গণকমিশন নিজেদেরকে জাতির সামনে চরম উপহাসের পাত্রে পরিণত করেছে: হেফাজত

প্রকাশিত: ১১:৫৬ অপরাহ্ণ, মে ১২, ২০২২

হেফাজতের আমির আল্লামা মুহিবুল্লাহ বাবুনগরী বলেছেন, জঙ্গি অর্থায়ন ও দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের অভিযোগে ১১৬ উলামা-মাশায়েখ ও ধর্মীয় বক্তার তালিকা দুর্নীতি দমন কমিশনে জমা দিয়ে ‘গণকমিশন’ নিজেদের ইসলামবিদ্বেষী চেহারা উন্মোচিত করেছে। দেশবরেণ্য ইসলামী আলোচকদের নামে অমূলক ও ভিত্তিহীন অভিযোগ করে ‌‘তথাকথিত’ গণকমিশনের দায়িত্বশীলরা নিজেদের গ্রহণযোগ্যতাই হারিয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, বাস্তবতাবিবর্জিত এসব কথাবার্তা বলে (গণকমিশন) নিজেদেরকে জাতির সামনে চরম উপহাসের পাত্রে পরিণত করেছে।

বৃহস্পতিবার (১২ মে) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি এ কথা বলেন।

আল্লামা মুহিবুল্লাহ বলেন, ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটির সমন্বয়ে গঠিত মৌলবাদী ও সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস তদন্তে গঠিত ‘তথাকথিত’ গণকমিশনের শ্বেতপত্র সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন, বানোয়াট এবং মিথ্যা তথ্যে ভরপুর।

হেফাজত আমির বলেন, ‘শাহবাগী এই সংগঠন প্রতিষ্ঠাকাল থেকেই নানাভাবে দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার পাঁয়তারা চালিয়ে আসছে। সর্বশেষ তারা দেশবরেণ্য উলামা-মাশায়েখ এবং ইসলামী আলোচকদের এ তালিকা প্রকাশ করে চরম ধৃষ্টতা প্রদর্শন করেছে। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।’

আমিরে হেফাজত গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, এ ধরনের বানোয়াট বক্তব্যের কারণে দেশে চরম অশান্তি সৃষ্টি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। যারা এসব উসকানিমূলক কর্মকাণ্ড করছে, সরকার যেন তাদের শক্ত হাতে প্রতিহত করে।

হেফাজত আমির বলেন, দেশ ও জাতির জন্য পরম কল্যাণকর এ কাজটিকে ক্ষতিগ্রস্ত করার লক্ষ্যে গভীর ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছে তথাকথিত গণকমিশন। দুদকে এই মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করে তারা দেশ-জাতি, সমাজ এবং ইসলামের বিরুদ্ধে অপপ্রয়াস চালাচ্ছে। তারা আজ আলেম-উলামাদেরকে সরকারের মুখোমুখি দাঁড় করানোর চক্রান্ত করছে।

আমিরে হেফাজত কঠিন হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, সরকার যদি এখনই শক্ত হাতে তথাকথিত এই সংগঠনকে দমন না করে তাহলে ইসলামপ্রিয় আপামর তৌহিদী জনতা কঠোর আন্দোলনে নামতে বাধ্য হবে।

এই সংবাদটি 1 বার পঠিত হয়েছে

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com