বৃহস্পতিবার, ১৫ ডিসে ২০১৬ ১১:১২ ঘণ্টা

ড.এমাজ উদ্দীনের ৮৪তম জন্মদিনে

Share Button

ড.এমাজ উদ্দীনের ৮৪তম জন্মদিনে

মোঃ অলিদ তালুকদার: প্রাচ্যের অক্সফোর্ডখ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এর সাবেক ভিসি ও খ্যাতিমান রাষ্ট্রবিজ্ঞানী,বহুগন্থ প্রণেতা প্রফেসর ড. এমাজউদ্দীন আহমদ স্যারের আজ ৮৪ তম জন্মদিন। স্যারের জন্মদিনে বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালবাসা…………..
আমাদের ছায়াবৃক্ষ তপ্তখরায়
একটুকরো শীতল আশ্রয় সদা দিয়ে যায়,
দিকভ্রান্ত পথিককে দেয় দিকের দিশা
কাটে আঁধারে অমানিশা
ভ্রান্ত মাঝি অথই-দরিয়ায়-ঘুমের নেশায় পথ হারায়
ঘুম ভাঙাতে কে এসে পাশে দাঁড়ায়
কালের আলোর প্রদীপ নিয়ে–
সদা জাগ্রত-আঁধারে জ্বালান দীপ
ইশারায় ইশারায় যিনি আমাদের বাঁচান
জাতির বিবেক জাতির ত্রাণ
দুর্ভাগা চেনে ও চেনে না তাঁরে
অবহেলায় রেখে দিয়েছি বারে বারে
সভ্যতার জন্য তবু আত্নবিলীন
আমাদের ছায়া বৃক্ষ প্রফেসর ড. এমাজউদ্দীন আহমদ স্যার।)
শিক্ষাঙ্গণের পুরোধা ব্যক্তিত্ব,রাষ্ট্র বিজ্ঞানের জনপ্রিয় অধ্যাপক,চিন্তাবিদ,লেখক ও বহু গ্রন্থকার সর্বজনশ্রদ্ধেয় আমার প্রিয় অভিভাবক সমতুল্য,এশিয়া মহাদেশের প্রখ্যাত জ্ঞানের সমুদ্র তীর্থ প্রফেসর ড. এমাজউদ্দীন আহমদ স্যারের আজ ৮৪ তম জন্মদিন। তাঁর সম্বন্ধে দুটি কথা লেখার সৌভাগ্য অর্জন করায় আজ নিজেকে ধন্য মনে করছি। তাঁর সম্বন্ধে আমার জ্ঞান সীমিত। যেটি সবচেয়ে ভাল লাগে,সেইটি আগে বলে নেই। এতবড় পণ্ডিত,অথচ ব্যবহার তাঁর শিশুর মত সরল,পাণ্ডিত্যের এতটুকু অভিমান তাকে স্পর্শ করেনি, সবসময় বিনয়ী।বিনয়ী যে পাণ্ডিত্যের বড় ভুষণ, তাকে দেখে অধ্যয়ন চলে। অবিভক্ত বাংলার মালদা জেলার কালীনগর গ্রামে তাঁর জন্ম ১৫ ডিসেম্বর,১৯৩২ খ্রিস্টাব্দ। মেঘে মেঘে তাঁর বেলা হলো, অথচ শিক্ষক ও ছাত্রদের সঙ্গ তাঁর বয়স থামিয়ে দিয়েছে। তাঁর পিতা ও ছিলেন শিক্ষক, এগারো ভাই বোন, মা গৃহের লক্ষ্মী। ম্যাট্রিক পাস করেন, ১৯৪৮, ইন্টারমিডিয়েট ১৯৫০, বিএ ১৯৫২, এমএ ১৯৫৪ সনে। রাষ্ট্র বিজ্ঞান ছাড়া ও ১৯৬১ সনে তিনি ইংরেজি ভাষাতে এমএ ডিগ্রি লাভ করেন এবং কানাডার কুইন্স বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি লাভ করেন ১৯৭৭ সনে। শিক্ষকতা জীবনে বাগেরহাটে পিসি কলেজে অধ্যাপক, পরে নীলফামারী,চুয়াডাঙ্গা এবং রংপুর কলেজে অধ্যাপক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭০ সনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করলেন সিনিয়র লেকচারার হিসেবে। তারপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদ দেশের একজন খ্যাতনামা শিক্ষাবিদ এবং একাডেমিক ব্যক্তিত্ব। তিনি এই বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য এবং ১৯৯২ সনে উপাচার্য রুপে ও দায়িত্ব পালন করেন দীর্ঘ আট বছর। অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদ একজন প্রখ্যাত গবেষক,পর্যালোচক। দীর্ঘ ৩০ বছর ধরে তুলনামূলক রাজনীতি,প্রশাসন ব্যবস্থা,বাংলাদেশের রাজনীতি,বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি,দক্ষিণ এশিয়ার সামরিক বাহিনী সম্পর্কে গবেষণা করে চলেছেন। এসব ক্ষেত্রে তিনি সমগ্র দক্ষিণ এশিয়ায় অত্যন্ত শ্রদ্ধেয় বিশেষজ্ঞ হিসেবে খ্যাতি অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন। তাঁর লিখিত গ্রন্হের সংখ্যা বর্তমানে ৭০ টির অধিক। দেশ-বিদেশের খ্যাতনামা জার্নালে তাঁর লিখিত গবেষণামুলক প্রবন্ধের সংখ্যা শতাধিক।তাঁর লিখিত গ্রন্থগুলির( ইংরেজি) মধ্যে উল্খেযোগ্য হলো- Bureaucratic Elites in Segmented Economic growth, – Bangladesh and Pakistan(1980), Development Administration: Bangladesh(1981), SARC: Seeds of Harmony(1985) Military Rule and Myth of Democracy(1988) । তাঁর সম্পাদিত গ্রন্থ গুলির( ইংরেজি) মধ্যে বিশেষ ভাবে উল্খেযোগ্য হচ্ছে- Bangladesh Politics( 1980) Foreign Policy of Bangladesh( 1984) , Society and Politics in Bangladesh( 1989) , Bangladesh,South Asia and the World(1992) । তাঁর বাংলায় লেখা গ্রন্থ গুলির মধ্যে বিশেষ ভাবে উল্খেযোগ্য হল রাষ্ট্র বিজ্ঞানের কথা(১৯৬৬) ,তুলনামূলক রাজনীতি(১৯৮২) ,-বাংলাদেশের গণতন্রের সংকট(১৯৯১), বাংলাদেশ:সমাজ,সংস্কৃতি ও রাজনীতি(১৯৯২) , সমাজ ও রাজনীতি( ১৯৯৩), গণতন্রের ভবিষ্যৎ( ১৯৯৪) , শান্তি চুক্তি ও অন্যান্য প্রবন্ধ(১৯৯৮) , আঞ্চলিক সহযোগিতা,জাতীয় নিরাপত্তা(১৯৯৯) , ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং অন্যান্য প্রবন্ধ(২০০০),।
শিক্ষাক্ষেত্রে অবদান এবং সৃজনশীল লেখার জন্য তিনি দেশে ও বিদেশে বিশেষ ভাবে সম্মানিত হয়েছেন। শিক্ষা ক্ষেত্রে বিশেষ বিশেষ অবদানের জন্য তিনি লাভ করেছেন আকরাম খান গোল্ড মেডেল, মাইকেল মধুসূদন গোল্ড মেডেল, জিয়া স্মৃতি সংসদ গোল্ড মেডেল, শেরে বাংলা স্মৃতি স্বর্ণপদক, ঢাকা সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক স্বর্ণ পদক,বাংলাদেশ যুব ফ্রন্ট গোল্ড মেডেল, রাজশাহী বিভাগীয় উন্নয়ন ফোরাম স্বর্ণ পদক। সৃষ্টিশীল গবেষণা ও আলেখ্য রচনার জন্য তিনি লাভ করেছেন মহাকাল কৃষ্টি চিন্তা সংঘ স্বর্ণ পদক এবং অন্যান্য অনেক সম্মাননা। ১৯৯২ সালে শিক্ষাক্ষেত্রে অবদানের জন্য তাঁকে দেয়া হয় জাতীয় একুশে স্বর্ণ পদক। যুক্তরাষ্ট্র কেন্দ্রিক এবিআই কতৃক তিনি নব্বই দশকের সর্বাপেক্ষা প্রশংসিত ব্যক্তিত্ব হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেন। মহান আল্লার কাছে ফরিয়াদ করি মহান আল্লাহ্ যেন আমাদের এই জ্ঞান সমুদ্রের তীর্থ ছায়া বৃক্ষ প্রফেসর ড. এমাজউদ্দীন আহমদ স্যারকে জাতির সেবায় আরো দীর্ঘায়ু দান করেন। স্যারের ৮৪ জন্মদিনে নিরন্তর শুভ কামনা করি।
অলিদ তালুকদার, সাংগঠনিক সম্পাদক (সিলেট বিভাগ), জাতীয় শতনাগরিক

এই সংবাদটি 1,039 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com