সিলেটে ভোটকেন্দ্রে হামলা, ক্যামেরা ছিনতাই

প্রকাশিত: ৭:২৪ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৭, ২০২১

সিলেটে ভোটকেন্দ্রে হামলা, ক্যামেরা ছিনতাই

ডেস্ক রিপোর্ট : সিলেটে ভোট কেন্দ্রে সাংবাদিকদের ওপর হামলা চালিয়ে ক্যামেরা ছিনিয়ে নিয়েছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থীর কর্মী সমর্থকরা। পরে প্রায় এক ঘণ্টা অভিযানের পর পুলিশ সাংবাদিকের ক্যামেরা উদ্ধার করলেও কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। গতকাল গোলাপগঞ্জ উপজেলার ভাদেশ্বর ইউনিয়নের ফতেহপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। এদিকে- ঘটনার পর প্রশাসনের কর্মকর্তারা সেখানে পৌঁছে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন- বিকাল ৩টার দিকে ফতেহপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে যান আওয়ামী লীগের প্রার্থী সেলিম আহমদ। এ সময় তার সঙ্গে ওই কেন্দ্রে যায় ৪০-৫০ জন লোক। তারা গিয়ে কেন্দ্রে অবস্থানের সময় নৌকার প্রার্থী প্রতিটি কক্ষ ঘুরে দেখেন। এ সময় তিনি প্রিজাইডিং অফিসারের কাছে সহযোগিতা চেয়ে বেরিয়ে আসেন।

প্রার্থী বেরিয়ে আসার পরপরই তার সঙ্গে তারা ৪০-৫০ জন লোক একসঙ্গে জোরপূর্বক কেন্দ্রে ঢুকে দখলে নেন। এ সময় তারা কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার ও পোলিং এজেন্টদের ভয়ভীতি দেখিয়ে ব্যালট ছিনিয়ে নিয়ে সিল দিতে থাকে। খবর পেয়ে ওই এলাকায় অবস্থান করা এনটিভির ক্যামেরাপারসন আনিস রহমান ও মাছরাঙ্গা টেলিভিশনের ক্যামেরা পারসন রাজনসহ কয়েকজন সাংবাদিক ওই কেন্দ্রে যান। তারা গিয়ে প্রকাশ্য সিল মারা দৃশ্য ক্যামেরা ধারণ শুরু করলে তাদের ওপর ক্ষেপে ওঠে নৌকার প্রার্থীর সমর্থকরা। একপর্যায়ে তারা সাংবাদিকদের ওপর হামলা করে। মারধর করে তারা এনটিভির ক্যামেরা পারসন আনিস রহমান ও মাছরাঙ্গা টেলিভিশনের ক্যামেরা পারসনের ক্যামেরা ছিনিয়ে নেয়। এদিকে- ছিনিয়ে নেয়ার ১০-১৫ মিনিটের মাথায় এনটিভির ক্যামেরা পারসন আনিস রহমান তার ক্যামেরা উদ্ধার করতে পারলেও রাজনের ক্যামেরা উদ্ধার হয়নি। পরে পুলিশের অতিরিক্ত ফোর্স নিয়ে ওই এলাকায় অভিযান চালানো হয়। অভিযানের এক ফাঁকে ছিনিয়ে নেয়া ক্যামেরা স্থানীয় মসজিদের উঠানে রেখে যায় নৌকার প্রার্থীর কর্মী সমর্থকরা। তবে- ফেরত দেয়ার আগে তারা দুটি ক্যামেরাকেই ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। খবর পেয়ে বিকালেই সেখানে ছুটে যান গোলাপগঞ্জের ইউএনও গোলাম কবির ও ওসি হারুনুর রশীদ চৌধুরী। তারা গিয়ে ভোট কেন্দ্রে গোলযোগকারীদের গ্রেপ্তারে অভিযান চালালেও কাউকে পাননি। এ ঘটনায় এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। এদিকে- গোলযোগের ঘটনায় প্রায় ২০ মিনিট ভোটগ্রহণ বন্ধ থাকলেও বিকাল ৪টার পর আর ওই কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ করা হয়নি। এনটিভির ক্যামেরা পারসন আনিস রহমান জানিয়েছেন- প্রিজাইডিং অফিসারকে মারধর করে কেন্দ্র দখল করে তারা ব্যালটে সিল দিচ্ছিলো। এ দৃশ্য ক্যামেরাবন্দি করতে গেলে তাদের ওপর হামলা হয়। তারা ক্যামেরা পারসন রাজনকে মারধর করেছে। ছিনিয়ে নেয়া দুটি ক্যামেরাই তারা ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। গোলাপগঞ্জ থানার ওসি হারুনুর রশীদ চৌধুরী জানিয়েছেন- ছিনিয়ে নেয়া ক্যামেরা পুলিশ উদ্ধার করেছে। যারা ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
–মানব জমিন

এই সংবাদটি 51 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com