শায়খুলইসলাম সৈয়দ হোসাইন আহমেদ মাদানী (র.)-এর বিরুদ্ধে ইসহাক মাদানীর কটুক্তি ও প্রসঙ্গিক কিছুকথা

প্রকাশিত: ৯:৪৯ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৭, ২০২২

শায়খুলইসলাম সৈয়দ হোসাইন আহমেদ মাদানী (র.)-এর বিরুদ্ধে ইসহাক মাদানীর কটুক্তি ও প্রসঙ্গিক কিছুকথা

*
সৈয়দ মবনু:

সিলেট পাঠানটুলা জামায়াতি আলিয়া মাদরাসা শাহজালাল জামিয়ার বেতনভোগি শিক্ষক মাওলানা ইসহাক মাদানী সিলেটে কি নতুন বশিরুজ্জামান রূপে নাজিল হচ্ছেন ফিতনা সৃষ্টির জন্য? তা অনেক আলেমের প্রশ্ন।
আলেমদের কথা হলো, মাওলানা ইসহাক পাকিস্তানের মাওলানা মওদূদীর জানাজা ‘সর্ববৃহৎ জানাজা’ বলে যে মিথ্যা তথ্য প্রচার করেছেন তাতে আমাদের কোন আপত্তি নেই, কারণ তিনি জামায়াত করেন এবং জামায়াতীরা মিথ্যাচারে পৃথিবীতে মুসলিম দাবীদারদের মধ্যে দ্বিতীয় স্থান অধিকারী। প্রথম স্থানে শিয়ারা। যারা মিথ্যাচার করতে পারে হযরত সাহাবায়ে কেরামের বিরুদ্ধে তারা আর পারবে না কোন বিষয়ে মিথ্যাচার করতে? যুগে যুগে তারা ধর্মীয় এবং রাজনৈতিক বিভিন্ন বিষয়ে মিথ্যাচার করে উম্মতকে বিভ্রান্ত করেছে।
তারা আরও বলেন, মাওলানা মওদুদীর জানাজা পাকিস্তানে সর্ববৃহত কথাটায় আবশ্যই মিথ্যাচার আছে। এখানে দাবী করা হচ্ছে ‘দশলাখ মুসল্লী’ ছিলো। কতজনে দশলাখ হয় তা কি মাওলানা ইসহাক মাদানীর হিসাব জানা আছে? পাঁচ হাজার মানুষের সমাবেশ দেখলে যে দলান্ধরা বলেন লাখ লাখ জনতা, তারা বিশ হাজারকে দশলাখ বললে আমাদের নারাজ হওয়ার কিছু নেই। মাওলানা মওদূদীর জানাজা বড় হয়েছে এবং অনুমানিক দশ হাজার লোক হবে, তা সত্য। দশ হাজার কম নয়। কিন্তু দলান্ধ জামায়াতিরা এটাকে দশলাখ বানিয়ে ফেলেছে।
তারা বলেন, মাওলানা ইসহাক মাদানীর এই লেখায় আরও মিথ্যাচার আছে। তিনি বলেছেন মাওলানা মওদূদীকে বিংশশতাব্দীর শ্রেষ্ঠ ইসলামী চিন্তাবিদ ও মুজাদ্দিদ, অথচ মাওলানা মওদুদীর তৃতীয় জানাজা যিনি পড়িয়েছেন বলে ইসহাক মাদানী দাবী করেছেন সেই ডা. ইসরার আহমদ কেন জামায়াত ছেড়েছেন? তাঁর দাবী মতো তিনি মূলত জামায়াত ছেড়েছেন স্বয়ং মাওলানা মওদুদীর জাহালিয়াতের প্রতিবাদে। তিনি মাওলানা মওদুদী ও জাময়াতকে অপছন্দ করার পরও মাওলানা মওদূদীর জানাজা পড়িয়েছেন। এর অর্থ, জানাযায় উপস্থিত হলেই ভক্ত, শিষ্য বা সমর্থক বুঝায় না। রাজনৈতিক ও সামাজিক কারণেও মানুষ জানাযায় যায়। তা ছাড়া বড় জানাজা কি বেহেশতে যাওয়ার জন্য কোন দলিল? বাংলাদেশে রাজনৈতিক জানাজাগুলো বেশ বড় হয়। অনেক সাহাবীর জানাযায় তিনজন – চারজন মানুষও ছিলেন।
মাওলানা মওদুদী একজন ভালো লেখক ছিলেন, তাঁর লিখায় শিল্প-সাহিত্য ছিলো। অসংখ্য দ্বিমতের পরও তাঁকে অনেকে শ্রদ্ধা করেন। এই শ্রদ্ধাকে স্মরণে রেখেও কোন কোন আলেম বলেন, অতি ভক্ত জামায়াতি মাওলানা ইসহাক মাদানী যেমন তাঁকে বিংশশতাব্দীর শ্রেষ্ঠ ইসলামী চিন্তাবিদ ও মুজাদ্দিদ দাবী করছেন, তেমনি বিশ্বের আলেম-উলামা তাঁকে বিংশশতাব্দীর শ্রেষ্ঠ জাহেল এবং ফিতনাবাজও বলেছেন। আমরা দুটাকেই অতিরিক্ত মনে করি।
