যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে বাংলাদেশ সোসাইটির নির্বাচন ফের স্থগিত

প্রকাশিত: ৮:১০ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ১৪, ২০২১

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে বাংলাদেশ সোসাইটির নির্বাচন ফের স্থগিত

এস এম হক , নিউইয়র্ক থেকে:
যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের বাংলাদেশ সোসাইটির নির্বাচন আবারও স্থগিত করা হলো।তিন বছর আগের মতো ১২ নভেম্বর (শুক্রবার) সুপ্রিম কোর্টের এক নির্দেশে এ নির্বাচন স্থগিত করা হয়। যদিও ১৪ নভেম্বর (রবিবার) নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল।
জানা যায় , ভোটগ্রহণের লক্ষ্যে ৫টি কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছিল। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরাও প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন করে ফেলেছিলেন । কিন্তু গতকাল শুক্রবার নিউইয়র্ক স্টেট সুপ্রিম কোর্টের নিষেধাজ্ঞা জারি হওয়ায় থমকে গেল নির্বাচনের সকল কার্যক্রম।
এর আগে ২০১৮ সালের ২১ অক্টোবরও একইভাবে স্থগিত হয়েছিল এই নির্বাচন। তবে এবারের অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। এতে নির্বাচন কমিশনের কেউ কেউ খুশি হলেও দুই প্যানেল এবং স্বতন্ত্র সহ ৩৮ প্রার্থীর সকলেই চরমভাবে ক্ষুব্ধ ও হতাশ । বিপুল অর্থ ব্যয়ের পাশাপাশি মূল্যবান কর্মঘণ্টারও অপচয় হয়েছে বলে মনে করছেন বেশিরভাগ প্রার্থীরা।
জানা গেছে, সুপ্রিম কোর্টে নিরু এস নীরা নামক এক প্রবাসীর দায়েরকৃত (ইনডেক্স নম্বর ৭২৪৫০২/২০২১) মামলার অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ সোসাইটির প্রধান নির্বাচন কমিশনার জামাল আহমেদ জনিসহ সকলকে ২৪ নভেম্বরের মধ্যে আত্মপক্ষ সমর্থনমূলক জবাব দিতে বলা হয়েছে এবং এ ব্যাপারে শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে ২ ডিসেম্বর।
এদিকে শেষ মুহূর্তে এসে নির্বাচনের তরী ডুবানোর জন্যে কে বা কারা দায়ী তা চিহ্নিত করার দাবি উঠেছে প্রবাসী বাংলাদেশি কমিউনিটিতে। কারণ, ৪৬ বছরের পুরনো এই সংগঠনে এবারই প্রথম সবচেয়ে বেশি প্রবাসী নির্ধারিত ফি পরিশোধ করে সদস্য/ভোটার হয়েছেন।
এদিকে পুনরায় নির্বাচন স্থগিত হওয়ার খবর বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে । এরপর থেকে নতুন দাবি উঠেছে নির্বাচন কমিশন বিলুপ্তির এবং নতুন করে সদস্য-তালিকার। নতুন কমিশনের ঘোষণা অনুযায়ী আবারও মনোনয়নপত্র জমা নেয়ার কথাও এই সংস্থাটির আজীবন সদস্যদের বক্তব্যে উঠে এসেছে ।
শুক্রবার রাতে বাংলাদেশ সোসাইটির বোর্ড অব ট্রাস্টির চেয়ারম্যান এম আজিজ এবং ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুর রহিম হাওলাদার পৃথক পৃথকভাবে সাংবাদিকদের জানান, স্থগিতাদেশ নিয়ে সোসাইটির অ্যাটর্নির সাথে প্রতিনিয়ত যোগাযোগ করা হচ্ছে। তার পরামর্শ অনুযায়ী পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে। তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এতবড় একটি নির্বাচন, এত মানুষ সম্পৃক্ত আর কষ্টার্জিত অর্থ ব্যয় করার পর শেষ মুহূর্তে তা থমকে দাঁড়ানো সত্যি দু:খজনক একটি ঘটনা। এটা কারোই কাম্য ছিল না।

এই সংবাদটি 31 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com