দ্বীন না শিখার কারণে মানুষ ধর্মহীন হতে চলছে, জাতিকে এই মহামরি থেকে মুক্ত করা উলামায়ে কেরামের দায়িত্ব।

প্রকাশিত: ৬:৪৪ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ২৯, ২০২১

দ্বীন না শিখার কারণে মানুষ ধর্মহীন হতে চলছে, জাতিকে এই মহামরি থেকে মুক্ত করা উলামায়ে কেরামের দায়িত্ব।

ইমরান হোসাইন চৌধুরী:

 

 

সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার রাজাগঞ্জ ইউনিয়ন জমিয়তের যৌথ ঈদ পুণর্মিলনী ও তরবিয়াতি মাহফিলমঙ্গলবার (২৭ জুলাই) অনুষ্ঠিত হয়। এতে দেশের বর্তমান সমস্যা ও তার সমাধান নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি শায়খুল হাদীস আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারূক।

আলোচনার শেষাংশে তিনি মডেল ইউনিয়ন গড়ে তোলার ক্ষেত্রেও কয়েকটি টিপস উল্লেখ করেন। নিম্নে তাঁর বক্তব্যের সারনির্যাস তুলে ধরা হল।

চলমান সমস্যার সমাধান প্রসঙ্গে আলোচনায় শায়খুল হাদীস আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক বলেন-

এক- ধর্মহীনতা: বাংলাদেশের সব সেক্টরে ধর্মহীনতার প্রোগ্রাম বাস্তবায়ন হতে চলছে। দ্বীন না শিখার কারণে মানুষ ধর্মহীন হতে চলছে। জাতিকে এই মহামরি থেকে মুক্ত করা উলামায়ে কেরামের দায়িত্ব। মানুষ ধর্মীয় শিক্ষা থেকে দূরে থাকার কারণে কাদিয়ানী হতে চলছে। মুসলমানরা মূর্তিপূজা ছাড়া আর সবকিছুতেই হিন্দুদের আদর্শ লালন করছে। ধর্ম-কর্ম শিক্ষা দেওয়া উলামায়ে কেরামের দায়িত্ব।

দুই- ফিরকে বাতিলাহ: বাতিল ফিরকাগুলো দিন দিন মাথাছাড়া দিয়ে উঠছে। মুসলমান ধর্মবিমুখ হওয়ার কারণে বাতিল ফেরকাসমূহ এদের লুফে নিচ্ছে। বাতিল ফিরকার হাত থেকে জাতিকে রক্ষা করা উলামায়ে কেরামের দায়িত্ব।

তিন- ধর্মীয় চেতনাহীনতা: আজকাল মুসলমানরা ধর্মীয় চেতনা হারিয়ে ফেলেছে। সামান্য অর্থের জন্য এরা বিভিন্ন ইসলামী বিরোধী এনজিওতে চাকরি করছে। এসব মানুষ নামে মুসলিম হলেও কাজে-কর্মে বিজাতীয় আদর্শ লালন করছে। মুসলমানদের মাঝে ধর্মীয় শুয়ূর (চেতনা) না থাকার কারণে নৃপুংশক জাতিতে পরিণত হতে চলছে।

জাতির মনে ধর্মীয় চেতনা সৃষ্টি করা উলামায়ে কেরামের দায়িত্ব। যদি এভাবে মুসলমানরা অন্যদের অধীনে থাকে, তাহলে অচিরেই উলামায়ে কেরাম একা হয়ে পড়বেন। কচুরিপানার মতো উলামায়ে কেরামের কোনো হাইসিয়াত থাকবে না।

ভারত পাকিস্তান ও বাংলাদেশকে ঘিরে পশ্চিমাদের প্ল্যান হল- জাতিকে উলামা বিদ্ধেষী হিসেবে গড়ে তোলা। কারণ, এরা জানে উলামাদের থেকে দূরে রাখতেই পারলেই সহজে মুসলমানদের ঈমানহারা করা সম্ভব। যেভাবে লর্ড মাইকেল শিক্ষানীতি তৈরী করার সময় বলেছিল, এমন শিক্ষানীতি এদের মাঝে চালু করো, যে শিক্ষার মাধ্যমে এরা নামে ইন্ডিয়ান হবে; কিন্তু এদের কৃষ্টিকালচার, চাল-চলন, উঠা-বসা হবে আমেরিকানদের মতো। এই জাতির মাঝে দ্বীনের রুচি তৈরি করা উলামায়ে কেরামের দায়িত্ব। আমরা রসমি লেখাপড়া করার পর সব যোগ্যতা আমাদের মাঝে মাড়া দিতেছে। চার দেয়ালের ভেতর থেকে বাইরে বের হচ্ছে না।

