কেমুসাসে ঈদে মিলাদুন্নবী উদযাপন মহানবী (সা.) ছিলেন সমগ্র জগতের জন্য রহমতস্বরূপ: আবদুল হামিদ মানিক

প্রকাশিত: ২:৩০ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২২, ২০২১

কেমুসাসে ঈদে মিলাদুন্নবী উদযাপন মহানবী (সা.) ছিলেন সমগ্র জগতের জন্য রহমতস্বরূপ: আবদুল হামিদ মানিক

সিলেট রিপোর্ট :
পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে সিলেটের কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের (কেমুসাস) উদ্যোগে নিবেদিত আলোচনাসভা ও কবিতাপাঠের আসর অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (২০ অক্টোবর) সন্ধ্যায় নগরীর দরগাহ গেইটে কেমুসাস সাহিত্য আসর কক্ষে সাহিত্য সংসদের সাধারণ সম্পাদক গবেষক আবদুল হামিদ মানিকের সভাপতিত্বে ও সহ-সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মবনুর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক ছিলেন বিশিষ্ট মুফাসসিরে কুরআন মাওলানা আফতাবুজ্জামান হেলাল। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এডভোকেট এমদ উল্লাহ শহীদুল ইসলাম শাহীন, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ কর্নেল (অব.) সৈয়দ আলী আহমদ, কেমুসাসের সহসভাপতি দেওয়ান মাহমুদ রাজা চৌধুরী, সাহিত্য ও গবেষণা সম্পাদক আহমদ মাহবুব ফেরদৌস, কেমুসাসের কার্যনির্বাহী সদস্য সৈয়দ মুহাম্মদ তাহের ও লেখক জাহেদুর রহমান চৌধুরী।
অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেছেন, মহানবী (সা.) সাম্য ও সম্প্রীতির শিক্ষা দিয়েছেন। ইসলাম শান্তি ও স¤প্রীতির ধর্ম। তাই মহানবীর জীবন থেকে শান্তি-সম্প্রীতি ও সহিষ্ণুতার শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে।
সভাপতির বক্তব্যে গবেষক আবদুল হামিদ মানিক বলেন, ঈদে মিলাদুন্নবী উদযাপন আমাদের সংস্কৃতির অংশ। আর সংস্কৃতি একদিনে গড়ে ওঠেনা, বহু বছরের চর্চার মাধ্যমে এটা গড়ে ওঠে। তিনি বলেন, মহানবীর আদর্শের মধ্যে কোনো সাম্প্রদায়িকতা ছিলোনা। তিনি ছিলেন সার্বজনীন, সমগ্র জগতের জন্য রহমতস্বরূপ।
প্রধান আলোচকের বক্তব্যে মাওলানা আফতাবুজ্জামান হেলাল বলেন, আল কুরআনে আল্লাহ বলেছেন, যে আমার রাসুলকে ভালোবাসবে, সে যেন আমাকেই ভালোবাসলো। তিনি বলেন, ইসলামকে রাসুল (সা.) যেভাবে উপস্থাপন করেছেন, সাহাবায়ে কেরাম যেভাবে অনুসরণ করেছেন, সেভাবে যদি আমরা অনুসরণ করি, তাহলে সমাজে কোনো বিশৃংখলা থাকবেনা।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এডভোকেট এমদ উল্লাহ শহীদুল ইসলাম বলেন, কুরআন-হাদীসকে পুর্ণাঙ্গরূপে ব্যাখ্যার জন্য শায়খুল হাদীস ও মুফাসসিরে কুরআনরা রয়েছেন। সমাজে বিভ্রান্তি নিরসন ও শৃংখলা রক্ষার স্বার্থে ধর্মীয় বক্তব্য প্রচাওে র আগে তাদের মতামতকে অনুসরণ করতে হবে।
শিক্ষাবিদ কর্নেল (অব.) সৈয়দ আলী আহমদ বলেন, কোনো মুসলমান আবেগী হয়ে অন্য ধর্মের লোকদের উপর আক্রমণ করতে পারেনা। প্রকৃত মুসলিমদেরকে সবধরণের উস্কানীকে ধৈয্য সহকারে মোকাবেলা করতে হবে।
অনুষ্ঠানের শুরুতে আল কুরআন থেকে তেলাওয়াত করেন মাওলানা মাহমুদুল হাসান। রাসুলের শানে কবিতা পাঠ করেন কবি কামাল আহমদ। সবশেষে বিশ্বমানবতার সুখ-শান্তি ও মুক্তির জন্য দোয়া পরিচালনা করেন মাওলানা আফতাবুজ্জামান হেলাল।

এই সংবাদটি 43 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com