বন্যা মোকাবেলায় কিছু প্রস্তাবনা

প্রকাশিত: ৯:০১ অপরাহ্ণ, জুলাই ৩০, ২০২২

বন্যা মোকাবেলায় কিছু প্রস্তাবনা

মো. আমান উদ্দিন:
সিলেট বাঁচাও, নদী বাঁচাও, টিলাকাটা বন্ধকর ইত্যাদি দাবী নিয়ে সিলেটবাসী সোচ্ছার হওয়া সময়ের দাবী। পরিবেশবাদী সংগঠনগুলোকে সোচ্ছার হতে হবে। অনাগত বিপদ থেকে রক্ষা করতে প্রয়োজন কর্ম পরিকল্পনা ও তা বাস্তবায়নে বলিষ্ট ভূমিকা পালন করতে হবে। সহযোগীতা করতে হবে সরকারকে। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় তা বাস্তবায়নে হতে হবে সোচ্ছার। অনিয়মকে না বলুন। সিলেট বিভাগের বিভিন্ন অঞ্চল কেন প্লাবিত হল? কারণ চিহ্নিত করতে প্রয়োজনে বিদেশী দাতা সংস্থাগুলোকে সংযুক্ত করুন? চিহ্নিত করান প্রক্রিয়া শেষ হলে, খাল খনন নদী, খনন, পয়ঃনিষ্কাশ স্থায়ীভাবে নিরসনে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্ধ করুন। মন্ত্রণালয় অর্থ বরাদ্ধ দিলে তা বাস্তবায়ন দক্ষ ও অভিজ্ঞ বিদেশী যে কোন টিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে দর পত্রের মাধ্যমে দিয়ে তা বাস্তবায়ন করুন। ছয়নয়কারী প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে এ কঠিন সমস্যা সমাধান সম্ভব নহে। শুধু অর্থের অপচয় ছাড়া আর কি? অতীত অভিজ্ঞতা বলে, এ সব ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান পানি উন্নয়ন বোর্ডের সংশ্লিষ্ট অসাধু কর্মকর্তাগনের সহযোগিতায় রাষ্ট্রের বরাদ্ধকৃত টাকা উত্তোলান এর মাধ্যমে তছনছ করে ফেলে। প্রধানমন্ত্রী ‘দুর্গত মানুষের’ বাস্তব অবস্থা দেখেছেন। সভা করেছেন। নিশ্চয়ই বড় ধরনের ভানবাসী মানুষের কল্যাণে বরাদ্ধ আসবে। দুর্যোগ এবং দুর্ভোগ এক দিনে সৃষ্টি হয় না। এক দিনে নিরসন ও সম্ভব নয়। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কাছে কিছু প্রস্তাবনা তুলে ধরছি :
১. ১৯৭৮ সালে খাল খনন, নদী খনন, নদী শাসন, কর্মসূচী অব্যাহতভাবে চালু রাখতে হবে।

২. সরকার ভূমি মন্ত্রণালয়ের নিকট থেকে পুরাতন খাল, নদী, এসবের তালিকা নিয়ে এগোতে হবে। কঠোর হস্তে বিভিন্ন কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় যে সব খাল বা নদীর শ্রেণী পরিবর্তন করা হয়েছে, তাদেরকে জবাবদিহির আওতায় আনেতে হবে।
৩. ব্রিটিশ আমলে যেভাবে সীমানাপ্রাচীর স্থাপন করা হয়েছিল, তার আদলে সীমানা প্রাচীর নির্ধারণ করতে হবে। নদী শাসন আইন যথাযথভাবে রাষ্ট্রের বৃহত্তর স্বার্থে বাস্তবায়ন করতে হবে। দেখভালের দায়িত্ব সরকারকেই গ্রহণ করতে হবে। প্রতি বৎসর উপজেলা ভিত্তিক প্রতিবেদন সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে দাখিল করতে হবে সরকারকে প্রয়োজনীয় প্রতিবেদনের আলোকে ফলোআপ জনগনকে জানাতে হবে ।
৪. ২০২২ সালের ভয়াবহ বন্যা জনগনকে ভাবিয়ে তুলেছে। ইতিহাসের পাতায় বিশ্বব্যাপী সিলেটকে নতুনভাবে দুর্যোগপূর্ণ এলাকা হিসেবে চিহ্নিত করেছে। বৈশ্ব্যিক পরিবর্তনের কারণ দীর্ঘ দিন নদী খনন না করা, ভূমি খেকোগণ অবৈধভাবে নদী ভরাট করে, বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণ করা, নদীর শ্রেণী পরিবর্তন করে বাড়ী ঘর নির্মাণ, সর্বোপরি পানি নিষ্কাসনের সকল পথ বন্ধ করে জন দুর্ভোগ তৈরী করেছে যেমন সিলেটের বিয়ানীবাজারস্থ জমাদার খাল ভরাট করে বাড়ীঘর নির্মাণের করা হয়েছে। সোনাই নদী, সুরমা নদী, কুশিয়ারা নদী, কুশিটিকি নদী ইত্যাদি খনন করা সময়ের দাবি।
৫. যথাযথভাবে পানি নিষ্কাসনের ব্যবস্থা থাকলে গ্রামীণ অবকাটামো নষ্ট হত না। জলাবদ্ধতার কারণে রাস্তাঘাট ভেংগে ব্যাপক ক্ষতিগস্ত হত না। রাষ্ট্রীয় কোষাগারের টাকায় পুনঃরায় এসব রাস্তা পুনঃনির্মাণ করতে হাজার ও কোটি টাকা ব্যয় হত না।
৬. খাল, নদী, হাওর-বিলের পানি, যথাযথভাবে নিষ্কাসনের দেখভালের ভার কিন্তু সরকারের। সরকার কঠোর হলে এবং এসব খাল বিলের পানি নিষ্কাসনের ব্যবস্থা অভ্যাহত থাকলে বন্যা ও দুর্যোগ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। পানি নিষ্কাসনের ব্যবস্থা থাকলে মাটির উর্বরতা বৃদ্ধি পাবে। জলাবদ্ধতার কারণে পরিবেশের উপর ব্যাপক রোগ ব্যাধির সৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা বিদ্ধমান। জরুরী ভিত্তিতে মাট প্রশাসনকে কাজে লাগিয়ে ক্ষয়ক্ষতি চিহ্নিত করা।
৭. খাল, নদী নালা চিহ্নিত হওয়ার পর তা খনন করে সরকারি ব্যবস্থাপনায় খননকৃত মাটির উপর পরিবেশ বান্ধব গাছপালা রোপনও তদারকি জোরদার করা। এসব বাস্তনায়নের জন্য আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার নিশ্চিত করা। এসবের কিছুই বাস্তবায়ন সম্ভব নয়, সরকারের স্বদিচ্ছা না থাকলে। সরকারকেই এগিয়ে আসতে হবে সর্বাগ্রে।
লেখক : সভাপতি-সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) বিয়ানীবাজার, সিলেট।

এই সংবাদটি 181 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com