এলাকা পরিচিতি: বৃহত্তর নগর

প্রকাশিত: ৯:০০ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ১৩, ২০২১

এলাকা পরিচিতি: বৃহত্তর নগর

ভৌগলিকপ্রক্রিয়ায় আমাদের এলাকাটি
৪টি মৌজায় বিভক্ত। মোহনগঞ্জ থানার সামন দিয়ে চলে আসা গাগলাজুর রোড দিয়ে প্রায় ৪ কি: মি (পূর্ব দিকে)দূরবর্তী স্থানে আমাদের বৃহত্তর নগর এলাকা অবস্থিত। যা ২ নং বড়তলী বানিয়াহারী ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডে অবস্থিত। বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান হাজী মো: মুখলেছুর রহমান আমাদের এলাকার বাসিন্দা। পাক আমলের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মরহুম হরমুজ আলী এবং বাংলাদেশ আমলের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ এর জন্ম আমাদের নগর গ্রামেই। আমাদের পোষ্ট অফিস উত্তর জগদীশপুর এর
পোষ্ট কোড নং ২৪৪৬। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে আমাদের বৃহত্তর ‘নগর চারপাড়া’র ৬ জন কৃতিসন্তান সরাসরি মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন। এছাড়া বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনেও এই অঞ্চলের অবদান রয়েছে। জানাগেছে, কিশোরগঞ্জের হয়বত নগর এবং সিলেটের বানিয়াচঙ্গ এলাকা থেকে কয়েকটি পরিবার ‘নগর’ এর গোড়াপত্তন করেন। জনশ্রুতি আছে ৪৪৫ হিজরী মোতাবেক ১০৫৩ ঈসায়ী সনে নেত্রকোণা অঞ্চলে ইসলামের দাওয়াত নিয়ে হযরত শাহ সুলতান কমর উদ্দীন রুমী (র) আগমন করেন। তারই ১২০ জন সহচরের ২ জন সাগর (হাওর) পথে চলে আসেন
বানিয়াচঙ্গ। কাফেলার আরেকজন হয়বত নগর চলে যান। পরবর্তীতে তাদেরই বংশধরদের একটি কাফেলা বসতি স্থাপন করেন ‘নগর’ এলাকায়। সেই সূত্রেই নব বসতির এলাকা বা নয়টি গোত্রপতিদের নিয়েই( ৯ ঘর থেকে) নগর এর উতপত্তি বলে অনেকেই মনে করেন।
বৃটিশরা দেশ ভাগের সময় এলাকার বা মহল্লার পৃথক তালুক এর নামকরণ করে। পরবর্তী নগর, বসন্তিয়া,রতিয়ারকোণা ও উত্তরজগদিশপুর পৃথক মৌজায় পরিচিতি লাভ করে। (এখানে সংক্ষেপে উল্লেখ করা হলো)।

