গবেষক আবদুল মুকিত মুখতারের সমাজ দরদি গ্রন্থ ‘বৃদ্ধাশ্রম’

প্রকাশিত: ১:২৮ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২৮, ২০২১

গবেষক আবদুল মুকিত মুখতারের সমাজ দরদি গ্রন্থ ‘বৃদ্ধাশ্রম’

মৃধা আলাউদ্দিন :
আবদুল মুকিত মুখতার মূলত গবেষক ও কবি। তার সাহিত্যচর্চার কেন্দ্রীয় বিষয় মানবিক সৌন্দর্য, ভ্রাতৃত্ববোধ এবং আলোকিত জীবন। জীবনকে দেখেন তিনি একনিষ্ঠ সংবাদকর্মীর চোখে। তিনি কথা বলেন, গল্পের রস, সমালোচকের একাগ্রতার প্রচÐ মুন্সীয়ানা ও বিদ্বজ্জনের নিপুণ ভাষায়। ফলে তার সৃষ্টি কর্ম-কুশলতা স্বভাবতই দাঁড়িয়ে যায় সংস্কারের পক্ষে। সমাজের ভালো তাদের আনন্দ দেয়, কালো-ক‚টিলতা দেয়Ñ দেয় বেদনার দাগ। কিন্তু বেদনা তাকে ব্যথিত করলেও অদম্য করতে পারে না। বরং আশাহত না হয়ে তিনি আশাবাদী হন, স্বপ্ন দেখেন, স্বপ্ন দেখান সৌন্দর্য ও আনন্দের। সাহিত্যের শাশ^ত উদ্দেশ্যও তাই।
সম্প্রতি আমার হাতে এসেছে আবদুল মুকিত মুখতার রচিত বৃদ্ধাশ্রম নামক বইটি। বইটি প্রকাশ করেছেন বাসিয়া প্রকাশনীর প্রকাশক মোহাম্মদ নওয়াব আলী। ইঙ্গিতময় দৃষ্টিনন্দন প্রচ্ছদ এঁকেছেন শিল্পী মোস্তাফিজ কারিগর। সুমুদ্রিত ২৯৬ পৃষ্ঠার এ বইটির দাম রাখা হয়েছে মাত্র ৪৫০ টাকা। বইটির গেটআপ, সেটআপ, মেকআপ বেশ চমৎকার। মানানসই। বাঁধাইও ভালো। এ বইটি হাতে নিয়ে আদর করতে (পাঠ করতে) ইচ্ছে করবে পাঠিকা পাঠক সবার। আবদুল মুকিত মুখতার চা-বাগিচার দেশে, সুরমা নদীর দেশের সুনামগঞ্জ জন্মগ্রহণ করেন। তিনি জন্মগ্রহণ করেন ৮ মার্চ ১৯৫৭ সালে। তার বাবা মুন্সি আবদুল গফুর এবং মা সৈয়দা জুবেদা খাতুন। তিনি তার স্ত্রী ছাকিয়া মুকিত এবং পাঁচ সন্তান নিয়ে সোনার সংসার গড়ে তুলেছেন আনন্দ আয়োজনে। কর্মচাঞ্চল্যময় প্রবাস যাপন করেছেন সুদূর ইংল্যান্ডে। তার প্রথম কবিতার বই তখন তিনি প্রবাসে। ৪০ বছরের সাহিত্য জীবনে তিনি ৪টি কবিতার বই, একটি গল্পের বই, একটি জীবনীগ্রন্থসহ মোট ৬টি গদ্যগ্রন্থ রচনা করেছেন। অর্থাৎ মন্মনের চেয়ে তন্ময়ের পাল্লাই তার ভারী। এই ওজন শুধু সংখ্যায় নয় বিষয় বৈচিত্র্যেও বইগুলো লক্ষণীয়। প্রসংশীয়।