বাংলাদেশে ১৮ কোটি মানুষের বসবাস। আমরা আলেম উলামা ২% হওয়াও মুশকিল। অথচ আজীবন আমরা আমাদের যোগ্যতা আমাদের চার দেয়ালের ভেতরেই সীমাবদ্ধ করে রাখছি। আমাদের থেকে জাতি উপকৃত হচ্ছে না। আমরা আমৃত্যু ২ পার্সেন্ট নিয়ে কাজ করছি। বাকি ৯৮ পার্সেন্ট নিয়ে আমাদের কোনো মাথাব্যথা নেই। ঐ আটানব্বই পার্সেন্ট মানুষকে কারা শিক্ষা দেবে? একটি কলেজে হাজার হাজার ছাত্র-ছাত্রী লেখা পড়া করে। যুহরের আযান হলে ৩০/৪০ জন নামাজ পড়ে। বাকিরা থাকে আড্ডা ইয়ার্কিতে। এসব কেন? এদের মাঝে দ্বীনের অনুভুতিটুকু নেই। ফলে এদের কেউ বিনোদন, আড্ডাবাজি, অহেতুক আলাপ, নাজায়েয সম্পর্কে মত্ত থাকে। আবার কেউ যুক্ত হচ্ছে বাতিল ফেরকার সাথে। কিন্তু উলামায়ে কেরাম এই বৃহৎ তরুণ ও যুবসমাজ নিয়ে সম্পূর্ণ বেখবর।

চার- চারিত্রিক তরবিয়াতহীনতা: মানুষের মাঝে চারিত্রিক তরবিয়াত না থাকার কারণে সামান্যতেই রেষারেষি, খুনাখুনি হচ্ছে। কিছু হতে না হতেই প্রাণনাশের মতো ভয়ঙ্কর ঘটনা ঘটে যায়। অথচ খুনখারাবি কিয়ামতের আলামত। হাদীসে রাসূল সা. বলেন-

ويكثر الحرج قالوا وما الحرج فقال القتل

রাসূল সা. কিয়ামতের আলামতের বিবরণ দিতে গিয়ে বলেন, হারাজের আধিক্যতা দেখা দেবে। সাহাবায়ে কেরাম বললেন, হারাজ কী? রাসূল সা. বললেন, খুনখারাবি। অতএব, মানুষকে চারিত্রিক তরবিয়াত দিতে হবে। আর এই দায়িত্ব উলামায়ে কেরামের।

পাঁচ. চলমান সময়ে ওয়াজ মাহফিল আরেক নতুন সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

দ্বীন শিখানোর জন্য মাদ্রাসাভিত্তিক, সমিতিভিত্তিক ওয়াজ মাহফিল হয়ে থাকে। অথচ ওয়াজ মাহফিলে এখন দ্বীন শেখানোর চেয়ে লাফালাফি বেশি হয়ে থাকে। মস্তানি শিক্ষা দেওয়া হয়ে থাকে। যাদের মাধ্যমে জাতি ফায়দামন্দ হবে, আজকাল তাদেরকে দাওয়াত করা হয় না। দাওয়াত করা হয় উন্মাদদের পক্ষ থেকে কিছু উন্মাদকে। যারা সীরাতে রাসূল (সা.), চরিত্রগঠন, সমাজিক জীবন ও ব্যক্তিজীবনের চালচলন নিয়ে আলোচনা না করে শুধু ছিঁড়ে ফেলবো, মেরে ফেলবো, খেয়ে ফেলবো বলে লাফায়। এসব গলাবাজ বক্তা থেকে আত্মসংশোধনের উপদেশের বিপরীতে ছাত্ররা মারমুখী হওয়ার তালিম পাচ্ছে। ত্রাসের জিন্দেগী গঠন করছে।

এ যেন আত্মতৃপ্তি মেটানোর মাধ্যম। কতক সময় একজন লাফালেন আর শ্রোতারা এই কোণ থেকে কয়জন আর সেই কোণ থেকে কয়জন লাফিয়ে উঠলেন। এগুলো আজকালকের ওয়াজ মাহফিল। না শিখছে মামুষ মাসআলা-মাসাইল, আর না নিচ্ছে চারিত্রিক তরবিয়াত। এসব যদি চলতে থাকে, তাহলে অচিরেই এই জাতির কপালে গর্দিশ আছে। মাদ্রাসা থাকবে না। আলেমদের প্রতি মানুষের বিতৃষ্ণা জন্ম নেবে।

কী আজিব কারবার! যারা দ্বীন জানে, যাদের থেকে দ্বীনী মাসায়েল জানা যাবে, আজকাল তাদেরকে দাওয়াত করার কথা বললে, মুহতামিম নামক কিছু উন্মাদ আর সমিতির কছু জুনূন বলে থাকে, “এসব ওয়াজ খায় না। উনাদের ওয়াজ মানুষ শুনবে না”। আফসোস!

