সিলেটে উজানে কমছে ভাটিতে বাড়ছে পানি

প্রকাশিত: ৯:৫৭ পূর্বাহ্ণ, মে ২৫, ২০২২

সিলেটে উজানে কমছে ভাটিতে বাড়ছে পানি

আবু বকর আদিব:
সিলেটের উজানে পানি কমছে, ভাটিতে বাড়ছে। প্রধান দুটি নদীর মধ্যে কুশিয়ারার পানি বাড়ছে, সুরমার কমছে। পানি কমার সাথে সাথে বাড়ছে পানিবাহিত রোগ। পানি নেমে যাওয়ার পর সিলেট নগরীসহ উপজেলার বন্যাকবলিত এলাকায় বিশুদ্ধ পানির চরম সংকট দেখা দিয়েছে। ছড়িয়ে পড়ছে পানিবাহিত রোগ।

সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শামসুদ্দোহা জানান, সুনামগঞ্জ পয়েন্টে সুরমার পানি কমছে। বিপৎসীমার নিচে রয়েছে। তবে উজানে বৃষ্টি হলে আবারো বাড়তে পারে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী মিনহাজ আহমেদ শোভন বলেন, কুশিয়ারার পানি বাড়ছে। তাই কুশিয়ারা অধ্যুষিত এলাকায় সতর্কতা অবলম্বন করা হয়েছে। গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী কুশিয়ারা সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ, গোলাপগঞ্জ ও নবীগঞ্জে পানি বাড়ছে।

এদিকে সিলেট নগরীসহ বন্যাকবলিত এলাকায় বিশুদ্ধ পানীয় জলের সংকট চরমে। বন্যা কবলিতদের দূর দূরান্ত থেকে লাইন বেঁধে পানীয় জল সংগ্রহ করতে হচ্ছে। সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে বিশুদ্ধ খাবার পানি সরবরাহের উদ্যোগ নিলেও তা অনেকটা সীমিত।

সিলেট নগরীর যতরপুরের রাবেয়া আক্তার সোমবার জানান, দুই এতিম সন্তান নিয়ে টানা তিনদিন বাসায় পানিবন্দি ছিলাম। চরম খাবার ও পানি সংকটে থাকলেও কেউ কোনো সাহায্য নিয়ে এগিয়ে আসেননি। বন্যায় বাসার লাইনের পানিও দূষিত হয়ে পড়েছে, চরম দুর্গন্ধ। এই পানি দিয়ে বাসনকোসন ধোয়ার পর ডায়রিয়া আক্রান্ত হয়ে পড়ি। ওষুধ খাওয়ার পর একটু সুস্থ হলে শিবগঞ্জ থেকে এক কলস পানি এনে সেই পানি খাচ্ছি।

নগরীর মাছিমপুরের মালা সিনহা বলেন, বন্যার পানি নেমে গেছে ঠিক, তবে বাসা, বাড়িতে দুর্গন্ধ রয়ে গেছে। বন্যাকবলিত সবাই বিশুদ্ধ পানির সংকটে আছি।

এবারের বন্যায় সিলেট নগরীর শাহজালাল উপশহর, ঘাসিটুলা, মাছিমপুর, ছড়ারপার, তালতলা, কুয়ারপার, মেন্দিবাগ, কামালগড়, চালিবন্দর, যতরপুর, সোবহানিঘাট, কালীঘাট, শেখঘাট, তালতলা, জামতলা, মাছুদীঘিরপার, রামের দিঘীরপার, মোগলটুলা, খুলিয়া টুলা, দক্ষিণ সুরমার বঙ্গবীর রোড, ভার্থখলা, মোমিনখলা, পিরোজপুর, আলমপুর ও ঝালোপাড়াসহ বিভিন্ন এলাকায় বাসাবাড়িতে পানি ওঠে। এখনো কিছু কিছু এলাকায় বন্যার পানি রয়েছে।