তিনি কবি, গবেষক হিসেবে যেখানে অসুন্দর অসঙ্গতি দেখেন, সেখানেই তার ক্যামেরার চোখ আটকে যায়। বৃদ্ধাশ্রম তারই অথচ কঠিন বাস্তব এবং যথাসত্য চিত্র। বৃদ্ধাশ্রম আধুনিক সভ্যতার দান। আমাদের দেশে এর নামগন্ধ ছিল না, বিদেশ থেকে এসেছে এই অমানবিক বিষয়টি পারমাণবিক অস্ত্রের মতো। ফলে ভেঙে খান খান হয় যাচ্ছে আশ্রমকেন্দ্রিক আমাদের ধ্যান-জ্ঞান কেন্দ্র। শব্দের অর্থের মতো জীবনের অর্থ যাচ্ছে বদলে। বদলাতে হবে কিন্তু সব কিছু বদলানো যায় না। তবু বদলে যায়। বদলে যাওয়া জীবনের এক নিষ্ঠুর চলচ্চিত্রের নাম বৃদ্ধাশ্রম।
গবেষক আবদুল মুকিত সিনেমার একজন দক্ষ পরিচালকের মতো বহুরৈখিক রেখায় হাঁটিয়ে একটি বিন্দুতে আমাদের দাঁড় করিয়েছেন। আমরা যদি তার রোডম্যাপ দেখি তাহলে অনেক বিষয় আমাদের চোখ খুলে যাবে। যেমন : কেন এই বৃদ্ধাশ্রম? যুগে যুগে ইতিহাসে বৃদ্ধাশ্রম। পরিবারের সূচনা, নতুন পরিবারের যাত্রা, শিশুর পরিচর্যা, মা, মাতৃভাষা, মাতৃ ভাষার উৎস, শিক্ষা, পাঠশালা, হাতেখড়ি। কয়েকজন শ্রেষ্ঠ মা মানব সৃষ্টি, পিতা, পিতার দায়িত্ব, আদি পিতার সৃষ্টি রহস্য মা-বাবার যৌথ দায়িত্ব, সন্তান গঠনের কৌশল, সমাজের ¯্রােতধারা, মা-বাবার কর্তব্য, প্রচলিত সংস্কৃতি, ভোটের ষড়যন্ত্র, নেতৃত্বের কোন্দল, স্ত্রীর মর্যাদা ও কর্তব্য, বর্তমান সমাজচিত্র, পুত্র ও পুত্রবধূর দায়িত্ব ও কর্তব্য, মডার্ন পুত্রবধূ, ফতোয়াবাজি, বউ-শাশুরির দ্ব›দ্ব। যৌতুক প্রথা দেশে-বিদেশে হিন্দু বিয়ে, খ্রিস্টান বিয়ে, মুসলিম বিয়ে? ভালোবাসার দ্ব›দ্ব, পুরুষ নির্যাতন, বউ-শাশুরির বন্ধুত্ব, প্রতিশোধ, সুখি পরিবার, ধ্বংসের কারণ, বাপের বাড়ি না শশুরবাড়ি, ধৈর্যের সুফল। সংসার সুখের হয় গুণবতী রমণীর সুখে। শান্তি, শান্তির স্বরূপ, ইতিহাসে সুখি রমণী অনুগত সন্তান, সামাজিক ব্যাধি, ইসলামপূর্ব নারী, যুগে যুগে নারী নির্যাতন, নারীবাদের উত্থান, মুসলিম নারী, পর্দাপ্রথা, পর্দাপ্রথার প্রয়োজনীয়তা, নারীর নিরাপত্তা, নারী শিক্ষা, ষড়যন্ত্রের কবলে নারী, মানুষের স্বভাব, ক্ষমা, মানবতার কারাগার, ব্রিটেনে বৃদ্ধাশ্রম, আন্তর্জাতিক প্রবীণ দিবস, নিঃসঙ্গ ঈদ, মৃত্যুর অপেক্ষায়, বৃদ্ধাশ্রম করোনা ভাইরাস ও লাশের মিছিল। মানবতার মৃত্যু, বৃদ্ধ মা-বাবার শেষ ঠিকানা, নিজ ঘরে কবরবাস, বৃদ্ধাশ্রম একটি অভিশাপ, জবাবদিহিতা কী এবং কেন সমাধানের পথ ও পাথেয়। মোট কথা বৃদ্ধাশ্রম বিষয়ে একটি প্রায় পূর্ণাঙ্গ মিউজিয়াম সৃষ্টি হয়েছে আবদুল মুকিত মুখতারের মানবিক হাতের মুন্সিয়ানায়। জ্ঞানের গভীরতায়…
