রাজনীতি দ্বীনি দায়িত্ব ও গনতান্ত্রিক অধিকার

প্রকাশিত: ১২:১৬ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১২, ২০২১

রাজনীতি দ্বীনি দায়িত্ব ও গনতান্ত্রিক অধিকার

মাওলানা উবায়দল্লাহ ফারুক::

রাজনীতি মানুষের মানবিক অধিকার, গণতান্ত্রিক অধিকার ও সংবিধানের দেওয়া ন্যায্য অধিকার। এই মৌলিক অধিকার থেকে মানুষকে বঞ্চিত করা, ডাকাতি করে সম্পদ নিয়ে যাওয়ার মতো অপরাধ। যে সরকার বা সংস্থা এই কাজ করবে তারা মানুষ নামের কলঙ্ক অসৎ ও জালেম।

উলামায়ে কেরামের জন্য রাজনীতি অতি প্রয়োজন, তার কারণ:

১. আল্লাহ তাআ’লা উলামাদের আমর বিল মারূফ ও নাহী আনিল মুনকার করতে বলেছেন, আর রাজনীতি রাষ্ট্রীয় আমর বিল মারূফ ও নাহী আনিল মুনকারকে বলা হয়। তাই তা করতে হবে।

২. যে কারণে পাবলিক জনতাকে আদেশ নিষেধ জরুরী, এই কারণে রাষ্ট্র পরিচালনায় যারা আছেন তাদেরকে আদেশ নিষেধ অনেক বেশি জরুরী।

৩. ইসলাম, হিন্দু, ইহুদী ও নাছারাদের ধর্মের মতো কোনো আংশিক ধর্ম নয়, এটা এক পূর্ণাঙ্গ ধর্ম, রাজনীতিও ইসলামের এক গুরুত্বপূর্ণ বিভাগ, তাই রাসূল (সা.) এর ওয়ারিস সূত্রে সার্বিক দ্বীনের আদেশ নিষেধ উলামায়ে কেরামের দায়িত্ব ও কর্তব্য বটে।

৪. ইসলাম বিরোধী কাজ দেখে যে চুপ থাকে, তাকে বোকা শয়তান বলা হয়েছে। হাদীসে ঐ এলাকাকে ধ্বংস করার হুকুম আসছে, যেখানে গুনাহের কাজ সংঘটিত হচ্ছে আর মুসলমান নিরবে তা দেখছে।
عن ابن عباس رضي الله عنهما قال قيل يارسول الله آتهلك القرية وفيهم الصالحون ؟قال نعم فقيل لم يارسول الله قال بشهادتهم وسكوتهم عن معاصي الله (مجمع الزوائد)

৫. রাষ্ট্রীয় আমর বিল মারূফকে আফযলে জেহাদ বলা হয়েছে:
عن ابي سعيد رضي الله عنه قال قال رسول الله صلي الله عليه وسلم افضل الجهادكلمة عدل عندسلطان جائر(ابن ماجه )
অর্থাৎ, জালেম বাদশাহের প্রতি ইনসাফের কথা বলা। ইহাই তো রাজনীতি।

৬. আল্লাহর আযাব ও মহামারী থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য রাজনীতি করতে হয়:
عن قيس بن ابي حازم قال قام ابوبكرفحمدالله واثني عليه ثم قال ايهاالناس انكم تقرؤن هذه الاية ياايهاالذين آمنوا لايضركم من ضل اذا اهتديتم, واناسمعنارسول الله صلي الله عليه وسلم يقول ان الناس اذا رؤوا المنكر فلايغيرونه اوشك ان يعمهم الله بعقابه (رواه ابن ماجة)

عن ابي هريرة رضي الله عنه قال قال رسول الله صلي الله عليه وسلم لتآمرن بالمعروف ولتنهون عن المنكر او ليسلطن الله عليكم شراركم.ثم يدعوا خياركم فلايستجاب لهم.(مجمع الزوائد)
এই হাদিসদ্বয়ের আওতাভুক্ত ব্যক্তিগত জীবন থেকে নিয়ে রাষ্ট্রীয় পর্যায়ের আদেশ-নিষেধ।

৭. যে ময়দানে উলামাদের উপস্থিতি না থাকে সে ময়দান পুরোটাই কুফুরের দখলে চলে যায়। তাই রাজনীতির ময়দানে উলামাদের উপস্থিতি নিতান্তই প্রয়োজন।

৮. উলামায়ে কেরাম সরকারকে দ্বীনি কর্মকাণ্ডে যদি বাঁধা প্রদান না করেন, তবে দ্বিধাহীনভাবে সরকার হরদম বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে দেশ চালাতে থাকবে, তাতে করে মাত্র কয়েক বছরের মধ্যে এক মুসলিম রাষ্ট্র কুফুরী স্থানে পরিণত হয়ে যাবে, সরকার তা উপলব্ধিই পারবেনা।

৯. সরকার যতই শক্তিশালী হোক না কেন উলামাদের প্রতিবাদ তাদের জন্য বড়ই বাঁধা, অনেক সময় বাঁধার মুখে সরকার বিবেচনা করতে বাদ্য হয় ৷ এই সামান্য চেষ্টায় যদি দেশ ও জাতির কল্যাণ হয় তাতে সমস্যা কোথায় ?