জানাজা প্রসঙ্গে কেউ কেউ বলেন, মাওলানা মওদুদীর জানায় সাত শ কোটি মানুষ ছিলো বলে দাবী করলেও আমাদের আপত্তি নেই। আপত্তি হলো জনৈক ইসহাক মাদানী যখন ভারতবর্ষের বৃটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতা, ভারতের মানুষের মুক্তির জন্য মদীনা থেকে হিজরতকারী পরিবারের সন্তান শায়খুলইসলাম সৈয়দ হোসাইন আহমদ মাদানী (র.) কে নিয়ে ব্যঙ্গ করে কথা বললেন। এখানে শুধু মিথ্যাচার আর মিথ্যাচার। তিনি বলেছেন, সৈয়দ হোসাইন আহমদ মাদানী (র.) নাকি নিচক রাজনৈতিক কারনে একজাতিতও্ব ও দ্বিজাতিতত্ত্ব দর্শন নিয়ে মাওলানা মাওদুদীর চরম বিরোধিতা করে মাওলানা মাওদুদীকে গুমরাহ ও পথভ্রষ্ট আখ্যায়িত করেন এবং রাজনৈতিক বিরোধকে আক্বিদার বিরোধে রূপ দিয়েছেন। এই কথাটা সম্পূর্ণ জালিয়াতি। এখানে দলিলে যাবো না, শুধু বলবো মাওলানা ইসহাক ভারতবর্ষের রাজনৈতিক ইতিহাস সম্পর্কে হয়তো মূর্খ, নয়তো বেতনদারী গোলামরা যেভাবে অন্ধ থাকে তেমন আছেন।
একজাতিতও্ব ও দ্বিজাতিতত্ত্ব দর্শন হলো মূলত পাকিস্তান হবে না ভারত থাকবে এই লড়াই। এটা মূলত মুসলিমলীগ আর কংগ্রেস লড়াই। সৈয়দ হোসাইন আহমেদ মাদানীর কথা ছিলো মুসলিম জাতীয়তাবাদের ভিত্তিতে যে পাকিস্তান হচ্ছে সেখানে কি ভারতের সকল মুসলমানকে স্থান দেওয়া যাবে? যারা পাকিস্তানে যাবেন তারা তো বেঁচে গেলেন, যারা ভারতে থাকলেন তাদেরকে কে রক্ষা করবে? তা ছাড়া যাদের নেতৃত্বে পাকিস্তান হচ্ছে তারা তো কেউ ইসলামিক না। জিন্না একজন ফার্সিয়ান শিয়া এবং ইংরেজদের তৈরিকৃত মাল। ভারতে তো মুসলিমরা বিপদে, পাকিস্তানে স্বয়ং ইসলাম বিপদে আটকে যাবে।’
মাওলানা মওদুদীর সাথে এটা নিয়ে সৈয়দ হোসাইন আহমেদ মাদানী (র.) এর কোন সংঘাত ছিলো না, উলামাদের মূল সংঘাত মূলত সাহাবায়ে কেরামদের নিয়ে। যার প্রমাণ, পাকিস্তান আন্দোলনে যে আলেমরা নেতৃত্ব দিয়েছেন তারাও মাওলানা মওদুদীর সাহাবা বিরোধী চিন্তাকে গোমরাহী মনে করেন। পাকিস্তানের জাতীয় পতাকা প্রথম উত্তোলনকারী শায়খুলহাদিস আল্লামা শিব্বির আহমেদ উসমানীর সাথে মাওলানা সৈয়দ হোসাইন আহমেদ মাদানীর সংঘাত হয়েছে পাকিস্তান হওয়া এবং না হওয়া নিয়ে, জমিয়ত ভেঙে দু ভাগ হয়েছে এই কারণে। বিশ্ববিখ্যাত তাফসির গ্রন্থ মারিফুল কোরআনের লেখক মুফতি শফি (র.)ও তো পাকিস্তানের পক্ষে দেওবন্দ ছেড়ে এসেছেন, মাওলানা শামসুল হক ফরিদপুরী (র.), মাওলানা আতহার আলী কিশোরগঞ্জী, মাওলানা এহতেশামুল হক থানবী (র.) প্রমূখ পাকিস্তানের পক্ষে ছিলেন, তাদেরকে তো গোমরাহ বলা হয়নি, বরং দেখা গেছে তারাও মাওলানা মওদুদীর সাহাবা বিরোধী চিন্তাকে গোমরাহী বলে বই লিখেছেন। পাকিস্তানের আলেমরা এখনও মাওলানা মওদুদীর চিন্তাকে গোমরাহী মনে করেন। প্রশ্ন হলো; যদি পাকিস্তান ভারত বিষয়ক সংঘাত মূল হতো তবে পাকিস্তানপন্থী আলেমরা মাওলানা মওদুদীকে গোমরাহ ফতোয়া দিলেন কেন?
