সংলাপ: জমিয়তের ৬ দফায় যা আছে

প্রকাশিত: ১০:৫৯ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৬, ২০২২

সংলাপ: জমিয়তের ৬ দফায় যা আছে

রুহুল আমীন নগরী:

জমিয়ত একটি ঐতিহ্যবাহী সংগঠন। কওমি পন্থী উলামায়ে কেরামের নেতৃত্বাধীন ‘জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’ রাজনৈতিক দল হিসেবেও নিবন্ধিত। মুক্তিযুদ্ধকালীন এবং পরবর্তীতে দেশ গঠনে জমিয়তের অবদান স্বীকৃত। এদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান থেকে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পর্যন্ত জমিয়তের ব্যাপারে সুস্পষ্টভাবে ধারনা রয়েছে বলে মনেকরি। সদ্যস্বাধীন দেশের পক্ষে জনমত গঠনে মওলানা ভাসানীর পরামর্শে জমিয়ত নেতৃবৃন্দ আরব বিশ্ব সফর করেন। এক্ষেত্রে ফখরে মিল্লাত মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ও স্বাধীন বাংলায় জমিয়তের প্রথম সেক্রেটারি মুফতি শাহ আহরারুজ্জামান হবিগঞ্জী
(র) এর অবদান অনস্বীকার্য। শুধু তাই নয় ৭১ সালে পাক হানাদার বাহিনীর নির্যাতনের বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিলেন তৎকালীন পুর্বপাক জমিয়ত নেতারা। জমিয়ত নেতা মাওলানা মোস্তফা আজাদ, খলিফায়ে মাদানী মাওলানা নোমান চাটগামী, কাজী মুতাসিম বিল্লাহ প্রমুখ সরাসরি মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন। এছাড়া সিলেটের মাওলানা লুৎফুর রহমান শায়খে বর্ণভী, মাওলানা বশির আহমদ শায়খে বাঘা (র) এর বাড়ীতে অনেক হিন্দু সম্প্রদায়ের লোক ও মুক্তিবাহিনীর সদস্যগণ আত্মরক্ষায় ছিলেন।

প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান ও এরশাদ আমলেও জমিয়ত নেতৃবৃন্দ প্রেসিডেন্টের সাথে সংলাপ করেছেন,ইরাক সফর করেছেন। সর্বশেষ রাষ্ট্রপতি প্রেসিডেন্ট মো: আব্দুল হামিদ এর সাথেও সাক্ষাত করে রাজনৈতিক,ধর্মীয় বিষয় গুলো নিয়ে সংলাপ করেছেন।
জমিয়ত কোন প্রকার বিশৃঙ্খলা,জ্বালাও পোড়াওয়ে বিশ্বাসী আলোচনার মাধ্যমে রাজনৈতিক সমস্যার সমাধান চায়। এজন্যই যুগে যুগে জমিয়ত জনস্বার্থে রাষ্ট্রপ্রধানদের সামনে নিজেদের অবস্থান তুলে ধরেছে।

নির্দলীয়,নিরেপক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবীটি জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের পুরাতন দাবী।
জানাগেছে, ১৯৮৪ সালে এই দাবী করেছিলেন জমিয়ত নেতারা। তৎকালীন সভাপতি ক্বাঈদে মিল্লাত মাওলানা আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়ার সদারতিতে মাওলানা শামসুদ্দীন কাসেমী,মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথী (র) প্রমুখের উপস্থিতিতে এই দাবী জানিয়ে বিবৃতি দেয়া হয়েছিলো। (তথ্যসূত্র: দৈনিক ইত্তেফাক ২২ নভেম্বর ১৯৮৪)

