মাদ্রাসার সিলেবাস ও আমাদের চিন্তাধারা

প্রকাশিত: ৪:১৫ অপরাহ্ণ, জুন ২৭, ২০২১

মাদ্রাসার সিলেবাস ও আমাদের চিন্তাধারা

মুখলিসুর রাহমান রাজাগঞ্জী:

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কিংবা শিক্ষাবোর্ডের প্রাণ হচ্ছে শিক্ষা সিলেবাস। সিলেবাস যত সুন্দর রুচিশীল ও যুগোপযোগী হবে। ততই তা থেকে উপযুক্ত বিজ্ঞ শিক্ষাবিদ তৈরি হতে সক্ষম হবে। সিলেবাসের ক্ষেত্রে মৌলিক দিক হল, একটি সিলেবাসকে উত্তম ও কার্যকর সিলেবাস তখনই বলা যাবে, যখন তা তার লক্ষ্য উদ্দেশ্য মুতাবিক প্রণীত ও বিন্যাস হবে।

বস্তুত একথাটি যথাযথ উপলব্ধি করতে না পেরে, এক শ্রেণির শিক্ষিতরা আধুনিক শিক্ষার দোহাই তুলে কওমী মাদ্রাসার সিলেবাসকে আক্রান্ত করতে চায়। এখানে এ সুক্ষ্ম বিষয়টি বুঝে নেয়া আবশ্যক যে, স্কুল-ভার্সিটিসমূহে পঠিত জাগতিক সিলেবাসের উদ্দেশ্য এবং কওমী মাদ্রাসাসমূহে পঠিত সিলেবাসের উদ্দেশ্য ভিন্ন-ভিন্ন। যেভাবে ভার্সিটিতে পড়ে মাওলানা হওয়া যায়না, তদ্রুপ কওমী সিলেবাস পড়ে ডাক্তার ইঞ্জিনিয়ার হওয়া যায়না।

জাগতিক শিক্ষা ও ইসলামী শিক্ষার সমন্বিত সিলেবাস সম্পর্কে আমাদের বক্তব্য হল, যে রাষ্ট্রের সংবিধান, রাষ্ট্র ও রাষ্ট্রের কর্তা ব্যক্তিরা ইসলামী শিক্ষার প্রতি দরদী ও আন্তরিক না হবে বরং বিপরীত এর দিকে বাঁকা চোখে তাকাবে, তাদের নির্দেশনায় তৈরি সমন্বিত সিলেবাস কখনও ত্রুটিমুক্ত হতে পারেনা। ফলে এরকম সিলেবাস দ্বারা জাগতিক শিক্ষার লক্ষ্য বাস্তবায়ন হলেও ইসলামী শিক্ষার কাঙ্খিত লক্ষ্য মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হতে বাধ্য এবং হচ্ছেও তা আমাদের দেশে।

পক্ষান্তরে আরব-আমিরাত সৌদিআরব প্রভৃতি দেশসমূহে সংবিধান ও রাষ্ট্র ইসলামী হওয়ার কারণে সেখানে সমন্বিত সিলেবাস দ্বারাই যেমন জাগতিক শিক্ষাবিদ পারদর্শিরা তৈরি হচ্ছে। তদ্রূপ এ দ্বারাই ইসলামধর্মীয় শিক্ষার গবেষক হাফিজ, মুফতি, মুহাদ্দিস, মুফাসসির, মাওলানা প্রভৃতি তৈরি হচ্ছেন অনায়াসে।

আমাদের দেশে বৃটিশ শাসনের
পূর্ব ১৮৫৭ ঈ. পর্যন্ত মুসলিম সালতানাত বিদ্যমান ছিলো, ফলে শিক্ষা ব্যবস্থায় কোনো বিভাজন ছিলোনা। সরকার কর্তৃক অনুমোদিত একই রকম
শিক্ষা ব্যবস্থার অধীনে আলেম, মাওলানা, মুফতি, মুহাদ্দিস, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, প্রকৌশলী
সবই সৃষ্টি হতেন একই সিলেবাস পড়ে। শত শত বছরের ইতিহাস এভাবেই।
বৃটিশরাই সর্বপ্রথম এইদেশে
শিক্ষানীতির মধ্যে বিভাজন সৃষ্টি করে এবং এই বিভাজনের অধীনেই এখনো আমাদের দেশের শিক্ষানীতি পরিচালিত হচ্ছে।