হ্যাঁ মেশিন মানুষ নয় মানুষও মেশিন নয় কিন্তু বস্তুবাদী সভ্যতার প্রলোভন চাপে, মুক্তবাজার সিন্ডিকেট সংস্কৃতির লীলায় মানুষের অস্থির রোগ বেড়ে যাওয়ায় আবেগ নেমে এসেছে শূন্যের কোঠায়। ফলে বেনিয়া স্বভাব মোড়লদের ভাগ করো শাসন করোÑ শোষণ করো নীতি যেমন খুশি তেমন অবস্থা আজ বিশ^জুড়ে। টুকরো টুকরো এখন মানবিক মূল্যবোধ। ভেঙে খান খান আজ সমাজ সংসার। সংসার যত ভাঙবে, টুকরো এখন মানবিক মূল্যবোধ। ভেঙে খান খান আজ সমাজ সংসার। সংসার যত ভাঙবে, ঠুকরো হবে, খÐ হবে ততই বর্তমান সমাজপতিদের পোয়াবারো। তাদের বহুমাত্রিক মিডিয়ার থাবায় আক্রান্ত প্ররোচিত প্রলোভিত উচ্চভিলাষী। মানুষ সত্যিকার অর্থেই সায়েন্স ফিকেশনের রোবট মানুষ বা মেশিন মানুষ হয়ে উঠেছে।
ফলে আর একটু বেশি এবং সুখকর জীবিকার তাগিদে অস্থির হয়ে উঠেছে মানবসমাজ পরিণামে ব্যক্তিত্ববোধ, মমত্ববোধ, অপার্থিব সৌন্দর্যবোধ প্রায় ভুলে গেছে তারা। মরে গেছে তাদের মনুষ্যত্ববোধ।
পশ্চিমা সমাজব্যবস্থায় মানুষের চেয়ে পশুর কদর অনেক বেশি। মনুষ্যত্ববোধের চেয়ে পশুত্ববোধের দিকে তাদের যাত্রা শুরু হয় আধুনিকতার শুরু থেকেই। খাও-দাও-ফ‚র্তি করো নীতি উত্তরাধুনিক জীবনও তুমুলভাবে সক্রিয়। জৈবিক উদ্দেশ্য ছাড়া আর কোনো লক্ষ্য নেই জীবন ও যৌবনের। পুঁজিরপাহাড়ে চড়ে মাতুব্বরি করার জন্য হেন কর্ম নেই যা তাদের সিলেবাসের বাইরে। অর্থাৎ তারা মনে অর্থই সব অনর্থের মূল। অথচ গদ্য স¤্রাট মীর মুশাররফ হোসেন ‘বিষাদ সিন্ধু’-তে বলেন, ‘মোহ মোড়লিপনার মোহ…’।
গবেষক আবদুল মুকিত মখতার তার বইটির মুখবন্ধে বলেন, পারিবারিক বন্ধন ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। এই অনুশোচনার কেন্দ্র করেই ২০১৮ সালের ২১ ডিসেম্বর মাসের শুক্রবার বৃদ্ধাশ্রম রচনা শুরু এবং ২৬ অক্টোবর ২০২০ সালে সম্পন্ন হয়েছে। অনেক বাস্তব ঘটনার উদ্ধৃতি সন্বিবেশিত করা হয়েছে। এমন অনেক সন্তান-সন্ততি, পিতামাতা, স্বামী-স্ত্রী ও বউ-শাশুরির কথা প্রতি কথা বর্ণিত হয়েছে। যাতে একে অন্যের প্রতি মনঃক্ষুন্ন কিংবা সন্দেহ সৃষ্টি করতে পারে। অনেক হয়তো অপ্রিয় সত্যকে গ্রহণ করতে না পেরে গ্রন্থ ও গ্রন্থকারের প্রতি বিক্ষুদ্ধ হতে পারেন। মূলত দায়িত্ব নিয়ে সংস্কার ও সংশোধনের চেষ্টা করতে গেলে প্রতিষ্ঠিত স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট শক্তি ও তাদের পদলেহী তাবেদার ক্ষেপে যাবেন, মারমুখী হবেন এটা খুবই স্বাভাবিক। আমরা সবাই জানি সত্য সব সময় অপ্রিয় হয়ে থাকে। তাই বলে সত্য প্রতিষ্ঠার প্রচেষ্টা থেমে থাকে না। থেমে যায়ও না। ব্যক্তি জীবনে আবদুল মুকিত মুখতার একজন সত্যনিষ্ঠ সংবাদকর্মী হওয়ার কারণে নির্মোহ দৃষ্টি দিয়ে সমাজের নগ্ন চিত্রগুলো উপস্থাপন করতে পেরেছেন। আবার গবেষকের চোখ দিয়ে দেখিয়েছেন গহŸরের পঙ্কিলতার নির্যাস। তার সৃষ্টিশীল গদ্য-পদ্য আলোর পক্ষে-ভালোর পক্ষে দাঁড়ায় সাহসের সঙ্গে। মূলত সত্য-প্রেম পবিত্রতার দ্যুতি শেষ পর্যন্ত ছুঁয়ে যায় মানুষের মন। অমানবিক পারমাণবিক কারিগরদের কথা আলাদা। তারা সমস্যার সমাধানে যুদ্ধ চাপিয়ে দেন, পারিবারিক সৌহার্দ্য ভেঙে ফেলেন এবং হুয়াক্কা হুয়া বলে সবাইকে জঙ্গি সম্বোধন করে নির্লজ্জভাবে। মূলত লজ্জা শরম, মানবিক সৌন্দর্য ও নারীর মূল্যায়ন তাদের কাছে গৌণ বিষয়। তারা নারী স্বাধীনতার নামে নারীকে পণ্যে রূপ দেন। ভালোবাসাকেও বেঁচে দেন ডলারের দামে। ডলারই তাদের ক্ষমতার উৎস। ডলারই বিচারের মানদÐ।
তারা আকাশে বাতাসে ছড়িয়ে উচ্চাকাক্সক্ষার লোলুপ বিজ্ঞাপন। স্বপ্ন দেখায় কামনার টাওয়ার কী কৌশলে দখল করা যায়। দেশ ভাঙে, সমাজ ভাঙে, ভাঙে সুখের ঘর। তারপর তারা খরপোড়া আগুনে আলু পুড়ে খাওয়ার জন্য শর্তযোগ্য দাতব্যসেবার মেতে ওঠে। মানুষ তখন বুড়ো হয়ে যায়, বুড়িয়ে যায়। মা থাকেন না, বাবা থাকেন না। থাকে শুধু বৃদ্ধাশ্রম নামক সুগ্রন্থিত সুমুদ্রিত একটি বইটি। বইটি পাঠিকা-পাঠকদের মনে আলোড়ন তুলতে সক্ষম হবে বলে আমার বিশ^াস। সেজন্য ব্যাপক প্রচার-প্রসার জরুরি মনে করি। একজন দায়িত্ববান মানুষ হিসেবে চিহ্নিত হবেন কবি, গবেষক আবদুল মুকিত মুখতার। সৃজনশীল এই লেখকের সঙ্গে পাঠক সমাজকে পরিচয় করিয়ে দেয়ার জন্য প্রকাশককে আন্তরিক ধন্যবাদ। ‘বৃদ্ধাশ্রম’ বইটির বহুল প্রচার-প্রসার এবং ব্যাপক পাঠকপ্রিয়তা কামনা করি।

এই সংবাদটি 121 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com