১০. ভারত ও পাকিস্তানে ইসলাম রাষ্ট্রীয় ভাবে বাংলাদেশের তুলনায় অনেকটাই সংরক্ষিত। তার কারণ, ওইখানের উলামাদের রাজপথে উপস্থিতি শত ভাগ, আর আমদের রাজপথে উপস্থিতি মাত্র পাঁচ ভাগ।

১১. আমাদের আকাবিরগণ জান দিয়ে, জেল খেটে, দেশান্তরিত হয়ে ১৯০ বছরের কুরবানীর পর কাফিরদের গোলামী থেকে দেশ আযাদ করলেন। আজ আমরা দেশে দ্বীনি নিরাপত্তায় অংশ না নিয়ে হাত-পা গুটিয়ে মসজিদ মাদরাসায় বসে থাকবো? এর মতো নির্লজ্জতা ও দায়িত্বহীনতা আর কি হতে পারে?

১২. দেশে সরকার ও বিরোধী দল উভয়েই ইসলাম সম্পর্কে অজ্ঞ। এই অজ্ঞতা ও জাহালতের সাইক্লোন দেশে চলতে থাকবে আর বিজ্ঞ উলামায়ে কেরাম নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করবেন, এটা কি ইসলাম সমর্থন করে, না কোনো বিবেকের আওতায় পড়ে? এটা দায়িত্বহীনতা বটে।

১৩. বিচক্ষণ উলামায়ে কেরাম মাদরাসার শিক্ষক-ছাত্রকে যদি ইসলামি রাজনীতি মুখি না করেন, তাহলে মাদরাসায় জঙ্গি তৈরি হবে এবং আমাদের ছেলেরা শিবিরে যোগ দিয়ে ইসলামি আন্দোলনের তৃপ্তি মিটাবে। আমাদের সরলমনা উলামাদের অদূরদর্শিতার কারণে অনেক মাদরাসায় রাজনীতি নিষিদ্ধ থাকায় সেখানে বিভিন্ন অপসংগঠনের জন্ম হচ্চে।

১৪. উলামায়ে কেরাম এই দেশের দ্বীন প্রিয় মুসলমানদের রাজনৈতিক নেতৃত্বে যদি না আসেন, তাহলে দ্বীনি রাজনীতি ও দ্বীনি আন্দোলনের রুচি যারা রাখেন তারা মন্দের ভালো হিসেবে জামাতে ইসলামির নেতৃত্বে ইসলামি আন্দোলনের রাস্তা বেছে নিবে। জেনে রাখা দরকার, বাংলাদেশে জামাতের উত্থানের মূল কারণ, এখানের রাজনীতিতে উলামায়ে দেওবন্দের উপস্থিতি ও অংশীদারিত্ব খুবই নগন্য।

১৫. রাজনীতি করলে সমাজ নিয়ে চলার মানসিকতা তৈরি হয়। আজ রাজনীতি না করার কারণে উলামারা সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন, ফলে ইসলাম বিমুখ মানুষ সমাজের নেতৃত্বে আসছে, এজন্যই সমাজ দ্রুতগতিতে বে-দ্বীনির দিকে অগ্রসর হচ্ছে। এটা উপলব্ধি করার ক্ষমতাও আমরা অনেকে হারিয়ে ফেলেছি।

১৬. রাজনীতি করলে মানুষ সাহসী হয়, এই সাহসের কারনে অনেক বে-দ্বীনি প্রোগ্রাম সংঘটিত হতে পারে না, দেশের লোকজন নিয়ে অনেক গুনাহের এবং দেশ ও জাতির ক্ষতিকর কাজে বাঁধা দেওয়া যায়।

১৭. রাজনীতি না করলে মানুষ ভীরু হয়। তাই তারা বাতিলের বিরুদ্ধে কোনো প্রোগ্রাম নেওয়ার সাহস পায় না। বরং বাতিলের প্রতি সহনশীল ও অনুসঙ্গী হয়ে জীবন-যাপনের রাস্তা বেছে নেয়।

১৮. রাজনীতিতে অংশীদারিত্ব না থাকলে, নিজ দেশে ভিনদেশী নাগরিকের মতো বসবাস করতে হয়। কারণ, দেশের মালিক দেশ নিয়ে ভাবে, মেহমানরা দেশ নিয়ে ভাবে না।

আমাদের দেশ পরিচালনা করার ক্ষমতা নেই। আমাদের রাজনীতি হলো, সরকারকে গঠন মূলক পরামর্শ দেওয়া এবং দেশ জাতি ও ধর্মদ্রোহী কাজে বাঁধা প্রদান করা (অর্থাৎ, প্রতিবাদ করা) এটা উলামা ও জনগণের দায়িত্ব, এটা আমাদের ধর্মীয় ও গনতান্ত্রিক অধিকারও বটে। তাই দায়িত্বশীলতার সাথে জীবন যাপনে অভ্যস্ত হওয়া জ্ঞানীদের কাজ।
আল্লাহ আমাদের তাওফীক দান করুক।
আমীন।

শায়খুল হাদীস মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক
লেখক, শিক্ষাবিদ ও রাজনীতিক।
https://www.facebook.com/100024357975893/posts/974104756744781/

এই সংবাদটি 79 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com