নির্বাচন কমিশনের সাথে সংলাপে জমিয়তের ১১ দফা দাবি পেশ

প্রকাশিত: ২:৩৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৬, ২০২২

নির্বাচন কমিশনের সাথে সংলাপে জমিয়তের  ১১ দফা দাবি পেশ


সিলেট রিপোর্ট: নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলসমূহের সাথে নির্বাচন কমিশনের চলমান সংলাপে অংশ নিয়েছে দেশের ঐতিহ্যবাহী সংগঠন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ। আজ ২৬ জুলাই ২০২২ইং মঙ্গলবার সকাল ১০ ঘটিকায় নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে এ সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়। জমিয়ত মহাসচিব মাওলানা মনজুরুল ইসলাম আফেন্দীর নেতৃত্বে ই.সি’র সাথে সংলাপে
দলের পক্ষ থেকে মূল বক্তব্যসহ ১১ দফা দাবি ও প্রস্তাবনা পেশ করা হয়।
প্রতিনিধি দলে ছিলেন, সংগঠনের অন্যতম সহ সভাপতি সাবেক এমপি এডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী,সহ সভাপতি মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস কাসিমী,যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা শুয়াইব আহমদ,যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মুহাম্মাদ উল্লাহ জামী,ঢাকা মহানগর সেক্রেটারি মাওলানা মুতিউর রাহমান গাজিপুরী,অর্থ সম্পাদক মুফতি জাকির হোসাইন,প্রচার সম্পাদক মাওলানা জয়নুল আবেদীন সহ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ একটি শতবর্ষী ঐতিহাসিক রাজনৈতিক সংগঠন হিসেবে দেশ ও জাতির কল্যাণে বহুমাত্রিক কাজ আঞ্জাম দেওয়ার পাশাপাশি সৎ,দক্ষ ও বিশ্বস্ত নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে স্থানীয় এবং জাতীয় নির্বাচনগুলোতে বরাবরই অংশগ্রহণ করে আসছে।আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও আমরা অংশগ্রহণ করতে আগ্রহী, তবে এর জন্য সকল প্রকার প্রতিবন্ধকতা দূর করে যথোপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টির মাধ্যমে একটি অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন নিশ্চিত করা অপরিহার্য বলে মনে করি।
যেহেতু জনগণের ভোটাধিকার সংরক্ষণ করা মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম চেতনা,যেহেতু একটি কল্যাণকর আদর্শ রাষ্ট্র বিনির্মাণে এই ভোটাধিকারের গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা অনেক বেশি এবং সৎ ও যোগ্য নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা ছাড়া যেহেতু দুর্নীতির মূলোৎপাটন সম্ভব নয়,তাই সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে নির্বাচন কমিশন অবাধ,অর্থবহ,নিরপেক্ষ ও ত্রুটিমুক্ত নির্বাচনের আয়োজন করতে সাংবিধানিক ভাবেই দায়বদ্ধ। আমরা আজ সর্বাগ্রে মাননীয় প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও শ্রদ্ধেয় কমিশনারবৃন্দকে এই দায়বদ্ধতার কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে নিম্নোক্ত প্রস্তাবনা ও দাবীসমূহ উপস্থাপন করছি।
১. অতীত অভিজ্ঞতা থেকে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকারের দাবী আমরা আগেও করেছি এখনো করছি।এমনকি ইসি গঠন সংক্রান্ত সংলাপে অংশ নিয়ে আমরা মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছেও এই দাবী জানিয়েছি।
২.সকল দলের সমান সুযোগ (লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরী) নিশ্চিত করতে হবে।
৩.নির্বাচনকে সর্বমহলে গ্রহণযোগ্য করতে এবং সংঘাত-সহিংসতা এড়াতে প্রতীক বরাদ্দ থেকে নির্বাচন পরবর্তী এক সপ্তাহ পর্যন্ত প্রার্থী,সমর্থক ও ভোটারদের নিরাপত্তা বিধানে ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতাসহ সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে
৪.বাংলাদেশের নারী-পুরুষ ভোটার জনতার অধিকাংশই প্রযুক্তির মাধ্যমে ভোট প্রদানে অভ্যস্ত নয় বিধায় ইভিএমের পরিবর্তে ব্যালটেই ভোট গ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে।
৫.প্রতিটি ভোটকেন্দ্রে সকল প্রার্থীর এজেন্টগণের উপস্থিতিতে ভোট গণনা ও ফলাফল ঘোষণার আইন শতভাগ কার্যকর করতে হবে।
৬.নির্বাচনকালীন সময়ে স্বরাষ্ট্র ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় নির্বাচন কমিশনের অধীনে থাকতে হবে।
৭.স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়াকে নিরুৎসাহিত না করে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে নির্দিষ্ট সংখ্যক ভোটারের সমর্থনসূচক স্বাক্ষর জমা দেওয়ার আইন বাতিল করার প্রস্তাব করছি।
৮.কেন্দ্র দখল,জাল ভোট প্রদান এবং ভোটারকে ভোটকেন্দ্রে আসতে বাঁধা প্রদানের বিরুদ্ধে কঠোর আইন প্রণয়ন ও তার প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে।
৯. জনমনে বিতর্ক ও প্রশ্ন সৃষ্টি হয় এমন বক্তব্য প্রদানের বিষয়ে নির্বাচন কমিশনকে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।
১০.ত্রুটিমুক্ত ব্যবস্থা প্রবর্তন করে প্রবাসী রেমিট্যান্সযোদ্ধাদেরকে ভোট প্রদান প্রক্রিয়ার আওতায় আনার দাবী জানাচ্ছি।
১১.বাংলাদেশের রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম। সঙ্গত কারণে এ দেশে ইসলামী রাজনীতির চর্চা থাকাটা খুব স্বাভাবিক। সুতরাং ধর্মীয় মূল্যবোধের প্রতি শ্রদ্ধাহীন ও জনসমর্থনহীন রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন বাতিলের আবেদন জানাচ্ছি।

এই সংবাদটি 173 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com