আমি দুঃখিত, তাকে জিজ্ঞাসা করা দরকার ছিল

প্রকাশিত: ১:৪৩ পূর্বাহ্ণ, জুন ২৩, ২০২১

আমি দুঃখিত, তাকে জিজ্ঞাসা করা দরকার ছিল

কূটনৈতিক রিপোর্টার:

পরিকল্পনামন্ত্রী ড. এম এ মান্নানের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝি প্রসঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন বলেছেন, সুনামগঞ্জের অভ্যন্তরীণ রাজনীতির বিষয়টি আমার জানা ছিল না। জানলে আমি ওই এলাকার ৫ জন এমপি’র পক্ষে ডিও দিতাম না। পরিকল্পনামন্ত্রীর সঙ্গে তার ৫০ বছরের বন্ধুত্ব দাবি করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন বলেন, ঢাকা-সিলেট রেললাইন প্রকল্প নিয়েই মূলত ভুল বোঝাবুঝি। কিন্তু এটা তো ছোট্ট বিষয়। এ নিয়ে এত বড় খবরে আমি বিস্মিত হয়েছি। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমি পরিকল্পনামন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলবো। মঙ্গলবার বিকালে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপে সমসাময়িক বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন মন্ত্রী। এ সময় পরিকল্পনামন্ত্রীর সঙ্গে দ্বন্দ্বের বিষয়টি পাবলিক ডেমেইনে আসার কারণ জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের মধ্যে কোনো দ্বন্দ্ব নেই।

উই হ্যাভ এ ভেরি সলিড রিলেশনশিপ। একটা ছোট ঘটনা নিয়ে এত হৈচৈ! ঢাকা-সিলেট রেললাইন অতি পুরনো উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, এটা একেবারে রদ্দিমাল। এ জন্য সরকার ঢাকা-সিলেট রেললাইনকে ব্রডগেজ করার একটা প্রকল্প হাতে নিয়েছে। কিন্তু ওই প্রকল্পের ব্যয় বেশি বলে তা স্থগিত হয়ে যায়।  রেলমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলে জেনেছি অনেক কারণে এই প্রকল্পের ব্যয় বেশি। যার অন্যতম হচ্ছে- পাহাড়ের মধ্য দিয়ে রেলপথটি যাবে বলে গার্ড ওয়াল নির্মাণ। সিলেট এলাকার নদীগুলো খরস্রোতা বলে রেলসেতুগুলোও চওড়া এবং মজবুত করতে হবে। এ ছাড়া সিলেটে ট্রেন রাখার জন্য একটি ডিপো নির্মাণের প্রস্তাবও ছিল এতে। মন্ত্রী মোমেন বলেন, প্রাথমিকভাবে রেলের এ প্রকল্প ১৬ হাজার কোটি টাকার ছিল। ডিপোসহ বেশ কিছু বিষয় বাদ দিয়ে সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা সাশ্রয়ের প্রস্তাব করি আমি। তখন রেলমন্ত্রী জানালেন সিলেটে যেহেতু ট্রেন শেষ হবে তাই ডিপো লাগবে। সুনামগঞ্জের পাঁচ সংসদ সদস্যের পক্ষে রেলমন্ত্রীর কাছে ডিও লেটার দেয়া প্রসঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সুনামগঞ্জ থেকে সাম্প্রতিক আমার পাঁচজন সংসদ সদস্য সহকর্মী অফিসে এসেছিলেন। তারা একটি আবেদনপত্র সঙ্গে আনেন। এতে তারা ওই রেলপথ ছাতক পর্যন্ত নেয়ার কথা উল্লেখ করেন। তখন তারা আমাকে জানালেন আমি যদি এ বিষয়ে রেলমন্ত্রীকে লিখি তারা খুশি হবেন। মন্ত্রী নিজেকে কানেক্টিভিটির বড় হোতা দাবি করে বলেন, আমি তো কানেক্টিভিটির পক্ষের লোক। আমরা বিশ্বাস করি কানেক্টিভিটি বাড়লে ব্যবসা-বাণিজ্যও বাড়বে। কিন্তু ওখানে যে অভ্যন্তরীণ রাজনীতি আছে তা আমার জানা ছিল না। অভ্যন্তরীণ রাজনীতি বলতে কি বুঝাতে চাইছেন? সম্পূরক প্রশ্নে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সুনামগঞ্জের অভ্যন্তরীণ রাজনীতি বিষয়ে আমি কিছু জানতাম না। আমি খুবই দুঃখিত যে, ওই সময়ে পরিকল্পনামন্ত্রীকে আমার জিজ্ঞাসা করা দরকার ছিল। তার কাছ থেকে পরামর্শ নিতে পারতাম (আই শুড হ্যাভ আসকড মান্নান, দেখো ওরা আসছে, আমি কি করবো?) কিন্তু আমি তা করিনি। আমি খুব সরল মনে ডিও পাঠিয়ে দিয়েছি। আর এই ডিও মূল কন্ট্রোভার্সির কারণ। এটা আমার ভুল হয়েছে। এ নিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রীর অসন্তোষের প্রসঙ্গ টেনে মন্ত্রী মোমেন বলেন, তার সঙ্গে  এ নিয়ে আমার দ্বন্দ্ব লেগে গেল, আমি এতে তাজ্জব হয়েছি। এখানে যে তাদের ইন্টার্নাল পলিটিক্স আমার কোনো আইডিয়া ছিল না। এজন্য আমি দুঃখিত। আমার সঙ্গে উনার দেখা হবে। আমি এ বিষয়ে অবশ্যই কথা বলবো।–মানব জমিন

এই সংবাদটি 213 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com