যুক্তরাষ্ট্র, ভারত ও আফগানিস্তানে তালেবান প্রসঙ্গে কিছু কথা

প্রকাশিত: ১:১৫ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১১, ২০২১

যুক্তরাষ্ট্র, ভারত ও আফগানিস্তানে তালেবান প্রসঙ্গে কিছু কথা

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী::

আজ থেকে দুই দশক আগে ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর সকাল ৮টা ৪৫ মিনিটে যুক্তরাষ্ট্রে ঘটে গিয়েছিলো এক মর্মান্তিক দুর্ঘটনা। ২০ হাজার গ্যালন জেট ফুয়েল ভর্তি আমেরিকান এয়ারলাইনসের বোয়িং-৭৬৭ উড়োজাহাজ আঘাতে হেনেছিলো নিউইয়র্কের টুইন টাওয়ারে। ৯/১১-এর সেই হামলায় প্রাণ হারিয়েছিল ২ হাজার ৯৯৬ জন। আহত হয়েছিল আরও কয়েক হাজার মানুষ। ওই হামলা পুরো বিশ্বকেই বদলে দিয়েছে। আর ওই হামলার জবাব দিতে গিয়ে যুক্তরাষ্ট্র নিজেকে ইতিহাসের দীর্ঘতম যুদ্ধে জড়িয়ে ফেলে। বর্ণবৈষম্য, জাতিগত বৈষম্য ও বিদ্বেষমূলক অপরাধ বাড়িয়েছে। নাইন-ইলেভেনের হামলার পরপরই যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতিতে ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। হামলার পর প্রথম দিনেই নিউইয়র্ক স্টক এক্সচেঞ্জে বড় ধস নামে। এক মাসেই চাকরি হারান ১ লাখ ৪৩ হাজার মানুষ। ধারণা করা হয়, ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে হামলায় আনুমানিক ৬০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার সমমূল্যের ক্ষতি হয়েছিল। সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে বৈশ্বিক যুদ্ধ, মধ্য এশিয়ার ছোট দেশ আফগানিস্তান ছাড়িয়ে ইরাকে পৌঁছে যায়, এমনকি আফ্রিকা পর্যন্ত এর বিস্তৃতি ঘটে। ইরাকে এই সংঘাতে প্রায় ৪ হাজার ৫০০ আমেরিকান সেনা সদস্য এবং লাখ লাখ বেসামরিক লোক প্রাণ হারান। এরপর আফগানিস্তান ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্র গত কয়েক বছরে, বিশেষ করে ১১ই সেপ্টেম্বরের হামলার পর আরও কয়েকটি দেশে যুদ্ধ করতে গেছে। আফগানিস্তান ছাড়াও সিরিয়া, ইরাক, লিবিয়ায় চালানো সামরিক অভিযান যুক্তরাষ্ট্রের জন্য একদিকে ছিল ব্যয়বহুল, অন্যদিকে বহু আমেরিকান সৈন্যকেও এসব যুদ্ধে প্রাণ দিতে হয়েছে। শুধু আফগানিস্তান যুদ্ধেই দেশটির খরচ হয়েছে কয়েক হাজার কোটি ডলার। নিহত হয়েছে প্রায় ২ হাজার ৫০০ মার্কিন সৈন্য।

যুক্তরাষ্ট্রের ব্রাউন ইউনিভার্সিটির এক হিসাবে বলা হচ্ছে, ১১ই সেপ্টেম্বরের হামলার পর আফগানিস্তান, ইরাক, পাকিস্তান ও সিরিয়াতে যুদ্ধ-বাবদ যুক্তরাষ্ট্রের খরচ হয়েছে প্রায় ছয় ট্রিলিয়ান ডলার। এই বছর আগস্টের শেষ নাগাদ আফগানিস্তান থেকে সব সৈন্য প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তের পর থেকে বাইডেন প্রশাসন গত ২০ বছরকে পেছনে ফেলে রেখে আসার জন্য বেশ কিছু চূড়ান্ত পদক্ষেপ নিয়েছে। ১১ই সেপ্টেম্বরের ঘটনাবলীর ওপর আলোকপাত করতে পারে এমন কিছু নথিপত্রকে গোপনীয়তামুক্ত করেছে। একইসঙ্গে আমেরিকানদের প্রত্যাহারের পর আফগানিস্তানে ক্ষমতা দখলকারী তালেবান সরকার থেকে দূরত্ব বজায় রেখে পর্যবেক্ষণ করছে।

