নিউইয়র্কে ইলহামের সিরাত সেমিনার সিরাতুন্নবিতেই আছে বিশ্বশান্তির প্রেসক্রিপশন

প্রকাশিত: ৩:৪৪ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১, ২০২১

নিউইয়র্কে ইলহামের সিরাত সেমিনার সিরাতুন্নবিতেই আছে বিশ্বশান্তির প্রেসক্রিপশন

সিলেট রিপোর্ট :

মিলাদুন্নবি মানে নবিজির জন্ম। সিরাতুন্নবি মানে নবিজির জীবনী। একটি আরেকটির বিপরীত ছিল না। অথচ, বিষয় দুটিকে পরস্পর মুখামুখি দাঁড় করি আমরা, মুসলমানরা অহেতুক বিতর্কে লিপ্ত হয়ে পড়ি। মাঝেমধ্যে বিষয়টি অনেক বেশি বাড়াবাড়ি পর্যায়েও চলে যেতে দেখা যায়। এই বিতর্ক থেকে বেরিয়ে আসার উপায় খুঁজে পেতে হবে।

ইন্সটিটিউট অব লিটারেচার এন্ড হিউম্যান অ্যাকমপ্লিশমেন্ট অব ম্যোরালিটি বা ইলহামের আয়োজনে নিউইয়র্কের ব্রঙ্কসে অনুষ্ঠিত পবিত্র মিলাদুন্নবি উপলক্ষ্যে সিরাতুন্নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সেমিনারে উপরোক্ত কথাগুলো আলোচিত হয়।

ইলহামের সেক্রেটারি মাওলানা হামিদুর রহমান আশরাফের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন হাফিজ মাহবুবুর রহমান। কুরআনুল কারিমের তিলাওয়াতের মাধ্যমে শুরু হওয়া সেমিনারের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের অর্গানাইজিং সেক্রেটারি মাশুক আহমদ। সিরাতের ওপর মূল আলোচনা উপস্থাপন করেন ইলহাম প্রেসিডেন্ট মাওলানা রশীদ জামীল।

পবিত্র মিলাদুন্নবি উপলক্ষ্যে সিরাতুন্নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম শীর্ষক এই সেমিনারে হতাশা ব্যক্ত করে বলা হয়, মিলাদুন্নবি মানে নবিজির জন্ম। সিরাতুন্নবি মানে নবিজির জীবনী। একটি আরেকটির বিপরীত ছিল না। নবিজির সিরাত তথা সিরাতুন্নবির মধ্যেই নবিজির জন্ম তথা মিলাদুন্নবি মিশে আছে। অথচ বিষয় দুটিকে পরস্পরবিরোধী অবস্থানে নিয়ে গিয়ে অহেতুক বিতর্কে জড়িয়ে পড়ি আমরা। ব্যাপারটি যতটা না শরয়ি কারণে, তারচেয়ে বেশি ইগোজনিত কারণেই করা হয় বলে সচেতন মহল মনে করেন।

নবিজির জন্মের দিনকে ঈদ বলা যাবে কি না, কথা হতে পারে এ বিষয়ে। সিরাত বা মিলাদ মাহফিলকে কেন্দ্র করে খেলাফে শরিয়ত কিছু হলে কথা হতে পারে সেটা নিয়ে। কিন্তু মিলাদ বা সিরাত শব্দ দুটি নিয়ে কোনো মুসলমানের তো আপত্তি থাকার কারণ ছিল না। অথচ, দুঃখজনকভাবে শব্দ দুটিকে আমরা দুইপক্ষ দুই দিকে টেনে নিয়ে গেছি। যারা সিরাতুন্নবির পক্ষের লোক, তারা জানেন মিলাদুন্নবি মানে নবিজির জন্ম—সেটা বুঝেন এবং মানেনও! তারপরেও তাদের কোনো মাহফিলের ব্যানারে কখনো মিলাদুন্নবি লেখা হবে না। যারা মিলাদুন্নবির পক্ষের লোক, তারাও জানেন সিরাত মানে নবিজির জীবনী! তারা সেটা মানেনও, তবু তারা তাদের মাহফিলের ব্যানারে সিরাতুন্নবি লিখবেন না! আজিব এক জেদের চারদিকে ঘুরপাক খেতে থাকে নবির প্রতি আমাদের ভালবাসা।

সেমিনারে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন, মাওলানা শুআইব জামাল উদ্দিন, মাওলানা মুস্তাফিজুর রহমান, মাওলানা কবির আহমদ, মাওলানা মুজিবুর রহমান, মাওলানা জাহিদুর রহমান, হাফিজ মাওলানা সাজ্জাদুর রহমান।

সেমিনারে আলোচকরা বলেন, নবিজির সিরাত আলোচনা শুধু রবিউল আউয়ালেই সীমাবদ্ধ রাখলে হবে না। বছরের ৩৬৫ দিনই নবিজীবন আলোচনা করতে হবে। নবির আদর্শ শুধু রবিউল আউয়ালের জন্য নয়। যাঁকে কেন্দ্র করে জগতের আয়োজন, যাঁকে পাঠানোর জন্য পৃথিবীকে সাজানো, আদম থেকে ইসা, সোয়ালাখ নবি-রাসুল আলাইহিমুস সালাম যাঁর নবুওয়াতের নুরের ঝলক, আল্লার পরেই যাঁর মর্যাদা, সেই মহান সত্ত্বা, বিশ্ব মানবতার মুক্তির দিশারি মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সিরাতের আলোচনা প্রতিদিন প্রতি মুহূর্তে হওয়া দরকার। বিশ্বশান্তির প্রেসক্রিপশন একমাত্র নবিজীবনেই নিহিত। সুতরাং শান্তি চাইলে মিলাদ-সিরাত বিতর্ক বাদ দিয়ে শান্তির সূত্রগুলো নবিজীবন থেকে মুখস্থ করতে হবে।

সেমিনার শেষে বিশ্ব মানবতার শান্তি ও কল্যাণ কামনা করে মুনাজাত পরিচালনা করেন হাফিজ মাহবুবুর রহমান।

এই সংবাদটি 169 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com