ই’তিকাফের হিকমত ও দর্শন : আব্দুল্লাহ্ মাসরুর আকুনী

প্রকাশিত: ৩:৪৫ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৩, ২০২২

ই’তিকাফের হিকমত ও দর্শন : আব্দুল্লাহ্ মাসরুর আকুনী

হাফিজ ইবনুল কাইয়্যিম রহঃ বলেছেন- ইতিকাফের মূল দর্শন হচ্ছে অনিত্যের মাঝে নিত্যকে লীন করা । অর্থাৎ দুনিয়ার সকল ভোগ বিলাস, জাগতিক প্রগতি ও মোহ ত্যাগ করে এক মাত্র প্রেমময় আল্লাহর প্রেম ও তাঁর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য নিজেকে উৎসর্গ করা । সৃষ্টিজীবের নশ্বর ভালবাসার সম্পর্ক পরিত্যাগ করে , সর্বত্র বিরাজমান আল্লাহর শাশ্বত ভালোবাসার সাথে অটুট সম্পর্ক স্থাপন করা । অকৃত্রিম এ বন্ধন অসহায় বান্দার জন্য কিয়ামতের দিনের ভয়াবহ মুহুর্তে পরম বন্ধু হিসেবে কাজে আসবে । বিভীষিকাময় সেদিন আল্লাহর রহমতের ছায়া ছাড়া আর কোনো কিছুই কাজে আসবেনা ।

রাব্বুল আলামীন যিনি সদা সর্বত্রই বিরাজমান অথচ ভক্ত প্রেমিকের ধরা ছোঁয়ার উর্ধ্বে । যিনি ব্যাকুল বান্দার হৃদয় সিংহাসনে সমাসীন অথচ দৃষ্টি। দৃষ্টি শক্তির নাগালের বাইরে । মহান সেই প্রেমময় অতি নিকটে থেকে ও অতি দূরে । মহামহিম আল্লাহ্ তাঁর প্রেমিকদেরকে প্রতিনিয়ত পরিবেষ্টন করে আছেন অথচ পাগল প্রেমিকের বুকে যাঁর মিলন পিপাসার অন্ত নেই । সেই অদ্বিতীয় অনুপম প্রিয়তম আল্লাহ্ তায়ালার পবিত্র স্মৃতির তর্পণ কীভাবে করা যায় , একনিষ্ঠ চিক্তে অনিমেশ নয়নে একাগ্রতার সাথে কীভাবে মাওলার মহব্বতের জন্য নিজেকে উৎসর্গ করে দেয়া যায় সেই ঐকান্তিক প্রচেষ্টা মেহনতের নাম ইতিকাফ । ইতিকাফ হচ্ছে প্রিয়জনকে পাওয়ার প্রেমময় তপস্যা ।
ঘৃণিত পাপের কলঙ্ক কালিমা , পাপ প্রবৃত্তির সর্বনাশী আক্রমণ ও প্রিয়তমের প্রণয় বহির্ভূত সকল কার্যকলাপ পরিহার করতঃ আল্লাহকে পাওয়ার পথ সুগম ও কন্ঠকমুক্ত করে তোলা ইতিকাফের এক বিশেষ গুণ ও বৈশিষ্ট্য । আল্লাহর অপার রহমত সন্তুষ্টি ও ইপ্সিত সান্নিধ্য লাভের অন্যতম সোপান হচ্ছে ইতিকাফ । এ যেনো পরম প্রিয়তমের স্মৃতিচারণ করার এক জ্যোতির্ময় মজলিস । প্রিয়ার মধুর ধ্যানে নিমগ্ন থেকে অপার্থিব অনুভুতি , আত্মিক শান্তি ও তৃপ্তি উপভোগ করার সুবর্ণ সুযোগ হচ্ছে ইতিকাফ ।
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ফারমায়েছেন নামাজ নূর । এ নূরের দিপাদার হচ্ছে ইতিকাফ । নূর অর্জনের ধ্যান খেয়াল ও আত্মিনিমগ্নতার পিনপতন নিরব মজলিসই হচ্ছে ইতিকাফের রূহ ও প্রাণ । ইতিকাফের এখলাছপূর্ণ আমলের মাধ্যমে বান্দা এ মরজগতে অবস্থান করে ও আত্মিক ভাবে আল্লাহর সান্নিধ্য লাভ করতে পারে । মনের অব্যক্ত আবেদন হৃদয় নিংড়ানো নিবেদন আল্লাহর দরবারে পেশ করার মনোজ্ঞ ও মননশীল প্রয়াস হচ্ছে ইতিকাফ ।
ইতিকাফকারীর অশরিরী বাচনভঙ্গি আবেগ আপ্লুত কন্ঠে বলছে , ওগো সুন্দর ওগো প্রিয়তম , রহমতের অকুল সিন্ধু আল্লাহ্ তায়ালা, শুধু তোমারই অনন্ত প্রেম বুকে ধারণ করে তোমারই জন্য হৃদয় ভরা ভালোবাসা নিয়ে জীবনের প্রতিটি নিঃশ্বাস ত্যাগ করতে কাঙ্গালের হৃদয় নিয়ে তোমার ঘরে এসেছি । তুমি কাঙ্গালের শূন্য থলি ভরে দাও । তোমারই মিলনাকাঙ্কায় উদ্বেলিত হয়ে উদ্বিগ্ন মনে তোমার দুয়ারে আমি উপস্থিত । শুধু তোমাকে পাবার আশায় সকল প্রেমজ্বালা , মায়া মহব্বত বিসর্জন দিয়ে খালি হাতে ভিখারী বেশে রিক্ত অঞ্জলি মেলে ধরেছি তোমারই অনন্ত দরবারে । পূণ্যাত্মাদের পবিত্রতা ও হৃদয় জগতের সূঁচিতার মাধূর্য লাভের আশায় নিজেকে বড্ড বেশি অপরাধী হিসেবে অবরুদ্ধ করে রেখেছি তোমারই লীলা নিকেতন পবিত্র মসজিদে । অবরুদ্ধ হৃদয়ের অন্তঃপুরে একি আবেগ , একি অনুভূতি , একি জপমালা , একি কীর্তন , একি তর্পন ,,