সমস্যার সমাধান বর্ণনায় শায়খুল হাদীস আল্লামা উবায়দুল্লাহ ফারুক বলেন, এক. উলামায়ে কেরামের মনে কওমের বাশুয়ূর-বিচক্ষণ রাহনুমায়ির দরদ জন্ম নিলে এসব সমস্যা সহজে সমাধান হবে। দুই. ব্যক্তিগঠন। আমরা প্রথমে নিজেদেরকে গঠন করতে হবে। ফরজের পাশাপাশি নাওয়াফিলের প্রতি মনোনিবেশ দিতে হবে। নিয়মিত তেলাওয়াতের অভ্যাস করতে হবে।

এই জমিয়ত আর এই সিয়াসতের কী দরকার, যে সিয়াসত আমাকে কবরের আজাব থেকে মুক্তি দিতে পারে না। নামাজ নেই আবার জমিয়ত, নাওয়াফিল নেই আবার সিয়াসত, তেলাওয়াত নেই আবার জান্নাতের আশা!

আগে নিজেদেরকে গঠন করতে হবে। খামোখা জমিয়তের এই প্রোগ্রাম আর সেই প্রোগ্রামে দৌড়ালেন, অথচ কবরের আজাব থেকে বাঁচলেন না, তাহলে তো সবকিছু গোল্লায় যাবে। তাই ভাইয়েরা ওয়াদা করুন, ফরায়েজ আদায় করে নিয়মিত এক পারা কুরআন তিলাওয়াত করবো। বলুন, করবেন তো? পবিত্র মসজিদের ঘরে বসে ওয়াদা দেন তিলাওয়াত ছাড়বেন না। প্রতিদিন আসর আর ইশার আযানের সাথে মসজিদে প্রবেশ করে চার রাকাত নামাজ আগে আদায় করে নিবেন। অভ্যাস করে দেখুন সহজে এগুলো আদায় করতে পারবেন। অতএব, সবকিছুর মূলে আমাদের ব্যক্তিগঠন জরুরী।

এমন আখলাকের অধিকারী হোন, যেন কেউ আপনার চরিত্র বিনষ্ট করতে না পারে। রাগকে কন্ট্রোল করুন। অল্পতেই ফুঁসে ওঠবেন না। নিজদেরকে গঠন করতে পারলেই আজকের আলোচনা সফল। একমাস এইগুলো আদায় করে দেখুন, সমাজে আপনার মূল্যায়ন বেড়ে যাবে। আল্লাহর কাছেও প্রিয় হয়ে যাবেন। আল্লাহ আমাদেরকে তাওফিক দান করুন।

এবার আসুন, আপনাদে ইউনিয়নকে কীভাবে মডেল ইউনিয়নে পরিণত করবেন, সে বিষয়ে কিছু আলোকপাত করার চেষ্টা করছি। যথা-

১) আপনাদের ইউনিয়নের ভোরবেলার মক্তবগুলো নিয়ে তো অবশ্যই বোর্ড আছে। আপনারা জমিয়তের তরফ থেকে ভোরের মক্তবগুলোর খবরগিরি করুন। কোন মক্তবের মান কোন মক্তব থেকে কম, এগুলো চিহ্নিত করুন। যদি ইমামের দুর্বলতা অনুভব করেন, তাহলে আপনারা মহল্লার মুরব্বীদেরকে বলে আপনাদের একজনকে এক মাসের জন্য ইমাম নিয়োগ দিয়ে ইমামকে ট্রেনিং এ প্রেরণ করুন। ইমাম বিতাড়নের দরকার নেই। ইনশাআল্লাহ, এভাবে মক্তবগুলো উন্নত হবে। আর মক্তবের উন্নতি মানে দ্বীনের বিশাল ফায়দা।

