সংকট অস্বীকার না করে মোকাবেলা করুন: আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরী

প্রকাশিত: ৯:০৭ অপরাহ্ণ, মার্চ ৮, ২০২২

সংকট অস্বীকার না করে মোকাবেলা করুন: আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরী

 

বাংলাদেশের অর্থনীতিতে উন্নয়ন সম্পর্কে আমরা এত দিন যে গর্ব করেছি, হঠাৎ তাতে আঘাত পড়েছে। দেশটিতে যেমন মুদ্রাস্ফীতি দেখা দিয়েছে, তেমনি দেখা দিয়েছে মূল্যস্ফীতি। চাল, ডাল থেকে শুরু করে নিত্যপণ্যের দাম এতটাই বেড়েছে যে নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত পরিবারের পক্ষে সংসার চালানো কঠিন হয়ে পড়েছে। মূল্যস্ফীতি নিয়ে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) যে হিসাব দিচ্ছে তার সঙ্গে বাস্তব অবস্থার কোনো মিল পাওয়া যাচ্ছে না।বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সাউথ এশিয়ান নেটওয়ার্ক ফর ইকোনমিক মডেলিং বা সানেম গত বৃহস্পতিবার এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বলেছে, জানুয়ারি মাসে বিবিএস পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে ৫.৮৬ শতাংশ মূল্যস্ফীতির হিসাব দিলেও তারা শহর এলাকার চার শ্রেণির মানুষের জীবনমানের তথ্য হিসাব করে ১১.৩৬ শতাংশ মূল্যস্ফীতি পেয়েছে আর গ্রামে তা পেয়েছে ১১.২১ শতাংশ। ফেব্রুয়ারি মাসে সানেমের হিসাবে শহরে মুদ্রাস্ফীতি হয়েছে ১২.৪৭ শতাংশ এবং গ্রামাঞ্চলে হয়েছে ১২.১০ শতাংশ।

kalerkanthoঅন্যদিকে মূল্যস্ফীতি ও মুদ্রাস্ফীতিতে কড়া নজর রাখতে বাংলাদেশকে উপদেশ দিয়েছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল বা আইএমএফ। তাদের মতে, করোনাভাইরাস মহামারির পর দক্ষিণ এশিয়ায় নিত্যপণ্যের দাম সর্বত্রই একটি মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণের পর পশ্চিমা অবরোধে বিশ্ববাজার অস্থিতি। প্রতি ব্যারেল অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম ২০১৪ সালের পর প্রথমবারের মতো ১০০ ডলার ছাড়িয়ে গেছে। ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটে বাংলাদেশ সরকার মূল্যস্ফীতিকে ৫.৩ শতাংশের মধ্যে বেঁধে রাখার পরিকল্পনা করলেও গত আগস্টের পর ক্রমাগত বাড়তে থাকে। তবে সরকার মহামারির ধকল সামলে উঠেছিল। সরকারের এই সাফল্যের প্রশংসা করেছে আইএমএফ।

আন্তর্জাতিক সংস্থার রিপোর্টে বলা হয়েছে, মহামারি সংকট যখন শুরু হয়, বাংলাদেশের সামগ্রিক অর্থনীতি তখন স্থিতিশীল অবস্থায়ই ছিল। লকডাউনের মধ্যে উৎপাদন বন্ধ হয়ে গেলে বিপুলসংখ্যক মানুষের কাজ হারানোর আশঙ্কা দেখা দেয়। সরকার তখন ২৮টি প্যাকেজের মাধ্যমে এক লাখ ৮৭ হাজার ৬৭৯ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজের ঘোষণা দেয়, যা ছিল দেশের জিডিপির ৬ শতাংশের সমান। একই সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ খাতের দৈনন্দিন ব্যয় কমিয়ে আনা এবং দ্রুত দেশের বেশির ভাগ মানুষকে করোনাভাইরাসের টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়। আইএমএফের রিপোর্টে এসব কথাও বলা হয়।

