জমিয়তের জীবন্ত দশজন কিংবদন্তি 

প্রকাশিত: ১২:৩৩ অপরাহ্ণ, জুন ২১, ২০২১

জমিয়তের জীবন্ত দশজন কিংবদন্তি 

 

লিখেছেন ফুযায়েল আহমদ:

(১)
ক্বারী মৌলানা আব্দুল খালিক আসআদি। জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের বর্তমান সহসভাপতি। আরজাবাদ মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতাদের মধ্যে একজন তিনিও। বাংলাদেশের ইসলামি আন্দোলন-সংগ্রামের চার যুগের স্বাক্ষী তিনি। স্বাধীন বাংলায় জমিয়তের প্রথম কমিটি থেকে চলমান কমিটি পর্যন্ত সব কয়টি কেন্দ্রীয় কমিটিতে উনার অংশগ্রহণ আছে। সদস্য, দফতর সম্পাদক, কোষাধ্যক্ষ, সহসভাপতি ছাড়াও সমসাময়িক অনেক দায়িত্ব পালন করছেন। আল্লামা শায়খে কৌড়িয়া ও আল্লামা শামসুদ্দিন কাসেমী রহ’দের ডানে-বামে থেকে মাঠে কাজ করতেন। বলতে গেলে বাংলাদেশের জমিয়তের বর্তমানে সবচেয়ে সিনিয়র ও অভিজ্ঞ তিনি।
দারুল উলুম দেওবন্দে বাংলদেশীদের ভর্তির জন্য আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী রহ’র পর এখন একমাত্র তিনি, যার সুপারিশকৃত স্বাক্ষর জরুরি।
শারীরিক ভাবে বয়োবৃদ্ধ হলেও দিল এখনো যুবকের মতো। বাংলাদেশে মাদানী পরিবারের ইস্তেকবাল কমিটির সভাপতি তিনি।
মুফতী ওয়াককাস সাহেবকে নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা থেকে তিনি কিছুটা সংগঠনে অনুপস্থিত হলেও চোখে পানি ও দিলচসপি নিয়ে আজও ঠিকে আছেন।
জাতির এই ক্লান্তিলগ্নে আমাদের এসব মুরব্বিদের পরামর্শ ও সরাসরি রাহনুমার অনেক অনেক দরকার।
আল্লাহপাক দুর্যোগময় পরিস্থিতিতে হযরতকে দেশ ও জাতীর খেদমতে কবুল করুন।

(২)
হযরত মাওলানা জহিরুল হক ভূইয়া। যাকে বলাহয় বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ। জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের বর্তমানে সবচেয়ে পুরাতন সহসভাপতি তিনি। ৮০’র দশকে তিনি জমিয়তের একই কমিটিতে মুফতী ওয়াককাস সাহেবের সঙ্গে সহসাধারণ সম্পাদক ছিলেন। আল্লামা হাফিজ্জী হুজুর রহ’কে নিয়ে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময় তিনি জমিয়তের পক্ষে সবচেয়ে গুরুদায়িত্ব আঞ্জাম দিয়েছিলেন। বাংলাদেশের ইসলামি আন্দোলন-সংগ্রামের এযাবৎ সবচেয়ে বড় কালের স্বাক্ষী তিনি।
স্বাধীন বাংলায় জমিয়তের প্রথম কমিটি থেকে চলমান কমিটি পর্যন্ত সব কয়টি কেন্দ্রীয় কমিটিতে উনার অংশগ্রহণ আছে।
জমিয়তের কাজ করতে গিয়ে নিজের বাসাবাড়ি কিংবা বৃহৎ একটি মাদরাসা স্থাপন করার চিন্তা কোনোদিন পরিলক্ষিত হয়নি। আজও সাভারের পাড়াগাঁয়ে একখণ্ড ভূমিতে একটি দরসগাহে দ্বীনি খেদমতে নিয়োজিত।
আল্লামা শায়খে কৌড়িয়া ও আল্লামা শামসুদ্দিন কাসেমী রহ’দের সাথে থেকে মাঠে ময়দানে কাজ করতেন। বলতে গেলে বাংলাদেশের জমিয়তের বর্তমানে সবচেয়ে সিনিয়র ও অভিজ্ঞদের একজন তিনি।
শারীরিক অসুস্থতা অনেকটা কাবু করে ফেললেও সংগঠনের জরুরি প্রয়োজনে আজও তিনি লাঠি হাতে উপস্থিত হন। মিটিংয়ে আগে আসা আর পরে যাওয়া তাঁর একটা বিশেষ গুণ।
এইতো সর্বশেষ নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে আলোচনার জন্য বঙ্গভবনে মহামান্য রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দলীয় প্রতিনিধি হয়ে অংশগ্রহণ, কাজী বশীর মিলনায়তনে জমিয়তের জাতীয় সম্মেলন, বিভিন্ন ইস্যুতে প্রেসক্লাবের মতবিনিময়, কেন্দ্রীয় শুরা বা আমেলার জরুরি মিটিংয়ে এই বয়সেও দেখা যায়।
জাতির এই ক্লান্তিলগ্নে আমাদের এসব মুরব্বিদের পরামর্শ ও সরাসরি রাহনুমার অনেক অনেক দরকার।
আল্লাহপাক দুর্যোগময় পরিস্থিতিতে হযরতকে দেশ ও জাতীর খেদমতে নিয়োজিত রেখেছেন।

