দ্রব্যমূল্য নিয়ে সংসদে অসন্তোষ

প্রকাশিত: ৫:৪১ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৩১, ২০২২

দ্রব্যমূল্য নিয়ে সংসদে অসন্তোষ

ডেস্ক রিপোর্ট:

সরকার জ্বালানি কূটনীতিতে মনোযোগী নয় বলে দাবি করে জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য ও দলটির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু বলেছেন,ওপেকভুক্ত বড় তেল উৎপাদনকারী কোম্পানি এবং মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর সঙ্গে জ্বালানি সরবরাহের স্থায়ী কোন চুক্তি করার উদ্যোগ নাই। প্রাথমিক জ্বালানি, পরিকল্পনা জ্বালানি, নিরাপত্তা সরবরাহ নিশ্চিতের ধারণাই ছিল না সরকারের। বরং ছিল স্পট মার্কেট থেকে আমদানি প্রীতি। কারণ এটার মধ্যে অন্তর্নিহিত কোন স্বার্থ আছে। প্রাথমিক জ্বালানির উৎস এবং সরবরাহ নিশ্চিত না করেই বিদ্যুৎ কেন্দ্র করা হয়েছে। মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে বৈশ্বিক মহামারী কোভিড-১৯, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিসহ সাম্প্রতিক সমস্যায় সরকারের নেয়া পদক্ষেপ জাতিকে জানাতে কার্যপ্রণালী বিধির ১৪৭ বিধির আওতায় আনিত সাধারণ প্রস্তাবের আলোচনায় তিনি এ কথা বলেন। প্রস্তাব উত্থাপন করেন জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য ও দলটির মহাসচিব মুজিবুল হক। প্রস্তাবের বিষয়ে মুজিবুল হক বলেন,সংসদের অভিমত এই যে, কোভিড-১৯, বৈশ্বিক অস্থিরতা, ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ, জলবায়ু পরিবর্তন, প্রাকৃতিক বিপর্যয়, জ্বালানি সংকট, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি প্রভৃতি সমস্যা মোকাবেলা করার নিমিত্ত সরকারের গৃহীত স্বল্প ও দীর্ঘ মেয়াদী টেকসই পদক্ষেপসমূহ মহান সংসদে আলোচনার মাধ্যমে জাতিকে অবহিত করা হোক। তিনি বলেন, বলা নাই কওয়া নাই, এক লাফে ৪১ থেকে ৫১ শতাংশ ডিজেল, অকটেন এবং পেট্রলের মূল্য বাড়ানো হয়েছে।

দেশ স্বাধীন হওয়ার পর একক কোন পণ্যের দাম এত বৃদ্ধি হয়েছে বলে আমার জানা নেই। এ কারণে সমস্ত জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে।

যার সঙ্গে তেলের কোন সম্পর্ক নাই, সেই সমস্ত পণ্যও এই কালোবাজারি, অসৎ ব্যবসায়ীরা বাড়িয়ে দিয়েছেন। সরকারের কোন নিয়ন্ত্রণ আছে বলে আমরা দেখি না। তিনি বলেন, সরকারের লোকেরা প্রত্যক্ষ করেন কীনা জানি না। কিন্তু আমরা দেখি মানুষ আসলেই খুব খারাপ অবস্থায়। মধ্যবিত্ত, নিম্ন মধ্যবিত্ত এবং গরীব মানুষ বাজারে গেলে তাদের গায়ে আগুন লেগে যায় দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির কারণে। এসময় তিনি তেলের দাম বৃদ্ধির কারণে নিত্য পণ্যের মূল্য বাড়ার চিত্র সংসদে তুলে ধরেন।  বলেন, এখনো পণ্যের দাম যে আরও বাড়বে না, তার কোন ঠিক নাই। তেলের দাম বৃদ্ধি প্রসঙ্গে সরকারের ব্যাখ্যার সমালোচনা করেন তিনি। সমন্বয় করে জালানি তেলের দাম আরও সহনীয় পর্যায়ে রাখা যেত দাবি করেন জাপা এমপি। বিভিন্ন ব্যাংকে বিপিসির ২৫ হাজার ২৬৪ কোটি জমা আছে জানিয়ে তিনি বলেন, ওই ব্যাংকগুলোর অবস্থা কাহিল। মানুষকে ঋণ দিয়ে তাদের এখন মূলধন নেই। বিপিসি চাইলেও টাকা ক্যাশ করতে পারবে না। বিপিসি কার স্বার্থে এই টাকা ওই সব ব্যাংকে রেখেছেন বলে জানতে চান চুন্নু। দেশে প্রতিবছরই বেসরকারি বিদ্যুত কেন্দ্রের সংখ্যা বাড়লেও বড় অংশ অলস পড়ে আছে দাবি করে চুন্নু বলেন, বিদ্যুৎ উৎপাদন না করে ক্যাপাসিটি চার্জের নামে প্রচুর আয় করেছে বিনিয়োগকারী। ১২ বছরের এখানে খরচ হয়েছে ৮৬ হাজার ৬৭০ কোটি টাকা। এমনকি ভারতে থেকে গত ৯ বছরে বিদ্যুত আমদানিতে ক্যাপাসিটি চার্জ গেছে ১১ হাজার ১৫ কোটি টাকা।