স্বাধীনতা লাভের ৫০ বছরে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে দেশের অর্জনগুলোর উল্লেখযোগ্য দিক হচ্ছে, প্রথমত, দেশের জিডিপির ঊর্ধ্বমুখী প্রবৃদ্ধির ধারাবাহিকতা। ২০১০ সালের পর থেকেই তা ৫ শতাংশের ওপর থাকছে। এর ফলে দারিদ্র্যের হার ধীরে ধীরে কমে আসছে। দ্বিতীয়ত, বেড়েছে শিক্ষার হার, স্বাস্থ্যসেবার সুযোগ। বাংলাদেশের এই সাফল্যের ফলেই ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে তাকে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে স্বীকৃতি দেওয়া হয় বলে উল্লেখ করেছে আইএমএফ। সরকারের আর্থিক নীতি গত কয়েক বছরে সফলভাবে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পেরেছে। জিডিপির তুলনায় ঋণের হারও তুলনামূলকভাবে কম হয়েছে। আইএমএফের রিপোর্টে পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে, রপ্তানি খাত বৃদ্ধির ফলে এই অর্থবছরে বাংলাদেশে ৬.৬ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি পেতে পারে। এটি নির্ভর করে সরকারের প্রণোদনা তহবিলের বাস্তবায়ন এবং সংকুলানমুখী মুদ্রানীতির ওপর।

করোনা শুরুর আঘাতে ২০১৯-২০ অর্থবছরে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের প্রবৃদ্ধি নেমে দাঁড়িয়েছিল ৩.২১ শতাংশে, যা ছিল তিন দশকের মধ্যে সবচেয়ে কম। এরপর ২০২০-২১ অর্থবছরে ৬.৯৪ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি হওয়ার হিসাব দিয়েছে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো। চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটে সরকার ৭.২ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি লক্ষ্য ধরেছে। কিন্তু বিশ্বব্যাংক মনে করে, বাংলাদেশ ৬.৪ শতাংশের বেশি প্রবৃদ্ধি পাবে না।

এগুলো সবই শুভংকরের হিসাব। সব সরকার যা করে, বাংলাদেশের আমলা সরকারও তা-ই করেছে। আমাদের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির যে হার দেখিয়েছে, তেমনি মূল্যস্ফীতির কমে যাওয়ার ব্যাপারে একটু বেশি হিসাব দেখিয়েছে। এটি দেশের জন্য ভালো নয়।

অতীতের একটি গল্প বলি। পঞ্চাশের দশকে যুক্তফ্রন্ট সরকারকে অনাস্থা প্রস্তাবে হারিয়ে আওয়ামী লীগ সরকার যখন তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে ক্ষমতায় আসে, তখন তারা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল খাদ্যের দাম কমাবে, দেশে তরিতরকারির দামও কমিয়ে আনবে। যুক্তফ্রন্ট সরকারের আমলে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে খাদ্যের দাম যেমন বেড়েছিল, তেমনি তা পাওয়াও যাচ্ছিল না। প্রায় দুর্ভিক্ষ দেখা দেওয়ার মতো অবস্থা দাঁড়িয়েছিল। এ সময় ক্ষমতায় ছিল আবু হোসেন সরকারের মন্ত্রিসভা। এই সরকারের খাদ্যনীতির বিরুদ্ধে শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে ঢাকা শহরে বিরাট খাদ্যমিছিলও বেরিয়েছিল। অনাস্থা প্রস্তাবে এই সরকারের পতনের পর আতাউর রহমান খানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার পূর্ব পাকিস্তানে ক্ষমতা গ্রহণ করে। এ সময় আতাউর রহমানের সরকার একটি ভুল করে। চালের দাম কমানোর জন্য তিনি সরকারি গুদামে যত চাল ছিল, তা বাজারে ছেড়ে দেন। অসাধু ব্যবসায়ীরা এই চাল কিনে নিয়ে গোপনে গুদামজাত করে ফেলে এবং চালের দাম আরো বাড়িয়ে দেয়। অন্যদিকে পেঁয়াজ, রসুন, ডাল এবং তরিতরকারির দামও অনেক বেড়ে যায়। সরকারের সমালোচনা শুরু হয়।