(৩)

শায়খুল হাদীস আল্লামা মকদ্দছ আলী।
তিনি জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের একজন প্রবীণ মুরব্বি। ৬৪ বছর থেকে একাধারে বোখারী শরীফ এর দরস দিচ্ছেন তিনি। আল্লামা হুসাইন আহমদ মাদানী রহ’র খাস সাগরেদ ও খাদিম ছিলেন। বাংলাদেশে বর্তমানে একজন বিরল ব্যক্তি তিনি, যিনি দারুল উলুম দেওবন্দ থেকে ১৯৫৬ সনে ফারেগ হয়ে মাতৃভূমিতে আসার বছর থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত একাধারে বোখারী শরীফ ১’ম এর দরস দিচ্ছেন। দেশে বর্তমানে ৬৪ বছর একাধারে দরসে বোখারী পড়াচ্ছেন বা এমন কৃতিত্বের অধিকারী আর কেউ আছেন কি না আমাদের জানা নেই।
প্রচার বিমুখ এই শায়েখ আল্লামা শায়খে কৌড়িয়া রহ’র এর খলিফাদের সিরিয়ালের ১ম খলিফা।
নীতিতে চলতে তিনি এতোটাই কঠোর, যা একটিমাত্র বিষয় থেকে বুঝা যায়।
বাংলাদেশে আল্লামা হুসাইন আহমদ মাদানি রহ’র খলিফাদের মধ্যে আল্লামা মামরখানি রহ’ একমাত্র ব্যক্তি ছিলেন যিনি শেষ বয়সে রাজনৈতিক প্লাটফর্ম হিসেবে জমিয়তের মোখালিফ হয়ে কাজ করেছেন। সিলেটের প্রাচীন ও ঐতিহাসিক একটি মাদরাসা হলো মুন্সিবাজার মাদরাসা। এই মাদরাসার আমৃত্যু পরিচালক বা মুহতামিম ছিলেন খলিফায়ে মাদানী আল্লামা মামরখানি। তখন একই মাদরাসার শায়খুল হাদীস ছিলেন আল্লামা মকদ্দছ আলী হাফিজাহুল্লাহ। সেসময় আল্লামা আজিজুল হক সাহেবগং জমিয়ত ছেড়ে বহু উত্থান পতনের পর ‘বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস’ প্রতিষ্ঠা করলেন। তখন খলিফায়ে মাদানী আল্লামা মামরখানি রহ’ জমিয়ত ছেড়ে মজলিসে যুক্ত হয়ে ময়দানে কাজ শুরু করলেন। সাথে একঝাঁক আলেম উলামাও হযরতের সাথে মজলিসে চলে গেলেন। আল্লামা আজিজুল হক সহ দেশের কয়েকজন বিশিষ্টজনের কারনে দেশে তখন মজলিসের একটা সম্ভাবনা তৈরি হয়ে উঠেছিলো।
সেসময় আল্লামা মকদ্দছ আলীকেও অনেকে বললেন “আপনি একই মাদরাসার শায়খুল হাদীস। আর শায়খে মামরখানি হলেন মুহতামিম। তো মুহতামিম সাব যেহেতু জমিয়ত ছেড়ে গেছেন, আপনিও চলে আসেন”। উত্তরে তিনি বলেছিলেন “আমি হঠাৎ কোনো উত্থান দেখে কি আমার পীর ও মুর্শিদ আল্লামা মাদানি রহ’ এর আমানতের খেয়ানত করব? অসম্ভব, যদি দেশে আর কেউ জমিয়ত না করেন, তবুও আমি আমৃত্যু আমার শায়খের বাতানো সিয়াসি পথেই চলবো”। তাইতো তিনি আজও জমিয়ত করেন। তিনি এখনো সেই মুন্সিবাজারের শায়খুল হাদীস। সাথে এখন মুহতামিমও।
আল্লামা বায়মপুরী রহ’র নির্বাচন, আল্লামা হাফিজ্জী হুজুর রহ’র প্রেসিডেন্ট নির্বাচন সহ সমসাময়িক সকল প্রয়োজনে তিনি অতীতে যেমন জমিয়তের প্রতিনিধিত্ব করেছেন, আজও করে যাচ্ছেন।
শারীরিক অসুস্থতা অনেকটা কাবু করে ফেললেও সংগঠনের জরুরতে যে কেউ এখনো গেলে একটা সমুজ দিয়ে বিদায় দেন।
জাতির এই ক্লান্তিলগ্নে আমাদের এসব মুরব্বিদের কদর করা যেমন দরকার, তেমনি আগামীর জন্য পরামর্শ ও সরাসরি রাহনুমার অনেক অনেক বেশি দরকার। আল্লাহপাক দুর্যোগময় পরিস্থিতিতে হযরতকে দেশ ও জাতীর খেদমতে কবুল করুন।

