মানুষ মানুষের জন্য

প্রকাশিত: ৯:০৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ৩০, ২০২২

মানুষ মানুষের জন্য

মো. ইউসুফ আলী:
‘নদীর পাশ দিয়ে চলতে চলতে দেখি, একটা লোক ডুবে মরছে, মনের চিরন্তন মানুষটি তখন প্রশ্ন করবার অবসর দেয় না যে, লোকটি হিন্দু না মুসলমান। একজন মানুষ ডুবছে, এইটেই হয়ে ওঠে তার কাছে বড়, সে ঝাঁপিয়ে পড়ে নদীতে। হিন্দু যদি উদ্ধার করে দেখে লোকটা মুসলমান বা মুসলমান যদি দেখে লোকটা হিন্দু তার জন্য তো তার আত্মপ্রসাদ এতটুকু ক্ষুণ্ন হয় না। তার মন বলে, আমি একজন মানুষকে বাঁচিয়েছি – আমারই মতো একজন মানুষকে’- কাজী নজরুল ইসলাম।

চার দিকে মানুষ স্বার্থের দ্বন্দ্বে হানা-হানি, মারা মারিতে লিপ্ত থাকলেও আমাদের যুব সমাজ পরোপকারে নিজেকে সঁপে দিচ্ছে। তাদের মধ্যে সাম্প্রদায়িকতার লেশমাত্র নেই। আমাদের যুবারা পরোপকারে কে মুসলমান, কে হিন্দু, কে খ্রিষ্টান, তা বিবেচনা করে না। ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে মানবতার সেবায় তারা এগিয়ে আসে। প্রতিবেশি যে কোন দেশের চাইতে আমাদের দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বহুগুণে ভালো। প্রতিবেশি দেশের কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা যে ধরণের সাম্প্রদায়িক, উগ্র ও ধর্মীয় বিদ্বেষপূর্ণ আচরণ করে সে রকম আচরণ আমাদের কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র- ছাত্রীরা করে না, অতীতে করছে এরও কোন প্রমাণ নেই। এই তো কিছু দিন পূর্বে ভারতে মুসলিম ছাত্রীদের সাথে হিন্দু ছাত্র-ছাত্রীরা যে উগ্রতা ও হিংস্রতা দেখিয়েছে তা চরম সাম্প্রদায়িকতা ছাড়া অন্য কিছু নয়। এর রেশ কাটতে না কাটতেই ক্ষমতাসীন দলের এক নেত্রী সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা উসকে দেওয়ার জন্য মুসলমানদের কলিজায় আঘাত হানল। ভারত অতীতে যেমন অসম্প্রদায়িক দেশ ছিল না বর্তমানেও নেই ঘটনাগুলো তারই প্রমাণ।
আমাদের কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীসহ যুব সমাজ হিন্দু শিক্ষার্থীদের কখনও সংখ্যা লঘু বলেও কটাক্ষ করে না,বিদ্বেষপূর্ণ ও বৈষম্য মূলক কোন আচরণ করে না,ক্ষেত্র বিশেষে তাদের যে কোন আপদ-বিপদে তাদের জ্ঞাতি ভাইয়ের চাইতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে। আমাদের কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীসহ যুব সমাজ অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ায়, দেশের যে কোন দূর্যোগের সময় দেশ মাতৃকার কল্যাণে ঝাঁপিয়ে পড়ে। আমাদের ছাত্র-ছাত্রীদের মানবিকতা ও দেশের কল্যাণে নিজেকে নিবেদিত করার দু-একটি উদাহরণ দিচ্ছি । আমার একজন প্রাক্তন হিন্দু মেধাবী ছাত্রী ক্যান্সারে আক্রান্ত হলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য তার সহপাঠীরা মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরে অর্থ সংগ্রহ করে ভারতের চেন্নাই পাঠিয়েছিল। এটাই বাংলাদেশের চিত্র,এটাই ধর্মীয় সম্প্রীতি,অসম্প্রদায়িক বাংলাদেশের দৃষ্টান্ত। স্মরণকালের সিলেট ও সুনামগঞ্জে ভয়াবহ বন্যায় মানুষ বড়ই বিপদে,বড়ই অসহায় হয়ে পড়ে। শহরের অধিকাংশ রাস্তা-ঘাট পানিতে তলিয়ে কারও ঘরে কোমর পানি, কারও ঘরে বুক সম পানি। মানুষের চরম দূর্যোগে এগিয়ে এসেছে আমাদের যুব সমাজ। তারা ঝড়-বৃষ্টিকে উপেক্ষা করে রাত-দিন অসহায়, পীড়িত, বিপদগ্রস্ত মানুষের সেবায় নিবেদিত প্রাণ হয়ে কাজ করেছে। আমাদের জন প্রতিনিধিরা যা করতে পারেন নাই, তা করছে আমাদের যুব সমাজ। প্রতিটি পাড়া-মহল্লার যুব সমাজ খাদ্য দ্রব্যসহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে অসহায়-বিপদ গ্রস্তদের দ্বারে দ্বারে হাজির হয়েছে। মানবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেেেছ আমাদের যুব সমাজ। বন্যার মধ্যে একদিন জরুরী কাজে সিলেট গিয়েছিলাম। ফিরতি পথে একটা ঘটনার বর্ণনা দিয়েই লেখার ইতি টানব।
সিলেট-দক্ষিণ সুরমায় আসা যাওয়ার শাহজালাল ও কীন ব্রীজ সংলগ্ন রাস্তা পানিতে তলিয়ে যাওয়ার কারণে সকল যানবাহন কাজির বাজার ব্রীজ হয়ে চলতে শুরু করে,এতে কাজির বাজার ব্রীজ থেকে পুরাতন রেল গেট পর্যন্ত বিশাল যানজটের সৃষ্টি হলে যাত্রীরা চরম দূর্ভোগে পড়েন। রেল গেট সংলগ্ন লাওয়াই রাস্তায় হাটু পানিতে অনেক গাড়ির ইঞ্জিন বন্ধ হয়ে পরিস্থিতি আরও খারাপ হচ্ছিল, সেই সময় এ এলাকার কতিপয় যুবক বৃষ্টিতে ভিজে গাড়িগুলোকে ঠেলে পার করে দিয়ে জনগণের দুর্ভোগ লাঘব করার প্রাণপণ চেষ্টা করছে। এই হলো আমাদের যুব সমাজ। জয় হোক যুবাদের।
লেখক : শিক্ষক।

এই সংবাদটি 142 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com