রতিয়ারকোণা জমিদার ও সৈয়দ বাড়ী এবং চানপুরের হাতিওয়ালা বাড়ী এলাকায় প্রসিদ্ধ। এছাড়া বসন্তিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং নগর বোর্ডঘর (ভোটেরঘর- ইউপি অফিস) বিশেষ ভাবে পরিচিতি রয়েছে। এব্যাপারে মন্ত্রীপরিষদ বিভাগের সাবেক কর্মকর্তা (বৈরগবাড়ী নিবাসী) জনাব রফিকুল ইসলাম রানা জানান,০৮-নং ওয়ার্ডের নগর গ্রামে স্থাপিত ০২ নং বড়তলী বানিয়াহারী ইউনিয়ন পরিষদের কার্যালয় প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পিছনের গল্পঃ
১৮/১২/১৯৬১ সালে নগর গ্রামের খোদা নেওয়াজ তালুকদার,পিতা-হাজী রহিম বক্স ও মতিউর রহমান তালুকদার,পিতা-নবীনেওয়াজ তালুকদার স্বত্বার্পন দলিলমূলে (দলিল নং-৯৩৫৮) ০২ নং বড়তলী বানিয়াহারী ইউনিয়ন পরিষদের কার্যালয় স্থাপনের জন্য ০.৪০ শতক জমি লিখে দেন। অতঃপর তখনকার ইউনিয়ন চেয়ারম্যান জনাব হরমুজ আলী আহমেদ ইউনিয়ন অফিস স্থাপন করেন (জন্ম:১৩৩২ বাংলা,মেট্রিকুলেন পাশ:১৯৪৭,মোহনগঞ্জ পাইলট হাই স্কুল হতে,চেয়ারম্যান পিরিয়ড : ১৯৬১-১৯৬৫ )। জনাব হরমুজ আলী আহমদ জীবিতকালে মাননীয় সংসদ সদস্য রেবেকা মমিন এর
সাথে দেখা করে নতুন “ইউনিয়ন অফিস কমপ্লেক্স” নগর গ্রামে তথা তাঁর আমলে (১৯৬১-৬৫) স্থাপিত স্থানে নির্মাণ করার দাবি জানান এবং তিনি তা জীবদ্দশায় দেখে যাবার আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন।
উল্লেখ্য ০২ নং বড়তলী বানিয়াহারী ইউনিয়ন পরিষদের ১০/১১/১৯৬১ তারিখে অনুষ্ঠিত ০৭ নং বিশেষ সভার ০১ নং আইটেমের আলোচ্য সূচীর উপর সর্বসম্মত সিদ্ধান্তক্রমে নগর গ্রামে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় স্থাপনের স্থান নির্বাচন করা হয়। তাছাড়া এ নিয়ে ১৯৯৫ সালে কোর্টে মামলা হলেও মামলার রায়েও নগর গ্রামে ইউনিয়ন অফিস বহাল থাকে। ইউপি অফিসের পাশে পাকিস্থান আমলে নির্মিত সীডষ্টোর ভবনটির আশু মেরামতের জন্যও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানাই,সেই সাথে নতুন ইউপি কমপ্লেক্স পাকিস্থান আমলে নির্ধারিত ও অনুমোদিত স্থানে নির্মাণের জন্য এলাকাবাসী দাবী করছে।’
স্থানীয় বসন্তিয়া সরকারী বিদ্যালয়ে ভোটকেন্দ্রের ভোটার সংখ্যা ৩৩২৪জন।
ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের মধ্যে এলাকার পুরাতন মসজিদ হলো রতিয়ারকোণা জামে মসজিদ। এছাড়া সম্মিলিত ভাবে পরিচালিত হয়ে আসছে জামিয়া মাদানিয়া নগর চারপাড়া মাদরাসা, নগর চারপাড়া ঈদগাহ, নগর মাদানিয়া বালিকা মাদরাসা। ধর্মীয় ক্ষেত্রে রসুলপুরের মৌলভী সাহেবের বিশেষ অবদান রয়েছে। এছাড়া মৌলভী আমির হোসেন,মৌলভী আশরাফ আলী সাহেব প্রবীণ শিক্ষক হিসেবে এলাকায় খ্যাতি রয়েছে। তাবলীগ জামাতের ময়দানে দীর্ঘ অর্ধশতাব্দীকাল দ্বীনী লাইনে কাজ করেছেন মরহুম আব্দুর রাজ্জাক আমির সাহেব। তিনি আমৃত্য তাবলীগের ইউনিয়ন জিম্মাদার ছিলেন। এখানে পাড়া (মহল্লা) ভিক্তিক সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো। পরবর্তীতে পাড়া ভিত্তিক শিক্ষা,শিক্ষিত-বিশিষ্ট জনের আলোচনা করবো ইনশাআল্লাহ। [তথ্য সহায়তার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহবান রইলো]

৪ মৌজাই ৪ পাড়া=নগর চারপাড়া।

#নগর। ভোটার এলাকা নম্বর ১৫৯৩।
ওয়ার্ড নং ০৮। মোট ভোটার সংখ্যা-৪৭২ জন। পুরুষ -২৪১ জন। মসজিদ ১ টি। মাদরাসা ১টি। ঘর- পরিবার ১৭০ টি। মুক্তিযোদ্ধা ২ জন। যথাক্রমে মরহুম মো: ফজলুর রহমান উরুফে ফজরহমান এবং মো: রেহান মিয়া উরফে রেনু মিয়া।

#রতিয়ারকোণা মৌজা
ভোটার এলাকা নম্বর ১৫৯৪।
মোট ভোটার ২৫২ জন। পুরুষ: ১২৫ জন। মহিলা ১২৭ জন। মসজিদ ১টি। মাদরাসা ১টি। ঈদগাহ ১টি। মুক্তিযোদ্ধা ১ জন। বীরমুক্তিযোদ্ধা মরহুম আব্দুস সাত্তার

#উত্তর জগদিশপুর
ভোটার এলাকা নম্বর ১৫৯৫।
মোট ভোটার ৩৯৯জন। পুরুষ ১৯৮ জন। মহিলা ২০১ জন। মসজিদ ১টি। পাঞ্জেখানা ১টি। বাজার ১টি (যা-নগর বাজার বলে পরিচিত)। মুক্তিযোদ্ধা ২ জন। বীরমুক্তিযোদ্ধা হাজী
আব্দুল মুতালিব এবং বীরমুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা।

বসন্তিয়া মৌজা। ভোটার এলাকা নম্বর ১৫৯৬।
মোট ভোটার ৪৪৬ জন। পুরুষ ২৩১ জন। মহিলা ২১৫ জন। মসজিদ ২ টি। স্কুল ১টি। মুক্তিযোদ্ধা ১জন। বীরমুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেন উরফে ওবুল মিয়া।
বি: দ্র: ভোটার তথ্য ২০১৮ এর নির্বাচন কমিশনের তথ্যানুযায়ী।

তথ্যসংগ্রহে
মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী
১২.০৮.২০২১

এই সংবাদটি 81 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com