সিলেট বিভাগের চার জেলার ৭ উপজেলার ৪৪টি ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে ৪৩টিতে চেয়ারম্যান নির্বাচিত যারা

প্রকাশিত: ৭:৩৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১২, ২০২১

সিলেট বিভাগের চার জেলার ৭ উপজেলার ৪৪টি ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে ৪৩টিতে চেয়ারম্যান নির্বাচিত যারা

সিলেট রিপোর্ট :

ইউপি নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে সিলেট বিভাগের চার জেলার ৭ উপজেলার ৪৪টি ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে ৪৩টিতে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। এরমধ্যে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ১৯টিতে, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রাথী ১০, স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা ১০টি, স্বতন্ত্র প্রার্থী জামায়াত ২ ও একটিতে খেলাফত মজলিস এবং একটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। অন্যদিকে হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জের একটি ইউনিয়নের ফলাফল স্থগিত রাখা হয়েছে।  বৃহস্পতিবার এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

সিলেট সদর: সিলেট জেলার ৩ উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নের মধ্যে সদরে আওয়ামী লীগ ২, স্বতন্ত্র জামায়াত ১ ও খেলাফত মজলিস ১ প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। উপজেলার চারটি ইউনিয়নের মধ্যে মোগলগাঁও ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান হিরণ মিয়া, কান্দিগাঁওয়ে জামায়াত নেতা আবদুল মনাফ, জালালাবাদে আওয়ামী লীগের ওবায়দুল্লাহ ইসহাক ও হাটখোলায় খেলাফত মজলিসের মাওলানা রফিকুজ্জামান বিজয়ী হয়েছেন।
কোম্পানীগঞ্জ : কোম্পানীগঞ্জ থেকে আবিদুর রহমান জানান, কোম্পানীগঞ্জে আওয়ামী লীগ ২, আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী ১, স্বতন্ত্র বিএনপি ২ জন প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। ইসলামপূর পূর্ব ইউনিয়নে স্বতন্ত্রের ব্যানারে বিএনপি নেতা আলমগীর হোসেন আলম, তেলিখালে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী আবদুল ওয়াদুদ আলফু, ইছাকলসে বিএনপি সমর্থক সাজ্জাদুর রহমান, উত্তর রণিখাইয়ে আওয়ামী লীগের ফয়জুর রহমান ও দক্ষিণ রণিখাইয়ে আওয়ামী লীগের ইকবাল হোসেন এমাদ বিজয়ী হয়েছেন।
বালাগঞ্জ : বালাগঞ্জ থেকে জিল্লুল হক জিলু জানান, বালাগঞ্জে আওয়ামী লীগ ৬ , আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী ১, স্বতন্ত্র বিএনপি ৩ জন প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন।
এরমধ্যে বালাগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নে বিএনপি নেতা মো. আব্দুল মুনিম, পূর্ব গৌরীপুরে বিএনপি নেতা মুজিবুর রহমান মুজিব, পশ্চিম গৌরিপুরে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী আবদুর রহমান মাখন, বোয়ালজুড়ে আওয়ামী লীগের আনহার মিয়া, দেওয়ানবাজারে বিএনপির নাজমুল আলম ও পূর্ব পৈলনপুরে আওয়ামী লীগের শিহাব উদ্দিন বিজয়ী হয়েছেন।
ছাতক : ছাতক (সুনামগঞ্জ) থেকে সৈয়দ হারুন অর রশীদ জানান, ছাতকের ১০ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রার্থীদের মাত্র ৪ জন বিজয়ী হয়েছেন। বাকি ৭টির মধ্যে বিদ্রোহী ৩, বিএনপি ২ এবং ১টি ইউনিয়নে জামাত সমর্থিত প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। এখানে ১০টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৫১ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। প্রায় প্রতিটি ইউনিয়নেই আওয়ামী লীগের একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থী থাকায় নৌকার প্রার্থীদের ফলাফল ভালো হয়নি। কোন-কোন ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থীদের অবস্থান ছিল ৩য় স্থানে। বিগত নির্বাচনে উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের মধ্যে ৯টি ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী, ৩টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী এবং ১টি ইউনিয়নে বিএনপির প্রার্থী বিজয়ী হয়েছিলেন। চলতি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ১ম দফায় ৩টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এরমধ্যে ২টিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এবং ১টি ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থী বিজয়ী হয়। ১১ নভেম্বর ২য় দফা ইউপি নির্বাচনে ছাতক সদর ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম(আনারস) ৩ হাজার ১৪৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী রঞ্জন কুমার দাস(নৌকা) পেয়েছেন ২হাজার ৭৪৪ ভোট। খুরমা উত্তর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান বিল্লাল আহমদ(নৌকা) ৪ হাজার ৬৩৭ ভোট পেয়ে বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। এ নিয়ে তিনি টানা ৩য় বারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী শামছুল ইসলাম খাঁ (আনারস) পেয়েছেন ৩ হাজার ৭৭৯ ভোট। কালারুকা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান অদুদ আলম(নৌকা) ৯ হাজার ৭৪৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আশরাফুল আলম(আনারস) পেয়েছেন ৬ হাজার ৫২৯ ভোট। ছৈলা-আফজলাবাদ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী গয়াছ আহমদ(নৌকা) ৫ হাজার ৯২২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। এ ইউনিয়নে তার নিকতম প্রতিদ্বন্দ্বী নানু মিয়া পেয়েছেন ৫ হাজার ৪১৭ ভোট। জাউয়াবাজার ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান মেম্বার আব্দুল হক(ঘোড়া) ৪ হাজার ১৮২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী নূরুল ইসলাম(নৌকা) পেয়েছেন ৩ হাজার ৪১১ ভোট। গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও ইউনিয়নে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সুন্দর আলী (নৌকা)। তার প্রাপ্ত ভোট হলো ৫ হাজার ৪২৬ ভোট। নিকতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আখলাকুর রহমান পেয়েছেন ৪ হাজার ৫৩২ ভোট। ইসলামপুর ইউনিয়নে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন সাবেক চেয়ারম্যান জামাত নেতা এড. সুফী আলম সুহেল (টেলিফোন)। তার প্রাপ্ত ভোট ৫ হাজার ৫৭০। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মাওলানা আকিক হোসাইন(চশমা) পেয়েছেন ৪ হাজার ৫৬২ ভোট। চরমহল্লা ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা আবুল হাসনাত (মোটরসাইকেল) বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। প্রাপ্ত ভোট ৩ হাজার ২৯২। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা কদর মিয়া(নৌকা)। তার প্রাপ্ত ভোট ২ হাজার ৮৬৪। দোলারবাজার ইউনিয়নে বিএনপি নেতা নূরুল আলম (চশমা) বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রাপ্ত ভোট ৫ হাজার ৯৪। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আমির উদ্দিন (মোটরসাইকেল) ছিলেন তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী । তার প্রাপ্ত ভোট ৪ হাজার ২৭২। এছাড়া, দক্ষিণ খুরমা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আবু বকর(ঘোড়া) ২ হাজার ৮২৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিদ্রোহী প্রার্থী জয়নাল আবেদীন (টেলিফোন) পেয়েছেন ২ হাজার ৭৭৪ ভোট। এসব নির্বাচনী ফলাফল উপজেলা সম্মেলন কক্ষ এবং স্ব স্ব রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে।