(৪)

হযরত মাওলানা আলিমুদ্দিন দুর্লভপুরী। ১৯৯৬ সালে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের দলীয় প্রতীক খেজুর গাছ নিয়ে সিলেট-৫ সংসদীয় আসনে নির্বাচন করে বিপুল জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিলেন তিনি। দীর্ঘদিন সিলেট জেলার সভাপতি ছিলেন এবং একইসাথে কেন্দ্রীয় মুরব্বি ছিলেন, তখন জেলা সেক্রেটারি ছিলেন শায়খ জিয়া উদ্দিন সাহেব। ইলম ও আমলে তিনি এক অনন্য ব্যক্তি।
৮০’র দশকেই তিনি জমিয়তের বিভিন্ন পর্যায়ে দায়িত্বপালন শুরু করেন।
আল্লামা শায়খে কৌড়িয়া রহ’র উনাকে খুব মহব্বত করতেন এবং আল্লামা শামসুদ্দিন কাসেমী রহ’র সাথেও ছিলো ঘনিষ্ঠতা। শুরু থেকেই উনাদের নেতৃত্বে মাঠে ময়দানে কাজ করতেন। বলতে গেলে সিলেটের জমিনে জমিয়তের যা রূপ-লাবণ্যে আছে, তাতে উনার রন্ধ্রে রন্ধ্রে অবদান আছে।
২০০০-১ সালের চারদলীয় জোট গঠন ও জোটে জমিয়তের অংশগ্রহণ নিয়ে সাংগঠনিক মতানৈক্যের কারণে তিনি রাজনৈতিক ময়দান থেকে কিছুটা ছিটকে পড়লেও অরাজনৈতিক ভাবে এখনো মাঠে ময়দানে তাঁর সরব উপস্থিতি আছে৷ জামায়াতে ইসলামী সহ ফেরাকে বাতিলার বিরুদ্ধে তিনি কট্টরপন্থা অবলম্বন করেন।
শারীরিক ভাবে এখনো এতোটাই সুস্থ আছেন যে লাঠি,খাদিম ছাড়াও চলতে পারেন এবং চশমা ছাড়া পড়তে পারেন।
আল্লামা বায়মপুরী রহ’র স্মৃতিবিজড়িত ঐতিহ্যবাহি কানাইঘাট দারুল উলুম মাদরাসার শায়খুল হাদীস তিনি।
জাতির এই ক্লান্তিলগ্নে আমাদের এসব মুরব্বিদের পরামর্শ ও সরাসরি রাহনুমার অনেক অনেক দরকার।
আল্লাহপাক দুর্যোগময় পরিস্থিতিতে হযরতকে দেশ ও জাতীর খেদমতে কবুল করুন।

(৫)
মাওলানা শায়খ জিয়া উদ্দিন। মুফাক্কিরে ইসলাম উপাধি হলেও নাজিম সাব হুজুর নামে বেশ পরিচিত।
জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের চলমান সেশনের অন্যতম সহসভাপতি ও বর্তমান ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তিনি। জামেয়া মাদানিয়া আঙ্গুরা মাদরাসার মুহতামিম ও নাজিমে তা’লিমাত তিনি।
তাৎক্ষণিক বুদ্ধিমত্তা ও চিন্তক এই আলেমের রাজনৈতিক অতীত অনেকটা প্রভাবিত। ৯০’র দশকের শুরুর দিকে তিনি নিজ জন্মস্থান বিয়ানীবাজার উপজেলা জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন এবং জেলা শাখারও ছিলেন সিনিয়র নেতা।তখন জেলা সেক্রেটারি ছিলেন মাওলানা মনসুরুল হাসান রায়পুরি এবং কেন্দ্রীয় মহাসচিব ছিলেন মরহুম মুফতী মোহাম্মদ ওয়াককাস সাহেব রহ’।

