ইফা ও শাহ নজরুল ইসলামের বিরুদ্ধে অপপ্রচার : একটি সরেজমিন প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ১২:১৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৮, ২০২১

ইফা ও শাহ নজরুল ইসলামের বিরুদ্ধে অপপ্রচার : একটি সরেজমিন প্রতিবেদন

 

অনুসন্ধানী রির্পোট:
বিগত ৩ নভেম্বর ২০২১ তারিখে হবিগঞ্জের একটি অখ্যাত ¯’ানীয় পত্রিকায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমের ভুয়া কেন্দ্রের নামে অর্থ লুটপাট শিরোনামে একটি লিড নিউজ প্রকাশিত হয়। পুনরায় ১৪ নভেম্বর রবিবার ‘অধিকতর অনুসন্ধানে আবারো উঠে আসলো হবিগঞ্জ জেলা ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপপরিচালক শাহ নজরুল ইসলামের দুর্নীতির চাঞ্চল্যকর তথ্য’ শিরোনামে আরেকটি লিড নিউজ প্রকাশিত হয় একই পত্রিকায়। সংবাদ দুটিতে আনিত অভিযোগগুলো দেখে আমাদের মনে হয়েছে এর সত্য-মিথ্যা যাচাই করে দেখা প্রয়োজন। কারণ ইসলামিক ফাউন্ডেশন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত একটি জাতীয় ধর্মীয় সং¯’া। মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম প্রকল্পের আওতায় দেশের হাজার হাজার আলেম উলামাদের কর্মসং¯’ানের একটি বড় জায়গা। আর মাওলানা শাহ মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম কেবল একজন সরকারি কর্মকর্তাই নন, তিনি দেশের একজন বরেণ্য আলেমও। সংবাদে উক্ত তিনটি জায়গাতেই আঘাত করা হয়েছে। ফলে আমরা গরজ অনুভব করলাম বিষয়গুলো খতিয়ে দেখার। বেশ কয়েক দিন গ্রামে-গঞ্জে ঘুরে এই সরেজমিন প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়। এতে উঠে এসেছে প্রকৃত চিত্র।
অভিযোগ করা হয়েছে যে ‘কাগজ কলমে কেন্দ্র ও সংখ্যা থাকলেও এর অধিকাংশেরই কোন অস্তিত্ব নেই।’ অনুসন্ধানে ভিন্ন চিত্র দেখা গেছে। প্রকৃত পক্ষে হবিগঞ্জ ইফা জেলা কার্যালয়ের অধীনে কোন ’অস্তিÍত্বহীন কেন্দ্র’ নেই বলে প্রতীয়মান হয়েছে। অফিস সূত্রে এবং সূত্র ধরে সরেজমিন পরিদর্শনে জানা গেছে যে ২০২১ শিক্ষাবর্ষে হবিগঞ্জ জেলার প্রাক-প্রাথমিক কেন্দ্র ৩৮০টি, সহজ কুরআন শিক্ষা (বয়স্ক) ১২টি এবং সহজ কুরআন শিক্ষা (শিশু-কিশোর) কেন্দ্র ৬৯৭টি মোট ১০৮৯ টি কেন্দ্র বিদ্যমান ছিলো। এ থেকে সংগত কারণে ইতোমধ্যে শুন্য ঘোষিত হয়েছে ৩৩টি সহজ কুরআন শিক্ষা সেন্টার এবং ১২টি প্রাক প্রাথমিক সেন্টার। মোট ৪৫টি কেন্দ্র শুন্য হয়েছে। যার শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে। বাকি ১০৪৪টি কেন্দ্র বর্তমানেও বিদ্যমান আছে।
কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ দিন দিন বৃদ্ধি পাওয়ায় জাতীয়ভাবে গত ২৪ মার্চ ২০২০ থেকে ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ পর্যন্ত দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। সে আলোকে ইফা মউশিক শিক্ষা কার্যক্রমও বন্ধ ছিল। প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা কার্যক্রম এখানো পর্যন্ত বন্ধ রয়েছে। বর্তমানে সহজ কুরআন শিক্ষা কেন্দ্রগুলো সপ্তাহে দুই দিন সোমবার ও বুধবার খোলা রয়েছে। বেশ কিছু সেন্টারে গিয়ে দেখা গেছে সেগুলোতে লেখাপড়া হ”েছ। উপ¯ি’তিও উৎসাহব্যঞ্জক।
মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সবচেয়ে গণমুখী একটি প্রকল্প। ১৯৯৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়ে এই প্রকল্পটি দেশের শিক্ষা বিস্তারে, স্বাক্ষরতা অর্জনে এবং বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষা বাস্তবায়নে প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করে যা”েছ। এই কার্যক্রম দেশের সকল মসজিদে বাস্তবায়নের দাবি রাখে। বিশেষ করে শহরাঞ্চলের বস্তী এলাকা, গ্রাম ও হাওর অঞ্চলের প্রতিটি মসজিদে এ কার্যক্রম সম্প্রসারণ করা প্রয়োজন। এই প্রকল্প প্রাইমারি স্কুলে ঝরে পড়া হ্রাস করতে ভূমিকা রাখছে এবং নৈতিক শিক্ষাদানে অবদান রাখছে।
আমরা বাহুবল উপজেলায় যতটি কেন্দ্র দেখেছি সবগুলো কেন্দ্রে ২৫ থেকে ৩৫ জন শিক্ষার্থী উপ¯ি’ত ছিলো। কোনো কোন কেন্দ্রে এর চেয়েও বেশি শিক্ষার্থী বিদ্যমান রয়েছে। বাহুবল উপজেলার ফিল্ড সুপারভাইজার জনাব ইমরুল হকের সাথে কথা বলে জানা গেছে যে, উপজেলার ৮৬টি সহজ কুরআন শিক্ষা সেন্টারের কোনটিতেই ২৫ নিচে ছাত্র উপ¯ি’তি নেই বরং ত্রিশের উপরে আছে সবগুলো সেন্টারে। তিনি আমাদেরকে সময় নিয়ে সবগুলো সেন্টার ঘুরে দেখার আহŸান জানান। তিনি আরো জানান যে বাহুবল উপজেলায় অ¯ি’ত্বহীন/ভূয়া কেন্দ্র দূরে থাক. কোন দুর্বল কেন্দ্রও নেই। সকল কেন্দ্র ‘এ’ ক্যাটাগরির।
অভিযোগ ছিল, ইফা হবিগঞ্জের উপপরিচালক জেলার মউশিক শিক্ষকদের নিকট থেকে নিয়মিত কমিশন নিয়ে বেতন সীটে স্বাক্ষর করেন। বিষয়টি সত্যি হলে আমাদের সকলের জন্য তা বেদনাদায়ক। কারণ তাঁর মত একজন বরেণ্য আলেম কর্মকর্তা যদি এহেন দুর্নীতির সাথে যুক্ত হন তাহলে আর কী থাকে? আমরা বিষয়টির সত্যতা যাঁচাই করতে তৃণমূলে যাই এবং ব্যাপক অনুসন্ধান চালাই। আমরা হবিগঞ্জের প্রতিটি উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের ১জন করে শিক্ষকের স্বাক্ষাৎকার গ্রহণ করি। সকল শিক্ষক একবাক্যে বলেন প্রকাশিত সংবাদটি ডাহা মিথ্যা। তারা সকলেই স্বীকার করেন শাহ মুহাম¥দ নজরুল ইসলাম একজন সৎ ও নিষ্ঠাবান কর্মকর্তা। তারা বলেন, পত্রিকায় মিথ্যা অভিযোগ করে আমাদেরও অপমান করা হয়েছে। কারণ তিনি কমিশন নিলে আমরা কমিশন দিয়েছি! দেয়া আর নেয়াতো সমান অপরাধ। তারা বলেন এর মাধ্যমে পুরো জেলার আলেম উলামাদের অপমান করা হয়েছে। আমরা এই মিথ্যাচারের দৃষ্টান্তমুলক বিচার চাই।
অনুসন্ধানে আরো জানা যায়, এই প্রকল্পের সকল লেনদেন প্রকল্প সদর দফতর থেকে হয়ে থাকে। হবিগঞ্জ জেলায় এর কোন একাউন্ট পর্যন্ত নেই। শিক্ষকদের সম্মানী যার যার একান্টে চলে যায়। ¯’ানীয়ভাবে কোন কেনাকাটা বা টেন্ডারের ব্যব¯’াও নেই। সকল শিক্ষা উপকরণ সদর দফতর থেকে সরবরাহ করা হয়। স্থা নীয় অফিস কয়েক দফা যাঁচাই করে বিদ্যমান ও শূণ্য কেন্দ্রের একটি প্রতিবেদন প্রেরণ করে মাত্র। বিগত প্রায় দুই বছর ধরে (২০ মার্চ ২০২০ থেকে এ পর্যন্ত) প্রাক-প্রাথমিক গণশিক্ষা বন্ধ রয়েছে। উপজেলার বিভিন্ন কেন্দ্র ঘুরে সাংবাদে প্রকাশিত ‘ভুয়া কেন্দ্র বলে কোনো কেন্দ্রের অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি।