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর হাসিনা সরকার বিস্ময়করভাবে দেশে খাদ্য উৎপাদন বাড়িয়েছে। ধান-চালের উৎপাদন এমনভাবে বেড়েছে, যার ফলে দেশ খাদ্যে স্বনির্ভর হয়ে বিদেশেও রপ্তানি করতে পারত। পর পর বন্যা ও ঝড় এবং করোনার ফলে বাংলাদেশের সে অবস্থা এখন আর নেই। বাংলাদেশ আবার খাদ্য উৎপাদনে পিছিয়ে গেছে এবং তাকে খাদ্য আমদানি করতে হচ্ছে। এ ব্যাপারে খাদ্যমন্ত্রী নিষ্ক্রিয় নন। তিনি বিদেশ থেকে পর্যাপ্ত খাদ্য আমদানি করছেন। নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম যাতে না বাড়ে সেদিকেও নজর রেখেছেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত সফল হননি। বাজারে জিনিসপত্রের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে গেছে। মধ্যবিত্ত ও নিম্নমধ্যবিত্তের ওপর চাপ পড়েছে বেশি। এ নির্বাচনের বছরে সরকারকে দ্রুত পরিস্থিতি সামাল দিতে হবে। তা না হলে জনমনে অসন্তোষ দেখা দেবে। এর সুযোগ নেবে বিএনপি-জামায়াত। তারা এরই মধ্যে দেশে খাদ্যমূল্য নিয়ে আন্দোলন করার চেষ্টা চালাচ্ছে।

এটি এখন জনগণের সাধারণ ধারণা, দুর্ভিক্ষে যদি ১০ জন মারা যায়, সরকার তার হিসাব দেয় একজন। খাদ্যমূল্যের ব্যাপারেও তারা সঠিক হিসাব দেয় না। সংশ্লিষ্ট সংস্থা সরকারকে বিভ্রান্ত করে, দেশবাসীকেও বিভ্রান্ত করে। দেশে অবশ্যই মূল্যস্ফীতি ঘটেছে এবং জনসাধারণের ক্রয়ক্ষমতার ঊর্ধ্বে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদির মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে। খাদ্যমন্ত্রীর উচিত কেবল আমলাদের ওপর নির্ভর না করে পরিস্থিতি সামাল দিতে বেসরকারি সাহায্যও গ্রহণ করা।

আওয়ামী লীগ কর্মীদের গ্রামে গ্রামে ছড়িয়ে পড়ে কৃষকদের খাদ্য উৎপাদনে সাহায্য জোগানো উচিত। সরকারেরও উচিত দেশে খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধির আন্দোলন শুরু করা। বিশ্বে করোনা এবং ইউক্রেন যুদ্ধের জন্য বিপুলভাবে খাদ্য ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদির দাম বেড়েছে। শুধু বাংলাদেশে বাড়েনি। ইউরোপে বিদ্যুতের দাম ক্রমেই বেড়ে চলেছে। এক লাখ উদ্বাস্তু ইউক্রেন থেকে ইউরোপে এসেছে। তাদের কোথায় কিভাবে পুনর্বাসন করা হবে, তা নিয়ে ইউরোপীয় দেশগুলো খুবই ব্যস্ত।

আমি লন্ডনে থাকি। এই লন্ডনেও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদির অভাব দেখা দিয়েছে। দাম বাড়ছে। তেলের দামই বাড়ছে বেশি। রাশিয়ার তেল ও গ্যাস চীন কিনে নেবে বলে রুশ সরকারকে আশ্বস্ত করেছে। ভবিষ্যতে এই বিশাল তেলের স্টক নিয়ে চীন ভূ-রাজনীতিতে কী খেলা খেলে তা নিয়ে সবাই শঙ্কিত এবং ভীত।

ইউক্রেনের যুদ্ধ বাংলাদেশের অর্থনীতিতেও প্রভাব ফেলবে এবং সংকট সৃষ্টি করবে। এই সংকট থেকে দেশটিকে উদ্ধার করা একমাত্র হাসিনা সরকারের পক্ষেই সম্ভব। দেশে খাদ্য ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদির দাম বাড়লে আওয়ামী লীগ সরকারের ওপর জনগণ আস্থা হারাবে। এই সংকট মোকাবেলা করে হাসিনা সরকারকে জনগণের আস্থা ধরে রাখতেই হবে। এটি শুধু নির্বাচনে জেতার জন্য নয়, জনগণের আস্থা ধরে রাখার জন্যও। আমার আশা, সংকট যতই বড় হোক, তাকে অস্বীকার না করে সরকার জনগণকে তা জানাবে এবং তাদের সহযোগিতা নিয়ে সেই সংকট উত্তরণে এগিয়ে যাবে। অতীতের মতো ভবিষ্যতেও তারা সংকট উত্তরণে সফল হবে। এটিই দেশবাসীর প্রত্যাশা।

এই সংবাদটি 83 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com