সিলেটের ৪ লাখ সহ দেশের ২ কোটি ১০ লাখ শিশুকে ক্যাপসুল খাওয়ানো হচ্ছে

প্রকাশিত: ১১:৫৩ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১০, ২০১৬

সিলেটের ৪ লাখ সহ দেশের ২ কোটি ১০ লাখ শিশুকে ক্যাপসুল খাওয়ানো হচ্ছে

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী,সিলেট রিপোর্ট: ‘ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ান, শিশু মৃত্যুর ঝুঁকি কমান’ এ আহ্বানের মধ্যে দিয়ে সারা দেশের ন্যায় সিলেটেও ভিটামিন ‘এ’  প্লাস ক্যাম্পেইনের দ্বিতীয় রাউন্ড চলছে। আজ শনিবার (১০ ডিসেম্বর)  সকাল ৮টায় ক্যাম্পেইন শুরু হয়। বিকাল ৪টা পর্যন্ত চলবে।
জানাগেছে, অন্ধত্ব ও রাতকানা রোগ নির্মূলের চেষ্টার অংশ হিসেবে জাতীয় ভিটামিন-এ প্লাস ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে শনিবার দুই কোটিরও বেশি শিশুকে ভিটামিন-এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হচ্ছে। সম্পূর্ণ বিনামূল্যে এই সেবা দেয়া হচ্ছে দেশের এক লাখ ৪০ হাজার সেবাদান কেন্দ্রে। আজশনিবার সকাল ১০টার দিকে রাজধানীর শিশু হাসপাতালে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন।
জানান, এবার দুই কোটি ১০ লাখ শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ক্যাপসুল খাওয়ানো হচ্ছে। ছয় মাস বয়স পাঁচ বছর বয়সী সব শিশুকেই সেবাদান কেন্দ্রে নিয়ে আসার অনুরোধ করেছেন তিনি। প্রতিমন্ত্রী জানান, বিকাল চারটা পর্যন্ত লক্ষাধিক কেন্দ্রে চলবে এই কর্মসূচি। ছয় থেকে ১১ মাস বয়সী সব শিশুকে একটি করে নীল রঙের এবং ১২-৫৯ মাস বয়সী সব শিশুকে একটি করে লাল রঙের ভিটামিন ‘এ’ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। প্রতিমন্ত্রী আরও জানান, দেশব্যাপী এক লাখ ২০ হাজার স্থায়ী কেন্দ্রসহ অতিরিক্ত ২০ হাজার ভ্রাম্যমাণ কেন্দ্রের মাধ্যমে ক্যাম্পেইনের কার্যক্রম পরিচালিত হবে।

সিলেট জেলায় ৪ লাখ ৪১ হাজার ৮৭৮ শিশু :
এ বছর সিলেট জেলা ও মহানগরের প্রায় ৫লক্ষাধিক এই ভিটামিন খাওয়ানোর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী শিশুদের একটি করে নীল রংয়ের ভিটামিন এ প্লাস ক্যাপসুল এবং ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী শিশুকে একটি করে লাল রংয়ের ভিটামিন এ প্লাস ক্যাপসুল খাওয়ানো হচ্ছে। জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্ঠান ও জাতীয় পুষ্টি সেবা কার্যক্রমের আওতায় এ ক্যাম্পেইনের আয়োজন করা হয়েছে। সিলেটের সিভিল সার্জন ডা. মো. হাবিবুর রহমান জানান, জেলার ১২ উপজেলার ৬ থেকে ৫৯ মাস বয়সের ৪ লাখ ৪১ হাজার ৮৭৮ শিশুকে ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। স্থায়ী, অস্থায়ী ও ভ্রাম্যমান ২ হাজার ৫৬৩ টিকাকেন্দ্রে ক্যাম্পেইন সফল করতে ৩৬৭ জন স্বাস্থ্য পরিদর্শক, ৪৬০জন স্বাস্থ্য সহকারী, ৯২জন সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও ৬হাজার ৮৬০জন স্বেচ্ছাসেবক দায়িত্ব পালন করছেন।
অন্যদিকে, সিলেট নগরীর ২৭টি ওয়ার্ডের ৬৫ হাজার ৯৯ জন শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। সিটি কর্পোরেশনের সচিব মোহাম্মদ বদরুল হক জানান, এসব শিশুদের মধ্যে ৬-১১ মাস বয়সী স্বাভাবিক শিশু ৬হাজার ৪শ ২২ জন, ১২ থকে ৫৯ মাস বয়সী স্বাভাবিক শিশু ৫৮ হাজার ২শত ৭৫ জন, ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী প্রতিবন্ধী শিশু ৪০জন, ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী প্রতিবন্ধী শিশু ৩শ ৬২ জন। মহানগরীতে স্থায়ী টিকাদান কেন্দ্র ৩০টি, অস্থায়ী টিকাদান কেন্দ্র ১০২টি, ভ্রাম্যমান টিকাদান কেন্দ্র ২২টি, অতিরিক্ত টিকাদান কেন্দ্র ৬১টি, সুপারভাইজার ৩০ জন।

এই সংবাদটি 210 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com