প্রকাশিত সংবাদে এদারা মহাসচিবের বক্তব্য

প্রকাশিত: ১২:৪৮ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৮, ২০২১

প্রকাশিত সংবাদে এদারা মহাসচিবের বক্তব্য

সিলেট রিপোর্ট :

আযাদ দ্বীনি এদারায়ে তালিম বাংলাদেশকে নিয়ে  কয়েকটি পত্রিকায় প্রকাশিত রিপোর্টের প্রতিবাদ জানিয়েছেন বোর্ডের মহাসচিব মাওলানা শায়খ আব্দুল বছির। তিনি ৭ সেপ্টেম্বর  এক বিবৃতিতে প্রকাশিত রিপোর্টকে ভিত্তিহীন ও স্ববিরোধী আখ্যায়িত করে বলেন, মুলত নির্বাচনে পরাজিতরা এদারার ইতিহাস ঐতিহ্য ভূলুণ্ঠিত করার মতো পদক্ষেপ গ্রহণ করছেন। একটি সমাধানকৃত বিষয়কে মিডিয়ায় উপস্থাপন করে এদারার ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করেছেন।
তিনি বলেন গত নির্বাচনী মজলিসের পূর্বে সর্বশেষ মজলিসে শুরার সিদ্ধান্তের আলোকে গঠিত সাব কমিটির মাধ্যমে একটি সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনের দিন সর্বসম্মতিক্রমে ১১জনকে মজলিসে শুরা গঠনের দায়িত্ব অর্পণ করা হয়।
কমিটি গত ১৪ মার্চ বৈঠকে বসে সবার উপস্থিতিতে সর্বসম্মতিক্রমে ১২৫ সদস্য বিশিষ্ট মজলিসে শুরা গঠন করে। তখন পর্যন্ত কারো উপর কোনো অভিযোগ উত্তাপিত হয়নি।
অভিযোগ আসে ১ম মজলিসে শুরায় কর্মকর্তা নিয়োগ দেওয়ার পর।
গত ১২ এপ্রিল মজলিসে শুরার বৈঠকে উপস্থিত সংখ্যাগরিষ্ট সদস্যদের মতামতের ভিত্তিতে কর্মকর্তা মনোনীত করা হয়। এতে দুজন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সাংবিধানিক আপত্তি তুলেন কতিপয় সদস্য। সংখ্যাগরিষ্ট সদস্যগণ তাদের আপত্তি প্রত্যাখান করলে অভিযোগকারীগণ হৈচৈ করে হল থেকে বেরিয়ে যান।
তারপরও উপস্থিত শুরার সিদ্ধান্তে অভিযোগের সত্যতা যাচাইয়ের জন্য সিনিয়র সহসভাপতি মাওলানা নুরুল ইসলাম খান সাহেবের নেতৃত্বে ৪ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে পরবর্তী মজলিসে আমেলাকে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা প্রদান করা হয়। সাথে অভিযোগকারীদের বিষয়টি সমাধান করার জন্য বোর্ডের শীর্ষ মুরুব্বিগণ বারবার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন।
অবশেষে গত ১২ আগষ্ট মজলিসে আমেলার বৈঠকে অভিযোগ ও জবাব নিয়ে দীর্ঘ পর্যালোচনা করা হয়। পাশাপাশি তদন্ত কমিটির রিপোর্টে অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত না হওয়ায় সভাপতি মজলিসে শুরার সিদ্ধান্ত বহাল রাখার ফয়সালা প্রদান করেন।
বোর্ড মহাসচিব আরো বলেন মূলত অভিযোগকারীগণ মনমতো পদপদবী না পাওয়ায় এসব কাল্পনিক অভিযোগ উত্তাপন করে বেড়াচ্ছেন। যা অনেকটা স্ববিরোধী বটে। মহাসচিব হিসেবে আমি শতভাগ আস্থা ও বিশ্বাসের সাথে বলতে চাই প্রকাশিত রিপোর্ট সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও কাল্পনিক। এতে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য বোর্ডের সকল মাদরাসার মুহতামিম ও সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহবান জানান। আকাবির আসলাফের রেখে যাওয়া এদারা সংবিধানের শতভাগ ফলো করে পরিচালিত হচ্ছে। ভবিষ্যতেও এধারা অব্যাহত থাকবে ইনশাআল্লাহ। এ বিষয়ে যদি সংশ্লিষ্ট কেউ ডকুমেন্ট দেখতে চান তাহলে অফিসে এসে দেখে যাওয়ার আমন্ত্রণ রইলো।

এই সংবাদটি 128 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com