বৃটেনে বাঙালি পাড়ার নির্বাচন ২০২২

প্রকাশিত: ১০:৩৯ অপরাহ্ণ, মে ৫, ২০২২

বৃটেনে বাঙালি পাড়ার নির্বাচন ২০২২

ফরিদ আহমদ রেজা:

আজ ৫মে ২০২০ বৃটেনে স্থানীয় সরকারের (কাউন্সিল) নির্বাচন চলছে। এ নির্বাচনে সারা দেশে অনেক বাঙালি প্রার্থী আছেন। তাদের মধ্যে বেশ কয়েকজন কমিউনিটি সাংবাদিক আছেন। তাদের সকলের জন্য শুভকামনা।

বাঙালি পাড়া হিসেবে খ্যাত টাওয়ার হ্যামলেটস লেবার পার্টির প্রার্থী জন বিগস’র সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন দুজন বাঙালি প্রার্থী। একজন সাবেক মেয়র লুৎফুর রহমান এবং অপরজন দীর্ঘদিনের কাউন্সিলার এবং ক্লিন ইমেজের অধিকারী রাবিনা খান। রাবিনা খান এবার লিব-ডেম থেকে প্রার্থী হয়েছেন।

বাঙালি হলেই যে ভোট দিতে হবে সে নীতিতে আমি বিশ্বাসী নই। আমাদের যোগ্য প্রার্থী দেখে ভোট দিতে হবে। আমাদের প্রার্থীদের বিগত দিনের রেকর্ডও বিবেচনা করতে হবে।

লুৎফুর রহমান দু’বার নির্বাহী মেয়র হিসেবে বিজয়ী হয়েছিলেন। সে সময় তিনি টাওয়ার হ্যামলেটস’র অধিবাসীদের মন জয় করার মত অনেক ভালো কাজ করেছিলেন। দু’বারই আমি তাঁর পক্ষে কলম ধরেছি। নির্বাচনী আদালত তাকে অযোগ্য ঘোষণার পর তিনি নিজে রাবিনা খানকে তাঁর মনোনীত প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়ে তার পক্ষে প্রচারণা চালিয়েছেন। সে নির্বাচনে (২০১৫) রাবিনা খান ২৬ হাজারের বেশি ভোট পেলেও ৩২ হাজারের চেয়ে বেশি ভোট পেয়ে বিজয়ী হন জন বিগস।

পরবর্তী নির্বাচনে (২০১৮) রাবিনা খান প্রার্থী হলেও লুৎফুর রহমান তাকে সমর্থন না করে সাবেক কাউন্সিলার আবুল মনসুর ওহিদ আহমদ’র পক্ষে দ্বারে দ্বারে গিয়ে প্রচারণা চালান। তখন আমি বলেছিলাম, রাবিনা খান বা ওহিদ আহমদ এ দু জনের কেউ পাশ করুন তা লুৎফুর রহমান চান না। বরং তিনি অপেক্ষা করছেন, তার যখন সময় আসবে তখন তিনি নিজে নির্বাচনে নামবেন।

সে নির্বাচনে লুৎফুর রহমান বার বার এটাও বলেছিলেন, রাবিনা খান থেকে ওহিদ আহমদ অবশ্যই এক ভোট হলেও বেশি পাবেন। কিন্তু বাস্তবে তা হয়নি। ২০১৮’র নির্বাচনে রাবিনা খানের প্রাপ্ত ভোট ছিল ১৬ হাজার ৮ শ ৭৮ ভোট, পক্ষান্তরে ওহিদ আহমদ পেয়েছিলেন ১১ হাজার ১শ ৯ ভোট। তখন ৪৪ হাজার ৮ শ ৬৫ ভোট পেয়ে লেবার দলের প্রার্থী হিসেবে জন বিগস বিজয়ী হন। তখন লুৎফুর রহমানের সমর্থকরা একজন প্রার্থীর জন্য কাজ করলে রাবিনা খানবিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা ছিল। কিন্তু তা হতে দেননি লুৎফুর রহমান নিজেই।