ভর্তুকির পুরোটাই অপ্রয়োজনীয়, অলস, রেন্টাল, কুইক রেন্টাল বিদ্যুত কেন্দ্রের ক্যাপাসিটি এবং ওভারহেডিং চার্জে গেছে। বেসরকারি বিদ্যুত কেন্দ্রের প্রকৃত উৎপাদন ক্ষমতা ঘোষিত উৎপাদনের অর্ধেকের কম বলে দাবি করে তিনি বলেন, সরকার অর্থনীতির চালিকা শক্তি ডিজেল ও সারে ভর্তুকি দিতে অপারগ অথচ অলৌকিকভাবে বিদ্যুতের বোঝা বাড়িয়ে চলছে কেন? বিগত এক যুগে শীর্ষ ১০ টি কোম্পানি ক্যাপাসিটি চার্জ ছিল ৪৪ হাজার ৬৪০ কোটি টাকা। এ আনুকূল্যের পেছনের সরকারের স্বার্থ কী জানতে চান তিনি। গত ছয় বছরে ৬২ হাজার কোটি টাকা বেসরকারি বিদ্যুত কেন্দ্রের কেন্দ্র ভাড়া দিচ্ছে সরকার। এসব কেন্দ্রের পূর্ণ সক্ষমতা দুরে থাক, ৩০ শতাংশ উৎপাদন সম্ভব হয়নি। অলস, বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো বসিয়ে রেখে অর্থ দিয়েছে কী কারণে? তিনি বলেন, বিদ্যুৎ সংরক্ষণ করা যায় না। সেক্ষেত্রে বিদ্যুৎ উৎপাদনের সঙ্গে দরকার ছিল সরবরাহ লাইন। সরবরাহ লাইন না করে বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য ক্যাপাসিটি চার্জ দেব, জনগণের টাকা দেব, কিন্তু বিদ্যুৎ নিতে পারব না। সরকারের এত বড় ভুল নীতি কী কারণে? ডিজেলের দাম কয়েক মাস ১৪ শতাংশ বৃদ্ধি করা হয়েছিল। এখন আবার ৫১ শতাংশ।

গত ১ বছরে জ্বালানি তেলের দাম বেড়েছে ৬৫ শতাংশ। অথচ এই সময়ে আন্তর্জাতিক বাজারে গড়ে দুই শতাংশ জ্বালানি তেলের দাম বাড়িয়েছে। দেশের সেচ কেন্দ্র গুলোর ৩ ভাগের ১ ভাগ বিদ্যুৎ চালিত বাকী দুইভাগ ডিজেল চালিত। ডিজেলের দাম বাড়ায় কৃষককে বাড়তি খরচ করতে হবে। এতে উৎপাদনের ঘাটতি হবে। জ্বালানি তেলের দাম ৫ টাকা কমানো প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ৫১ শতাংশ বাড়িয়ে ৩ শতাংশ কমাবেন। এটা কমাতে পারেন।
আলোচনায় অংশ নিয়ে দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির জন্য দেশবাসীর কাছে ক্ষমা চাইলেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু। আওয়ামী লীগে নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের এই নেতা নিজের ও সরকারের পক্ষে মাফ চেয়ে বলেন, আমরা জানি মানুষ কষ্টে আছে। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বৈশ্বিক সংকটের জন্য এই কষ্ট হঠাৎ শুরু হয়েছে। দ্রব্যমূল্য ঊর্ধ্বগতির জন্য আমি আমার ও সরকারের তরফ থেকে জনগণের কাছে মাফ চাচ্ছি। আমি আপনাদের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করছি। সরকারের মন্ত্রীদের অতিকথনের সমালোচনা করে হাসানুল হক ইনু বলেন,প্রধানমন্ত্রী সমবেদনা প্রকাশ করছেন। ধৈর্য্য ধরার আহ্বান করছেন। সেখানে মন্ত্রিসভার কয়েকজন সদস্য দুঃখ কষ্ট নিয়ে সমবেদনার বদলে ঠাট্টা-মশকরা করছেন। এটা মর্মান্তিক ও দুর্ভাগ্যজনক। আমি এর নিন্দা জানাই। দায়িত্ব পালন যারা করতে পারবেন না, তারা দায়িত্ব ছেড়ে দেন। মানুষকে বাঁচান, প্রধানমন্ত্রীকেও বাঁচান।

এই সংবাদটি 48 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com