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মহামান্য রাষ্ট্রপতির সাথে নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন প্রসঙ্গে অনুষ্ঠিত সংলাপে নিজেদের দাবী তুলে ধরেছে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম।নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে রাষ্ট্রপতির সাথে চলমান সংলাপে অংশ নিয়েছে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ। বুধবার ৫ জানুয়ারি ২০২২ ঈসায়ী দলের অন্যতম সহসভাপতি মাওলানা আব্দুর রব ইউসুফীর নেতৃত্বে ৭ জনের একটি প্রতিনিধি দল এই সংলাপে অংশ নেয়। সংলাপে অংশ নিয়ে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার গঠনসহ ৬ দফা প্রস্তাবনা পেশ করেন জমিয়ত নেতৃবৃন্দ।
সংলাপ শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে জমিয়ত মহাসচিব মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দি বলেন সার্চ কমিটি নয় আইন করে নির্বাচন কমিশন গঠনের প্রস্তাব দিয়েছে জমিয়ত। তিনি বলেন নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার গঠন, প্রশাসনে রদবদল ও প্রয়োজনে সেনাবাহিনী মোতায়েনের ক্ষমতা নির্বাচন কমিশনকে দেয়ার প্রস্তাব করেছি আমরা। কারণ আমরা মনে করি একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকারের কোনো বিকল্প নেই। তাই এই বিষয়টিতে আমরা বিশেষভাবে জোর দিয়েছি।
গত ৩০ ডিসেম্বর (বৃহস্পতিবার) নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে চলমান সংলাপে অংশ নিতে রাষ্ট্রপতির দফতর থেকে আমন্ত্রণ পায় জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ। এরপরই সংলাপে অংশ নিতে নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয় জমিয়ত। সিদ্ধান্ত মতে সংলাপে অংশ নিতে সিনিয়র সহসভাপতি মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুকের নেতৃত্বে ৯ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল গঠন করা হয়। অনিবার্য কারণে মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক ও সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা নাজমুল হাসান কাসেমী সংলাপে অংশ নিতে পারেননি। ফলে সংলাপে সাত সদস্যের প্রতিনিধি দলে অন্যা সদস্যরা হলেন, সহসভাপতি মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস তালুকদার (আরজাবাদ), মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস (মানিকনগর), এডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী, মহাসচিব মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দি, যুগ্ম-মহাসচিব মাওলানা বাহাউদ্দীন জাকারিয়া, অর্থ সম্পাদক মাওলানা জাকির হুসাইন।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মহামান্য রাষ্ট্রপতির সাথে নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন প্রসঙ্গে অনুষ্ঠিত সংলাপে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের
৬ দফা প্রস্তাবনা নিম্নরুপ:
১. বাংলাদেশের সংবিধানে যেহেতু নির্বাচন কমিশন গঠন করতে আইন প্রণয়নের কথা বলা আছে তাই সর্বমহলে গ্রহণযোগ্য একটি আইন প্রণয়ন করে উক্ত আইনের অধীনে নির্বাচন কমিশন গঠন করা হোক।
২. দেশের বিজ্ঞ ও অভিজ্ঞতা সম্পন্ন এমন ব্যক্তিদের থেকে প্রধাননির্বাচন কমিশনার ও কমিশনার হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হোক যাদের বিশ্বস্ততা ও গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে কারোই কোন প্রশ্ন থাকবেনা।

৩.নির্বাচনকালীন সময়ে প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরে রদবদলের ক্ষমতা নির্বাচন কমিশনের থাকবে এটা নিশ্চিত করা হোক।

৪. প্রতিটি জাতীয় নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েন করার ক্ষমতা নির্বাচন কমিশনকে দেওয়া হোক।
৫. একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠানের কোন বিকল্প নেই। তাই বিষয়টি বিবেচনায় আনা হোক।