মাওলানা ইসহাকের এই দাবী মিথ্যাচার প্রমানে এই গুলো কি যথেষ্ট নয়?
মাওলানা ইসহাককে জামায়াতেরও অনেকে পাগল মনে করেন বলে অনেকে বলেছেন। তারা বলেন, কত বড় পাগল ও মূর্খ হলে মানুষ এমন কথা বলতে পারে যে, ‘মাওলানা মাদানী (র.) ১৯৫৭ সালে ৩৩ কোটি দেবতার পূজারী দেশ ভারতে ইন্তেকাল করেন। অথচ তার পিতৃপুরুষেরা মদীনা শরীফে বসবাস করতেন, এটাই আল্লাহর ফয়সালা। ‘
মাওলানা ইসহাকের দাবী অনুযায়ী মাওলানা সৈয়দ হোসাইন আহমেদ মাদানীর মৃত্যু ভারতে হয়েছে, এটা দেবতাদের দেশ, তা ওলি না হওয়ার আলামাত। আমাদের প্রশ্ন হলো, ১. আল্লাহর রাসুলের সাহাবীদের মৃত্যু কি সবার মদীনায় হয়েছে? দেব-দেবীর পূঁজারী দেশগুলোতে কি তাদের কবর নেই? হযরত সাহাবায়ে কেরাম যে ইলম ও তারবিয়তের জন্য হিজরত করেছেন মাওলানা সৈয়দ হোসাইন আহমেদ মাদানীও কি সে জন্য ভারতে থাকেন নি? বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনের সময় তিনি ইচ্ছে করলে আন্দোলন সংগ্রামে অংশ না নিয়ে পালিয়ে মদীনায় চলে যেতে পারতেন, পালিয়ে গেলে কমপক্ষে বারবার জেলে যেতে হতো না। কিন্তু যান নি। তিনি ইচ্ছে করলে ভারতের কোটি কোটি মুসলমানকে হিন্দু- মুসলিম দাংগার সময় বিপদে ফেলে পাকিস্তানে এসে বসবাস করতে পারতেন মাওলানা মওদুদীদের মতো, কিন্তু তিনি তা করেননি। তিনি সংকটের সময় দাঁড়িয়েছেন অসহায় মানুষের পাশে। এমন কি ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দেও যখন পাকিস্তানি বাহিনী বাংলাদেশের মানুষের উপর জুলুম নির্যাতন করে তখন স্বৈরাচারী এহিয়া-ভূট্টোর পক্ষে মাওলানা মওদুদীর দল জামায়াতে ইসলামী কাজ করেছে প্রকাশ্যে, কিন্তু মাওলানা সৈয়দ হোসাইন আহমেদ মাদানীর ছেলে মাওলানা সৈয়দ আসআদ মাদানী তখন বাংলাদেশের মানুষের জান-মালের হেফাজতের ফতোয়া নিয়ে ঘুরছেন ভারতের মুসলমানদের ঘরে ঘরে। মাওলানা সৈয়দ হোসেন আহমদ মাদানীর শিষ্য মুফতি মাহমুদ পাকিস্তানের মতো জায়গায় দাঁড়িয়ে বাঙালির মজলুম নেতা শেখ মুজিবুর রহমানের পক্ষে কাজ করেছেন, ফতোয়া দিয়েছেন। সৈয়দ হোসাইন আহমেদ মাদানীর উসূল ছিলো সাহাবাদের মতো অসহায়দের পাশে দাঁড়ানো, আসহায়দেরকে ব্যবহার করে ক্ষমতা দখলে তিনি ছিলেন না। তিনি ভারতে এসেছেন এবং থেকেছেন মজলুম ভারতবাসীকে রক্ষার জন্য। তিনি এখানে নিজের বাড়ী করে নিয়েছেন। তিনি ভারতে তার নিজের বাড়ীতে ইন্তেকাল করেন। এটা কোন অপরাধ নয়। ভারতে অনেক অলি-কুতুবের কবর আজও রয়েছে। আমরা বিশ্বাস না করলেও যদি