এরপর ধারাবাহিক ভাবে তিনি জেলা সেক্রেটারি, জেলা সিনিয়র সহসভাপতি, জেলা সভাপতি, কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব, কেন্দ্রীয় সহসভাপতি হিসাবে সংগঠনের গুরু দায়িত্ব পালন করেন। বাংলাদেশের জমিয়তি রাজনীতিতে তাঁর দু’টি কৃতিত্ব বিদ্যমান।
১. তাঁর ছাত্ররা প্রায়ই জমিয়ত সাপোর্টার। ২. তিনি ছাত্রদের মধ্যে ক্লাসিকাল মেধার সাথে পলিটিকাল মেধাকেও সুনজরে দেখেন।
তথ্যমতে ৮০’র দশকের শেষের দিক থেকে এযাবৎ সিলেটের সবকয়টি আন্দোলন-সংগ্রামে তিনি প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে নেতৃত্বের সারিতে ছিলেন এবং আছেন। হেফাজতে ইসলামের ২০১৩-২০ সেশনে তিনি সিলেট জেলা সেক্রেটারি ও কেন্দ্রীয় নাইবে আমির এবং সর্বশেষ কেন্দ্রীয় কমিটির উপদেষ্টা ছিলেন।
জমিয়তের কাজ করতে গিয়ে অনেক সময় নিজের বাসাবাড়ি, পরিবার কিংবা তাঁর বৃহৎ মাদরাসাটির অনেক জরুরতকে তিনি পিছনে রাখতেও দ্বিধা করতেননা।
উনার হাত ধরেই মূলত জামেয়া মাদানিয়া আঙ্গুরা আজ দেশের বিখ্যাত প্রতিষ্ঠান।এজন্য তাঁকে মানুষ গড়ার কারিগর বলে সম্বোধন করা হয়।
আল্লামা শায়খে কৌড়িয়া ও আল্লামা আব্দুল্লাহ হরিপুরী রহ’গনের সাথে থেকে ময়াদানে কাজ করেছেন। এছাড়া তিনি ভারতীয় নদী আগ্রাসন প্রতিরোধ সহ দেশ জাতির কল্যাণে অনেক ভূমিকা রেখেছেন।
শারীরিক অসুস্থতা ব্যাপক হলেও মানবিক দৃড়তা আজও যৌবনে।
কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হওয়ার পর থেকে জাতীয় রাজনীতিতে তৎপরতা লক্ষনীয়। দায়িত্ব পালনে তাঁর মধ্যে একপ্রকার চাঞ্চল্যতা সব সময়ে বিদ্যমান ছিলো। তাইতো জমিয়তের দরকারে এই বয়সেও এই সেই মফস্বলে থেকেও রাজধানীতে যেতে দেখা যায়।
জাতির এই ক্লান্তিলগ্নে আমাদের এসব মুরব্বিদের অনেক অনেক দরকার।
আল্লাহপাক দুর্যোগময় পরিস্থিতিতে হযরতকে দেশ ও জাতীর খেদমতে কবুল করুন।

(৬)
শায়খুল হাদীস হাফিজ মনসুরুল হাসান রায়পুরী। গ্রামের বাড়ি মৌলভীবাজার জেলায় হলেও জীবন যৌবনের প্রায় সবটুকুই সিলেট শহর কেন্দ্রিক। তাঁর পিতা ছিলেন খলিফায়ে মাদানী।
প্রখর মেধার অধিকারী এই আলেমের জীবনটাই রাজপথে বিলীয়ে দিয়েছেন। ১৯৮৬-৮৭ সালেই তিনি কেন্দ্রীয় জমিয়তের সহ সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। তখন সাধারণ সম্পাদক ছিলেন আল্লামা শামছুদ্দীন কাসেমী রহ’। তথ্যমতে আল্লামা আব্দুল্লাহ হরিপুরী রহ’ যখন সিলেট সদর জমিয়তের সভাপতি তখনো মাওলানা রায়পুরী ছিলেন সিলেট জেলা জমিয়তের সেক্রেটারি।
সিলেট শহরকে মহানগরী ঘোষণার পর থেকে তিনি একাধিক মেয়াদে মহানগরীর সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। এরপর কয়েকদফা কেন্দ্রীয় সহসভাপতি ছিলেন।
পেশায় শিক্ষকতা ও লাইব্রেরি ব্যবসায়ী। আল্লামা হুসাইন আহমদ মাদানী রহ’ দারুল উলুম দেওবন্দ থেকে যখন সিলেট আসলেন, তখন তিনি দীর্ঘদিন যে যায়গায় দরসে হাদীস ও তাসাওফের শিক্ষা দিয়েছিলেন সেটা হলো ‘দারুল হাদীস আল- মাদানিয়া’। আল্লামা মাদানী রহ’ আবারো দারুল উলুম দেওবন্দে প্রত্যাবর্তনে পর আল্লামা মাদানীর সেই স্মৃতি বিজড়িত শহরের নয়াসড়কস্থ ‘দারুল হাদী আল- মাদানীয়া’য় শায়খে কাতীয়ার নেতৃত্বে দেশ বিখ্যাত আলেমগণ দরসে হাদীস ও তাসাউফের তা’লীম অব্যাহত রাখতেন। আল্লামা শায়খে কাতিয়ার ইন্তেকালের পর মাওলানা মনসুরুল হাসান রায়পুরী সাহেব ছিলেন খানকায়ে মাদানীয়ার শায়খুল হাদীস ও পরিচালক।
এছাড়া শহরের সিলেট জেলরোড জামে মসজিদের খতীব, শহরের কুদরতুল্লাহ মার্কেটের প্রাচীন প্রতিষ্ঠান হুসাইনিয়া কুতুবখানার স্বত্বাধিকারী তিনি। তাঁর কুতুবখানায় আরবী বা ফার্সী ভাষার অনেক ঐতিহাসিক ও বিরল কিতাব পাওয়া যায় বলে লোকমুখে শুনা যায়।
আমার স্মরণে পড়ে ২০১০ সালে তাঁর একটি কথা ” রাজনৈতিক দলের মূল পদে পেশাদার সংগঠক নাহলে দল সময়ে সময়ে বাঁধাগ্রস্থ হবেই। এজন্য আমি আমাদের সংগঠনের মূল পদ সমুহে পেশাদারিত্ব আনতে মেহনত করে যাচ্ছি”।
তাঁর সেই কথাটি দেশের চলমান পরিস্থিতিতে অনেক গুরুত্বপূর্ণ বটে।