এবারের নির্বাচনেও লুৎফুর রহমান যদি রাবিনা খানের পক্ষে কাজ করতেন তা হলে রাবিনা খানের বিজয় প্রায় নিশ্চিত ছিল। আমার সাথে ব্যক্তিগত আলাপচারিতার সময় লুৎফুর রহমান বলেছিলেন, তিনি রাবিনা খানের সাথে মিলে এবার নির্বাচন করবেন এবং এ ব্যাপারে আমার সহযোগিতা নিবেন। কিন্তু পরে তিনি আর আমাকে ফোন করার গরজ দেখাননি।

কাউন্সিলার হিসেবে রাবিনা খানের চমৎকার ট্রাক-রেকর্ড রয়েছে। দুঃখজনক হচ্ছে এবারের নির্বাচনে লুৎফুর রহমান এবং তার দল সর্বাত্মকভাবে চেষ্টা করছে যেন কাউন্সিলার হিসেবে রাবিনা খান বিজয়ী হতে না পারেন। আরেকটি মজার ব্যাপার হচ্ছে, লুৎফুর রহমান তাঁর অতীত সাফল্যের যে সকল কাহিনী বর্ণনা করেন সেখানে তিনি সবচেয়ে জোরেশোরে হাউজিং ক্ষেত্রে সাফল্যের কথা বলেন। অথচ সে সাফল্যের পেছনে আসল ব্যক্তি ছিলেন রাবিনা খান। কারণ রাবিনা খান ছিলেন লুৎফুর রহমানের কেবিনেটে হাউজিং সেক্টরের দায়িত্বশীল। রাবিনা খানের ব্যক্তিগত অর্জনকে লুৎফুর রহমান নির্বাচনী বৈতরনী পার হওয়ার কাজে ব্যবহার করলেও রাবিনা খানকে কোনো প্রকার ছাড় দিতে তিনি চান না।

এবারের নির্বাচনে টাওয়ার হ্যামলেটস’র তরুণ ভোটাররা হবেন ফলাফল নির্ধারক। টাওয়ার হ্যামলেটসের ৫০% ভাগ ভোটার তরুণ । তারা লুৎফুর রহমানকে পছন্দ করার কোনো দৃশ্যমান কারণ নেই। কারণ তিনি মেয়র পদ থেকে পদচ্যূত হওয়ার পর টাওয়ার হ্যামলেটসের বাসিন্দাদের সুখ-দুঃখে কখনো অংশ নেননি। গত দু মেয়াদে জন বিগস অনেক গণবিরোধী, প্রশ্নবিদ্ধ ও বৈষম্যমূলক পদক্ষেপ নিয়েছেন। টাওয়ার হ্যামলেটসের বাসিন্দাগণ সে সবের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছেন। কিন্তু সেখানে লুৎফুর রহমানকে দেখা যায়নি। কাউন্সিল নির্বাচনের বাইরে কোনো বিষয়ে তিনি টাওয়ার হ্যামলেটসের বাসিন্দাদের পাশে দাঁড়াননি।

রাবিনা খানকে তরুণ ভোটাররা পছন্দ করার অনেক কারণ ছিল। দীর্ঘদিন থেকে তিনি কাউন্সিলার হিসেবে জনগণের সেবা করে আসছেন এবং মূল ধারার একটি রাজনৈতিক দল লিব-ডেমেরে সাথে যুক্ত আছেন। কিন্তু নানা বোধগম্য-অবোধগম্য কারণে তিনি প্রচারনায় অনেক পিছিয়ে রয়েছেন। তাই বহু তরুণ ভোটার তাঁর ব্যাপারে অবহিত নয়। এ কারণে অস্বাভাবিক বা অভাবনীয় কিছু না ঘটলে গণবিরোধী, প্রশ্নবিদ্ধ ও বৈষম্যমূলক আচরণের কারণে জন বিগস অনেকের কাছে নিন্দনীয় হলেও শেষ পর্যন্ত তার হাতেই হয়তো আবার টাউন হলের চাবি আসতে যাচ্ছে।
লণ্ডন ৫ মে ২০২২

এই সংবাদটি 8 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com