সোমবার সকালে নগরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, নগরের তালতলা, জামতলা, মণিপুরি রাজবাড়ি, যতরপুর, মিরাবাজার, শাহজালাল উপশহর, মেন্দিবাগ, ছড়ারপাড় এলাকায় বেশ কিছু বাড়িঘর এখনো পানির নিচে।

সিলেটের সিভিল সার্জন ডা. এসএম শাহরিয়ার জানান, বন্যাকবলিত এলাকায় মেডিকেল টিম গঠন করেছে সিলেট সিভিল সার্জন ও সিলেট সিটি করপোরেশন। এছাড়া বন্যা কবলিতদের মধ্যে পানি বিশুদ্ধিকরণ ট্যাবলেট, প্রয়োজনীয় চিকিৎসা ও ওষুধ বিতরণ করা হচ্ছে।

তিনি জানান, বন্যায় ৩৭৬ ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন। পাশাপাশি চর্ম রোগেও অনেকেই আক্রান্ত হয়েছেন।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে ১৪০টি মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে। যার মধ্যে সিলেট সদরে ১০টি, দক্ষিণ সুরমায় ৮টি, বিশ্বনাথে ১১টি, ওসমানীনগরে ৯টি, বালাগঞ্জে ৭টি, ফেঞ্চুগঞ্জে ১০টি, গোলাপগঞ্জে ১৬টি, বিয়ানীবাজারে ১৬টি, জকিগঞ্জে ১০টি, কানাইঘাটে ১২টি, গোয়াইনঘাটে ১০টি, জৈন্তাপুরে ১১টি এবং কোম্পানীগঞ্জে ৭টি মেডিকেল টিম গঠিত হয়েছে। এর বাইরে জেলা সদরে ৩টি মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে।

সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের সহকারী পরিচালক (প্রশাসন) ডা. আবুল কালাম আজাদ জানান, সিলেটে ডায়রিয়ায় আক্রান্তদের জন্য নগরের শাহী ঈদগাহ এলাকায় সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতাল প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মো. জাহিদুল ইসলাম বলেন, সিটির তিনটি মেডিকেল টিম মাঠে আছে। বিশুদ্ধ পানি ও পানি বিশুদ্ধিকরণ ট্যাবলেট বিতরণ করা হচ্ছে।

অপরদিকে, সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলায় কুশিয়ারা নদীতে অস্বাভাবিকভাবে পানি বাড়তে থাকায় ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার নিম্নাঞ্চলের ১২টি গ্রামের প্রায় ১০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। বন্যার পানিতে উপজেলার ভেলকোনা, সুড়িকান্দি, গয়াসী, সুলতানপুর, পিঠাইটিকর, ছত্তিশ, বাঘমারা, বারোহাল, চানপুর, জেটিঘাট, ইলাশপুর, কটালপুরের উত্তরপাড়া, পাঠানচক, দন্ডিপাড়া ও হাকালুকি হাওর তীরবর্তী পূর্ব যুধিষ্ঠিপুর গ্রামের বসতভিটায় পানি ঢুকে পড়েছে। ফেঞ্চুগঞ্জ মধ্যবাজারের সড়ক পানির নিচে তলিয়ে গেছে। বাসা-বাড়িতে ঢুকে পড়েছে পানি। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন পানিবন্দি মানুষ।

ফেঞ্চুগঞ্জের বন্যা নিয়ন্ত্রণে আসতে আরও কয়েক দিন লাগবে বলে ধারণা সিলেট জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলী মো. গোলাম বারীর।

ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সীমা শারমিন বলেন, উপজেলা সদরের পার্শ্ববর্তী কুশিয়ারা নদীর পানি মারাত্মকভাবে বেড়ে যাওয়ায় উপজেলাজুড়ে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে। তবে উপজেলা প্রশাসন তৎপর রয়েছে।

এই সংবাদটি 96 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com