চ। কখনো আবার শূন্য হাতে ঘরে ফিরতে হয়।
জন্ম যখন দারিদ্র্যে: ৪ সন্তানের মা লীলা (ছদ্ম নাম)। বয়স ৩০ এর কোঠার শেষের দিকে। অনেক ছোট থাকতেই তিনি এটা জেনেছেন যে তার সম্প্রদায় ‘বংশ পরম্পরাগত পতিতাবৃত্তি’ আখ্যা পাওয়া চর্চায় লিপ্ত। সীতা ও অন্যদের মতো কম বয়সে নয়; লীলা যৌন ব্যবসায় প্রবেশ করেন বিধবা হওয়ার পর। ফিরে যান বাল্যকালের নিবাস নাজাফগড়ের ধরমপুর এলাকায়। কর্মসন্ধানী একজন নারী হিসেবে পতিতাবৃত্তি ছিল তার জন্য স্বাভাবিক এক পথ। তার নিজের মা অল্প বয়সে মারা যান। কিন্তু তার মনে আছে খালা, মামীরা রাতে বাইরে যেতেন। এই গোত্রের স্বামীদের কেউ কেউ ছাগল চরান। অথবা কোন কাজই করেন না। লীলা বলেন, ‘আমি জানিনা কেন। বলতে পারেন এটাই ঐতিহ্যগত রীতি।’ কিন্তু বাস্তবে এটা যতটা না প্রথার অনুসরণ তার চেয়ে বেশি হলো পারিবারিকভাবে লব্ধ আর্থিক টানাপড়েন লাঘবের উপায়। লীলার ভাষায়, ‘এই কাজ হলো আমাদের সমঝোতা। এটা আমাদের জীবন ধারণের উপায়।’ মানবপাচার বিরোধী এনজিও আপনে আপ এর প্রতিষ্ঠাতা রুচিরা গুপ্ত বলেন, ‘পের্না গোত্রের একজন নারীর জন্ম হয় দরিদ্রতার মধ্যে। সুবিধাবঞ্চিত এক সম্প্রদায়ে। আর সে নারী হওয়ার কারণে আগে থেকেই তিনগুণ বেশি নিপীড়িত।’ রুচিরা গুপ্তের এই এনজিওটি নাজফগড়ের পের্না সম্প্রদায়ের সঙ্গে ৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে কাজ করছে। পের্না নারীদের অসহায় বাস্তবতা তুলে ধরে রুচিরা বলেন, ‘বয়ঃসন্ধি হওয়ার সাথে সাথেই বিয়ে করিয়ে দেয়া হয়। প্রথম সন্তান হওয়ার পরই স্বামী তার নিজের স্ত্রীকে পতিতাবৃত্তিতে ঠেলে দেয়। তারা এর বাইরেও যেতে পারেন না। সম্বল বলতে তাদের আছে এই গোত্রটাই। তারা অনুভব করেন পালানোর কোন পথ নেই। দেহ বিক্রিতে কাটিয়ে দেন ৮ থেকে ১০ বছর। এরপর তাকে তার নিজের মেয়েকে পতিতাবৃত্তিতে নামাতে বলা হয়।’ রুচিরা আরও বলেন, ‘যেসব মেয়েরা পতিতাবৃত্তিতে যেতে বিরোধিতা করে তারা শ্বশুরবাড়ির সদস্যদের দ্বারা শারীরিকভাবে নির্যাতিত হন। এসব পরিবার প্রত্যাশা করে তাদের পুত্রবধূরা সংসারের খরচে অবদান রাখবে। লীলার এক মেয়ে এখন তার সন্তান নিয়ে গৃহিণী হিসেবে দিন কাটাচ্ছে। নাজাফগড়েই থাকে সে। পতিতাবৃত্তিতে নামতে শ্বশুরবাড়ির চাপ এড়াতে কয়েক দিন লীলার কাছে এসে কাটিয়ে যায় সে। লীলা জানালেন কি ভাষায় তার মেয়েকে হুমকি দিয়েছে তার শ্বশুর বাড়ির লোকজন। তাকে বলা হয়েছে, ‘আমরা তোর জামা কাপড় ছিড়ে নেংটা (বিবস্ত্র) করে রাস্তায় নামিয়ে দেবো।’
আপনে আপ এনজিওর সহায়তায় অনানুষ্ঠানিক এক স্থানীয় আদালতকে লীলা বোঝাতে সক্ষম হন, তার মেয়ের স্বতন্ত্রভাবে সিদ্ধান্ত নেয়ার সুযোগ থাকা উচিত। তবে এক এনজিও কর্মী বললেন, ‘লীলার মতো সাহসী নারীদের আমরা সচারচর পাই না।