এদিকে, যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক আধিপত্য বিস্তারের দিন শেষ হয়ে আসছে কি না, তা যদি বিবেচনা করি, তবে কিছুদিন আগে দেওয়া মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের বক্তব্য থেকে দেখা যায়, আফগানিস্তান থেকে সৈন্য প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্তের পক্ষে জোর গলায় যুক্তি তুলে ধরতে গিয়ে তিনি অন্য আরেকটি দেশ পুনর্নির্মাণে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক শক্তি প্রয়োগের যুগের অবসান ঘটানোর কথা ঘোষণা করেছেন। বাইডেন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রকে তার ভুল থেকে শিক্ষা নিতে হবে। কোনো যুদ্ধে যাওয়ার আগে পরিষ্কার লক্ষ্য নির্ধারণ করতে হবে। তবে জাতি কিংবা রাষ্ট্র গঠনে তার দেশ আর জড়িত হবে না। যুক্তরাষ্ট্র ৬০-এর দশক থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত যেভাবে আচরণ করে আসছে, সারা বিশ্বে ক্ষমতার ভারসাম্যের নতুন বাস্তবতার কারণে সেখানে পরিবর্তন আনতে হচ্ছে। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে আফগানিস্তান এবং ইরাকে যে আক্রমণ চালানো হলো, তার পরিণামে যে যুদ্ধ শুরু হলো, তাকে বলা হচ্ছিল ‘চিরকালের যুদ্ধ’। ২০০১ এবং ২০০৩ সালে যারা এই যুদ্ধ শুরু করেছিল, তারা কেউ ধারণা করতে পারেনি যে দুই দশক পরও এই যুদ্ধ চালিয়ে যেতে হবে। সোজা কথায় বললে, পশ্চিমা দেশগুলো আসলে বুঝতেই পারেনি যে তার কীসের মধ্যে গিয়ে পড়ছে, এবং সেখান থেকে বেরিয়ে আসার কোন বাস্তবসম্মত পরিকল্পনাও ছিল না।

ভারতের বড় চিন্তা:

এদিকে কাছের প্রতিবেশী আফগানিস্তানে তালেবান শাসনে ভারতের বড় চিন্তা তার নিরাপত্তা নিয়ে। সেই সঙ্গে তার ও পশ্চিমাদের মিত্র সাবেক আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনির শাসনামলে আফগানিস্তানে বিপুল অঙ্কের বিনিয়োগ করে রেখেছে নয়াদিল্লি। সেটাও দুশ্চিন্তার এক কারণ।
১৯৯৬ সালের ঘটনা। আফগানিস্তানে দীর্ঘ দখলদারি চালানো সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের গা ঘেঁষা সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ নজিবুল্লাহকে জাতিসংঘের স্থানীয় কার্যালয় থেকে ধরে নিয়ে হত্যা করে ঝুলিয়ে রাখা হয় প্রেসিডেন্ট ভবনের কাছের একটি ট্রাফিক পোস্টে। সেখানে দুদিন ঝুলে ছিল তাঁর মরদেহ। বিশ্বকে হকচকিয়ে এভাবেই শুরু আফগানিস্তানে তালেবানের প্রথম শাসনকাল।
দিল্লির সঙ্গে বিশেষ সখ্য রাখা নজিবুল্লাহর এমন পরিণতি ভারতকে জোরেশোরেই ধাক্কা দেয়। এরপর প্রায় দুই যুগ পার হয়েছে। আবারও আফগানিস্তানের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় সেই তালেবান! গত ২০ বছর আরেক পরাশক্তি যুক্তরাষ্ট্রের তাড়া খেয়ে দেশে-দেশের বাইরে পালিয়ে বেড়িয়েছে তালেবান। সংগঠনটির কোনো কোনো নেতার ঠাঁই হয়েছে মার্কিন কারাগারে। এত বছর চাপে থেকেও তালেবান যখন ঝড় তুলে আবার ক্ষমতায়, তখন ভারতের কপালে ভাঁজ তো পড়বেই। গত বছরের সেপ্টেম্বরে দোহায় আন্ত–আফগান শান্তি বৈঠক। যাতে যোগ দিয়েছিলেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্করও। তালেবানের প্রতি ভারতের চীর বৈরী প্রতিবেশী পাকিস্তানের দুর্বলতা ভাবিয়ে তুলছে নয়াদিল্লিকে। ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে ভয়াবহ হামলা আফগানিস্তান থেকে আল-কায়েদা এ হামলার পরকিল্পনা করে বলে অভিযোগ করে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটি তালেবানকে অনুরোধ জানায়, আল-কায়েদা নেতা ওসামা বিন লাদেনকে তাদের হাতে তুলে দিতে। তালেবান তা অস্বীকার করে।
এরই পরিনতিতে তালেবান সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করতে ‘সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানের’ নামে ন্যাটো ও মিত্র অন্যান্য দেশকে সঙ্গে নিয়ে আফগানিস্তানে একই বছর সামরিক অভিযান শুরু করে যুক্তরাষ্ট্র। কয়েক মাস না যেতেই পতন ঘটে তালেবান সরকারের। তখন থেকে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন বহুজাতিক বাহিনী ও ওয়াশিংটনের ‘পুতুল’ সরকার এবং এর সমর্থকদের লক্ষ্য করে চোরাগোপ্তা ও সহিংসতার পথে ধাবিত হয় আফগানিস্তান। দীর্ঘ ২০ বছর ধরে চলা এ আফগান যুদ্ধে হাজার হাজার নিরীহ মানুষের প্রাণ গেছে। আহতের সংখ্যা হিসাব ছাড়া।