অতএব আজও যদি আমাদের দেশের সরকারী জাতীয় শিক্ষাব্যবস্থায় অতীতের মতো জাগতিক শিক্ষার সাথে ইসলামী শিক্ষার কাঙ্খিত সিলেবাস সন্নিবেশ করা হয়। তাইলে দেশে সরকারের একরকম শিক্ষাব্যবস্থা বাস্তবায়নের পরিকল্পনা এগিয়ে যেতে বাধ্য।
কিন্তু আসলে কি তা হচ্ছে?
আর সেকুলার রাষ্ট্র ব্যবস্থার অধীনে তা কি সম্ভব? যাদের শ্লোগান হচ্ছে ধর্ম যার যার, রাষ্ট্র সবার।
বরং জাতীয় শিক্ষানীতির সিলেবাসে ধর্মীয় শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করার পরিবর্তে
ধর্মবিমুখ শিক্ষাকে উৎসাহিত করা হচ্ছে। সো এইদেশ মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ হলেও
জাতীয় রাষ্ট্রীয় শিক্ষা ব্যবস্থায় ইসলামী শিক্ষা নেই। যেভাবে আরব অঞ্চলের দেশগুলোতে এখনো আছে। আর সেসব দেশে একই সিলেবাস পড়ে মাওলানাও হচ্ছে। ইঞ্জিনিয়ারও হচ্ছে।

আমাদের মধ্যে কেউ কেউ মনে করেন, আমাদের কওমী মাদ্রাসাগুলো আলীয়া মাদ্রাসার মতো সরকারের নিয়ন্ত্রণে দিয়ে ইসলামী শিক্ষা ও জাতীয় জাগতিক শিক্ষার সমন্বয় করে একই সিলেবাস থেকে মাওলানা ও ইঞ্জিনিয়ার তৈরি করবেন।

এপ্রসঙ্গে আমাদের মতামত হলো, করতে পারবেন। কওমি পড়ুয়ারা কওমিতে পড়েই তখন
ভালো ইঞ্জিনিয়ার, ডাক্তার ইত্যাদি বনে দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজ করার পথ প্রশস্ত হবে ঠিকই। তবে অধর্মীয় সেকোলার রাষ্ট্রনীতির অধীনে পরিচালিত এরকম সিলেবাস দ্বারা প্রকৃত হামিলে কুরআন সুন্নাহ তো আর সৃষ্টি হবেইনা এবং فلو لا نفر من كل فرقة আয়াতের দ্বারা প্রমাণিত ‘উম্মতে মুসলিমার উপর দ্বীন শিক্ষা ফরজ’ এর পাঠশালাও
খুঁজে পাওয়া যাবেনা।

আর এভাবেই সরকারী বেসরকারী উভয়ক্ষেত্রে প্রকৃত ধর্ম শিক্ষার অনুপস্থিতিতে দেশের মুসলমানরা শিক্ষা সভ্যতা হারিয়ে এক অন্যরকম মুসলমান রূপে পরিগণিত হবে।
যা চায় এদেশের সেকোলার রাষ্ট্রনীতি, চায় ইসলাম বিদ্বেষী এনজিও, উগ্রবাদী ইস্কন ও পশ্চিমা পন্থী হিজবুত বাহিনী।

অত্যন্ত আক্ষেপের বিষয় যে, কওমী ও ইসলামী শিক্ষার প্রতি অনুরাগী একশ্রেণির ব্যক্তিরা এখনো এ সত্যটিকে উপলব্ধি করতে পারছেননা। ফলে দেশের কওমী মাদ্রাসাসমূহের উদ্দেশ্য সাধনে সফল কার্যকর সিলেবাসকে তারা অসুস্থ, অনুপযোগী ও বিভ্রান্ত বলে আখ্যা দিচ্ছেন। আল্লাহ তায়ালা তাদেরকে সু-মতি দান করুন।

হ্যাঁ, ইসলামী শিক্ষা ও আধুনিক শিক্ষার সমন্বিত সিলেবাসের কথা এখানেও কেউ কেউ ভুল বুঝে থাকেন। আধুনিক ও জাগতিক উভয় শব্দকে সচরাচর এক অর্থ ও পরিভাষায় ব্যবহার করেন, এটা ঠিক নয়। আধুনিক শব্দের অর্থ হল ১. বর্তমান কালের ২. হালের ৩. সাম্প্রতিক। জাগতিক শব্দের সহজ অর্থ হল দুনিয়া বিষয়ক। যদিও আধুনিক শব্দটিকে কোনো কোনো ক্ষেত্রে জাগতিক শব্দের পরিভাষায় ব্যবহার করা হয়। অতএব আধুনিক শব্দের আভিধানিক অর্থের অনুসরণে আধুনিক শিক্ষা ও ইসলামী শিক্ষার সমন্বিত সিলেবাস কখনো অস্বীকার করা যায়না। এটাকে কওমী উলামায়ে কেরামও জরুরী মনে করেন। আর তাইতো কওমী সিলেবাসে সাম্প্রতিক বিষয়াদির সংস্কার যেমন- ১. পুরাতন আরবী সাহিত্যের বদলে নতুন আরবী সাহিত্য সংযোজন। ২. পুরাতন অপ্রয়োজনীয় শাস্ত্র ও কিতাব বাদ দেয়া। ৩. নতুন-নতুন বিষয়ের উপর কিতাব রচনা করা ও সিলেবাসভুক্তকরণ। ৪. বর্তমানকালে ফার্সী ভাষার অপ্রয়োজনীয়তার উপর দৃষ্টি নিক্ষেপ। ৫. ইসলামী ইতিহাসের পাশাপাশি জাতি, রাষ্ট্র ও পৃথিবীর বিভিন্ন ইতিহাস রচনা ও সংযোজন। ৬. বর্তমান ভূগোল ও সমাজ বিজ্ঞান। ৭. ক্রমান্বয়ে উর্দূ ভাষার পরিবর্তে বাংলা ভাষাকে মাধ্যম বানিয়ে কিতাবাদি রচনা ও ক্লাসে লেকচার প্রদান। ৮. বাংলা ও ইংরেজি ভাষা শিক্ষার প্রতি গুরুত্ব প্রদান। ৯. ইনশা বিষয়ক কিতাবাদিকে আরবী-বাংলা করণ। ১০. যুগের অতি চাহিদা কম্পিউটার বিজ্ঞানের প্রশিক্ষণ। ১১. সর্বোপরী যুগোপযোগী বিভিন্ন বিষয় ও ভাষার উপর বই-কিতাব রচনা ও সিলেবাসে সংযোজন ইত্যাদি সাম্প্রতিক কালের অনেক বিষয়কে কওমী সিলেবাসে স্থান দেয়া হয়েছে এবং এ ব্যাপারে পূর্ণাঙ্গতার চেষ্টাও চলছে। কেউ কেউ আলাদা প্রতিষ্ঠান করেও এ লাইনের মেহনত করে যাচ্ছেন আন্তরিকভাবে। কিন্তু জাগতিক (দুনিয়া বিষয়ক) ও ইসলামিক উভয়টার সমন্বিত সিলেবাস কওমী মাদ্রাসায় জারি করলে কওমী মাদ্রাসার লক্ষ্য উদ্দেশ্য মারাত্নকভাবে ব্যাহত হবে।