নিকল যায়ে দম তেরে কদমৌকে নীচে এহী দিলকি হাসরত এহী আরযূ হায় । হয়তো প্রেমাস্পদের সাথে মিলন না হয় তুচ্ছ এ জীবন । নিজের চাওয়া পাওয়া দাবী দাওয়া অক্ষমতা ও অসচ্ছলতার দরখাস্ত আবেদন নিবেদনকে অনুনয় বিনয় কাকুতিমিনতির সাথে নিঃস্ব নিরন্নয়ের ভঙ্গিতে আল্লাহর দরবারে পেশ করে বলবে ,
হে মহামহিম প্রেমময় রাব্বুল আলামীন , রুদ্র বৃষ্টিতে সুখে দুঃখে ঠান্ডা গরমে প্রতিকুলে অনুকুলে সর্বোপরি সকল দুর্লংঘ্য বাঁধার বিন্ধ্যাচল অতিক্রম করে তোমার দরজার গোলাম হয়ে বসে আছি । অপলক দৃষ্টিতে তোমার রহমতের অকুল দরিয়া পানে চেয়ে আছি । যতক্ষণ পর্যন্ত আমার দরখাস্ত কবুল না হবে আমি তোমার দরজা ছাড়বনা । আজীবনের জন্য অনশন কর্মসূচি শুরু করলাম । কিছু খাবনা , পান করবনা , ব্যবসা কেন্দ্র বিপণীবিতান ছাড়লাম, বাড়ী ঘর বর্জন করলাম , আত্মীয় স্বজন মাতা পিতা স্ত্রী পুত্র সকলের মায়া মহব্বত ত্যাগকরে তোমার সান্নিধ্যের পরশ পাওয়ার মর্মজ্বালা ক্ষতবিক্ষত হৃদয়ে বহন করে তোমার ঘর মসজিদে পড়ে আছি ।
একজন ইতিকাফকারীর অভিব্যক্তি ও অনুভূতি এ রকমই হওয়া কাম্য । বিরহী হৃদয়ের কাতর মোনাজাতের অনুরণন শুনে পাষাণ পাথর গলে যাবে । আল্লাহ্ রাব্বুল আলামীন দয়ার সাগর , শত্রু মিত্র পতঙ্গপাল জন্তু জানোয়ার সহ সবকিছু তাঁর রহমতের অবারিত সিন্ধুতে সিক্ত । রহমতের এ উষ্ণ প্রস্রবণ থেকে বিশুষ্ক বনী আদম কেন বঞ্চিত থাকবে কেন রাহমানুররাহীম আল্লাহ্ মায়ার বান্দাকে মাফ করবেন , না এ হতে পারেনা । রমজানের প্রতি রাতে অপরাধীদের ক্ষমা করা হচ্ছে । আল্লাহর পক্ষ থেকে ঘোষণা করা হচ্ছে হে কল্যাণের সন্ধ্যানী অগ্রসর হও হে অকল্যাণের সন্ধ্যানী থাম । ইয়া আল্লাহ্ আমাদের কে কল্যাণসন্ধ্যানীদের অন্তর্ভুক্ত করুন । জাহান্নাম থেকে মুক্তি প্রাপ্তদের তালিকায় আমাদের নাম লিখে দিন । আমিন।

লেখক, শায়খুল হাদীস, গবেষক।
masrurakuni0@gmail.com

এই সংবাদটি 18 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com