তালেবান ক্ষমতায় ফেরার পরপরই তার প্রতি প্রকাশ্যে সমর্থন ব্যক্ত করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। আফগানিস্তান সফরে পাঠিয়েছেন তাঁর দেশের প্রভাবশালী গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআইয়ের প্রধানকে। তালেবান-পাকিস্তান এই সম্পর্ক স্বাভাবিকভাবেই ভাবিয়ে তুলেছে ভারতকে।
এদিকে, আশরাফ গনি সরকারের আমলে যেসব দেশ আফগানিস্তানকে ব্যাপকভাবে আর্থিক সহায়তা করেছে, ভারত সেই তালিকায় দ্বিতীয়। তালেবানের বরাবর বিরোধী নর্দান অ্যালায়েন্সের ( আফগানিস্তানের পানশিরে তালেবানের সঙ্গে তুমুল লড়াই চালিয়ে যাওয়া) প্রকাশ্য সহায়তাকারীও ছিল ভারত!

এদিকে ভারতের বিজেপি সরকারের নীতির কারণে আফগানিস্তানে সাবেক প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনির আমলেই অসন্তোষ দানা বাঁধে। এর জেরে আফগানিস্তানের শহরে শহরে ভারতবিরোধী বড় বিক্ষোভও হয়েছে। তালেবান আমলে এ অসন্তোষ কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেটিও ভারতের জন্য বড় প্রশ্ন।

নীতি বদলানোর লক্ষণ ভারতের। গত ৩১ আগস্ট কাতারের রাজধানী দোহায় ভারতীয় দূতাবাসে তালেবান নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন দিল্লির রাষ্ট্রদূত দীপক মিত্তাল। পশ্চিমাদের কারও কারও চোখে ‘সন্ত্রাসী’ বলে চিহ্নিত তালেবানের সঙ্গেই কিনা সন্ত্রাস বন্ধের বিষয়ে আলাপ-আলোচনা, দর–কষাকষি করেছেন ভারতের রাষ্ট্রদূত।

গত ২০ বছর আরেক পরাশক্তি যুক্তরাষ্ট্রের তাড়া খেয়ে দেশে-দেশের বাইরে পালিয়ে বেড়িয়েছে তালেবান। সংগঠনটির কোনো কোনো নেতার ঠাঁই হয়েছে মার্কিন কারাগারে। এত বছর চাপে থেকেও তালেবান যখন ঝড় তুলে আবার ক্ষমতায়, তখন ভারতের কপালে ভাঁজ তো পড়বেই।

রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় তালেবানের আবার ফেরা ভারতের জন্য কূটনৈতিকভাবেও এক বড় বাধা বলে ধারণা বিশ্লেষকদের। সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের মতো যুক্তরাষ্ট্রও যখন আফগানিস্তান থেকে পিছু হটে, ঠিক তখন মাত্র কয়েক সপ্তাহের মধ্যে তালেবান যেভাবে পুরো দেশের ওপর নিজেদের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করল, তা দশকের পর দশক ইতিহাস গবেষকদের চিন্তার খোরাক হয়ে থাকবে। তালেবানের ঝোড়ো গতির আক্রমণে রীতিমতো দেশ ছেড়ে পালিয়েছেন সাবেক প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি। ভারতের ঘনিষ্ঠ মিত্র একজন রাষ্ট্রপ্রধানের এভাবে পলায়ন পরোক্ষভাবে নয়াদিল্লির ভাবমূর্তিকেও এক পরীক্ষায় ফেলেছে।

আফগানিস্তানে তালেবানের পুনরুত্থানে সম্ভাব্য ভূরাজনৈতিক পরিবর্তন ‘সবকিছু ওলটপালট করে দিতে পারে’।
গৌতম মুখোপাধ্যায়, আফগানিস্তান ও সিরিয়ায় ভারতের সাবেক রাষ্ট্রদূত ১৫ আগস্ট হুড়মুড় করে কাবুল সরকারের পতনের পর বিভিন্ন দেশ আফগানিস্তানে দূতাবাস বন্ধ করে দিয়েছে। সরিয়ে নিয়েছে নিজেদের নাগরিকদের। সেই সঙ্গে দেশটিতে ফেলে গেছে দুই দশকের কর্মযজ্ঞ ও নানা খাতে বিনিয়োগ। ভারত এসব দেশের একটি। এ অবস্থায় দক্ষিণ এশিয়ার ভূরাজনীতিতে এক উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন আসবে বলে মনে করা হচ্ছে। পরিবর্তিত সেই পরিস্থিতি বিশেষত ভারতের জন্য হতে পারে বড় পরীক্ষা। কেননা প্রতিবেশী পাকিস্তান ও চীনের সঙ্গে সীমান্ত নিয়ে ঐতিহাসিকভাবেই দেশটি সম্পর্ক উত্তেজনার। আর পাকিস্তান ও চীন উভয়ই আফগানিস্তানের ভবিষ্যৎ গড়তে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে, এমনটাই ধারণা করা হচ্ছে।

আফগানিস্তান ও সিরিয়ায় ভারতের সাবেক রাষ্ট্রদূত গৌতম মুখোপাধ্যায় বলেছেন, এই সম্ভাব্য ভূরাজনৈতিক পরিবর্তন ‘সবকিছু ওলটপালট করে দিতে পারে’। ভারতের কেউ কেউ বিষয়টিকে দিল্লির জন্য সম্ভাব্য বিরাট ক্ষতি ও পাকিস্তানের জন্য বড় জয় হিসেবে দেখছেন। এটাও ঠিক, আফগানিস্তানে তালেবানের শাসন ভারতের বিরুদ্ধে পাকিস্তানকে কৌশলগত বিশেষ সুবিধা পাইয়ে দেবে; ইসলামাবাদ যা সব সময় চাইছিল।

ভারতের আরেক প্রতিদ্বন্দ্বী চীনের আফগানিস্তানে রয়েছে বড় ধরনের অর্থনৈতিক স্বার্থ। তালেবান সরকারের সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়ে তারাও চাইবে নিজের ক্রমবর্ধমান খনিজ সম্পদের চাহিদা মেটাতে। তালেবানের সঙ্গে সুসম্পর্ক প্রতিষ্ঠায় আগ্রহী রাশিয়া ও ইরান। তালেবান ইস্যুতে তারাও হাঁটছে চীনের পথে।