অবৈধ নিয়োগ বিষয়ে খোঁজ নিয়ে দেখা যায় যে, এ অভিযোগটিও সম্পূর্ণ মিথ্যা। কারণ এটি করার কোন ক্ষমতা ইফা উপ পরিচালকের নেই। শিক্ষক নিয়োগ কমিটির জেলা পর্যায়ের কমিটিতে জেলা প্রশাসক ও উপজেলা পর্যায়ের কমিটিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহŸায়ক। উপরোক্ত কমিটিগুলো যথা নিয়মে নিয়োগ পরীক্ষা গ্রহণ করে প্রকল্প দফতরে সুপারিশ করেন এবং চুড়ান্ত নিয়োগ প্রদান করেন মউশিকের প্রকল্প পরিচালক।
কোন ধরণের শূণ্য কোটা না দেখিয়ে অবৈধ পš’ায় পূর্বের কেন্দ্র ও শিক্ষকদের বহাল রেখে পুনরায় ২০২০-২০২৪ সালের ৭ম পর্যায় প্রকল্পের জন্য চালু করার অভিযোগটিও মিথ্যা প্রতীয়মান হয়েছে। কারণ পূর্বের বিদ্যমান কেন্দ্র বহাল রাখার আদেশ প্রকল্প দফতর দিয়েছে। এই নির্দেশনা জেলা কার্যালয়ে সংরক্ষিত আছে। তাছাড়া শূণ্য কেন্দ্রে যথাযথ প্রক্রিয়া অবলম্বন করে নিয়োগও হয়েছে।
এ সম্পর্কে শাহ নজরুল ইসলাম প্রতিবেদককে জানান, হবিগঞ্জে ভুয়া কেন্দ্রের কোনো অস্তিত্ব নেই, এসব সম্পূর্ণ মিথ্যাচার। আপনারা তদন্ত করে দেখুন। একটি মহল আমার ব্যক্তি ইমেজ, ক্যারিয়ার এবং জাতীয় সং¯’াকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহবান জানান। তিনি বলেন অনেকেই আমাকে মামলা করার জন্য পরার্মশ দিয়েছেন।
আমি আল্লাহর নিকট এর বিচার দিলাম। তিনিই উত্তম বিচারক।’
মাওলানা শাহ নজরুল ইসলামের বিরুদ্ধে জামায়াত ঘরানার অভিযোগ একেবারেই মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। কারণ তিনি কওমী মাদরাসা থেকে উঠে এসেছেন। কওমী মাদরাসার লোকেরা জামায়াত করে না। তাছাড়া তিনি দেশের তিনজন বুজুর্গ থেকে ইজাযত প্রাপ্ত খলীফা। তিনি মাযহাবের পক্ষে কিতাব রচনা করেছেন।
মাওলানা শাহ নজরুল ইসলাম এ বিষয়ে বলেন, আমার নিজের বংশ, নানার বংশ এবং শ্বশুরের বংশের কেউ জামায়াতের সাথে জড়িত নয়। তিনি বলেন ইর্ষাকাতর হয়ে কতিপয় চিহ্নিত মহল আমার ক্যারিয়ার নষ্ট করার জন্য এরূপ মিথ্যা বানোয়াট কাল্পনিক রিপোর্ট করিয়েছে। ৩২ বছরের চাকুরী জীবনে আমার হাতে ময়লা লাগাইনি। আমি আল্লাহকে ভয় করে চলি। তিনি বলেন, আমি একজন ষষ্ঠ গ্রেডের কর্মকর্তা, সারা জীবনের সঞ্চয়, গ্রামের জায়গা জমি বিক্রি করে, প্রফিডেন্ট ফান্ডের লোন নিয়ে এবং আত্মীয় স্বজন ভাই বন্ধুর কাছ থেকে ধার করে একটি ফ্লাট বুকিং দিয়েছি মাত্র। এখনো কিস্তি পরিশোধ শেষ হয়নি বলে এটাও আমার নামে রেজিস্ট্রী হয়নি। এটা নাকি আমার দুর্নীতির আলামত? দুর্নীতি করলে একটা ফøাট রাখতে ৩২ বছর লাগে? মহান আল্লাহই এই মিথ্যাচারের বিচার করবেন।
ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমীতে কর্মকালীন সময়ে ইমামদের খাবারের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এটা শুনতেও লজ্জা করে। তিনি বলেন এরাতো আমার ছাত্র এবং এদের হারিয়ে যাওয়ার কোন সুযোগ নেই। সবাই সরকারিভাবে তালিকাবদ্ধ। সকলের মোবাইল নাম্বার আছে। তালিকা ধরে মোবাইল নাম্বারে যোগাযোগ করে দেখুন, কোন একজনও এ অভিযোগ করে কিনা? তিনি বলেন বিগত একুশ বছর যাবৎ আমি একজন কর্মকর্তা সিলেট বিভাগীয় (সদ্য সাবেক) পরিচালক জনাব ফরিদ উদ্দিন আহমদের অধিনে কাজ করেছি। তাকে জিজ্ঞেস করুন। আমার সহকর্মীদের নিকট থেকে তথ্য নিন। ৩২ বছরের চাকুরী জীবনের কোন কালে কোন স্টেশনে আমার বিরুদ্ধে এহেন কোন অভিযোগ ছিলনা।
বিগত ১৬ নভেম্বর হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে অভিযুক্ত এবং পত্রিকা কর্তৃপক্ষের উপস্থি’তিতে শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত শুনানিতে হবিগঞ্জ ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপপরিচালক শাহ নজরুল ইসলাম উপ¯ি’ত থেকে যুক্তি প্রমাণ পেশ করেন। এ সময় পত্রিকা কর্তৃপক্ষ রিপোর্টের পক্ষে কোনো তথ্য-প্রমাণ দিতে পারেননি বলে জানা গেছে। সূত্র জানায় তাৎক্ষণিকভাবে মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদ প্রচারের জন্য পত্রিকা কর্তৃপক্ষকে তিরস্কার করেন হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক।
ইসলামিক ফাউন্ডেশন সিলেট বিভাগীয় পরিচালক (সদ্য সাবেক) জনাব ফরিদ আহমেদ এ সম্পর্কে বলেন, শাহ নজরুল ইসলাম সাহেব একজন ভালো মানুষ। তাঁর সম্পর্কে যে অভিযোগ পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে তা সত্য নয়। হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মহোদয় বিষয়টি তদন্ত করছেন বলে আমরা জানতে পেরেছি।
আমরা তার আগের কর্মস্থ’ল ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমী সিলেটের কর্মকর্তা কর্মচারী ও প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ইমামদের সাথে কথা বলি। তাছাড়া এই প্রতিবেদক বাহুবল উপজেলার শতাধিক ইমাম ও গণশিক্ষার শিক্ষকদের সাথে সরেজমিনে কথা বলে। তন্মধ্যে-বাহুবল উপজেলার ৭নং ইউনিয়নের জয়পুর জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা নুর উদ্দিন জানান, শাহ নজরুল ইসলাম সাহেব একজন সৎ, দক্ষ এবং ভালো মানুষ। তিনি কোনো ধরনের উৎকোচ গ্রহণ করা তো দূরের কথা, আমরা একটি পানও তাঁকে খাওয়াতে পারি না।
ফতেহপুর দক্ষিণ জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা জমির আহমদ বলেন, এসব সম্পূর্ণ মিথ্যা। ডিডি স্যার যদি এমন হোন, তাহলে দুনিয়াই কিয়ামত হয়ে যাবে! এগুলো অবিশ্বাস্য।
বাহুবল উপজেলার ৩নং ইউপির চলিতা তলা জামে মসজিদের ইমাম হাফেজ আবুল কালাম জানান, আমাদের বেতন থেকে কোনো ধরনের কমিশন নেয়া হয়নি। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বিরোদ্ধে কতিপয় কুচক্রি মহল নানা অপপ্রচারে লিপ্ত রয়েছে। আমরা তাদের ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জেলা প্রশাসক মহোদয় বরাবর স্বারকলিপি দিয়েছি।
জাতীয় ইমাম সমিতি হবিগঞ্জ জেলা সভাপতি মাওলানা শামসুল হক মুসার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি প্রকাশিত সংবাদকে মিথ্যাচার আখ্যায়িত করে বলেন- আমরা এসব প্রত্যাখ্যান করেছি। জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিতভাবে জানানো হয়েছে।