৬.নির্বাচনকালীন সময়ে স্বরাষ্ট্র,জনপ্রশাসন ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের উপর ন্যস্ত করা হোক।
মহাসচিব সাক্ষরিত লিখিত বার্তায় মাওলানা আফেন্দী উল্লেখ করেন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ শতবর্ষের ঐতিহ্যবাহী একটি ধর্মীয় রাজনৈতিক দল। ভারত উপমহাদেশের বিচক্ষণ ও দূরদর্শী উলামায়ে কেরামগণ এই দলের নেতৃত্ব দিয়েছেন। ১৭৫৭ সালে চক্রান্ত ও ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানী ভারতবর্ষ দখল করার পরিকল্পনা নিয়ে ভারতীয় জনগণের উপর অর্থনৈতিক শোষণ,রাজনৈতিক নিপীড়ন ও গণহত্যার স্টিমরোলার চালানো শুরু করলে তৎকালীন উলামায়ে কেরামই দখলদারদের বিরুদ্ধে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলেন। শতাব্দীকাল আন্দোলন চলার পর এক পর্যায়ে উলাময়ে কেরাম ১৯১৯ সালে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ প্রতিষ্ঠা করে স্বাধীনতা আন্দোলনকে আরো জোরদার করেন। যার ফলে ১৯৪৭ সালে ইংরেজ বাহিনী ভারতবর্ষ ছেড়ে যেতে বাধ্য হয়। ইংরেজ খেদাও আন্দোলন থেকে শুরু করে পরবর্তীতে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠা এবং সর্বশেষ স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায়ও জমিয়তের ভূমিকা রয়েছে। এমনকি আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে জমিয়তের ইতিবাচক সিদ্ধান্তের দলীল-প্রমাণ এখনো আমাদের কাছে সংরক্ষিত আছে। অতীতের সেই বীরত্বপূর্ণ ইতিহাস সামনে রেখে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ এ দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব এবং ধর্মীয় শিক্ষা,সংস্কৃতি,কৃষ্টি-কালচার ও জাতীয়তা রক্ষায় যে কোন ত্যাগ স্বীকারে প্রস্তুত থাকবে ইনশাআল্লাহ।
মুসলমানদের ঈমান-আক্বীদা সংরক্ষণ করা,ধর্মীয় শিক্ষার বিস্তৃতি সাধন করা,সর্বত্র বয়স্ক কুরআন শিক্ষা চালু করা,নিরক্ষরতা দূর করা,দুস্থ ও অসহায় মানুষদের জন্য সেবামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করা এবং সমাজে সৎ ও যোগ্য নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করা জমিয়তের মৌলিক কর্মসূচী।
প্রসঙ্গ নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন :
ভোট একটি পবিত্র ও গুরুত্বপূর্ণ আমানত। ভোটার যাকে এই আমানতের উপযুক্ত মনে করবে তাকে ভোট প্রদান করা ভোটারের সাংবিধানিক অধিকার। এক্ষেত্রে কোন প্রকার জটিলতা কিংবা প্রতিবন্ধকতা তৈরি করা কারো জন্যই কল্যাণকর হতে পারেনা,বরং সকল প্রকার প্রতিবন্ধকতা দূর করে নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠান নিশ্চিত করে জনগণের ভোটাধিকার রক্ষা করা মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম মূলনীতি। নির্বাচন মানে প্রতিদ্বন্দ্বিতা।নির্বাচন মানে প্রতিযোগিতা। নির্বাচন হচ্ছে ভাল মানুষের নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠার মাধ্যম। সঙ্গত কারণে জাতীয় ও স্থানীয় সকল পর্যায়ে নির্বাচনকে অংশগ্রহণমূলক,প্রতিদ্বন্দ্বীতামূলক ও প্রতিযোগিতামূলক করতে এবং ফলাফল ঘোষণায় জনমতের সঠিক প্রতিফলন নিশ্চিত করতে একটি শক্তিশালী ও নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের কোন বিকল্প নেই। একই বিষয়ে বারংবার আস্থার সংকট ও বিতর্ক তৈরী হওয়া কোন ভাবেই সমর্থনযোগ্য নয়। তাই পুরো নির্বাচনী প্রক্রিয়াটিকে শতভাগ ত্রুটিমুক্ত করতে স্থায়ী সমাধানের কথা বিবেচনা করেি আমরা উপরোক্ত প্রস্তাব সমুহ করছি।

এই সংবাদটি 220 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com