২) দুই বা তিনটি মসজিদের এরিয়া নিয়ে একটি কিন্ডারগার্টেন বিদ্যালয় গড়ে তুলুন। নূরানী ট্রেনিং, ইংলিশ আরবী ট্রেনিংপ্রাপ্ত শিক্ষক নিয়োগ দিন। দেখবেন এই ছেলেগুলো পাঠশালার ছাত্রদের থেকে অনেক ভালো। এখানে ক্লাস থ্রি বা ফোর শেষ করে এদের কয়েকজন স্কুলে দিন, কয়েকজনকে মাদ্রাসায় দিন। দেখবেন সহজে মানুষ তৈরী হতে চলছে। স্কুলে যারা পড়বে অন্তত এরা সহীহভাবে কুরআন তিলাওয়াত করতে পারবে। বাতিলরা সহজে এদেরকে গ্রাস করতে পারবে না।

৩) বেকারদের কাজে লাগান। রাজাগঞ্জের ইউনিয়নে এরকম কয়েকশ ছাত্র পাওয়া যাবে যারা কুদূরী বা মিজান পড়ে পড়ালেখা বাদ দিয়েছে। এদের একটি তালিকা করুন। এদেরকে কেরাত বিভাগে ভর্তি করুন। নূরানী ট্রেনিং এ পাঠান। দেখবেন এরা শায়খুল হাদীসের বেতনে চাকরি করবে। সহজে এই বেকারগুলো কাজে লেগে যাবে।

৪) গ্রামে গ্রামে সপ্তাহে একদিন বয়স্ক শিক্ষা কোর্স চালু করুন। মহিলাদের একদিন। পুরুষদের একদিন। কোর্সটি তেলাওয়াত, মাসায়েল ও আকাঈদ নির্ভর হবে। ওয়াজ করতে যাবেন না। ওয়াজ করলে শ্রোতারা বিরক্তবোধ করবে। যদি আপনারা এই কাজ করতে পারেন, তাহলে এই মানুষগুলো আপনাদেরকে ভালো বাসবে। এরাই তো সমাজ। এদেরকে আয়ত্তে নিতে পারলে সমাজ আপনাদের হয়ে যাবে। গুরুত্বপূর্ণ আকীদা শিখাতে পারলে এদেরকে বাতিলরা দাওয়াত দিলে কাজে আসবে না। এরা সহজে বাতিল চিনতে পারবে। মহিলাদের ওজু, গোসল, হায়েজ নেফাসের মাসআলা শেখান। বহু মুহাদ্দিসের মা গোসলের ফরজ জানে না, হায়েজের মাসআলাও জানে না। লজ্জার কারণে কাউকে জিগায়ও না। সুতরাং সহজে এদের মাসাঈল শেখা হয়ে যাবে।

৫) খিদমতে খালক তথা আপনারা মাঝেমধ্যে কিছু সেবামূলক কাজ করুন। ফ্রী খতনা ক্যাম্প চালু করুন। অসহায়দ নারীদের বিয়ের ব্যবস্থা করুন। ফ্রী চক্ষু চিকিৎসার আয়োজন করুন। রোগীদের দেখতে যান। আর এসব করতে দীর্ঘ মেয়াদি ফাণ্ডের দরকার নেই। দীর্ঘমেয়াদি ফান্ড মানেই ফিতনা। যখন যা প্রয়োজন কয়েকজন মিলে কালেকশন করুন। এভাবে শুরু করলে দেখবেন মানুষ আপনাদের খুঁজে বের করে তাদের টাকা দিয়ে আপনাদের মাধ্যমে এসব কাজ করাবে।

৬) ইউনিয়নের সমস্যা ইউনিয়নেই সমাধান করুন। আপনারা এমন প্রতিজ্ঞা করতে হবে যে, আমাদের গ্রাম, আমাদের ইউনিয়নের কোনো সমস্যা কানাইঘাটে যাবে না, আদালত পর্যন্ত গড়াবে না। আমরাই সমাধান করবো। চেষ্টা করুন। পুরোপুরি সফল হওয়া সম্ভব নয়। আংশিক তো সফল হবেন। আমরা কত বোকা, দুইজনে ঝগড়া হয়েছে। এর সমাধান চাই থানায় গিয়ে। দুই পরিবারের সব কামাই থানায় দিয়ে শেষমেশ দুই পরিবার দেউলিয়া। এসব বদ অভ্যাস পরিহার করাতে আপনারাই সচেষ্ট হতে হবে।

শ্রুতিলিখন- মাওলানা ইমরান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক- যুব জমিয়ত বাংলাদেশ, কানাইঘাট উপজেলা শাখা।

এই সংবাদটি 62 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com