জমিয়তের সাংগঠনিক মতবিরোধে ২০১৭সালে আল্লামা মুফতী ওয়াককাস সাহেব রহ’ এর নেতৃত্বে পৃথক কমিটি গঠন হলে তিনিও মুফতী সাহেবের সাথে চলে যান। আল্লামা মুফতী ওয়াককাস সাহেব ইন্তেকালের পরথেকে তিনি সেই কমিটিতে ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। চিন্তা-চেতনা ও আদর্শে জমিয়তের উভয় ধারায় কোনো পার্থক্য না থাকলেও মূলত ছিলো তা অভিমানি দূরত্ব। বর্তমানে এর প্রয়োজনীয়তা ও যৌক্তিকতার কোনো সদুত্তর নেই কারো কাছে ।
জাতির এই ক্লান্তিলগ্নে আমাদের এসব মুরব্বিদের ঐক্যবদ্ধ থাকা অনেক অনেক দরকার।
আল্লাহপাক দুর্যোগময় পরিস্থিতিতে তাঁকে দেশ ও জাতীর খেদমতে কবুল করুন।

(৭)
শায়খুল হাদীস মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক । তাঁর পিতা ছিলেন বুজুর্গ আলেম, জমিয়তের একজন নিবেদিত পুরুষ আল্লামা শফিকুল হক আকুনী রহ:।
প্রখর মেধার অধিকারী মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক এর পরিচিতি দেশব্যাপী বিদ্যমান। ইসলামের ইতিহাস ও ইসলামি দেশগুলোর মানচিত্র ও ঐতিহ্য বিষয়ে উনাকে বর্তমান সময়ে একজন দার্শনিক বলা যায়।
স্বাধীনতার পর থেকে জমিয়তের সবচেয়ে দীর্ঘ সময় তিনি সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। বর্তমান অন্যতম সহসভাপতি ও নীতিনির্ধারক। তিনি রাজপথে মিছিল, মিটিংয়ের চেয়ে প্রশিক্ষণ মূলক ও শাখা- প্রশাখা বিস্তার নিয়ে কাজ করেন বেশি। দলকে স্থানীয় বা জাতীয় নির্বাচন মুখী করতে তিনি বেশ তৎপর। নিজেও দুই দুইবার জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। সিলেট-৫ সংসদীয় আসন থেকে ২০০৮ সালে দলীয় প্রতীক খেজুর গাছ নিয়ে এবং ২০১৮ সালে জাতীয় ঐক্য ফ্রন্ট ও ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী হয়ে লক্ষাধিক ভোট অর্জন করেন।

এছাড়া সমসাময়িক ইস্যু কিংবা রাষ্ট্রের প্রণীত পলিসিতে ধর্ম, দেশ ও জাতির ক্ষতি কিংবা সম্ভাবনা নিয়ে তাঁর বিশ্লেষণ আজহোক বা কাল প্রতিফলন হবেই।

পাকিস্তানে জমিয়তের ঐতিহাসিক শতবার্ষিকী সম্মেলনে বাংলাদেশ জমিয়তের প্রতিনিধি দলের নেতা হয়ে অর্ধ কোটি জনতা ও বিশ্বের বরেণ্য ব্যক্তিবর্গের সম্মুখে ‘ইতিহাস -ঐতিহ্য, করণীয় ও সম্ভাবণা’ নিয়ে উর্দু ভাষায় ভাষন দিয়ে বাংলাদেশের জমিয়তকে সম্মানিত করেছিলেন তিনি।