কাজেই উপর্যুক্ত বিষয়াদিকে সামনে রেখে আমরা দেশের কওমী মাদ্রাসার মহিলা শাখা বালিকা মাদ্রাসাসমূহের জন্য নিম্নলিখিত বৈশিষ্ট্যপূর্ণ একটি সিলেবাস তৈরি করতে সচেষ্ট হয়েছি।

এক. যেহেতু সিলেবাস বিন্যাসের মূল টার্গেট হতে হবে শিক্ষার লক্ষ্য উদ্দেশ্য। তাই আমাদের কওমী মাদ্রাসাসমূহ চাই পুরুষ হোক কিংবা মহিলা। এসব প্রতিষ্ঠানের মূল লক্ষ্য উদ্দেশ্য হল, একজন শিক্ষার্থীকে কুরআন-হাদীস ও ফেকাহ প্রভৃতি বিষয়ের নির্ভুল শিক্ষা প্রদানের দ্বারা হক্কানী আলেমে দ্বীন-নাইবে নবী (মাওলানা-আলেমা) তৈরি করা। (যারা সমাজে ইসলামধর্মীয় সংস্কারমূলক কর্ম-কান্ড সম্পাদনের মাধ্যমে মানুষকে চরিত্রবান, নীতিবান, আদর্শ নাগরিক হিসাবে গড়ে তোলার প্রচেষ্টায় অবদান রাখবে এবং “আলেমরাই নবীগণের উত্তরাধীকারী” বর্ণিত হাদিস দ্বারা আলেমদের উপর নবীগণ কর্তৃক অর্পিত সুমহান দায়িত্বকে সুষ্ঠুভাবে আনজাম দিবে।) তাই এ লক্ষ্য বাস্তবায়নে ধর্মীয় আবশ্যিক বিষয়াদির শিক্ষা প্রদানের ক্ষেত্রে বাধ্যতামূলক অগ্রাধিকার থাকতে হবে। নতুবা মূল টার্গেট অর্জনে ত্রুটি-বিচ্যুতি ঘটে যাওয়া স্বাভাবিক। কাজেই দেশের অন্যান্য কওমী মাদ্রাসার মত আমাদের সিলেবাসেও এ দিকটার প্রতি গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। যথা-০১, কুরআন – নাযারা, তরজমা, তাফসির। ০২, হাদিস- তরজমা, ব্যাখ্যা। ০৩, ফেকাহ- তরজমা, মাসায়িল বিশ্লেষণ। ০৪, সরফ-নাহু প্রভৃতি।

দুই. আমাদের মাতৃভাষা বাংলা ছাড়াও ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত যুগচাহিদা অনুযায়ী ভূগোল, বিজ্ঞান, ইংরেজি, অংক প্রভৃতি বিষয়কে সিলেবাসের অন্তর্ভুক্ত ও বাধ্যতামূলক পাঠ্য বানানো হয়েছে।

তিন. ইনশা ও আরবী সাহিত্যের ক্ষেত্রে আধুনিক আরবী ভাষার দিকটা বিবেচনা করে কিতাব মনোনীত করা হয়েছে। যথা-আল ইরশাদ ও মুআল্লিমুল ইনশা, প্রভৃতি।

চার. ইবতেদায়ির ক্লাসসমূহে সরাসরি বাংলা ভাষার পুস্তকের অগ্রাধিকার দেয়া হয়েছে। আর আরবির ক্লাসসমূহে আরবী ভাষার কিতাবাদির অনুবাদের ক্ষেত্রে উর্দূ ভাষাকে বাদ দিয়ে বাংলা ভাষায় অনুবাদকৃত (আরবী-বাংলা) কিতাবকে চয়ন করা হয়েছে; যাতে শিক্ষার্থীদের উপর উর্দূ ভাষার বাড়তি চাপ না পড়ে। যথা- সাফওয়াতুল মাসাদির আরবী-বাংলা, শরহে মিআতে আমিল আরবী-বাংলা, নফহাতুল আরব আরবী-বাংলা প্রভৃতি।

