শনিবার, ১০ ডিসে ২০১৬ ০৯:১২ ঘণ্টা

অবিলম্বে সংবিধান সংশোধনের আহ্বান প্রধান বিচারপতির

Share Button

অবিলম্বে সংবিধান সংশোধনের আহ্বান প্রধান বিচারপতির

ডেস্ক রিপোর্ট:  সংবিধানে ১১৬ অনুচ্ছেদ থাকায় আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় বেগ পেতে হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা। সংবিধান থেকে অবিলম্বে ওই অনুচ্ছেদটি সরিয়ে ফেলার আহ্ববান জানিয়েছেন তিনি।

বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল বাসেত মজুমদারের আইন পেশায় ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান বিচারপতি এই আহ্বান জানান। সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি প্রাঙ্গণে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘১১৬ এবং ১১৬ (এ) (অনুচ্ছেদ) সংবিধানের প্রিন্সিপালসের সঙ্গে কনফ্লিক্ট করে। যার পরিপ্রেক্ষিতে এ দুই বিধান সংবিধানের পরিপন্থী, যা আমাদের পবিত্র বই থেকে অতি তাড়াতাড়ি সরিয়ে দেয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। এটি থাকায় আমাদের আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে বেশ বেগ পেতে হচ্ছে।’

বিচার বিভাগ পৃথককরণের নবম বার্ষিকীতে দেয়া এক বাণীতে প্রধান বিচারপতি বলেছিলেন, সংবিধানের ১০৯ অনুচ্ছেদে অধঃস্তন সব আদালত ও ট্রাইব্যুনালের ওপর হাইকোর্টের তত্ত্বাবধান ও নিয়ন্ত্রণ থাকবে বলা হয়েছে। কিন্তু ১১৬ অনুচ্ছেদে যে বিধান দেয়া হয়েছে তা বিচার বিভাগের ধীরগতির অন্যতম কারণ। এই অনুচ্ছেদ অনুসারে অধঃস্তন আদালতের বিচারকদের পদোন্নতি, বদলি এবং শৃঙ্খলামূলক কার্যক্রম সুপ্রিম কোর্টের পক্ষে এককভাবে গ্রহণ করা সম্ভব হচ্ছে না। দ্বৈত শাসনের ফলে বহু জেলায় শূন্য পদে সময়মত বিচারক নিয়োগ প্রদান করা সম্ভব হচ্ছে না। এতে বিচার কাজে বিঘ্ন ঘটে এবং বিচারপ্রার্থী জনগণের ভোগান্তি বেড়ে যায়।

১৯৭২ সালের সংবিধানের ১১৬ অনুচ্ছেদটি পুনঃপ্রবর্তন করা সময়ের দাবি উল্লেখ করেন প্রধান বিচারপতি। তিনি বলেন, সেখানে স্পষ্টভাবে বলা হয়েছে, বিচার-কর্মবিভাগে নিযুক্ত ব্যক্তিদের এবং বিচার বিভাগীয় দায়িত্ব পালনরত ম্যাজিস্ট্রেটদের নিয়ন্ত্রণ (কর্মস্থল, পদোন্নতি, ছুটি মঞ্জুরিসহ) ও শৃঙ্খলাবিধান সুপ্রিম কোর্টের ওপর ন্যস্ত থাকবে। এই বিধানটি পুনঃপ্রবর্তন করলে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা আরও সমুন্নত ও সংহত হবে এবং বিচার বিভাগের সার্বিক অগ্রগতির ক্ষেত্রে নতুন মাত্রা যোগ হবে।

বাণীতে দেয়া প্রধান বিচারপতির বক্তব্যের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। প্রধান বিচারপতির প্রস্তাবকে স্ববিরোধী উল্লেখ করে তিনি বলেন, আজকে যখন নতুন করে সবকিছু হয়ে গেছে, তখন এ রকম প্রস্তাব আসাটা আমার কাছে আশ্চর্যজনক লাগছে। ২০১১ সালে যখন পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে সংবিধানে ৭২ এর চার মূলনীতি ফিরিয়ে আনা হয়, তখন সংসদীয় কমিটির নিরীক্ষার মধ্যে দিয়েই সে সংশোধনীগুলো আসে। সে সময় বাহাত্তরের ১১৬ অনুচ্ছেদ ফিরিয়ে আনার প্রস্তাব কোনো পক্ষের কাছ থেকে সরকার পায়নি।

আইনমন্ত্রীর ওই বক্তব্যের সমালোচনা করে প্রধান বিচারপতি আজকের অনুষ্ঠানে বলেন, ‘আমি কোনো এক অনুষ্ঠানে বলেছিলাম, এদেশে দ্বৈত শাসন চলছে। সঙ্গে সঙ্গে আমাদের আইনমন্ত্রী বললেন যে, চলে না। প্রধান বিচারপতি আইনের অভিভাবক। সংবিধানের অভিভাবক হয়ে বলছি, এটি যদি না হয়, তাহলে আজকে আমরা বিচারকদের ডিসিপ্লিন রুলস কে করবেন? সরকার করবে না আমরা বিচারকরা করবো? তাদের কন্ট্রোল, বদলি কোনো কিছুই আমরা করতে পারছি না। তাই এ অসাংবিধানিক প্রভিশনগুলো তাড়াতাড়ি সরিয়ে দেয়া হবে বলে আমি আশা করি।’