রাজধানীর বারিধারা মাদরাসার শায়খুল হাদীস। এছাড়া সিলেট শহরের জামিয়া দারুল কুরআন মাদরাসা, রাজধানীর মিরপুর মাদানীয়া মাদরাসা সহ বেশ কয়কটি মাদরাসার তিনি শায়খে আউয়াল।
দারুল উলুম দেওবন্দ ফারেগ এই আলেম উসুল ঠিক রাখতে বৃহত্তম অনেক স্বার্থ বিসর্জন দিতে পিছপা হননা।

দাওয়াতুত তাবলীগে মাওলানা সাদ সাহেব ও তার মতবাদ নিয়ে সৃষ্ট জটিলতায় করণীয়, যৌক্তিকতা ও মৌলিকতা প্রমান দিয়ে কুরআন -সুন্নাহের আলোকে একাধিক বই লিখে অস্পষ্ট বিষয়কে তিনি জাতির সামনে স্পষ্ট করে তুলেন। বলতে গেলে এই ফিতনা দূরকরতে তিনি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন।
দারুলউলুম দেওবন্দের সাথে সরাসরি নিয়মিত যোগাযোগ ও সিনিয়র উলামা হযরাতদের সাথে সু সম্পর্ক এখনো বিদ্যমান।

একজন ইসলামি লেখক হিসাবে তিনি বেশ পরিচিত। বাংলা ভাষার পাশাপাশি তিনি উর্দু ও আরবি ভাষায় বেশ কয়েকটি মূল্যবান গ্রন্থ লিখেন। তাঁর লিখিত আরবি গ্রন্থ ‘খুলাসাতুল আসার’ বর্তমানে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান সহ ইউরোপ ও আফ্রিকার কিছু কিছু মাদরাসায় নিয়মিত পড়ানো হয়।
এছাড় মওদূদীবাদ, কাদিয়ানীবাদ, শিয়া বাদ সহ ফিরাকে বাতিলা নিয়ে তাঁর লিখিত কয়েক খানা বই বিদ্যমান।

আল্লাহপাক জাতির এই দুর্যোগময় পরিস্থিতিতে তাঁকে দেশ ও জাতীর রাহবারি ও সঠিক নেতৃত্বের জন্য খেদমতে কবুল করুন।

(৮)

শায়খুল হাদীস মাওলানা নুরুল ইসলাম খান। কেন্দ্রীয় কমিটির বর্তমান সহসভাপতি। যার অনর্গল আরবি খুৎবা শুনে বড়রাও বলেন ‘বর্তমান সময়ের ইমাম বোখারী’। তাঁকে এ’যুগের কাশ্মীরি হিসেবে ভ্রাম্যমাণ কুতুবখানা বললেও ভুল হবেনা।
খলীফায়ে মাদানী, মাদফুনে মাক্কি, আল্লামা আব্দুল হক গাজীনগরী রহ’র স্মৃতিবিজড়িত সুনামগঞ্জের দরগাহপুর মাদরাসার মহাপরিচালক ও শায়খুল হাদীস তিনি। সুনামগঞ্জ জেলা জমিয়তের দীর্ঘ দিনের সভাপতি ছিলেন। সেই এরশাদ সরকার পতনের যুগ থেকেই উনি সংগঠনে নেতৃস্থানীয় দায়িত্ব পালন করছেন।
মুফতীয়ে আজম আল্লামা শফী সাহেব, হাফিজুল হাদীস আল্লামা আব্দুল্লাহ দরখাস্তি সহ জগৎ বিখ্যাত বাহরুল উলুমদের সোহবত প্রাপ্ত এই শায়েখ বিশ্ববিখ্যাত দায়ী মুফতী মাহমুদ রহ’ খাস ছাত্র ছিলেন। তিনি দরসের মসনদে যেমন অনন্য, তেমনি রাজনীতির ময়দানে তিনি তাগড়া যুবকের মতো ত্যজদীপ্ত।
বয়স ৮০ প্লাস হলেও কখনো কখনো লাঠি ছাড়া চলতেও দেখ যায়। তিনি নিজেকে মিডিয়া আর ক্যমেরার সামনে আনতে আগ্রহী না হলেও দেশ ও জাতির খবরাখবর তিনি নিয়মিত রাখেন। এছাড়াও রাখেন আন্তর্জাতিক অঙ্গনের সমসাময়িক খবরাখবরও । তিনি অত্যন্ত চৌকস আলেম। সার্বক্ষণিক সতর্কতা অবলম্বন করে চলেন। তাঁর অসংখ্য ছাত্র দেশের বিভিন্ন মাদরাসায় শায়খুল হাদীস হিসাবে দরস দিচ্ছেন।
সাদাসিধে জীবন যাপনে অভ্যস্ত তিনি। এতবড় একজন আলেমের চলাফেরা দেখলে যে কেউ থমকে যাবে। কখনো পায়দল, কখনো রিকশায় চড়ে কিংবা লোকাল বাসেও চলতে দেখা যায়।
হেফাজতে ইসলামের সদস্য বিলুপ্ত কমিটির নায়েবে আমীর ছিলেন।
আল্লাহ তায়ালা তাঁকে নেক হায়তের সাথে জাতির এই কঠিন মূহুর্তে জমিয়তের অগ্রগতির জন্য কবুল করুন।