পাঁচ. মহিলাদের জন্য প্রয়োজনীয় ও উপকারী এরকম কিতাব চয়ন করা হয়েছে। যথা- বেহেশতী যেওর, হায়াতুস সাহাবিয়াত, ইসলাহে মুআশারাহ, বালিকা মাদ্রাসা, মুনাজাতে মকবুল, প্রভৃতি।

ছয়.মহিলাদের বিবাহের বিষয়টাকে মাথায় রেখে পুরুষদের সিলেবাসকে সংক্ষিপ্ত করে ১২ বছর মেয়াদি সিলেবাস প্রণয়ন করা হয়েছে ; (৬+১২=১৮)। তাই মহিলাদের জন্য তেমন দরকার নেই এরকম বিষয়াদিকে বাদ দেয়া হয়েছে। যথা- শরহে আকায়েদ, সাবয়ে মুয়াল্লাকা, দেওয়ানে মুতনব্বী, লামিয়াতুল মুজিযাত, খেলাফতে বনী উমাইয়া প্রভৃতি।

সাত. একই শাস্ত্রে বিভিন্ন প্রণেতার কিতাবাদির মধ্যে শিক্ষার্থীর জন্য মুখস্থ করণে ও অনুশীলন চর্চায় সহজ হয়, এমন কিতাব নির্ধারণ করা হয়েছে। যথা- আসান সরফ, আসান নাহু আল্লামা মুফতি সাঈদ আহমদ পালনপুরী, প্রভৃতি।

আট. সাম্প্রতিককালের জন্য আবশ্যকীয় বিষয়াদীর জ্ঞানচর্চার নিমিত্তেও কিছু কিতাবাদী নির্বাচন করা হয়েছে। যথা- আদিল্লাতুল হানাফিয়্যাহ (আরবী-বাংলা), ইসলামী আক্বিদা ও ভ্রান্ত মতবাদ (বাংলা) , ইসলামের দৃষ্টিতে বালিকা মাদ্রাসা, প্রভৃতি।

নয়. সিলেবাসের মধ্যে বিভিন্ন ক্লাসের বন্টন করে ৩০ পারা কুরআন শরীফ তাজবিদসহ নাজারা ও ৩০ পারা তরজমায়ে কুরআনকে অতিশয় বাধ্যতামূলক হিসাবে গণ্য করা হয়েছে।

দশ. (দাওরায়ে হাদিস তাকমিল) দ্বাদশ শ্রেণিতে সহিহ বুখারী ও জামে তিরমিযী কামিল নেসাব পাঠ্য এবং অন্যান্য কিতাবসমূহের পাঠ্যসিলেবাসে জরুরী বাবসমূহকে বন্টন করে দেয়া হয়েছে।

এগার. প্রতিটি বিষয় / কিতাবের পাঠ্যাংশের মোট পাঠ্য / পৃষ্ঠা উল্লেখ করা হয়েছে। প্রতিটি বিষয়ের মোট নম্বর উল্লেখ করা হয়েছে। বিষয় / কিতাব ৮টির অধিক হলে সেই শ্রেণিতে মুনাসিব একাধিক বিষয়কে একত্রিত করে ৮ ঘন্টা ক্লাসের হিসাব মিলিয়ে দেয়া হয়েছে।

বার. স্কুল থেকে আগত আরবী, উর্দূ অপড়ুয়া ছাত্রী, অথবা ভর্তি পরীক্ষায় ৪র্থ, ৫ম শ্রেণিতে পড়ার অযোগ্য ছাত্রী; যাদের বয়স পর্দার উপযুক্ত ; তাদের জন্য শিক্ষিকার তত্ত্বাবধানে এক বছর মেয়াদি বিশেষ সিলেবাসের বিশেষ জামাতে ভর্তি হওয়ার ব্যবস্হা রয়েছে। যাতে তারা বার্ষিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে পরবর্তী বছর উপযুক্ত ক্লাসে ভর্তি হতে পারে।

সিলেট।২৭-০৬-২১ ঈ.

এই সংবাদটি 127 বার পঠিত হয়েছে

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com