আমরা সংবিধানের অসাংবিধানিক প্রবিশনগুলো বাতিল করেছি উল্লেখ করে প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আমরা এখনও দেখতে পাচ্ছি, বর্তমানে সংবিধানে যে ১১৬ ধারা এবং ১১৬ (এ), সেগুলোকে যথাক্রমে চতুর্থ এবং পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে ১১৬ এবং ১১৬ (এ) সন্নিবেশন করা হয়েছে। এ দুই বিধান থাকার পরিপ্রেক্ষিতে বঙ্গবন্ধু যে ১১৬ রাখার বিধান করেছিলেন,  ইনডিপেনডেন্ট অব জুডিশিয়ারি এবং রুল অব ল’ বলতে আইনের শাসন বলতে কী রকম করতে হবে, সেটিকে আমরা বাদ দিয়ে দিয়েছি। আমরা পঞ্চম সংশোধনী, সপ্তম সংশোধনী,  ত্রয়োদশ সংশোধনী ও ষোড়শ সংশোধনী- প্রত্যেকটি সংশোধনীতে বাতিল করেছি।’

সংসদের ক্ষমতার বিষয়টি উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘পার্লামেন্টের আইন করার যথেষ্ট ক্ষমতা আছে, পার্লামেন্ট সম্পূর্ণভাবে সংবিধানের সংশোধন করতে পারবে। এমনকি সংবিধানকে বন্ধ করে দিতে পারবে। সংবিধান আমাদের সুপ্রিম কোর্টকে বন্ধ করে দিতে পারবে। এটি অলরেডি সেটেল হয়ে গেছে, ভারতের সদানন্দের মামলায়। কিন্তু পার্লামেন্ট একটা জিনিস পারবে না, সেটি হলো, আজকে যদি সরকার বলে দেয় সুপ্রিম কোর্ট থাকবে না, আমাদের কিছুই করার থাকবে না। পার্লামেন্টের এই ক্ষমতা আছে। কিন্তু পার্লামেন্টের এই ক্ষমতা নেই যে, মেইন পিলারস অব দ্য কনস্টিটিউশন। সংবিধানের মেইন পিলার যেটি আমরা পঞ্চম সংশোধনী, ষষ্ঠ সংশোধনীসহ সবগুলোতে বাতিল করেছি যে, বেসিক স্ট্রাকচার অব দ্য কনস্টিটিউশন চেঞ্জ করে কোনো সংবিধান বা কোনো আইন করা যাবে না।’

সংবিধান একটি সোশ্যাল ডকুমেন্ট উল্লেখ করে প্রধান বিচাপতি বলেন, ‘এই সংবিধানে বলা আছে,  আমাদের বঙ্গবন্ধু প্রথমেই বলেছেন, এই দেশে এমন একটা সংবিধান হবে, যেখানে কমপ্লিট জাস্টিস থাকবে, রুল অব ল’ মেইনটেইন করা হবে, যাকে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ সংবিধানের সঙ্গে তুলনা করা যায়। আমরা বুকে হাত দিয়ে বলতে পারি, আমাদের সংবিধান এ রকমই ছিল। কিন্তু পরবর্তী সময়ে আমরা দেখলাম, এই সংবিধান ক্ষত-বিক্ষত করা হয়েছে। এই সংবিধানে মৌলিক অধিকার রক্ষিত করা হয়েছে। এই সংবিধানে রক্ষিত করা আছে, যারা সমাজে অনুন্নত তাদেরকেও। সংবিধানের ৪৪ অনুচ্ছেদ প্রটেকশন করে দিয়েছে, জুডিশিয়ারি রিভিউয়ের জন্য আসতে পারবেন যে কেউ।’

আইনের পেশা সম্মানের পেশা উল্লেখ করে প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘ক্রিম অব দ্য সোসাইটি দুই ভাগে ভাগ হয়ে যায়। একটি অংশ চলে যায় আইন পেশায়, একটি ক্ষুদ্র অংশ চলে যায় বিচার বিভাগে। তারা দুই ভাগে ভাগ হলেও তাদের প্রত্যেকের উদ্দেশ্য হলো আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করা। সে অর্থে আমরা একই পরিবারের সদস্য। আইনজীবীরা হলেন জাতির বিবেক। বিচারকরাও জাতির বিবেক। কিন্তু তাদের পক্ষে কোড অব কন্ডাক্টের কারণে কথা বলতে পারেন না পাবলিকলি।’

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ইউসুফ হোসেন হুমায়ুনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, সাবেক প্রধান বিচারপতি সৈয়দ জে আর মোদাচ্ছির, অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম, খন্দকার মাহবুব হোসেন, জয়নুল আবেদীন, ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। অনুষ্ঠানে সাবেক প্রধান বিচারপতি, সুপ্রিম কোর্টে উভয় বিভাগের বিচারপতিসহ আইনজীবীরা উপস্থিত ছিলেন।

এই সংবাদটি 1,033 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com