তাহলে এখন ভারত কী করবে? ভারত কখনো আফগানিস্তানে পাকিস্তান, যুক্তরাষ্ট্র বা রাশিয়ার মতো প্রভাব বিস্তার করতে পারেনি। যদিও ভারত বরাবর দেশটির সঙ্গে নিরাপত্তা ও সাংস্কৃতিক বন্ধনের উন্নয়নে কাজ করে গেছে। বর্তমানে বহু আফগান ভারতে পড়াশোনা, কাজ বা চিকিৎসার জন্য আছেন। সাবেক ভারতীয় কূটনীতিক জিতেন্দ্র নাথ মিশ্র বলেন, ‘দিল্লির হাতে এখন কোনো ভালো বিকল্প নেই। যা আছে তা খারাপ ও ভবিষ্যতের জন্য আরও খারাপ।’

তালেবান সরকারকে ভারত স্বীকৃতি দেবে কি দেবে না, সেটাই নয়াদিল্লির জন্য আপাতত সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। দেশটির জন্য এ সিদ্ধান্ত নেওয়া কঠিন হবে, বিশেষ করে মস্কো ও বেইজিং যদি তালেবানকে স্বীকৃতি দিয়ে বসে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ১৯৯৯ সালের মতোই তালেবান সরকারকে সম্ভবত স্বীকৃতি দেবে পাকিস্তান।

ভারতের সামনে এই মুহূর্তে সবচেয়ে ভালো বিকল্প হলো তালেবানের সঙ্গে যোগাযোগের রাস্তা খোলা রাখা। কিন্তু দিল্লি ও তালেবানের মধ্যকার অতীত ইতিহাস বিবেচনায় তা হবে এক অস্বস্তিকর সম্পর্ক। ১৯৯৯ সালে ইন্ডিয়ান এয়ারলাইনসের একটি উড়োজাহাজ ছিনতাইকারীদের পালানোর নিরাপদ পথ তৈরি করে দিয়েছিল তালেবান। ঘটনাটি এখনো ভারতীয়দের স্মৃতিতে অম্লান। অন্যদিকে ১৯৯৬ থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত তালেবানের বিরুদ্ধে লড়াই করা নর্দান অ্যালায়েন্সের সঙ্গে সব সময় ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রেখেছে দিল্লি।

প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনির (ডানে) সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে তুলেছিল ভারত। তালেবানের হাতে কাবুলের পতন হলে দেশ ছেড়ে পালান তিনি।
এখন নিজেদের স্বার্থরক্ষায় ও আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে ভারত এসব অতীত একপাশে রাখতে চাইতে পারে বলে ধারণা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

ভারতের আরেক প্রতিদ্বন্দ্বী চীনের আফগানিস্তানে রয়েছে বড় ধরনের অর্থনৈতিক স্বার্থ। তালেবান সরকারের সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়ে তারাও চাইবে নিজের ক্রমবর্ধমান খনিজ সম্পদের চাহিদা মেটাতে। তালেবানের সঙ্গে সুসম্পর্ক প্রতিষ্ঠায় আগ্রহী রাশিয়া ও ইরান। তালেবান ইস্যুতে তারাও হাঁটছে চীনের পথে।
যুক্তরাজ্যের ল্যানচেস্টার ইউনিভার্সিটির রাজনীতির অধ্যাপক অমলেন্দু মিশ্র ও আফগানিস্তানের ওপর লেখা একটি বইয়ের রচয়িতা বলেছেন, ভারতকে এখন একটি কূটনৈতিক রশির ওপর দিয়ে হাঁটতে হবে।

তা ছাড়া ভারতকে এ কৌশলও নিশ্চিত করতে হবে, যেখানে বিরোধপূর্ণ কাশ্মীর পরিণত হবে না মুজাহিদদের পরবর্তী ঘাঁটিতে। ভবিষ্যতে আফগানিস্তানে তালেবানবিরোধী নর্দান অ্যালায়েন্স আবার সংগঠিত হবে কি না, যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন পশ্চিমা দেশ এবং চীন, রাশিয়া ও পাকিস্তান জোটের মধ্যে আধিপত্য বিস্তারের সম্ভাব্য লড়াইয়ের দিকেও নজর রাখতে হবে নয়াদিল্লিকে।

তথ্যসূত্র: বিবিসি, প্রথম আলো,ইত্তেফাক।

এই সংবাদটি 101 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com