দোয়ারাবাজার : দোয়ারাবাজার (সুনামগঞ্জ) থেকে তাজুল ইসলাম জানান, সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারের ৯ ইউপির মধ্যে আওয়ামী লীগ ৫টি, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী ৩টি ও একটিতে স্বতন্ত্র প্রাথী বিএনপি নেতা নির্বাচিত হয়েছেন। বেসরকারিভাবে নির্বাচিত প্রার্থীরা হলেন- বাংলাবাজারে (আ.লীগের বিদ্রোহী) স্বতন্ত্র প্রার্থী এম আবুল হোসেন (চশমা), নরসিংপুরে আ.লীগ মনোনীত বর্তমান চেয়ারম্যান নুর উদ্দিন আহমদ, দোয়ারা সদরে আ.লীগ মনোনীত প্রার্থী আব্দুল হামিদ, মান্নারগাঁওয়ে বিএনপিপন্থি স্বতন্ত্র প্রার্থী ইজ্জত আলী (মোটরসাইকেল), পান্ডারগাঁওয়ে আ.লীগ মনোনীত প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াহিদ, দোহালিয়ায় (আ.লীগের বিদ্রোহী) স্বতন্ত্র প্রার্থী শামীমুল ইসলাম শামীম (আনারস), লক্ষ্মীপুরে আ.লীগের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) প্রার্থী জহিরুল ইসলাম (মোটরসাইকেল), বোগলাবাজারে আ.লীগ মনোনীত মিলন খান, এবং সুরমা ইউনিয়নে আ.লীগ মনোনীত প্রার্থী এম এ হালিম বীর প্রতীক।
জুড়ী (মৌলভীবাজার) থেকে নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলায় ৫ ইউনিয়নের একটিতে আ.লীগ, স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা দুটি এবং একটিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জয় পেয়েছেন। নির্বাচনে জায়ফরনগর ইউনিয়নে বিএনপির সমর্থক হাজী মাছুম রেজা (ঘোড়া), পশ্চিম জুড়ী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী আনফর আলী (ঘোড়া), পূর্ব জুড়ীতে আওয়ামীলীগ বিদ্রোহী রুয়েল আহমদ (ঘোড়া), গোয়ালবাড়ী ইউনিয়নে বিএনপি সমর্থক আব্দুল কাইয়ুম (ঘোড়া) ও সাগরনাল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত আব্দুন নুর মাস্টার (নৌকা) বিজয়ী হয়েছেন।
হবিগঞ্জ থেকে সংবাদদাতা জানান, হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জে ৫টি ইউনিয়নের ৩টিতে চেয়ারম্যান পদে জয় পেয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা। এছাড়া একটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও অপর একটি ফলাফল স্থগিত করা হয়েছে।
উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুল আলম গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১০ টার দিকে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের হলরুমে বেরসকারীভাবে এ ফলাফল ঘোষণা করেন।
তিনি জানান, আজমিরীগঞ্জে ৫টি ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের তিনজন, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে একজন বিজয়ী হয়েছেন। এছাড়া ব্যালট পেপার পুড়িয়ে ফেলার কারণে তিন নম্বর জলসুখা ইউনিয়নের ফলাফল স্থগিত করা হয়েছে।
ঘোষিত ফলাফল অনুযায়ী আজমিরীগঞ্জ সদর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. আশরাফুল ইসলাম মোবারুল নৌকা প্রতীক নিয়ে দুই হাজার ৬০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. স্বাধীন মিয়া পেয়েছেন এক হাজার ৯২০ ভোট ও ইসমাইল মিয়া পেয়েছেন এক হাজার ৭৫১ ভোট। বদলপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সুসেনজিৎ চৌধুরী নৌকা প্রতীক নিয়ে সাত হাজার ৮৫১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী নীল কমল চৌধুরী পেয়েছেন তিন হাজার ৮৬৯ ভোট ও অসীম কুমার চৌধুরী পেয়েছেন মাত্র ৪৪২ ভোট। কাকাইলছেও ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মিসবাহ উদ্দিন ভূঁইয়া নৌকা প্রতীক নিয়ে নয় হাজার ৫৪২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আশরাফ উদ্দিন পেয়েছেন ছয় হাজার ৩ ভোট। শিবপাশা ইউনিয়নে ঘোড়া প্রতীক নিয়ে চার হাজার ৩৮৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. নলিউর রহমান তালুকদার। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. তফসির মিয়া পেয়েছেন চার হাজার ১৮১ ভোট। এছাড়া, স্বতন্ত্র প্রার্থী একেএম মাহবুবুল আলম পেয়েছেন তিন হাজার ২২ ভোট, আলী আমজাদ তালুকদার পেয়েছেন দুই হাজার ৫৬৪ ভোট ও জাহাঙ্গীর আলম পেয়েছেন ১৮৩ ভোট। এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ চলে।

এই সংবাদটি 48 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com