ওদিকে, সীতার বক্তব্য তাকে স্বামী বা শ্বশুরবাড়ির চাপে পতিতাবৃত্তিতে ঢুকতে হয়নি। সীতা বলেন, ‘এটা আমার নিজের সিদ্ধান্ত ছিল।’ তার স্বামী সম্প্রতি গাড়িচালকের চাকরি শুরু করেছে আর তার সমপরিমাণ অর্থ উপার্জন করছে বলেও উল্লেখ করেন সীতা। কিন্তু এমন একটি সমাজ যেটা শুধু অর্থনৈতিক ও সামাজিকভাবে সুবিধাবঞ্চিত তাই নয়, বরং ঐতিহাসিকভাবে অধিকার ও নাগরিকত্বের স্বাধীনতা থেকে বঞ্চিত, সেখানে জোরপূর্বক বাধ্য না হওয়া সত্ত্বেও পতিতাবৃত্তিতে স্বেচ্ছাসিদ্ধান্ত-  ঝুঁকিপূর্ণ একটি ধারণা।
ঐতিহাসিক এক প্রতিকূলতা: দিল্লির প্রান্তসীমায় ছোট্ট এই পের্না সম্প্রদায় ভারতের মানচিত্রে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা হাজারো গোত্রের মধ্যে একটি। ২০০৮ সালের সরকার অনুমোদিত এক রিপোর্টে এসব গোত্রকে ‘ভারতীয় সমাজের সবথেকে ঝুঁকির মুখে থাকা ও সুবিধাবঞ্চিত অংশ’ হিসেবে ব্যাখ্যা করা হয়। এদের বলা হয়, ডিএনটি বা ডিনোটিফাইড অ্যান্ড নোম্যাডিক ট্রাইবস (বিমুক্ত ও যাযাবর জাতি)। সমাজে এখনও তারা বৃটিশ ঔপনিবেশিক যুগের শ্রেণিকরণ: অপরাধী জাতিসমূহ (ক্রিমিনাল ট্রাইবস) হিসেবে পরিচিত।
১৮৭১ এর ক্রিমিন্যাল ট্রাইবস অ্যাক্টের পর অনেকগুলো গোত্রকে ‘বংশানুক্রমিক অপরাধী’ হিসেবে আখ্যা দেয়া হয়। উপার্জনের স্বাভাবিক ক্ষেত্রগুলো থেকে তাদের সরিয়ে রাখা হয়। রাষ্ট্র-আরোপিত নানা ধরণের নিপীড়নে ঝুঁকির মুখে পড়ে যায় এসব গোত্র।
১৯৪৭ সালে ভারতের স্বাধীনতার পর ‘কলঙ্ক চিহ্নিত’ এসব গোত্রকে ‘বিমুক্ত’ (ডিনোটিফাইড) করা হয়। তবে, অ্যাকাডেমিক মিনা রাধাকৃষ্ণের ভাষায় ‘ঐতিহাসিক প্রতিকূলতাকে’ সরাতে ব্যর্থ হয়েছে তারা। সুবিধাবঞ্চিত বেশিরভাগ সম্প্রদায়ের জন্য নানা জনকল্যান কার্যক্রম রাখা আছে। এসব গোষ্ঠীকে শিডিউলড কাস্টস (এসসি) অ্যান্ড ট্রাইবস (এসটি) হিসেবে শ্রেণিভুক্ত করা। কিন্তু, পের্নাদের মতো আনুষ্ঠানিকভাবে মনোনীত ডিএনটি সম্প্রদায়ও অনেক সময় এসব সুযোগ পায় না যারা ‘এসসি’ হিসেবে স্বীকৃত। নাজাফগড়ের পের্না সম্প্রদায়ের সঙ্গে সময় অতিবাহিত করা নৃতত্ববিদ সুবির রানা বলেন, ‘সাবেক-অপরাধী জাতি হিসেবে কলঙ্কের দাগ থাকার কারণে সরকারী কার্যক্রমের প্রাপ্য দাবি করা এদের জন্য কঠিন।’ তাদের অতীত এই সম্প্রদায়কে শুধু রাষ্ট্র নিয়ে সতর্ক থাকা শিখিয়েছে তা নয়, বরং মূলধারার সমাজ থেকে বিচ্ছিন্নতার ফলে অনেকেই নিজেদের অধিকার নিয়ে অবহিত নয়। উদাহরণস্বরূপ, সরকারি সুবিধা প্রাপ্তির যোগ্যতা প্রমাণে প্রয়োজনীয় ‘কাস্ট সার্টিফিকেট’ পাওয়াটা কঠিন যখন কি না গোত্রের অনেক সদস্যদের কাছে কোন সরকারি পরিচয়পত্রই নেই। আপনে আপ এনজিও যখন ডকুমেন্টেশন উন্নত করার প্রচারণা শুরু করে তখন পের্না সম্প্রদায়ের মাত্র চার থেকে পাঁচ জনের কাছে ‘এসসি’ হিসেবে স্বীকৃতির সনদ ছিল। সে সংখ্যা বেড়ে এখন ৩০ এর কোঠায়। তবে কর্মীদের ভাষ্য এটা করতে গিয়ে অনেক বেগ পেতে হয়েছে। বিমুক্ত, যাযাবর, ও আধা-যাযাবর গোত্রগুলোর জন্য অস্থায়ী জাতীয় কমিশনের সদস্য-সচিব বিকে প্রসাদ বলেন, ‘সরকার সবসময় এসব মানুষের কাছে যাওয়ার সর্বোচ্চ চেষ্টা করে। কিন্তু এদেরকেও সরকারের কাছে আসতে হবে। বেশিরভাগ সময় তারা আসে না।’ ডিএনটি-দের নিয়ে বিশেষ দৃষ্টিভঙ্গি ও পদক্ষেপ প্রয়োজন বলে স্বীকার করেন তিনি। নতুন কমিশন তথ্যগত বিরাট ঘাটতির সমস্যাটি সমাধা করাকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে। এ মুহুর্তে বিমুক্ত সম্প্রদায়কে নিয়ে সারাদেশের জনসংখ্যাতাত্ত্বিক বিশ্বাসযোগ্য তথ্য নেই। প্রথম কাজ হলো ডিএনটি সম্প্রদায়গুলোর সমন্বিত একটি তালিকা প্রস্তুত করা। মি. প্রসাদের মতে চূড়ান্ত লক্ষ্য হলো ‘তাদের এমনভাবে সমাজের মূলধারায় নিয়ে আসা উচিত যা তাদের জন্য অনেক বেশি কোন পরিবর্তন হবে না।’ যৌন ব্যবসায় ঢুকে যাওয়া ডিএনটি সম্প্রদায়কে সমাজের মূলধারায় নিয়ে আসার প্রস্তাব বাস্তবায়ন করাটা হবে জটিল। বংশপরম্পরায় যৌন ব্যবসায় লিপ্ত ডিএনটি সম্প্রদায়দের নিয়ে গবেষণা করা সমাজবিজ্ঞানী আনুজা আগারওয়াল বলেন, ‘এমন একটি ব্যবসার সঙ্গে জড়িত থাকলে সমাজের মূলধারায় অঙ্গীভূত হওয়া অত্যন্ত কঠিন। দেহবিক্রির কাজ ছেড়ে দেয়া তখনই বাস্তব হতে পারে যখন সমন্বিত জোরালো প্রচেষ্টা চালানো হয়; যখন বিকল্প সুযোগগুলো প্রাপ্তিসাধ্য হয়।’
পরিবর্তনের প্রথম লক্ষণ:সাপেরা গোত্র নামে নাজাফগড়ের আরেকটি ডিএনটি সম্প্রদায় ঐতিহ্যগতভাবে সাপুড়ে ও বিয়ে বাড়িতে ঢোল বাজানোর কাজ করে। এই গোত্রের এক তরুণীর মুখে তাদের পেরনা প্রতিবেশীদের কলঙ্ক নিয়ে ব্যাখ্যা শোনা গেলো। পেরনাদের নিয়ে খারাপ কোন কথা তিনি বলেননি। তিনি বলেন, ‘এটা তাদের পেশা। এছাড়া তারা জীবনধারণ করবে কিভাবে? তবে, তিনিও স্বীকার করলেন, ‘তারা এমন ‘ভুল কাজ’ করে বলে সাধারণ গোত্রের (নন-ডিএনটি) মানুষ ক্ষুব্ধ হয়।’ আপনে আপের মাঠ পর্যায়ের কর্মীরা জানাচ্ছেন যে, পের্নাদের উপেক্ষা করা হয়। এড়িয়ে যাওয়া হয়। বিভিন্ন দোকানে তাদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। মি. প্রসাদের প্রস্তাব হলো পের্না পরিবারগুলোর পরিবেশ থেকে অল্পবয়সী মেয়েদের সরিয়ে নেয়া। তিনি বলেন, ‘আমরা যদি শিশুদের তাদের পরিবারের সঙ্গ মুক্ত করতে পারি তাহলে তাদেরকে সরকারী স্কুলে ভর্তি করে দিতে হবে। কেননা, একটা বয়সের পর গিয়ে ধীর ধীরে তারা নিজেদের পিতামাতাকে অনুসরণ করবে। শিশুরা তাদের চারপাশে চলমান ঘটনাপ্রবাহ আত্মস্থ করে।’ তিনি আরও বলেন, ‘এই পরিবর্তন হবে ধীরে। এটা সত্যি যে হাই স্কুল পর্যন্ত শিক্ষিত সবাই ভালো চাকরি পায় না।’ তার অনুমান, যদি ১০ শতাংশ নতুন ধরনের জীবন গড়ার চেষ্টা করে তাহলে হয়তো ২ শতাংশ সফল হবে। প্রসাদের এই প্রস্তাবের সঙ্গে রুচিরা গুপ্তর দৃষ্টিভঙ্গির মিল রয়েছে। লীলার ১৪ বছর বয়সী ছোট মেয়েটি এখন আপনে আপের একটি বৃত্তি নিয়ে বেসরকারী বোর্ডিং স্কুলে পড়াশোনা করছে।
[আল-জাজিরায় প্রকাশিত নিবন্ধ অবলম্বনে। নিবন্ধে ব্যক্তিগত গোপনীয়তা রক্ষার্থে পরিবর্তিত নাম ব্যবহার করা হয়েছে।]

এই সংবাদটি 246 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com