(৯)
হযরত মাওলানা খালেদ সাইফুল্লাহ সাদী।
ময়মনসিংহ জেলা জমিয়তের বারবার নির্বাচিত সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যতম সহসভাপতি তিনি।
ইতিমধ্যে কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব সহ বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি বৃহত্তর ময়মনসিংহের অরাজনৈতিক সর্ববৃহৎ সংগঠন ‘ইত্তেফাকুল উলামা’র সভাপতি হিসেবে স্থানীয় পর্যায়ে যেমন প্রভাবশালী একজন নেতা, তেমনি বেফাকের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে দেশব্যাপী একজন গ্রহণযোগ্য সংগঠক।
আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী রহ’র মুখে বিভিন্ন উদাহরণে বারবার উনার কথা বলতে শুনেছি। তিনি এমনি একজন প্রভাবশালী নেতা হয়েও সাদামাটা জীবনযাপন করেন।
তাঁর হাটা বা চলাফেরা দেখলে যে কেউ তাগড়া যুবক মনে করবে। কথার মধ্যে টক-মিষ্টি-ঝাল মিশ্রণ। যা বলার সামনে বলেন, যা করার প্রকাশ্যে করেন। সুবিধা অসুবিধা নিয়ে সোজাসাপটা কথাবলার এমন লোক খুব একটা পাওয়া যায়না।
দরসের ময়দানে যেমন একজন শায়খুল হাদীস তিনি, তেমনি একজন বিজ্ঞ পরিচালক।
বয়ানের ময়দানে তিনি দেশের শীর্ষ কয়েকজনের একজন, অর্থাৎ তিনি একজন প্রসিদ্ধ ওয়াইজ।
হেফাজতে ইসলামের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর ও জেলা আমীর ছিলেন। বর্তমানে তিনি কারাগারের অন্ধকার প্রকোষ্ঠে বন্দী।
আল্লাহ তায়ালা তাঁকে আবারো ময়দানে ফিরে পুরো জাতির দাওয়াতি জিম্মাদার হিসাবে কবুল করুন।

