জগন্নাথপুরে জয়ের জন্য মরিয়া আওয়ামী লীগ: জনমতে এগিয়ে জমিয়তের প্রার্থী

প্রকাশিত: ১২:০৭ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৯, ২০২২

জগন্নাথপুরে জয়ের জন্য মরিয়া আওয়ামী লীগ: জনমতে এগিয়ে জমিয়তের প্রার্থী

বিশেষ প্রতিনিধি :

আগামী দুই নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাচন। নির্বাচনকে সামনে রেখে উপজেলায় প্রচার-প্রচারণার শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে নির্বাচনী প্রচারণা। নিজের পছন্দের প্রতীক মনমতো বেছে নিয়ে প্রার্থীরা ছুটে বেড়াচ্ছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রচার প্রচারণার শেষ মুহূর্তে জয়ের জন্য মরিয়া আওয়ামীলীগ, সুযোগ সন্ধানে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। এদিকে জনমতে এগিয়ে রয়েছে জমিয়তের প্রার্থী সৈয়দ তালহা আলমের খেজুর গাছ। বিএনপির প্রার্থী ছাড়া উপজেলার সরকারদলীয় প্রার্থীর প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। নৌকার প্রার্থীরা নির্বাচনী সভা করে সরকারের ধারাবাহিক উন্নয়নের কথা তুলে ধরছেন ভোটারদের কাছে। আর স্বতন্ত্র প্রার্থীরা দাবি করেছেন নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচন আয়োজনের জন্য। উপজেলা চেয়ারম্যান পদে পাঁচজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করনে। তারা হলেন, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি বর্তমান চেয়ারম্যান আতাউর রহমান (মোটরসাইকেল), উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আকমল হোসেন (নৌকা), উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদির আহমদ মুক্তা (ফুটবল), জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের প্রার্থী সৈয়দ তালহা আলম (খেজুরগাছ) ও আব্বাস চৌধুরী লিটন (ঘোড়া)। ভাইস চেয়ারম্যান পদে পাঁচজন তারা হলেন- জয়দীপ সূত্রধর বীরেন্দ্র (তালা), লাকি মিয়া (টিয়া), আবুল হোসেন লালন (মাইক), তুয়েল মিয়া (টিউবওয়েল), সালেহ আহমদ (চশমা), মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিনজন সুফিয়া খানম সাথী (ফুটবল), রিনা বেগম (কলস) ও সেলিনা বেগম (হাঁস)। এ সকল প্রার্থী নির্বাচনের মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আকমল হোসেন আওয়ামী লীগের দলীয় প্রীতক নৌকা নিয়ে বর্তমান সরকারের উন্নয়নের কথা বলে ভোটারদের মন জয়ের জন্য ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ছুটে বেড়াচ্ছেন। অন্যদিকে, জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আতাউর রহমান মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে তার পাঁচ বছরে উপজেলায় যে উন্নয়ন করেছেন তানিয়ে ভোটারদের কাছে দিনরাত ছুটে বেড়াচ্ছেন। এদিকে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের প্রার্থী সৈয়দ তালহা আলম, সাবেক সংসদ সদস্য শাহিনুর পাশাকে নিয়ে বিভিন্ন ইউনিয়নের ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ছুটে বেড়াচ্ছেন ও বিভিন্ন মসজিদ-মাদরাসায় দান করবেন বলে আশা দিয়ে আসছেন। স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মুক্তাদির আহমদ মুক্তা তার সমর্থকদের নিয়ে দিনরাত চষে বেড়াচ্ছেন পুরো উপজেলা। স্বতন্ত্র চেয়ারম্যার প্রার্থী আব্বাস চৌধুরী লিটনও তার সমর্থক নিয়ে ভোট চাচ্ছেন পাড়ায় পাড়ায়। গণমাধ্যমের অনুসন্ধানে জনমত জরিপে উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে জানা যায়, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের প্রার্থী তালহা আলম এগিয়ে রয়েছেন। এদিকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আকমল হোসেন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মুক্তাদির আহমদ মুক্তা এই দুজন প্রার্থীর নামও এলাকায় কিছুটা শোনা যাচ্ছে। অধিকাংশ ভোটার তাদের অভিমত প্রকাশ করে বলেন, উপজেলা নির্বাচনে যাদের প্রার্থিতা শোনা যাচ্ছে তাদের মধ্যে তালহা আলম এগিয়ে রয়েছেন। কারণ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান আকমল হোসেনকে পরাজিত করতে মরিয়া হয়ে উঠছেন এক স্বতন্ত্র প্রার্থী। এই দুই প্রার্থীর প্রতিযোগিতা চলছে- কে হতে যাচ্ছেন চেয়ারম্যান। তাদের থেকে এগিয়ে রয়েছেন জমিয়তের প্রার্থী তালহা। আমরা তাদের প্রতিযোগিতায় নয়, আমরা এমন একজনকে নির্বাচিত করবো বিশেষ করে জগন্নাথপুরের মানুষ নিরাপদে নির্দ্বিধায় তাদের অধিকার আদায় করতে পারবে। প্রচার-প্রচারণায় পিছিয়ে নেই ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা। তাদের মধ্যে এগিয়ে রয়েছেন জয়দীপ সূত্রধর বীরেন্দ্র তালা প্রতীক নিয়ে। তার সঙ্গে কিছুটা সুর উঠেছে, লাকি মিয়ার টিয়া পাকি প্রতীকের। আরো তিন প্রার্থী তাদের প্রতীক নিয়ে ভোটারের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। অন্যদিকে, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীদের মধ্যে এগিয়ে রয়েছেন সুফিয়া খানম সাথী ফুটবল প্রতীক নিয়ে। তার সঙ্গে আরো দুই প্রার্থী তাদের প্রতীক নিয়ে মাঠে দিনরাত চষে বেড়াচ্ছেন। জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাচন অফিসার মুজিবুর রহমান বলেন, নির্বাচন কমিশন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন। প্রার্থীরা তাদের প্রচার-প্রচারণা সুষ্ঠুভাবে চালিয়ে যাচ্ছেন। আগামী ২ নভেম্বর ভোটাররা শান্তিপূর্ণভাবে ভোটকেন্দ্রে গিয়ে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন।

এই সংবাদটি 112 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com