তর্কের খাতিরে বলি মাওলানা মওদুদীতো ভারত ছেড়ে পাকিস্তানে গেলেন মুসলিমদেশ বলে। কিন্তু তিনি পাকিস্তানে থেকেও সর্বদা আমেরিকার গোয়েন্দাদের নির্দেশনায় কাজ করতেন। তিনি সিআই-এর এজেন্ট ছিলেন, আর তিনি মারাও গেছেন আমেরিকায় গিয়ে। এটাই কি তার হুব্বেনওয়াতান, বা দেশপ্রেমের প্রমাণ? মাওলানা হোসাইন আহমেদ মাদানী ভারতবর্ষকে ভালোবাসতেন, তিনি মারাগেছেন ভারতে। মাওলানা মওদুদী আমেরিকাকে ভালোবাসতেন, তিনি মারাগেছেন আমেরিকায়।
মাওলানা ইসহাক মাদানী স্বীকার করেছেন,
সৈয়দ হোসাইন আহমেদ মাদানী (র.)-এর সালাতুল জানাযায় দুই থেকে আড়াই লাখ মুসল্লী উপস্থিত ছিলেন। আলেম সমাজ মনে করেন, প্রকৃত অর্থে ইসলামে জানাজার বিধানে তিনজনই যতেষ্ট। লাখ বা কোটির কোন ফজিলত নেই। মানুষ বেশি হলে জনপ্রিয়তা প্রমাণ করে মাত্র। তা ছাড়া রাজনৈতিক জানাজাগুলোতে মানুষ বেশি হয়ে থাকে বিভিন্ন কারণে। দ্বীন সম্পর্কে মূর্খলোকরাই মূলত সংখ্যা দিয়ে ব্যক্তির ফজিলত বর্ণনা করে থাকেন।
মুসলিম বিশ্ব থেকে কোন স্কলার সৈয়দ হোসাইন আহমদ মাদানীর জানাযায় শরিক হননি তা কি তার কাবিলায়াতে কোন ঘাটতি প্রমাণ করে? এমন প্রশ্নের উত্তরে অনেক আলেম বলেন, মক্কা শরিফের ইমাম সাহেব জানাজা পড়ালে কি বেহেশতে যাওয়া যাবে? আমেরিকার সিআই যাকে ভালোবাসে না তার জানাজায় আরব বিশ্বের সরকারের বেতনদারী আলেমরা আসতেও যে আইনী জটিলতা আছে সে কথা মদীনায় পড়েও মাওলানা ইসহাক জানতে পারলেন না, তা তার নিজেরই অযোগ্যতা প্রমাণ করে। তা ছাড়া শায়খুলহাদিস যাকারিয়া বিন ইয়াহইয়া কান্ধলভী (র.) এর মাকবুলুয়াত কোন অর্থেই মক্কার ইমামদের থেকে কম নয়। তাঁর অনেক,খলিফা এবং ছাত্র মক্কার ইমামদের তালিকায় আছেন। মাওলানা ইসহাক মাদানী নাকি হাদিসের শিক্ষক। এপ্রসঙ্গে তাঁকে ইমাম বোখারী (র.) এর শিক্ষক আব্দুল্লাহ ইবনে মোবারক (র.) এর পক্ষ থেকে কাবার ইবাদতকারী শায়েখ আইয়াজকে লেখা ‘ইয়া আবিদাল হারমাইন…’ কবিতাটি পড়ার অনুরোধ করছি।
আমার ব্যক্তিগত শেষ কথা এ প্রসঙ্গে, বেশ আগে সিলেট অশান্ত হয়েছিলো মওদুদী বিষয়ে মাওলানা বদিরুজ্জামানের একটি বইকে কেন্দ্র করে। শেষ পর্যন্ত বদিরুজ্জামান পালিয়ে লন্ডন গিয়েছিলেন। মাওলানা ইসহাকও কি সিলেটকে অশান্ত করতে চাচ্ছেন? না চাইলে তিনি অবশ্যই তার এই লেখা প্রত্যাহার করে আলেম সমাজের কাছে মাফ চেয়ে মাদানীভক্ত সিলেটবাসীকে শান্ত থাকতে দিবেন।

এই সংবাদটি 156 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com