(১০)
মাওলানা শাহীনূর পাশা চৌধুরী এডভোকেট। বর্তমান জমিয়তের একমাত্র সাবেক জাতীয় সংসদ সদস্য। জন্মের পর সোনার চামচ মূখে দেয়া পাশা ভাইয়ের জীবনটাও যেমন সোনালী ইতিহাসের অংশ। ব্যক্তি জীবনে সকলকে কারো পছন্দ নাও হতে পারে, কিন্তু (স্বার্থান্বেষী ছাড়া) পাশা ভাইকে পছন্দ করেননা এমন লোক খুব কম পাওয়া যায়।
তখনকার দিনে আজকের মতে আগের রাতে ভোট হতোনা, এমনকি জনগণের ভোট পুলিশও দিতো না। সেসময় আওয়ামিলীগের ঘাঁটি খ্যাত সুনামগঞ্জ -৩ আসন থেকে জাতীয় নেতা আব্দুস ছামাদ আযাদ সাহেবের মতো জাদরেল নেতার সাথে ভোট যুদ্ধে হাড্ডা হাড্ডি লড়াই করার মত ব্যক্তি হলেন আমাদের পাশা ভাই।
৮০’র দশকে বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ ছাত্র আন্দোলন ‘মুসলিম ছাত্র পরিষদ বাংলাদেশ ‘ এর কেন্দ্রীয় সেক্রেটারি জেনারেল ছিলেন। এরপর ছাত্র জমিয়তের কেন্দ্রীয় সেক্রেটারি জেনারেল পরে যুব জমিয়তের সেক্রেটারি জেনারেল পরে হলেন সভাপতি। যুব জমিয়তের সভাপতি থাকাকালীন ‘সচিবালয় ঘেরাও কর্মসূচি’ পালন করে আলোচিত হয়েছিলেন তিনি।
জমিয়তের সুনামগঞ্জ জেলার সাবেক সাধারণ সম্পাদক, কেন্দ্রীয় সাবেক সাহিত্য সম্পাদক, যুগ্ম মহাসচিব, ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব ছিলেন। বর্তমানে সুনামগঞ্জ জেলা সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সহসভাপতি ।
একজন কর্মী বান্ধব নেতা ও তৃণমূলের প্রাণ।
কওমী অঙ্গনের একমাত্র প্রাক্তন ছাত্রনেতা তিনি, যিনি সাচ্চা ভোটে নির্বাচিত হয়ে জাতীয় সংসদ পর্যন্ত পৌঁছার ইতিহাস রচনা করেন। দেওবন্দি ধারার ইতিমধ্যে বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে যাওয়ার ক্রমে প্রথম আলেম মরহুম মুফতী মোহাম্মদ ওয়াককাস সাহেব(৮৬), পরে মরহুম ওবায়দুল হক এমপি সাব(৯১), মরহুম মুফতি আমিনী সাহেব (২০০১)ও মাওলানা মুফতী শহীদুল ইসলাম(২০০১) ও মাওলানা শাহীনূর পাশা চৌধুরী(২০০৫) সাহেবদের মধ্যে একমাত্র পাশা ভাই ধারাবাহিক ছাত্রনেতা থেকে জাতীয় নেতা হয়েছিলেন।
সিলেটের দরগাহ মাদরাসা থেকে দাওরায়ে হাদীস পড়ে জেনারেল ধারায় সিলেট এমসি বিশ্ববিদ্যালয় ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা ভাষা ও আইন বিষয়ে ডাবল মাস্টার্স করেন তিনি। বর্তমানে সিলেট জজ কোর্টের তালিকাভুক্ত একজন আইনজীবি এবং ইউরোপের একটি স্বনামধন্য ইউনিভার্সিটি থেকে ‘ব্যারিষ্টার’ হতে লেখাপড়া চালিয়ে যাচ্ছেন।
তিনি কামাল বাজার রাগিব রাবেয়া কলেজের সাবেক বাংলা প্রভাষক ছিলেন। এছাড়া বিভিন্ন কলেজে খণ্ডকালীন লেকচারার ছিলেন।
জমিয়তের তরে কাটিয়েছেন জীবনের প্রায় সবকয়টি বসন্ত। এরশাদ পতনের আন্দোলন থেকে এযাবৎ এমন কোনো আন্দোলন পাওয়া যাবেনা, যেখানে পাশা ভাইয়ের অংশগ্রহণ নাই। ভারতীয় আগ্রাসনের বিরুদ্ধে আল্লামা মুহিউদ্দিন খাঁন সহ জাতীয় নেতাদের দিকনির্দেশনায় ‘টিপাই বাঁদ’ বিরোধী আন্দোলনের পরথেকে তিনি আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গোয়েন্দাদের নজরে আসেন।
রোহিঙ্গা ইস্যুতে মায়ানমার অভিমূখী আহুত লংমার্চ তাঁর জীবনের অন্যতম একটি কৃতিত্ব।
পাশা ভাইকে ময়দানে দেখলে তৃণমূলের মধ্যে জাগরণ তৈরি হয়। পাশা ভাইকে রাজপথে বা মিছিলে পেলে তরুণরা শিহরিত হয়ে উঠে।
জমিয়তকে ঐক্যে রাখার পক্ষে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে (আমরা স্বাক্ষী) ভূমিকা নেয়া তরুণ প্রজন্মের এই আইডলকেও স্বার্থান্বেষী কিছু লোকের আড়চোখে মাঝেমধ্যে পড়তে দেখাযায়।
তবুও তিনি অমর, তিনি জাগ্রত, তিনি ময়দানের বীর, তিনি তৃণমূলের প্রাণ।
জীবেনর পড়ন্ত বয়সে এসে দেখালেন আরেক চমক ‘জামিয়া দারুল কুরআন’ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে। যে প্রতিষ্ঠান শুরুথেকে দাওরায়ে হাদীস পর্যন্ত একসাথে ১৬ টি ক্লাসে পাঠদানের কৃতিত্ব বিদ্যমান। স্তান সংকুলান না হওয়া প্রতি বছর হাজারো ছাত্র ভর্তি থেকে মাহরুম হতে হয়।
মাদরাসার আমৃত্যু শায়খুল হাদীস ছিলেন সদরে জমিয়ত, শায়খে ইমামবাড়ী রহ’। আর বর্তমান শায়খুল হাদীস হলেন ফকীহে যামান আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক।
পাশা ভাই দেশের একমাত্র ঐতিহাসিক ব্যক্তি, যাকে মসজিদে এ’তেক্বাফ থেকে স্বৈরাচারী পুলিশ গ্রেফতার করে।

বর্তমানে তিনি কারাগারের অন্ধকার প্রকোষ্ঠে বন্দী। আল্লাহপাক তাঁকে হায়াতে তাইয়্যেবাহ দান করুণ এবং আমৃত্যু দেশ ও জাতির নেতৃত্বের জন্য কবুল করুন।

লিখেছেন
Fuzail Ahmed
প্রাক্তন প্রকাশনা সম্পাদক
কেন্দ্রীয় ছাত্র জমিয়ত।

এই সংবাদটি 393 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com