এছাড়াও লাখাই টাউনশিপ জামে মসজিদের ইমাম মাওঃ শরিফ উদ্দিন, মোড়াকরি উত্তর জামে মসজিদের ইমাম মাওঃ নূরুল্লাহ, মুড়িয়াউক বাদশা বাড়ি জামে মসজিদে ইমাম মাওঃ ওলিউল্লাহ, ভাদিকারা দাক্ষিন জামে মসজিদের ইমাম মাওঃ আব্দুল লতিফ, মাওঃ আমিনুল হক (করাব নূরীয়া ইমলামিয়া মাদ্রাসা মক্তব, লাখাই, হবিগঞ্জ), বাজারাবাদ জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা ইয়াকুত আহমদ, উলুকান্দি মাদ্রাসা মক্তবের মোওলানা ইউনুছ আলী, দক্ষিণ কসরা জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা আব্দুল কাইয়ুম, মির্জা বাড়ি জামে মসজিদের ইমাম হাফিজ ফিরোজ আহমদ, বায়তুল আমান জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা নূর উদ্দিন,চুনারুঘাট শাহজালাল জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা জুবাইর আহমদ খান, হবিগঞ্জ পৌরসভার ১নং উমেদ নগর জামে মসজিদের ইমাম মাওলানা সৈয়দ আহমদ প্রমুখের সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা এসব মিথ্যাচারের নিন্দা জানান।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন শিক্ষক সমিতি হবিগঞ্জ জেলা সভাপতি মুফতি আব্দুল মজিদ পিরোজপুরী প্রকাশিত সংবাদের নিন্দা জানিয়ে বলেন কোনো শিক্ষক কখনো এমন কোনো অভিযোগ দেননি। শিক্ষকদের কাছ থেকে কমিশন আদায়ের কোনো ঘটনা আমার জানা নেই। এসব মিথ্যা, অপপ্রচার।
ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমির প্রশিক্ষক কৃষিবিদ মোশারফ হোসেন জানান, শাহ মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম একজন ভালো মানুষ, সৎ ও দক্ষ কর্মকর্তা । তাঁর সাথে একযুগেরও বেশি সময় কাজ করেছি। এমন কোনো অভিযোগ কোন দিন শোনা যায় নি। এসব তার প্রতি ইর্ষান্বিত কোন বিশেষ মহলের ষড়যন্ত্র বৈ কিছু না।
ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমির প্রশিক্ষণ সহকারী ফারুক আহমদ মুন্সী ও কাজী মনির উদ্দিন এসব অভিযোগকে মিথ্যাচার বলে অবহিত করেছেন। তাঁরা বলেন, শাহ নজরুল ইসলাম সাহেব ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমিতে একজন প্রশিক্ষক ছিলেন। প্রশিক্ষাণার্থী ইমাম সাহেবরা যৌথভাবে নিজেরাই ম্যাস পরিচালনা করতেন। আমরা মনিটরিং করি মাত্র। যাবতীয় হিসেব নিকেশ, খরচ প্রশিক্ষণার্থীরাই করতেন। এখানে শাহ নজরুল ইসলাম সাহেবের কোনো সম্পৃক্ততা ছিলনা।
বিগত ১৭ বছর যাবত ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমি সিলেটের প্রশিক্ষাণার্থীদের থাকা খাওয়ার বিভাগটি তদারকী করে যা”েছন কৃষিবিদ জনাব মোশারফ হোসাইন এবং প্রশিক্ষণ সহকারির দায়িত্ব পালন করছেন জনাব ফারুক আহমদ মুন্সী ও কাজী মনির উদ্দিন।
বিষয়টি অনুসন্ধান করতে গিয়ে আমাদের কাছে এমন মনে হয়েছে যে, একজন সৎ কর্মকর্তা আলেমের বিরুদ্ধে একটি মহল ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে।

এই সংবাদটি 575 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com